সাইবার নিরাপত্তায় প্রয়োজন সচেতনতা-সমন্বয়

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : সচেতনতা এবং সরকারি-বেসরকারি সংস্থাগুলোর কাজের সমন্বয় দেশে সাইবার হামলার ঝুঁকি কমাতে সক্ষম।

শুক্রবার বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি(বিসিএস) ইনোভেশন সেন্টারে ‘সাইবার নিরাপত্তা এবং আমাদের প্রস্তুতি’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে এমন মতামত দেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার।

তিনি বলেন, তবে এই হামলা ঠেকাতে শুধু সরকারকে কাজ করলে হবে না। দেশে ডাক্তার এবং ইঞ্জিনিয়ার পর্যাপ্ত পরিমাণ থাকলেও তথ্যপ্রযুক্তিতে অনেতেই অভিজ্ঞ নয়। সবাই সাইবার নিরাপত্তার কথা বললেও, এই সেক্টরে বিনিয়োগ করতে ব্যক্তিগত বা প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ে তেমন আগ্রহ দেখা যায় না। তবে এক্ষেত্রে সাইবার নিরাপত্তায় বিনিয়োগ বাড়ানোর কথা বলেন তিনি।

BCS-Roundtable-Techshohor

সাইবার নিরাপত্তায় আধুনিক ল্যাব স্থাপন হয়েছে, যা থেকে বিশ্বে ঘটে যাওয়া সাইবার হামলাগুলো পর্যবেক্ষণ করতে পারি। এছাড়াও সাইবার নিরাপত্তা আইন হচ্ছে, তাই আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই বলেও জানান তিনি।

গোলটেবিল বৈঠকে বিশেষ অতিথি তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি ব্যাকগ্রাউন্ডের অভিজ্ঞ লোক আমাদের প্রয়োজন। সাইবার নিরাপত্তার জন্য গবেষণার প্রতি জোরও দিতে হবে। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ কম্পিউটার ইমার্জেন্সি রেসপন্স টিম(বিডিসার্ট) গঠন করা হয়েছে। তাছাড়া সুপ্রিম সাইবার সিকিউরিটি কাউন্সিল এবং সাইবার সিকিউরিটি এজেন্সি প্রতিষ্ঠার কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

গোল টেবিল বৈঠক সঞ্চালন করেন বিসিএস সভাপতি আলী আশফাক। বৈঠকে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাইবার সিকিউরিটি সেন্টারের পরিচালক ড. তৌহিদ ভূঁইয়া।

তিনি দেখান, গত সপ্তাহে ঘটে যাওয়া বিশ্ব্যাপী সাইবার হামলায় মাত্র ০.০০০৭ শতাংশ আক্রান্ত হয়েছে বাংলাদেশ। সাইবার আক্রমণের অনেকগুলো ধরণ রয়েছে। সবগুলো আক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য সরকারের তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের সঙ্গে বেসরকারি সংস্থা এবং তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞদের যৌথভাবে কাজ করতে হবে।

র‌্যানসমওয়্যার ও অন্যান্য ম্যালওয়ার থেকে নিরাপদ থাকতে যুতসই অ্যান্টি-ম্যালওয়্যার টুলস ব্যবহারসহ অন্যান্য করণীয়, প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ তথ্যপ্রযুক্তি জনশক্তি তৈরি, কানেক্ট উইথ কেয়ার, সরকার এবং তথ্যপ্রযুক্তি সংগঠনগুলোর একযোগে কাজ করা, ডাটার নিরাপত্তা প্রদানসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের জেনারেল ম্যানেজারসহ ২১ জন আইটি এবং সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ প্যানেল আলোচক হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ মতামত তুলে ধরেন।

আইসিটি বিজনেস প্রমোশন কাউন্সিল এবং বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি যৌথভাবে গোলটেবিলটি আয়োজন করে।

ইমরান হোসেন মিলন

ফেনীতে তথ্যপ্রযুক্তি সচেতনতার নানা আয়োজন

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ফেনিতে তথ্যপ্রযুক্তি সচেতনতায় নানা কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস) এবং আইসিটি বিজনেস প্রমোশন কাউন্সিল যৌথ আয়োজনে দিনব্যাপী এসব কর্মসূচী করা হয়েছে।

জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে চার শতাধিক শিক্ষার্থী, শিক্ষক, অভিভাবক ও বিভিন্ন শ্রেণীপেশার জনগণের মাঝে আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তির সর্বশেষ সংস্করণের ব্যবহারিক প্রয়োগ, ডিজিটাল বাংলাদেশ সম্পর্কে ধারণা, তথ্যপ্রযুক্তিতে বাংলাদেশের অগ্রগতির চিত্রসহ নানাবিধ বিষয় উপস্থাপন করেন সংশ্লিষ্টরা।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ফেনী জেলা প্রশাসক শ্রী মনোজ কুমার রায়। কর্মসূচিতে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ক্রিয়েটিভ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের অধ্যক্ষ সৈয়দ আখতারুজ্জামান। কর্মসূচি সমন্বয় করেন বিসিএস এর মহাসচিব ইঞ্জিনিয়ার সুব্রত সরকার।unnamed

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফেনী সদরের উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান, আইসিটি বিজনেস প্রমোশন কাউন্সিলের প্রতিনিধি ফয়সাল খান, সময় টিভির ব্যুরো চিফ বখতিয়ার ইসলাম মুন্না, বিসিএস সদস্য সরওয়ার হোসেন রুবেলসহ ফেনী শাখার কর্মকর্তাবৃন্দ।

বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির কুমিল্লা শাখার ভাইস-চেয়ারম্যান অজয় কৃষ্ণ সাহা’র সভাপতিত্বে এই কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়।

শ্রী মনোজ কুমার রায় বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি সম্পর্কে সম্যক ধারণা ছাড়া ডিজিটাল বাংলাদেশে শিক্ষার্থীরা উন্নতির পথে অগ্রসর হতে পারবে না। পরিবর্তনশীল প্রযুক্তি সম্পর্কে জানতে নিয়মিত এই ধরনের আয়োজন রাজধানীর সঙ্গে জেলা শহরগুলোর দুরত্ব ঘুচিয়ে দেবে।

সুব্রত সরকার বলেন, বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি সারাদেশে প্রযুক্তির আলো ছড়িয়ে দিতে কাজ করে যাচ্ছে। শুধু শিক্ষার্থীদের কাছেই নয়, আমরা চাই সাধারণ মানুষের কাছেও প্রযুক্তি জ্ঞান পৌঁছে যাক। ডিজিটাল জাতি গঠনে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে অভিভাবকদেরও সচেতন হতে হবে। প্রযুক্তির প্রতি আগ্রহ বাড়াতে হবে। তাহলেই আমরা হতে পারবো সমৃদ্ধ জাতি।

কর্মসূচিতে ডিজিটাল বাংলাদেশ, আউটসোর্সিং, কম্পিউটারের নানাবিধ কলাকৌশল, মাল্টিমিডিয়া প্রেজেন্টেশন, ডিজিটাল বাংলাদেশের পথে আমাদের অগ্রযাত্রা শীর্ষক ভিজুয়াল প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করা হয়।

ইমরান হোসেন মিলন

ব্যবসাকে সমৃদ্ধ করতে প্রশিক্ষণ কর্মশালা

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : তথ্যপ্রযুক্তি খাতে ব্যবসার সমৃদ্ধির জন্য বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস) দিনব্যাপী ব্যবসা সম্প্রসারণ নিয়ে একটি প্রশিক্ষণ কর্মশালা করেছে।

বিসিএস সভাপতি আলী আশফাক শনিবার কর্মশালাটির উদ্বোধন করেন। এসময় বিসিএস মহাসচিব ইঞ্জিনিয়ার সুব্রত সরকার উপস্থিত ছিলেন।

প্রশিক্ষণ কর্মসূচী পরিচালনা করেন ম্যানেজম্যান্ট অ্যান্ড আইটি কনসাল্টিং লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে প্রশিক্ষক হিসেবে খ্যাত শেখ ওয়ালিউর রহমান। কর্মশালাতে বিসিএস সদস্য প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা অংশগ্রহণ করেন।

BCS-GROW-YOUR BUSINESS_TECHSHOHOR

বিসিএস সভাপতি আলী আশফাক বলেন, প্রত্যেক ব্যবসার একটি নির্দিষ্ট লক্ষ্য থাকতে হবে। ব্যবসার সফলতার জন্য একটি সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা অত্যাবশ্যকীয়। একজন ব্যবসায়ী কখনো ব্যবসায় অকৃতকার্য হবেন না যদি তিনি ব্যবসা করার জন্য পর্যাপ্ত ব্যাকআপ এবং পরিপূর্ণ পরিকল্পনা প্রণয়ন করেন।

দিনশেষে অংশগ্রহণকারীদের সনদ প্রদান করা হয়। সনদ প্রদান অনুষ্ঠানে বিসিএস সভাপতি আলী আশফাক, বিসিসি নির্বাহী পরিচালক স্বপন কুমার সরকার, বিসিএস সহ-সভাপতি ইউসুফ আলী শামীম, আইসিটি বিজনেস প্রমোশন কাউন্সিলের প্রতিনিধি মো. ফয়সাল খানসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

বিসিসি নির্বাহী পরিচালক স্বপন কুমার সরকার এই প্রশিক্ষণ থেকে ব্যবসায়ী বা উদ্যোক্তারা ব্যবসাকে সফল করার জন্য অনুপ্রেরণা এবং সঠিক দিক নির্দেশনা পেয়েছেন বলে জানান।

আইসিটি বিজনেস প্রমোশন কাউন্সিল এবং বিসিএস যৌথভাবে কর্মশালাটি আয়োজন করে।

ইমরান হোসেন মিলন

ভ্যাট-ট্যাক্স ছাড়া ইন্টারনেট দিন  

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : আসছে বাজেটে ভ্যাট-ট্যাক্স মুক্ত ইন্টারনেট, তথ্যপ্রযুক্তি পণ্য রপ্তানিতে নগদ সহায়তা, কর্পোরেট ট্যাক্স কমানোসহ বিভিন্ন দাবি জানিয়েছে তথ্যপ্রযু্ক্তি খাতের ব্যবসায়ী-উদ্যোক্তাদের সংগঠনগুলো।

বুধবার জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সম্মেলন কক্ষে ২০১৭-১৮ সালের প্রাক-বাজেট আলোচনায় আলাদা আলাদা প্রস্তাবনা জমা দেয় খাতটির সংগঠনগুলো। রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে সভায় সংগঠনগুলোর পক্ষে মূল বক্তব্য রাখেন দেশের সফটওয়্যার খাতের শীর্ষ সংগঠন বেসিসের সভাপতি তথ্যপ্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জব্বার।

সংগঠনগুলোর নেতারা ছাড়াও সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন এনবিআর সদস্য (মূসকনীতি) ব্যারিস্টার জাহাঙ্গীর হোসেন, মো. পারভেজ ইকবাল (করনীতি), মো. লুৎফর রহমান (শুল্কনীতি)।

মোস্তাফা জব্বার বক্তব্যে বলেন, ভ্যাট-ট্যাক্স ছাড়া ইন্টারনেট দিন। ভ্যাটের কাছে মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারে না।

বেসিস প্রণোদনা, কর, মূসক, শুল্ক বিষয়ে আলাদা আলাদা করে ১৫ বিষয়ে প্রস্তাবনা দিয়েছে।

এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল ইন্টারনেট হতে ভ্যাট-ট্যাক্স প্রত্যাহার। এছাড়া রয়েছে ডিজিটাল ডিভাইসের খুচরা বিক্রির ওপর কর ও ভ্যাট তুলে নেয়া। সফটওয়্যার ও হার্ডওয়্যার রপ্তানিতে ৪০ শতাংশ হারে নগদ সহায়তা । তথ্যপ্রযুক্তি সেবার সংজ্ঞার সম্প্রসারণ। কম্পিউটার, ট্যাব ও স্মার্টফোনসহ বিভিন্ন ডিজিটাল ডিভাইসের যন্ত্রাংশের ওপর কর ও ভ্যাট না থাকা।

basis.nbr

বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস) তাদের প্রস্তাবনায় ছয়টি বিষয়ের উল্লেখ করছে।

এতে রয়েছে কম্পিউটার ও কম্পিউটার যন্ত্রাংশ এবং সংশ্লিষ্ট যাবতীয় হার্ডওয়্যার সামগ্রী আমদানি পরবর্তী পর্যায়ে সরবরাহ বা যেকোনোভাবে সরবরাহ অথবা বিক্রির উপর প্রযোজ্য মূসক হতে অব্যহতি প্রদান

কম্পিউটার ও কম্পিউটার যন্ত্রাংশ স্থানীয়ভাবে উৎপাদনকারীদের প্রদত্ত মূসক অব্যাহতি সুবিধা ২০২৪ সাল পর্যন্ত বহাল রাখা। ২৮ ইঞ্চি পর্যন্ত কম্পিউটার মনিটর হতে শুল্ক প্রত্যাহার।

ওয়াই-ফাই,ওয়াইম্যাক্স, রাউটার, ওয়াইম্যাক্স ল্যানকার্ডসহ ইত্যাদি কম্পিউটার পণ্য হিসেবে শুল্কায়ন ।

ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (আইএসপিএবি) এর প্রস্তাবনায় রয়েছে পাঁচটি বিষয়।

আইএসপি সেবা উৎস কর আওতামুক্ত করা। আইটি এনাবেল সার্ভিসের তালিকায় বাদ পড়া বিভিন্ন খাত অন্তর্ভুক্তি।

তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে কর্পোরেট ট্যাক্স কমিটি ১৮ শতাংশ করা। ইন্টারনেট মডেম, ইথারনেট ইন্টারফেস কার্ড, কম্পিউটার নেটওয়ার্ক সুইচ, হাব, রাউটার, সার্ভার ব্যাটারিসহ প্রযুক্তিপণ্যের ভ্যাট ও শুল্ক প্রত্যাহার।

আল-আমীন দেওয়ান

ইন্টারনেটে ভ্যাট চায় না সরকারও

আল-আমীন দেওয়ান, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ইন্টারনেটে ভ্যাট চায় না সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের সর্বোচ্চ ফোরাম ডিজিটাল বাংলাদেশ টাস্কফোর্স।

আর এই ভ্যাট কমাতে বা অবলোপন করা বিষয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দিয়েছে টাস্কফোর্স নির্বাহী কমিটি। যেখানে বাস্তবায়নকারী হিসেবে অর্থ মন্ত্রণালয়কেও উল্লেখ করা হয়েছে।

গত ২৭ মার্চ ডিজিটাল বাংলাদেশ টাস্কফোর্সের নির্বাহী কমিটির সভায় সদস্যরা ইন্টারনেটের বিলের উপর যে ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হয় তা কমানো বা অবলোপন করার আলোচনা করেন। বিষয়টি উত্থাপন করেন তথ্যপ্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জব্বার।

এ সময় সভায় উপস্থিত জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (বোর্ড প্রশাসন) এস এম আশফাক হুসেন জানান, ‘এ বিষয়টি ভ্যাট আইন দ্বারা নির্ধারিত। তবে নতুন ভ্যাট আইনটি ২০১৭ সালের জুলাই হতে কার্যকর হবে।’

এরপর নির্বাহী কমিটি রাজস্ব বোর্ডকে এই ভ্যাট কমানো বা অবলোপনের নির্দেশনা দেন। টাস্কফোর্সের ৭ম ওই সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী।

ইন্টারনেটের উপর ভ্যাট তুলে দেয়ার দাবি সাধারণ মানুষসহ দেশের তথ্যপ্রযুক্তি ও টেলিকম খাতের সকল ব্যবসায়ী-উদ্যোক্তাদের।

internet service providers-techshohor

দেশের সফটওয়্যার খাতের শীর্ষ সংগঠন বেসিস-এর সভাপতি মোস্তাফা জব্বার টেকশহরডটকমকে জানান, ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি বাস্তবায়নে ইন্টারনেট হচ্ছে মহাসড়ক। এই মহাসড়কে টোল থাকা উচিত নয়। জনগণের ইন্টারনেট ব্যবহারে কোনোভাবেই ভ্যাট থাকবে না। এই ভ্যাট তুলে দেয়ার দাবি দীর্ঘদিনের এবং সকলের।

এই নির্দেশনার জন্য টাস্কফোর্সকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, এখন বাস্তবায়নকারীরা এর গুরুত্ব বুঝবেন আশা করছি।

অ্যাসোসিয়েশন অব মোবাইল টেলিকমিউনিকেশনস অপারেটরস অব বাংলাদেশ (অ্যামটব) এর মহাসচিব এবং প্রধান নির্বাহী টিআইএম নূরুল কবীর টেকশহরডটকমকে জানান, ইন্টারনেট ব্যবহারের ৯৫ শতাংশ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে হয়ে থাকে। কিন্তু দেখা যাচ্ছে বিভিন্ন ধাপে ভ্যাট দেয়া হচ্ছে। যার চাপ প্রান্তিক মানুষের উপর পড়ছে। মোবাইল ইন্টারনেটের উপর ভ্যাট ও ট্যাক্স রহিত করা উচিত।

ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (আইএসপিএবি) এর সভাপতি এম এ হাকিম টেকশহরডটকমকে বলেন, ইন্টারনেট হতে সকল ভ্যাট-ট্যাক্স উঠিয়ে দেয়া হোক। এই দাবি দীর্ঘদিনের। যদি একান্তই ভ্যাট একেবারে তুলে না নেয়া যায় তাহলে অন্যান্য ইউটিলিটি সাভিসে যেমন নেয়া হয় ইন্টারনেটের ক্ষেত্রেও তেমন নেয়া হোক।

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কল সেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিং (বাক্য) এর সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ হোসেন টেকশহরডটকমকে জানান,  আউটসোর্সিং সেবার ক্ষেত্রে অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ইন্টারনেট। এখন এই ইন্টারনেট কিনতে হচ্ছে ১৫ শতাংশ ভ্যাট দিয়ে আর ক্লায়েন্টের কাছে সেবা হিসেবে নিতে পারছি সাড়ে ৪ শতাংশ। মওকুফ করলে খুবই ভাল কিন্তু যদি তা না হয় তাহলে এটা অন্তত সাড়ে ৪ শতাংশ করা হোক।

বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস) এর পরিচালক শাহিদ-উল-মুনীর টেকশহরডটকমকে জানান, ইন্টারনেটের ভ্যাট মুক্তের দাবির বিকল্প নেই। দেশের তথ্যপ্রযুক্তি ইকোসিস্টেমে এই ইন্টারনেটের ভ্যাট অনেককিছুর খরচ বাড়িয়ে দেয়। এটি থাকা উচিত নয়।

ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) এর সভাপতি রাজীব আহমেদ টেকশহরডটকমকে জানান, ই-কমার্স খাতের অন্যতম ভিত্তি হল এই ইন্টারনেট। সেখানে ভ্যাট একটা প্রতিবন্ধকতা হিসেবেই আছে। এটি তুলে নিলে ই-কমার্সের সম্প্রসারণ দ্রুতগতির হবে।

বিসিএস কম্পিউটার সিটিতে ‘সিটিআইটি’ মেলা শুরু

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : প্রযুক্তিপণ্য নিয়ে রাজধানীর আগারগাঁওয়ের বিসিএস কম্পিউটার সিটিতে (আইডিবি ভবন) সকাল থেকে শুরু হয়েছে সিটিআইটি মেলা।

‘ভার্চুয়াল রিয়েলিটি নকিং দ্যা ডোর’ শিরোনামে নয় দিনব্যাপী এই কম্পিউটার মেলা চলবে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত। বিসিএস কম্পিউটার সিটিতে এবারের মেলার আয়োজন ১৫তম।

তবে বিকেল চারটায় অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান প্রধান অতিথি থেকে মেলাটি আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন।

cityitfai_techshohor

এবারের মেলার সমন্বয়কমুসা মিহির কামাল বলেন, প্রতিবারের মতো এবারও মেলায় প্রতিটি প্রযুক্তিপণ্যের ওপর মূল্যছাড়, উপহার থাকছে। মেলায় আইডিবির ১৫৬টি স্টলে প্রযুক্তিপণ্য বিক্রি করছে প্রতিষ্ঠানগুলো।

প্রতিদিনই কোনো না কোনো আয়োজন থাকছে মেলায়। যার মধ্যে শিশুদের চিত্রাঙ্কন, গেইমিং জোন, ডিজিটাল আলোকচিত্র, কুইজ প্রতিযোগিতা, সাংস্সকৃতিক অনুষ্ঠানসহ আরও কিছু আয়োজন।

মেলায় প্রবেশ টিকিটের দাম ২০ টাকা। শিক্ষার্থীরা পরিচয়পত্র দেখিয়ে বিনামূল্যে প্রবেশের সুযোগ পাবে।

দর্শণার্থীদের জন্য প্রতিদিন রয়েছে র‍্যাফেল ড্র। ড্র’তে ল্যাপটপসহ ১০টি আকর্ষণীয় উপহার দেওয়া হবে জানানো হয়েছে। এছাড়াও প্রত্যেক টিকিটধারী কিছু উপহার পাবেনই। মেরা প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত চলবে।

মেলায় স্পন্সর হিসেবে রয়েছে আসুস, এসার, ডেল, এইচপি, লেনোভো ও র‍্যাপো।

ইমরান হোসেন মিলন

সিটিআইটি মেলা ৩০ মার্চ

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : প্রযুক্তিপণ্য নিয়ে রাজধানীর আগারওগাঁওয়ের বিসিএস কম্পিউটার সিটিতে শুরু হচ্ছে সিটিআইটি মেলা।

‘কম্পিউটার পণ্য সবার জন্য’-এই স্লোগানে ৩০ মার্চ এই মেলা শুরু হবে।  নয় দিনের এ আয়োজন শেষ হবে ৭ এপ্রিল।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আয়োজকরা জানান, প্রতিবারের মতো এবারও মেলায় প্রতিটি প্রযুক্তিপণ্যের ওপর মূল্যছাড় অথবা উপহার থাকছে।

bcs.cityit

এছাড়া রয়েছে শিশু চিত্রাঙ্কন, গেইমিং, ডিজিটাল আলোকচিত্র, কুইজ প্রতিযোগিতাসহ নানা আয়োজন। মেলায় প্রবেশ টিকিটের দাম ২০ টাকা। শিক্ষার্থীরা পরিচয়পত্র দেখিয়ে বিনামূল্যে প্রবেশের সুযোগ পাবে।

দর্শণার্থীদের জন্য প্রতিদিন রয়েছে র‍্যাফেল ড্র। ড্র’তে ল্যাপটপসহ ১০টি আকর্ষণীয় উপহার দেয়া হবে জানানো হয়েছে।

আল-আমীন দেওয়ান

ওয়ারেন্টি নীতিমালায় পরিবর্তন আনছে বিসিএস

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : আগামী তিন মাসের মধ্যেই কম্পিউটারের ওয়ারেন্টি নীতিমালায় পরিবর্তন আনার কথা জানিয়েছে প্রযুক্তিপণ্য ব্যবসায়ীদের সংগঠন বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস)

নতুন নীতিমালা আরও বেশি ক্রেতা ও ব্যবসায়ী বান্ধব করা হবে বলেও জানায় বিসিএস। সারা দেশে বিসিএস এর যেসব শাখা রয়েছে সেসব শাখার কমিটির প্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলে এমন সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে বিসিএস।

ওয়ারেন্টি নীতিমালা প্রমিতকরণ ও এমআরপি নীতিমালা প্রণয়ন সংক্রান্ত এক মতবিনিময় সভায় গত ২৬ জানুয়ারি এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

computer_techshohor

বিসিএস সভাপতি আলী আশফাক বলেন, বিসিএসের ওয়ারেন্টি নীতিমালা বেশ কয়েক বছর ধরে প্রচলিত রয়েছে, যা প্রযুক্তিগত উৎকর্ষতা ও বাজার ব্যবস্থাপনার সাথে তাল মিলিয়ে সময়ের প্রয়োজনে পরিবর্তন হওয়া জরুরী।

তিনি বলেন, কম্পিউটার ব্যবসায়ী ও ক্রেতার স্বার্থ রক্ষায় বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে নতুন নীতিমালা প্রণয়ন করা হবে।

বিসিএস মহাসচিব ইঞ্জিনিয়ার সুব্রত সরকার বলেন, কম্পিউটার ব্যবসার সমস্যা ও প্রতিবন্ধকতাগুলো খুঁজে বের করে সেসব সমাধানের প্রচেষ্টা করছে বিসিএস। আগের নীতিমালায় ক্রেতা ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে যথেষ্ট দূরত্ব ছিল। সেটা এবার আর রাখা হবে না বলে জানান তিনি।

ওয়ারেন্টির জন্য পণ্য পুনরায় পাঠাতে ক্রেতা থেকে ডিলার, ডিলার থেকে ডিস্ট্রিবিউটর, ডিস্ট্রিবিউটর থেকে সার্ভিস সেন্টারে যেতে যে খরচ হয় তা বহন নিয়ে বিসিএস সদস্যরা নিজেদের অভিযোগের কথা মতবিনিময় সভায় তুলে ধরেন। তারা এসময় ওয়ারেন্টির ক্ষেত্রে পেইড সিস্টেম চালুর দাবিও উত্থাপন করেন।

আগামী তিন মাসের মধ্যে নতুন ওয়ারেন্টি নীতিমালা প্রণয়নের লক্ষে স্মার্ট টেকনোলজিস (বিডি) লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. জহিরুল ইসলামকে বিশেষ দায়িত্ব দেয়া হয়।

জহিরুল ইসলাম বলেন, ক্রেতাদের সন্তুষ্টির জন্য প্রচলিত ব্যবস্থা  রাখতে প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রচুর ব্যয় করতে হয়। ব্যবসায় নিজেদের ক্ষতি করে কেউ সেবা দিতে চাইবেন না। তাই এমন এমন নীতি প্রণীত হওয়া উচিত যেখানে ওয়ারেন্টি সেবা প্রদানের জন্য ব্যবসায়ীদের বড় ধরনের কোনো ব্যয় হবে না, আবার ক্রেতাও সন্তুষ্ট থাকবেন।

সভায় কম্পিউটার পণ্যের এমআরপি সংক্রান্ত নীতি নির্ধারণের জন্য গ্লোবাল ব্র্যান্ড প্রাইভেট লিমিটেডের চেয়ারম্যান আব্দুল ফাত্তাহকে বিশেষ দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে।

সভায় বিসিএস পরিচালক মো. শাহীদ-উল-মুনীর ও এস.এম ওয়াহিদুজ্জামান অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

ইমরান হোসেন মিলন

আরও পড়ুন: 

১১ জানুয়ারি বরিশালে ‘ডিজিটাল এক্সপো ’

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বরিশালে বছরের শুরুতেই ডিজিটাল এক্সপো নাম দিয়ে একটি মেলা করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস)। বরিশাল শাখার উদ্যোগে ১১ জানুয়ারি থেকে ‘বিসিএস ডিজিটাল এক্সপো বরিশাল ২০১৭’ চলবে ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত।

শহরের একে ইন্সটিটিউশন প্রাঙ্গনে এই মেলা অনুষ্ঠিত হবে বলে একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে বিসিএস।

ওই মেলায় দেশি-বিদেশি জনপ্রিয় ও সুপরিচিত ব্র্যান্ড, আমদানিকারক, প্রস্তুতকারক ও সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলো প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করবে।

Cover_01

মেলার থাকবে ৫২টি স্টল ও তিনটি প্যাভিলিয়ন। যেখানে কম্পিউটার হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার পণ্যসামগ্রী, নেটওয়ার্ক এবং ডাটা কমিউনিকেশন, টেলিকম সেবা ও পণ্যসামগ্রী, মাল্টিমিডিয়া, আইসিটি শিক্ষা উপকরণ, ল্যাপটপ, পামটপ, ডিজিটাল জীবনধারার প্রযুক্তি-পণ্যের উন্নত ও হালনাগাদ সংস্করণ প্রদর্শন করা হবে।

প্রদর্শনীতে ফ্রি ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধা থাকবে। প্রযুক্তি পণ্য প্রদর্শনীর পাশাপাশি নান্দনিক প্রোডাক্ট শো, সেমিনার, কুইজ ও বিভিন্ন বিনোদনমূলক অনুষ্ঠানেরও ব্যবস্থা থাকবে।

মেলাটির উদ্বোধন করার কথা রয়েছে বরিশাল-২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট তালুকদার মো. ইউনুস। এছাড়াও উদ্বোধনীতে বরিশাল জেলা প্রসাশনের কর্মকর্তা, বিসিএস বরিশাল ও ঢাকার ইসি মেম্বার ও সদস্যরা উপস্থিত থাকবেন।

ইমরান হোসেন মিলন

বিসিএসের সাধারণ সভায় আসন্ন বছরের কর্মপরিকল্পনা

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : প্রযুক্তিতে দেশীয় বাজারের উন্নয়নের প্রত্যাশা এবং ২০১৭ সালের বেশকিছু কর্মপরিকল্পনা নিয়ে দেশের কম্পিউটার শিল্পের জাতীয় সংগঠন বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস) এর ২৫তম বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সভায় সমিতির কার্যক্রম ও আর্থিক বিবরণী পেশ করার পাশাপাশি আগামী বছরের জন্য কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

বিসিএস সভাপতি জনাব আলী আশফাক এর সভাপতিত্বে সভায় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য সহ-সভাপতি ইউসুফ আলী শামীম, মহাসচিব ইঞ্জিনিয়ার সুব্রত সরকার, যুগ্ম-মহাসচিব নাজমুল আলম ভূঁইয়া(জুয়েল), পরিচালক মো. শাহিদ-উল-মুনীর, এ.টি. শফিক উদ্দিন আহমেদ, এস.এম ওয়াহিদুজ্জামানসহ সংগঠনের সাধারণ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

AGM final
আলোচ্যসূচি অনুসারে ২৪তম বার্ষিক সাধারণ সভার কার্যবিবরণী সভায় উপস্থাপন করেন বিসিএস সভাপতি। কন্ঠভোটে কার্যবিবরণী অনুমোদন করেন উপস্থিত সদস্যরা। সভাপতির সস্মতিক্রমে মহাসচিব ইঞ্জিনিয়ার সুব্রত সরকার ২০১৬ সালের কর্মকাণ্ডের বিবরণী এবং সহ-সভাপতি ও কোষাধ্যক্ষের দায়িত্বপ্রাপ্ত ইউসুফ আলী শামীম ২০১৫-১৬ অর্থবছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পেশ করেন।

২০১৬ সালের কার্যক্রম, নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন এবং আগামী অর্থ বছরের জন্য সমিতির বাজেটের উপর সভায় উপস্থিত সদস্যরা তাদের মতামত প্রদান করেন। সভায় বিস্তারিত আলোচনা ও মতামতের আলোকে ২০১৬ সালের কার্যক্রম, নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন এবং আগামী অর্থ বছরের জন্য সমিতির বাজেট অনুমোদিত হয়।

বিসিএস সভাপতি আলী আশফাক বলেন, সকল আইসিটি বিজনেস স্টেকহোল্ডারদেরকে একক ই-মার্কেট প্লেসের অধীনে নিয়ে আসার কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ওয়ারেন্টি সংক্রান্ত বিশৃংঙ্খলা দূরীকরণার্থে ওয়ারেন্টি পলিসি করতে সরকার, পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান এবং ব্যবসায়ীদের মধ্যে আলোচনা চলমান রয়েছে।

এমআরপি অ্যান্ড রিটেইল-ডিস্ট্রিবিউশন ব্যবসার উন্নয়নে পলিসি প্রমিতকরণ, আইসিটি ব্যবসায়ীদের জন্য সহজ শর্তে সহজলভ্য ঋণ প্রাপ্তি, বিসিএস সদস্যদের তথ্যসহ একটি যুগোপযুগী অনলাইন ড্যাটাবেইজ বা ওয়েবপোর্টাল তৈরি, মার্চ ২০১৭ এর মধ্যে আঞ্চলিক ০৮টি শাখা কমিটির মাধ্যমে আঞ্চলিক পর্যায়ে তথ্যপ্রযুক্তির প্রদর্শনী আয়োজন এবং জুন/জুলাই ২০১৭ নাগাদ ঢাকায় আন্তর্জাতিক পর্যায়ের বিজনেস সামিট ও প্রদর্শনী আয়োজনের কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে বলেও তিনি জানান। ।

ইমরান হোসেন মিলন

ওবামাও বলেন তথ্যপ্রযুক্তিতে বাংলাদেশকে আদর্শ মানতে : তোফায়েল

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবিতে একটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেওয়ার সময় বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তিকে সেদেশের প্রযুক্তির উন্নয়নে আদর্শ হিসেবে নেওয়ার কথা বলেছেন বলে উল্লেখ করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তির অগ্রগতিতে অনেক বাধায় এসেছে। কিন্তু সেগুলো কাটিয়ে উঠে এখন ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন চলছে। এই ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন এখন বিশ্বে উদাহরণ সৃষ্টি করেছে। তাইতো বারাক ওবামাও বাংলাদেশের অভিজ্ঞতা কেনিয়াকে নেওয়ার জন্য দেশের তথ্যপ্রযুক্তিকে অনুসরণ করার কথা বলেছেন।

Multiplan_ICT FAIR_TECHSHOHOR

অষ্টমবারের মতো ছয় দিনব্যাপী রাজধানীর নিউ এলিফ্যান্ট রোডের কম্পিউটার সিটি সেন্টার বা মাল্টিপ্ল্যান সেন্টারে ডিজিটাল আইসিটি ফেয়ার (উইন্টার) উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন বাণিজ্যমন্ত্রী।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ডিজিটাল বাংলাদেশ ঘোষণার পর এখন তা বাস্তবায়ণ চলছে। এখন ২০০ ধরনের সেবা দেওয়া হয় অনলাইনে। এই সেবা দিতে দেশে পাঁচ হাজারের বেশি ডিজিটাল সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগের প্রবীণ এই রাজনীতিবিদ বলেন, বেসিস সভাপতি মোস্তাফা জব্বারের সঙ্গে আমার কথা হচ্ছিল একটু আগেই। তিনি বলছিলেন আইসিটি খাত থেকে আয় ৭০ মিলিয়ন ছাড়িয়ে গেছে। যার সঠিক হিসাব নাকি ইপিবি(রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো)ও দিতে পারে না। কারণ ইপিবিও এর সঠিক হিসাব পায় না। সঠিক হিসাব পেলে হয়তো এই আয় আরও বেশি হতো। তবে এই আয় ২০১৭ সালেই এক বিলিয়ন এবং ২০২১ সাল নাগাদ ৫ বিলিয়ন ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করছি।

মাল্টিপ্ল্যান দেশর অন্যতম বৃহৎ প্রযুক্তি পণ্যের মার্কেট উল্লেখ করে তিনি বলেন, এখানে এমন একটি মেলা অবশ্যই ক্রেতাদের নজর কাড়বে। মেলা সফল হবে আশা করছি।

মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ছিলেন বৃহত্তর এলিফ্যান্ট রোড দোকান মালিক সমিতির উপদেষ্ঠা এবং মুক্তিযুদ্ধকালীন ঢাকা জেলা কমান্ডার ও সাবেক সংসদ সদস্য মোস্তফা মহসীন মন্টু। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন মাল্টিপ্ল্যান দোকান মালিক সমিতির সভাপতি তৌফিক এহসান, সাধারণ সম্পাদক ও বিসিএস মহাসচিব সুব্রত সরকার, বিসিএস সভাপতি আলী আশফাক, বেসিস সভাপতি মোস্তাফা জব্বার, স্মার্ট টেকনোলজি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জহিরুল ইসলাম, ডেলের কান্ট্রি ম্যানেজার আতিকুর রহমান, এইচপির কান্ট্রি ম্যানেজার ইমরুল হোসেন ভূঁইয়াসহ আরও অনেকেই।

ইমরান হোসেন মিলন