গ্রীষ্মে যে পাঁচ বই পড়েছেন বিল গেটস

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস নিয়মিত বই পড়েন এবং সেই বইগুলো সম্পর্কে ব্লগে লেখেন।

বিল গেটস এখন মাইক্রোসফটে খুব বেশি সময় দেয় না। বেশির ভাগ সময় কাটে মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশনের কাজে এবং নিজের ব্লগে লিখে। ব্লগে গেলেই চোখে পড়বে তার পড়ার অভ্যাস। সেখানে বই নামে একটি আলাদা বিভাগও রয়েছে। ফলে গেটস ভক্তরা জানতে পারেন প্রিয় মানুষটি কি কি বই পড়লেন।

এবার গ্রীষ্মে তিনি কোন বইগুলো পড়ছেন তা এক ব্লগপোস্টে তুলে ধরেছেন। সেই বইগুলো সম্পর্কে তুলে ধরা হলো এই প্রতিবেদনে।

ব্রন অব ক্রাইম-ট্রেভর নোয়া
ট্রেভর নোয়া একজন জনপ্রিয় দক্ষিণ আফ্রিকান কমেডিয়ান, রেডিও ও টেলিভিশন উপস্থাপক এবং অভিনেতা। তিনি সুনাম অর্জন করছেন মার্কিন টেলিভিশন চ্যানেল দ্য ডেইল শো’য়ে মাধ্যমে। বিল গেটস নিয়মিত এই শো দেখেন। ব্রন অব ক্রাইম বইটিতে ট্রেভর তার জীবনের কথা তুলে ধরেছেন।

ট্রেভর নোয়া দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গে জন্মগ্রহণ করেন। তার মা, প্যাট্রিশিয়া নম্বায়্যিসেলো নোয়াহ, খোসা বংশোদ্ভূত এবং তার বাবা রবার্টের পূর্বপুরুষরা সুইস জার্মান। তার শৈশবে তার মা ইহুদি ধর্মে ধর্মান্তরিত হন। নোয়াহ কৈশোরের দিনগুলো কাটান ম্যারিভেল প্রাইভেট স্কুল অ্যান্ড কলেজ নামক জোহানেসবার্গের একটি ক্যাথলিক স্কুলে।

তার জন্মের সময়কালে বর্ণবৈষম্যনীতি বা আপার্টহাইটের কারণে তার বাবা-মায়ের সম্পর্ক বেআইনী বলে গণ্য হতো। দক্ষিণ আফ্রিকান সংখ্যালঘু শ্বেতাঙ্গ সরকারের শাসনামলে তার মাকে কারাবরণ করতে হয় ও জরিমানা গুনতে হয়। আর তার বাবাকে ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হয় সুইজারল্যান্ডে।

বিল গেটস তার ব্লগে লিখছেন, এই বইটি পড়ে চমৎকার একটি সংগ্রামী জীবনী হাসির ছলে জানা যাবে।

দ্য হার্ট – মায়লিস দে কেরনগাল
এই বইয়ের গল্প এক তরুণের হার্ট ট্রান্সফারের ঘটনাকে কেন্দ্রে করে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। বইটি বিল গেটসকে পড়তে পরামর্শ দিয়েছিলেন তার সহধর্মী মেলিন্ডা গেটস। বইটি সম্পর্কে বিল গেটস বলেন, বইটির ভাষা অনেক সুন্দর, একজন পাঠক বইটি পড়ার সময় নিজেকে অনুভব করতে পারবেন। বইটি পড়ার কিছু সময়ের মধ্যে পাঠকের মনে হবে তিনি গল্পের একটি চরিত্র।

হিলবিলি এলিজি’- জে.ডি. ভেন্স
আত্নজীবনীমূলক এই বইটি নিউইয়র্ক টাইমসের ২০১৬ সালে বেস্ট সেলার তালিকায় ছিল। এই বইয়ে লেখক ভেন্সের দারিদ্র্য নিরসনের জটিল সাংস্কৃতিক ও পারিবারিক বিষয়গুলির মধ্যে অন্তর্দৃষ্টি তুলে ধরা হয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাপালেচিয়ান শহরের কেটেছে লেখকদের জীবন। সেখানকার সংগ্রামী জীবন নিয়ে বইটি পড়তে গেটসে বেশ ভালো লেগেছে বলে ব্লগ জানান তিনি।

হোমো ডেউস-নোয়া ইউভাল হারারি
গত গ্রীষ্মে বিল গেটল নোয়া ইউভাল হারারির লেখা সেপিয়েন্স বইটি পড়েছিলেন। বইটি তার স্ত্রী মেলিন্ডা গেটসও পড়েছেন। সেই ধারাবাহিকতায় লেখকের এই বইটি পড়া বলে ব্লগে জানান তিনি।

বইটিতে আমাদের আজকের মানবজাতি ও সামনের দিনের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, জিনতত্ত্ব, প্রকৌশল ও অন্যান্য প্রযুক্তি নিয়ে লিখেছেন, যা ভবিষ্যতে আমাদের জীবনধারা পাল্টে দেবে। এমন একটি ধর্মীয় নিয়ম রয়েছে যা ভালো জীবনযাপন করতে বা অসুস্থতা, ক্ষুধা এবং যুদ্ধ থেকে বেরিয়ে আসার মত আরও পার্থিব লক্ষ্যসমূহের মত। আমরা কি আসলেই এসব জিনিস অর্জন করেছি? এমন বিষয়ে বিভিন্ন মতামত লেখক বইটিতে তুলে ধরেছেন।

তবে লেখকের কিছু বক্তব্যের সঙ্গে দ্বিমত আছে বলে ব্লগে জানান  বিল গেটস। মানবজাতি নিয়ে যাদের আগ্রহ রয়েছে, তাদের অবশ্যই এই বইটি পড়া উচিত বলে মনে করেন বিল গেটস।

অ্যা ফুল লাইফ -জিমি কার্টার
একজন আমেরিকান রাজনীতিবিদ, লেখক এবং ডেমোক্রেটিক পার্টির সদস্য জিমি কার্টার। যিনি ১৯৭৭ থেকে ১৯৮১ সাল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৩৯তম রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ২০০২ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন। তার গড়া কার্টার সেন্টার দরিদ্র্য মানুষের স্বাস্থ্যসুরক্ষা নিয়ে কাজ করছে। বইটিতে তার ব্যক্তিগত ও প্রকাশ্য জীবনের বেশ সাহসী স্মৃতিচারণ তুলে ধরা হয়েছে।

বিল গেটস ও মেলিন্ডা গত বছর জিমি কার্টারের সাথে একটি সন্ধ্যা কাটান। সেই স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বিল লেখেন, বাড়িতেও কার্টারের কোনো অবসর ছিল না। কয়েক বছর ধরে তিনি বাড়িটি সাজাচ্ছেন। জানতে পারি অবসর সময়ে ছবিও আঁকেন তিনি।

এক ডজনের বেশি বই লিখেছেন তিনি। এই বইটিতে  রাজনৈতিক , অর্থনৈতিকসহ হোয়াটস হাউজের নানা বিষয় উঠে এসেছে।

বিল গেটসের ব্লগ অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

আবার সেরা অ্যাপল

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : টানা ছয় বছর বিশ্বের সবচেয়ে মূল্যবান ব্র্যান্ড তালিকার শীর্ষ স্থানে অবস্থান করছে অ্যাপল। এবার তার ব্যতিক্রম হয়নি। সম্প্রতি মার্কিন সাময়িকী ফোর্বসের তালিকায় উঠে আসে এই তথ্য। ১৭০ বিলিয়ন ডলার নিয়ে শীর্ষ অবস্থানে অ্যাপল।

এই তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে গুগল। গত বছরের তুলনায় চলতি বছর ২৩ শতাংশ ভ্যালু বেড়ে কোম্পানিটির ব্র্যান্ডের বাজারমূল্য দাঁড়িয়েছে ১০ হাজার ১৮০ কোটি ডলার। এ নিয়ে টানা দুই বছর সেরা ব্র্যান্ড হিসেবে অ্যাপলের পরেই অবস্থান করে নিয়েছে গুগল।

apple-store-techshohor

শীর্ষ পাঁচে ১৬ শতাংশ ভ্যালু বৃদ্ধি পেয়ে ৮৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বাজারমূল্যের মাইক্রোসফট তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। ৭৩.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার নিয়ে চতুর্থ অবস্থানে মার্ক জাকারবার্গের ফেইসবুক। গত বছরের তুলনায় প্রতিষ্ঠানটির বাজার মূল্যে ৪০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে কোকাকোলা।

উল্লেখ্য ২০১৬ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে মোট ৭ কোটি ৮০ লাখ ইউনিট আইফোন বিক্রি করেছে অ্যাপল। এ সময় প্রতিটি আইফোন গড়ে ৬৯৫ ডলারে বিক্রি হয়েছে। ফলে স্মার্টফোনের বাজারে ৯২ শতাংশ মুনাফা অ্যাপলের ঘরে।

মাইক্রোসফটের নতুন সারফেস প্রো

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : টানা সাড়ে ১৩ ঘণ্টা ব্যাকআপ সুবিধা নিয়ে নতুন সারফেস প্রো উম্মুক্ত করেছে মাইক্রসফট।

পূর্বের সংস্করণের মত ডিজাইনের ডিভাইসটির ওজন ৭৭০ গ্রাম। এতে যুক্ত করা হয়েছে উন্নত সারফেস পেন, যার প্রেসার লেভেল ৪০৯৬।

ডিভাইসটি সম্পর্কে মাইক্রোসফটের সারফেস প্রধান প্যানস প্যানয় বলেন, সম্পূর্ণ নতুনরূপে গ্রাহকদের জন্য ট্যাবটি আনা হয়েছে। এটি ফোরজি এলটিই সংযোগ সমর্থন করবে। ডিভাইসটিতে গ্রাহকরা পাবেন আরও দ্রুত গতির নিশ্চিয়তা।

surface-pro-lead-2_techshohor

১২.৩ ইঞ্চি ডিসপ্লের ডিভাইসটির রেজুলেশন ২৭৩৬*১৮২৪ পিক্সেল, যা ২৬৭ পিপিআই পিক্সেল ডেনসিটি সমৃদ্ধ।

প্রসেসর দিক দিয়ে ইন্টেল এম৩, কোর আই ৫ এবং কোর আই ৭ এই তিনটি সংস্করণে পাওয়া যাবে। অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে রয়েছে উইন্ডোজ ১০ প্রো।

৪, ৮ এবং ১৬ জিবি র‍্যামের সংস্করণে ডিভাইসটিতে ১২৮ জিবি, ২৫৬ জিবি, ৫১২ জিবি এবং এক টেরাবাইট ইন্টারনাল মেমোরির সংস্করণ।

ছবি তোলার জন্য পিছনে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা এবং সামনে রয়েছে ৫ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। দুই ক্যামেরা দিয়ে এইচডি ভিডিও রেকর্ড করা যাবে।

ডিভাইসটিতে ইউএসবি ৩.০, ৩.৫ এমএম হেডফোন জ্যাক, মিনি ডিসপ্লে পোর্ট ও মাইক্রোএসডি কার্ড ব্যবহারের সুবিধা রয়েছে।

৭৯৯ মার্কিন ডলার থেকে ডিভাইসটির মূল্য শুরু হয়েছে। ডিভাইসটি গ্রাহকরা হাতে পাবেন ২৫ জুন। তবে বিশ্বের ২৫টি দেশে প্রি-অর্ডার শুরু হয়েছে ।

দ্য নেক্সট  ওয়েব অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

মাইক্রোসফটের নতুন ল্যাপটপ

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর :  নতুন সারফেস ল্যাপটপ বাজারে এনেছে প্রযুক্তি জায়ান্ট মাইক্রোসফট।

১৩.৫ ইঞ্চি ডিসপ্লের ডিভাইসটিতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে রয়েছে উইন্ডোজ ১০ এস।

মঙ্গলবার নিউইয়র্ক সিটিতে এক অনুষ্ঠানে মাইক্রোসফট নতুন ল্যাপটপটির উন্মুক্ত করে।

microsoft-techshohor

অনুষ্ঠানে মাইক্রোসফট ডিভাইসেস বিভাগের প্রধান প্যানস প্যানায় বলেন, ল্যাপটপটিতে নতুন উইন্ডোজ ১০ এস অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করা হয়েছে। এটির ফলে আরও দ্রুত গতির নিশ্চিয়তা দেবে ল্যাপটপটি। এছাড়া ল্যাপটপটিতে পিক্সেল সেন্স ডিসপ্লে ব্যবহার হয়েছে, যাতে সারফেস পেন সমর্থন করবে।

দেখতে হালকা পাতলা ধরনের ল্যাপটপটি ব্যবহার করা হয়েছে শক্তিশালী ব্যাটারি। ফলে টানা ১৪ ঘণ্টা চার্জ থাকবে ডিভাইসটিতে। ডিভাইসটি ওজন মাত্র ১ কেজি ৫২ গ্রাম। এছাড়াও এতে রয়েছে হেডফোন জ্যাক, মিনি ডিসপ্লেপোর্ট, ইউএসবি পোর্ট সুবিধা।

কোর আই ফাইভ প্রসেসর, ১২৮ জিবি এসএসডি, ৪ জিবি র‍্যাম, ইন্টেল এইচডি গ্রাফিক্স ৬২০ সংস্করণটির মূল্য ৯৯৯ মার্কিন ডলার। একই প্রসেসর যুক্ত ২৫৬ জিবি এসএসডি, ৮ জিবি র‍্যামের সংস্করণটি মূল্য ১ হাজার ২৯৯ মার্কিন ডলার।

কোর আই সেভেন প্রসেসর যুক্ত ২৫৬ জিবি এসএসডি, ৮ জিবি র‍্যাম, ইন্টেল প্লাস গ্রাফিক্স ৬৪০ সংস্করণটির মূল্য ১ হাজার ৫৯৯ মার্কিন ডলার। একই প্রসেসর যুক্ত ৫১২ জিবি এসএসডি, ১৬ জিবি র‍্যামের সংস্করণটি মূল্য ২ হাজার ১৯৯ মার্কিন ডলার।

সিনেট অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

মাইক্রোসফটের নতুন ল্যাপটপের ছবি ফাঁস!

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : নতুন সারফেস ল্যাপটপ আনতে যাচ্ছে মাইক্রোসফট। তবে প্রতিষ্ঠানটি আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো তথ্য না জানালেও ফাঁস হয়েছে ডিভাইসটি সম্পর্কে তথ্য ও ছবি।

ওয়াকিংক্যাটে ফাঁস হওয়ার তথ্য থেকে জানা যায়, সারফেস ল্যাপটপটি হতে পারে ১৩.৫ ইঞ্চি ডিসপ্লের। এতে থাকবে সারফেস প্রো ৪ এর মত কিবোর্ড। তবে ডিভাইসটিতে কি ধরনের প্রসেসর বা হার্ডওয়ারে কি থাকবে সে সম্পর্কে কোনো তথ্য জানা যায়নি।

microsoft-techshohor

ফাঁস হওয়ার ছবি থেকে দেখা যায়, ডিভাইসটিতে রয়েছে ইউএসবি পোর্ট, মিনি ডিসপ্লে পোর্ট এবং পাওয়ার সংযোগ। ডিভাইসটির ওজন হতে পারে ২.৭৬ পাউন্ড।

ধারণা করা হচ্ছে এই ডিভাইসটিতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে থাকতে পারে উইন্ডোজ ১০ এস, গুগল ক্রোম ওএসের বিকল্প। ফলে এই ডিভাইসটি ক্রোমবুক ডিভাইসের সাথে বাজারে প্রতিযোগিতা করতে পারে।

মঙ্গলবার মাইক্রোসফট পণ্য উন্মোচনের একটি সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করেছে। এই অনুষ্ঠানে সারফেস ল্যাপটপ, উইন্ডোজ ১০ এর নতুন আপডেট, শিক্ষামূলক বিভিন্ন টুলস এবং মাইক্রোসফট অফিসের নতুন সংস্করণ উন্মুক্ত হতে পারে। অপেক্ষা মাত্র কয়েক ঘণ্টার। দেখা যাক কী কী উন্মোচন করে প্রযুক্তি জায়ান্ট মাইক্রোসফট।

নেক্সট ওয়েব অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

উইন্ডোজ ১০ এ নতুন আপডেট চলতি মাসেই

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেমের নতুন আপডেট নিয়ে হাজির হচ্ছে প্রযুক্তি জায়ান্ট মাইক্রোসফট। চলতি মাসেই সেটা পাওয়া যাবে।

এক ব্লগপোস্টে আনুষ্ঠানিভাবে প্রতিষ্ঠানটি এই ঘোষণা দিয়েছে। ‘উইন্ডোজ ১০ ক্রিয়েটরস ‘ নামে আপডেটটি চলিতে মাসে ১১ তারিখ উন্মুক্ত হবে। এটি সাম্প্রতিক সময়ে উইন্ডোজ ১০ এর সবচেয়ে বড় আপডেট।

নতুন আপডেটে থ্রিডি অ্যাপ ও প্রিন্টিংয়ের বিষয়ে নজর দেয়া হয়েছে। কেননা ২০২০ সাল নাগাদ থ্রিডি প্রিন্টিয়ের বাজার ৬২ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। তাই মাঠে নামতে প্রস্তুত মাইক্রোসফট। নতুন আপডেটে পেইন্ট অ্যাপে আরও সহজেই থ্রিডি ছবি নিয়ে কাজ করা যাবে।

windows-10-techshohor

এতে উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার করে এক্সবক্সে গেইম খেলা হবে আরও সহজ। এছাড়া মাইক্রোসফট এইজ ব্রাউজারের উন্নত সংস্করণ আনা হবে। ফলে আরও দ্রুত ও নিরাপদে ব্রাউজিং সুবিধা পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছে মাইক্রোসফট।

রাতে কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের জন্য ‘নাইট লাইট’ নামে বিশেষ ফিচার আনা হবে। থাকবে পূর্বের নিরাপত্তা বাগ ফিক্সডসহ আরও নানা ফিচার।

প্রথম ধাপে প্রতিষ্ঠানটির নতুন ডিভাইস ও হার্ডওয়্যার পার্টনারদের দেবে উইন্ডোজ ১০ ক্রিয়েটরস আপডেট। তারপর ধীরে ধীরে সব ব্যবহারকারীদের জন্য উন্মুক্ত হবে এটি।

এদিকে একই দিনে উইন্ডোজ ভিসতার সকল সাপোর্ট বন্ধ করে দিতে যাচ্ছে মাইক্রোসফট। প্রতিষ্ঠানটির ইতিহাসে সবচেয়ে সমালোচিত অপারেটিং সিস্টেম ছিল ভিসতা।

মাইক্রোসফট ব্লগ অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

আরও পড়ুন: 

ফোল্ডেবল ফোন আনছে মাইক্রোসফট!

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মাইক্রোসফট ফোল্ডেবল ফোন আনতে পারে চলতি বছরের শেষ নাগাদ এমন গুঞ্জন চলছে প্রযুক্তি দুনিয়াতে। ইতোমধ্যে ফোল্ডেবল ফোনের প্যাটেন্ট নিয়েছে মাইক্রোসফট। প্রতিষ্ঠানটির নতুন প্যাটেন্ট নাম ডিসপ্লে ডিভাইস।

মাইক্রোসফটের এই প্যাটেন্টের কয়েকটি ছবিও প্রকাশ হয়েছে। ছবিগুলো দেখে মনে হচ্ছে ফোনটি চাইলে বইয়ের মত ভাঁজ করে ব্যবহার করা যাবে। যুক্তরাষ্ট্রে এই প্যাটেন্ট নম্বর ইউএস২০১৭/০০৮৬৩০৮ এ১।

foldable-phone-techshohor

মাইক্রোসফট লুমিয়া উৎপাদন বন্ধ করে দিয়েছে। কেননা এই সিরিজটি জনপ্রিয়তা ও ব্যবসা সফল হয়নি প্রতিষ্ঠানটির জন্য। তাই বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির লক্ষ্যে উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেম চালিত ফোন বাজারে এনে জনপ্রিয়তা পাওয়ার।  এক্ষেত্রে ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে ডেক্সটপ ও ফোনের একই ধরনের ফিচার ও সুবিধার দিকে ঝুঁকছে প্রতিষ্ঠানটি।

ফোল্ডেবল ফোনের বাজারে মাইক্রোসফট একা নয়। স্যামসাং, এলজি মত প্রযুক্তি নিমার্তা প্রতিষ্ঠানগুলো ইতোমধ্যে কাজ শুরু করে দিয়েছে ফোল্ডেবল ফোনের। কয়েক মাস ধরে গুঞ্জন চলছে চলতি বছরের শেষ নাগাদ স্যামসাং ফোল্ডেবল ফোন নিয়ে হাজির হতে যাচ্ছে। এদিকে আইফোন ৮ নিয়ে চমক দিবে অ্যাপল এতেও থাকতে পারে বাঁকানো ডিসপ্লে।

চলতি বছর ফোনের বাজার দখলে মাইক্রোসফটকে অনেক প্রতিযোগিতার সম্মুখীন হতে হবে। তবে ফোল্ডেবল ফোন সম্পর্কে কোনো তথ্য জানায়নি মাইক্রোসফট।

ফোন এরিনা অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

এপ্রিলে বন্ধ হচ্ছে উইন্ডোজ ভিসতা সাপোর্ট

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর :  উইন্ডোজ ভিসতার কথা মনে আছে? মাইক্রোসফটের বহুল জনপ্রিয় অপারেটিং সিস্টেম। এক্সপির পরেই বাজারে আনা হয়েছিল?

মনে না থাকলে মনে করুণ। খুব বেশি দিনের কথা নয় কিন্তু। ২০০৭ সালের কথা।

কিন্তু যতটা আশা নিয়ে ওএসটি আনা হয়েছিল ঠিক ততোটাই হতাশ করেছে ব্যবহারকারীদের। ফলে মাইক্রোসফটের ইতিহাসে সবচেয়ে সমালোচিত অপারেটিং সিস্টেম হিসেবেও স্থান পেয়েছে এটি।

দীর্ঘ দশ বছর পরে অপারেটিং সিস্টেমটির সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করতে যাচ্ছে মাইক্রোসফট। প্রতিষ্ঠানটি আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা দিয়েছে চলতি বছর এপ্রিলের ১১ তারিখ থেকে বন্ধ হয়ে যাবে ভিসতার সকল সাপোর্ট।

windows-vista-techshohor

মাইক্রোসফট জানিয়েছে, সাপোর্ট বন্ধ হওয়ার পর থেকে ভিসতার জন্য কোনো ধরনের আপডেট, সিক্যুরিটি ফিক্স, অনলাইন সাপোর্ট পাওয়া যাবে না।

এক ব্লগপোষ্টে মাইক্রোসফট আরও জানায়, মাইক্রোসফট উইন্ডোজ ভিসতার ব্যবহারকারীদের ১০ বছর সাপোর্ট দিয়েছিলো। এগিয়ে যাওয়া প্রযুক্তি সাথে তাল মিলিয়ে দিতে পুরানো ওএসটি সাপোর্টের জন্য সময় নষ্ট চায় না মাইক্রোসফট। তাই সেবা বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে।

সে সকল ব্যবহারকারীরা এখনো ভিসতা ব্যবহার করেছেন তারা যেন দ্রুত উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেমটি আপডেট করে নেন।

উল্লেখ্য বর্তমানে ভিসতার ব্যবহারকারী খুবই কম। মাত্র ০.৭৮ শতাংশ ব্যবহারকারী সমালোচিত ওএসটি ব্যবহার করছেন। উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার করছেন ২৫ শতাংশ ব্যবহারকারী।

২০১৪ সালে সাপোর্ট বন্ধ হওয়ার পরেও এখনো ৫ শতাংশ ব্যবহারকারী এক্সপি ব্যবহার করছেন। তবে ৪৮ শতাংশ ব্যবহারকারী এখনো উইন্ডোজ ৭ ব্যবহার করছেন।

তাই যে সকল অল্প সংখ্যাক ব্যবহারকারীরা এখনো উইন্ডোজ ভিসতা ব্যবহার করছেন দ্রুতই অপারেটিং সিস্টেমটি পরিবর্তন করে নেয়া উচিত।

সিনেট অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

আইওএসের জন্য কর্টানার নতুন আপডেট

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : আইফোনের জন্য টেক জায়ান্ট মাইক্রোসফটের ডিজিটাল সহকারী অ্যাপ্লিকেশন কর্টানার নতুন আপডেট এসেছে। এ সংস্করণে অ্যাপটি রিডিজাইনের পাশাপাশি নতুন ইউজার ইন্টারনফেস যুক্ত করা হয়েছে।

কর্টানার সাহায্যে ভয়েস কমান্ড দিয়ে মেইল পাঠানো, ইভেন্ট শিডিউল, ওয়েবসার্চিং, ক্লাউড সেবা ইত্যাদি কাজ করা যাবে। নতুন আপডেটের সংস্করণ হলো ২.০.০।

এ সংস্করণ ব্যবহার করে আগের তুলনায় আরও দ্রুত ব্যবহারকারীদের প্রশ্নের উত্তর দিতে পারবে কর্টানা।

iso-cortana-techshohor

আইওএসের জন্য কর্টানার উন্নত করার উদ্যোগ অনেককে অবাক করেছে। কেননা এ ডিজিটাল সহকারীর প্রতিপক্ষ সিরি রয়েছে আইওএস অপারেটিং সিস্টেমে।

বিশ্লেষকদের ধারণা, ডিজিটাল সহকারী অ্যাপ্লিকেশনের বাজারে সিরির সঙ্গে পাল্লা দিতে কর্টানাকে এগিয়ে রাখতে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

আইওএসের পাশাপাশি গুগলের অ্যান্ড্রয়েডের জন্যও রয়েছে কর্টানা। তবে বাংলাদেশের অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের জন্য এখনও কর্টানা ব্যবহারের সুবিধা চালু হয়নি।

২০১৫ সালের ডিসেম্বরে বেটা সংস্করণ ব্যবহারের জন্য আইফোনে উন্মুক্ত করা হয়েছিল কর্টানা।

মাইক্রোসফট কিনল এআই স্টার্টআপ মালুবা

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : প্রযুক্তি বিশ্লেষকদের মতে ভবিষ্যৎ প্রযুক্তি দুনিয়ায় রাজত্ব করবে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স বা কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা(এআই)। এই খাত থেকে আসবে উল্লেখ্যযোগ্য হারে মুনাফা। তাই এখন প্রযুক্তি জায়ান্টগুলোর নজর এই খাতে। সেই ধারায় এগিয়ে থাকতে মাইক্রোসফট এআই স্টার্টআপ মালুবাকে কিনে নিয়েছে।

তবে কি পরিমাণ অর্থের বিনিময়ে এই অধিগ্রহণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে এই সম্পর্কে কোনো তথ্য প্রকাশ করেনি মাইক্রোসফট ও মালুবা।

microsoft-techshohor

অর্থ সংক্রান্ত কোনো তথ্য না জানালেও এই অধিগ্রহণ সম্পর্কে মুখ খুলেছেন আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স অ্যান্ড রিসার্চ বিভাগের পরিচালক হ্যারি শাম। তিনি জানান, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সকে আরও মানুষের মত করে চিন্তা করতে কাজ করাবে মাইক্রোসফট। মালুবা’র স্টার্টআপের চিন্তাধারা মাইক্রোসফটের সাথে মিল রয়েছে। তাই মাইক্রোসফট এআই’য়ের আরও উন্নতি সাধনের লক্ষ্যে এই স্টার্টআপ অধিগ্রহণ করছে। আশা করছি পরবর্তী সময়ে গ্রাহকের আরও উন্নত সেবা দিতে পারবে মাইক্রোসফট।

২০১১ সালে মালুবায়ের দুই সহ-প্রতিষ্ঠাতা হলেন কাহির সুলেমান ও স্যাম পাশুপালক। অধিগ্রহণ হলেও প্রতিষ্ঠানটিতে নিজ পদেই থাকবে দুই সহ-প্রতিষ্ঠাতা।

উল্লেখ্য অধিগ্রহণের প্রক্রিয়া মাইক্রোসফটের জন্য নতুন নয়। গত বছর দুই হাজার ৬০০ কোটি ডলারে লিঙ্কডইন কিনে প্রযুক্তি দুনিয়াকে অবাক করে দিয়েছিলো মাইক্রোসফট।

গিকটাইম ডটকম অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

নতুন উইন্ডোজ ফোন আসবে আগামী বছর

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : উইন্ডোজ ফোন নিয়ে বাজারে সুবিধাজনক অবস্থানে নেই সফট জায়ান্ট মাইক্রোসফট। তবুও চেষ্টা চালিয়ে যেতে চায় প্রতিষ্ঠানটি। প্রযুক্তি বিশ্বে গুঞ্জন চলছে এইচপির সঙ্গে মিলে মাইক্রোসফট নতুন উইন্ডোজ চালিত স্মার্টফোন তৈরি করছে। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী বছর দেখা মিলবে নতুন উইন্ডোজ ফোনের।

ফোনটির কনফিগারেশন কী হতে পারে এই সম্পর্কে তেমন কোনো তথ্য প্রকাশ হয়নি। ধারণা করা হচ্ছে, লুমিয়ার মত দেখতে ডিজাইন হতে পারে এই ফোনের। তবে থাকবে উন্নত ক্যামেরা এবং প্রসেসর।

IE_Pin_LiveTile_WindowsPhone_techshohor

আরেক গুঞ্জনে ধারণা করা হচ্ছে মাইক্রোসফট এমনভাবে নতুন স্মার্টফোনটি তৈরি করতে পারে যা একই সঙ্গে মিনি ল্যাপটপের মতই কাজ করবে। উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেম চালিত স্মার্টফোনগুলো একই সাথে ফোন ও কম্পিউটার হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

মাইক্রোসফট অফিসিয়ালভাবে কোনো তথ্য না জানালেও এটি নিশ্চিত, হার্ডওয়্যার বাজারে শক্ত অবস্থানে যেতে চায় প্রতিষ্ঠানটি। তাই তো চলতি বছর নতুন সারফেস বুক, সারফেস স্টুডিও এনে বিশ্বসে তাক লাগিয়ে দিয়েছিল। কম্পিউটারের পর এবার মাইক্রোসফটের নজর স্মার্টফোন নিয়ে বাজারের দিকে।

সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে ঘোষণা আসতে পারে নতুন ফোনের। তবে অফিসিয়ালভাবে যেহেতু কোনো ঘোষণা আসেনি তাই উইন্ডোজ ফোন ভক্তদের অপেক্ষা পালা শুরু।

ফোনএরিনা অবলম্বনে তুসিন আহমেদ