ড্রোন কোম্পানি কিনেছে স্ন্যাপচ্যাট

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : অ্যাপ কোম্পানি থেকে ক্যামেরা কোম্পানি হতে যাচ্ছে ছবিভিত্তিক মেসেজিং সেবা স্ন্যাপচ্যাট, এমনটা শোনা যাচ্ছে প্রযুক্তি বিশ্বে। গত শুক্রবার বাজফিডে প্রকাশিত সংবাদের জের ধরেই অনেকেই এমন আভাস দিচ্ছেন।

প্রকাশিত সংবাদ বলা হয়, প্রায় এক মিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে ড্রোন প্রস্তুতকারক কন্ট্রোল মি রোবটিক্স কিনে নিয়েছে। যদিও ঠিক কবে কিংবা কতো মূল্যে কোম্পানি কিনেছে এসব বিষয়ে মুখ খুলেনি স্ন্যাপচ্যাট।

যদিও আরেকটি সংবাদে বলা হয়েছে, গত বছরের শেষ দিকেই উভয় কোম্পানির মধ্যে এই চুক্তি হয়েছে। ভেনিচ বিচ-নির্ভর ড্রোন কোম্পানিটি ড্রোন তৈরির করা থেকে ক্যামেরা বহনের জন্য বর্তমানে বাজারে থাকা ড্রোনকে বিশেষভাবে তৈরি করে।

Snapchat Drone-TechSohor

বিশ্লেষকরা বলছেন, ড্রোন কোম্পানিটি স্ন্যাপচ্যাটকে একটি অ্যাপ কোম্পানি থেকে ক্যামেরা কোম্পানিতে প্রতিষ্ঠিত করতে পারে। স্ন্যাপচ্যাটের লক্ষ্যও তাই।

যদিও এই নতুন কোম্পানি দিয়ে স্ন্যাপচ্যাট কি করবে তা এখনও পরিস্কার নয়। এমনও হতে পারে আপনার ড্রোন থেকেই স্ন্যাপচ্যাটে আপডেট দিতে পারবেন। কিংবা এর থেকে ভিন্ন কিছু। বাস্তবে কি হবে তা জানতে অপেক্ষার বিকল্প নেই!

ম্যাশেবল অবলম্বনে রুদ্র মাহমুদ

মানুষসহ উড়বে ড্রোন!

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : এবার মানুষসহ আকাশে ড্রোন উড়তে দেখা যাবে। অবিশ্বাস্য হলেও এমনই ঘটনা দেখা যাবে দুবাইয়ের আকাশে। কারণ আগামী জুলাই মাস থেকেই মানুষ পরিবহনে ড্রোন চালু করছে দুবাইয়ের সড়ক ও পরিবহণ বিভাগ।

দুবাইয়ের সড়ক ও পরিবহণ সংস্থার প্রধান মাত আল তায়ের আন্তর্জাতিক এক সম্মেলনে এই ঘোষণা দিয়েছেন।

চীনের তৈরি ইহাং-১৮৪ নামের এই ড্রোন ১০০ কেজি পর্যন্ত ওজন নিয়ে একটানা ৩০ মিনিট উড়তে পারবে। অর্থাৎ সহজেই ড্রোনটি একজন যাত্রী পরিবহণ করতে পারবে।

Dron-dubai-carry-Human-Techshohor

ড্রোনটি দিয়ে এমন যাত্রী পরিবহণ নিশ্চিত করতে ইতিমধ্যে বেশ কয়েকবার সফল পরীক্ষাও চালানো হয়েছে।

ড্রোনের ভেতর শুধুমাত্র একটিই কন্ট্রোল বাটন থাকবে যেখানে চাপ দিয়ে যাত্রী তার গন্তব্য পছন্দ করবেন। আর মাটিতে একটি নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র থেকে স্বয়ংক্রিয় ড্রোনটি নিয়ন্ত্রণ করা হবে।

একবার ব্যাটারি চার্জ দিলে এই ড্রোন ঘণ্টায় ১৬০ কিলোমিটার বেগে একটানা ৫০ কিমি পর্যন্ত যেতে পারবে।

আল তায়ের বলেছেন, দুবাইয়ের আকাশে এর সফল পরীক্ষা হয়েছে। এছাড়া আমেরিকার নেভাডায় পরীক্ষা চালিয়ে এক নিরাপদ বলে অুনমোদনও দেওয়া হয়েছে।

বিবিসি বাংলা থেকে ইমরান হোসেন মিলন

ড্রোনের জন্য থার্মাল ক্যামেরা

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মার্কিন ক্যামেরা প্রতিষ্ঠান ফ্লির ড্রোনের জন্য ব্যবহার উপযোগী থার্মাল ইমেজিং ক্যামেরা উন্মোচন করেছে। লাস ভেগাসে অনুষ্ঠিত কনজিউমার ইলেক্ট্রনিকস শো (সিইএস) ২০১৭-তে ‘ডুয়ো’ নামে এই ক্যামেরা উন্মোচন করে প্রতিষ্ঠানটি।

৭০-এর দশক থেকেই থার্মাল ইমেজিং ডিভাইস তৈরি করে আসছে ফ্লির। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে স্মার্টফোন এবং স্মার্টফোনের আনুষঙ্গিক ডিভাইসে এই প্রযুক্তি যোগ করে আসছে প্রতিষ্ঠানটি, জানিয়েছে প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট সিনেট।

Flir+debuts+its+Duo+thermal+camera+for+drones+at+CES+2017
এ ধরনের থার্মাল ক্যামেরাগুলো বিভিন্ন পরিবেশের হটস্পট চিহ্নিত করতে পারে। কোনো বস্তু উষ্ণ কিনা তাও বলে দিতে পারে এই প্রযুক্তি। বিভিন্ন বস্তুর তাপমাত্রা দেখাতে এটি ভিন্ন ভিন্ন রঙ ব্যবহার করে থাকে। এক্ষেত্রে উষ্ণতা বোঝাতে কমলা আর শীতল বস্তু বোঝাতে নীল রঙ ব্যবহার করা হয়।

ড্রোনের সঙ্গে যুক্ত করে ডুয়ো থার্মাল ক্যামেরাটি দিয়ে কৃষি ক্ষেতের সেচ ব্যবস্থা, কোনো নির্দিষ্ট স্থানে কোনো পশু হারিয়ে গেলে তা খুঁজে বের করা যেতে পারে।

নতুন ক্যামেরাটি অ্যাকশন ক্যামেরা গোপ্রো-এর সমান। এতে দুইটি ১০৮০ পিক্সেলের এইচডি ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে।

থার্মাল ক্যামেরাগুলো চাইলেই সাধারণ ক্যামেরা হিসেবে ব্যবহার করা যায়। কিন্ত দুইটি মোড একসঙ্গে ব্যবহার করলে ‘আসল মজাটা’ দেখা যায়। এক্ষেত্রে এইচডি ক্যামেরাকে থার্মাল ফটো দিয়ে প্রতিস্থাপন করা হয়। যার ফলে খুব তীক্ষ্ণ থার্মাল ছবি পাওয়া যায়।

ব্যবসায়িক কাজে ব্যবহারের লক্ষ্যেই ‘ডুয়ো’ ক্যামেরাটি বাজারে আনছে ফ্লির। আর পেশাদার কাজের জন্য ‘ডুয়ো আর’ নামে আরেকটি ক্যামেরা আনছে এই প্রতিষ্ঠান। ক্যামেরাগুলো যেকোনো ড্রোনের সঙ্গেই ব্যবহার করা যাবে বলে জানানো হয়েছে।

উভয় ক্যামেরাই এখন বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। ‘ডুয়ো’ ক্যামেরার দাম রাখা হয়েছে ৯৯৯ মার্কিন ডলার এবং ‘ডুয়ো আর’-এর মূল্য ১২৯৯ মার্কিন ডলার।

বিডিনিউজ২৪.কম থেকে

উড়ছে ফেইসবুকের সৌরচালিত ইন্টারনেট ড্রোন

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ফেইসবুক ইনকোর্পোরেট বৃহস্পতিবার সৌরবিদ্যুৎ চালিত একটি ড্রোনের সফল পরীক্ষা সম্পন্ন করেছে। এই ড্রোনটির মাধ্যমে পৃথিবীর সব স্থানেই ইন্টারনেট সংযোগ পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হবে বলে মনে করছেন প্রতিষ্ঠানটির কর্তারা।

অ্যাকুলা নামের ওই ড্রোনটি প্রথমবার কয়েক হাজার ফিট উচ্চতায় প্রায় ৯৬ মিনিট সফলভাবে ঘুরে এসেছে বলে একটি ফেইসবুক পোস্টে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ।

অ্যাকুলা একবার উড্ডয়নে তিন মাস ভূপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৬০ হাজার ফিট উপরে উড্ডয়নে সক্ষম হবে বলে আশা প্রকাশ করছে প্রতিষ্ঠানটি। এর মাধ্যমে একে অন্যের সঙ্গে ইন্টারনেট যোগাযোগে মুখ্য ভূমিকা পালন করতে পারবে বলেও ধারণা করা হচ্ছে।

Dron-Facebook_techshohor
এর আগে গুগল পেরেন্ট অ্যালফাবেট ইন. প্রজেক্ট লু বা বেলুনের মাধ্যমে উচ্চ উচ্চতা ও কিছু দুর্গম এলাকায় ইন্টারনেট পৌঁছে দেওয়ার কাজ শুরু করেছে। এর মাধ্যমে ওসব এলাকায় ইন্টারনেট পৌঁছে দেওয়াও সম্ভব হচ্ছে।

ফেইসবুকের প্রকৌশল বিভাগের পরিচালক এই প্রকল্পটির ল্যাব প্রধান ইয়েল ম্যাগুয়ার বলেন, আমাদের এই মিশনকে সফল করতে বেশকিছু কারিগরি চ্যালেঞ্জ পেরোতে হয়েছে। প্রকল্পটি নিকট ভবিষ্যতে খুবই সাফল্য আনবে বলে আশাবাদ ব্যস্ত করেন এই প্রকৌশলী।

জাকারবার্গের প্রতিষ্ঠানের এটা সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে ভাবা হচ্ছে। যেখানে একটি ড্রোন প্রায় ৬০ হাজার ফিট উপরে দীর্ঘ সময় ধরে অবস্থান করবে এবং একই সঙ্গে কানেকটিভিটি দেবে। যেখানে ইন্টারনেট সার্ভিসে খুব দ্রুততার সঙ্গে ডেটা বিনিময় করতে পারবে।

ম্যাগুয়ার বলেন, অ্যাকুলা দিয়ে আরও বেশ কয়েকটি পরীক্ষা চালানো হবে। তবে দীর্ঘ সময় ধরে সৌরচালিত যান হিসেবে উড্ডয়নের রেকর্ড গড়তে পারে অ্যাকুলা বলে জানান তিনি। যা প্রথমাবস্থায় দুই সপ্তাহ উড্ডয়ন করতে সক্ষম হয়েছে।

ফেইসবুকে এখন প্রায় ১৬০ কোটি ব্যবহারকারী। আর এসব ব্যবহারকারীদের অনলাইনে রাখতে বিনামূল্যে ইন্টারনেট সেবা ইন্টরনেট ডটঅর্গ চালু করেছে ফেইসবুক। এছাড়াও ব্যবহারকারীদের জন্য বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগও করছে প্রতিষ্ঠানটি।

রয়টার্স অবলম্বনে ইমরান হোসেন মিলন

আরও পড়ুন: 

শক্তিশালী নেটওয়ার্ক তৈরি করছে ফেইসবুক

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : প্রান্তিক ও দরিদ্র অঞ্চলগুলোকে ইন্টারনেট নেটওয়ার্কের আওতায় আনতে কাজ শুরু করেছে ফেইসবুক। এজন্য জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি একটি নতুন ধরনের ডেটা নেটওয়ার্ক তৈরি করছে। নতুন এ নেটওয়ার্কে ব্যবহার করা হবে মিলিমিটার ওয়েভ বন্ডস।

প্রযুক্তিটির জন্য খুব বেশি অবকাঠামোর প্রয়োজন হবে না। স্টারি’র মাধ্যমে ইন্টারনেট সংযোগ পৌঁছে দেয়া হবে সেসব অঞ্চলে।

এটি বিশ্বের ইন্টারনেট সংযোগ বঞ্চিত মানুষদের কাছে ইন্টারনেট পৌঁছানো প্রক্রিয়ার একটি অংশ।

Global-computer-network

তবে ফেইসবুক প্রযুক্তিটি ব্যবহার করে কতদূর এগোতে পারবে সেটাই এখন দেখার বিষয়। কেননা বেশকিছু ক্ষেত্রে ব্যাপক ইন্টারনেট সংযোগ দেয়ার ক্ষেত্রে এটি নিজের সঙ্গেই সাংঘর্ষিক পর্যায়ে চলে যাচ্ছে।

মিলিমিটার ওয়েভ ইন্টারনেট সার্ভিস নিয়ে গবেষণার বিষয়টি ফেইসবুক কর্তৃপক্ষ স্বীকার করেছে। ‘পরবর্তী প্রজন্মের ডাটা নেটওয়ার্ক’ সম্পর্কে বর্ণনা করার জন্য মাধ্যমটির কর্মকর্তা সনজ কোহলিকে দেওয়া হয়েছে দুটি পেটেন্ট।

ফেইসবুক বিশ্বব্যাপী ইন্টারনেট ছড়িয়ে দিয়ে আরও একটি পদ্ধতিতে কাজ করছে। গত বছর স্যাটেলাইট ও জায়ান্ট ড্রোন ব্যবহার করে যেভাবে আফ্রিকায় ইন্টারনেট সংযোগ দেয়া হয়েছে এ পদ্ধতি সেরকমই।

দ্য নেক্সট ওয়েব অবলম্বনে শামীম রাহমান

বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রজেক্ট প্রতিযোগিতা

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : রাজশাহীর বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগে একটি প্রজেক্ট প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিভাগের বিভিন্ন বর্ষের শিক্ষার্থীরা প্রতিযোগিতায় অংশ নেন। এতে শিক্ষার্থীদের তৈরি করা স্মার্ট হোম উইথ সেক্রেটারি সিষ্টেম, ড্রিম হাউজ, সেক্রেটারি সিপ ড্রোনসহ বিভিন্ন প্রজেক্ট প্রদর্শন করা হয়।

vu

প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের পুরস্কার প্রদান করেন বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপদেষ্টা অধ্যাপক এম. সাইদুর রহমান খান। ইইই বিভাগের কো-অর্ডিনেটর অধ্যাপক মোহাম্মদ সাজ্জাদুর রহমানের সভাপতিত্বে পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম. ওসমান গনি তালুকদার।

শামীম রাহমান

ড্রোনের মাধ্যমে ৫জি ইন্টারনেট দেবে গুগল

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ড্রোনের মাধ্যমে পঞ্চম প্রজন্মের ইন্টারনেট (৫জি) সেবা দেবে মার্কিন সার্চ জায়ান্ট গুগল।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ মেক্সিকোর স্পেসপোর্টে স্কাইবেনডার নামে ড্রোনের মাধ্যমে উচ্চ গতির ইন্টারনেট সেবা প্রকল্প নিয়ে কাজ করছে গুগল।

স্কাইবেনডার প্রকল্পে ব্যবহারকারীদের তার বিহীন উচ্চ গতির ইন্টারনেট সেবা দিতে গুগল ব্যবহার করছে সৌর শক্তি চালিত ড্রোন।

google-skybender_

ড্রোন ব্যবহার করে মিলিমিটার-ওয়েভ রেডিও ট্রান্সমিশন প্রযুক্তিতে ওয়্যারলেস ইন্টারনেট দিতে কাজ করছে গুগলের প্রকৌশলীরা।

স্কাইবেনডার প্রকল্পে আসলে গুগলের বেলুনের মাধ্যমে দুর্গম এলাকায় ইন্টারনেট সেবা দেওয়া কার্যক্রম এয়ার বেলুন ওয়াই-ফাই প্রকল্পের অন্তর্র্ভূক্ত।

বেলুন প্রকল্পের মতোই স্কাইবেনডার প্রকল্পের মাধ্যমে ড্রোন ব্যবহার করে বিশ্বের বিভিন্ন দুর্গম এলাকাকে অনলাইনের আওতায় আনতে চায় সার্চ জায়ান্ট প্রতিষ্ঠানটি।

টাইমস অব ইন্ডিয়া অবলম্বনে সৌমিক আহমেদ

ড্রোন ক্রাসের রেকর্ড যুক্তরাষ্ট্রের

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : গত বছর যুক্তরাষ্ট্রের বিমান বাহিনীর রেকর্ড সংখক ড্রোন ক্রাস হয়েছে।

২০১৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ২০টি বড় ধরণের ড্রোন দুর্ঘটনার স্বীকার হয়েছে বা ক্রাস করেছে। যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধে ড্রোন ব্যবহার শুরু পর এক বছরে এতো বেশি ড্রোন দুর্ঘটনা ঘটেনি।

এর আগে সবচেয়ে বেশি ড্রোন দুর্ঘটনা ঘটে ২০০৭ সালে আফগান যুদ্ধে। আর তার পরই সবচেয়ে বেশি ড্রোন দুর্ঘটনা ঘটেছে ইরাকে। তবে ওই সময়ে দুর্ঘটনায় পড়া ড্রোনের সংখ্যা প্রকাশ করা হয়নি।

reaperdrone

দেশটির প্রভাবশালী দৈনিক ওয়াশিংটন পোস্টের এর অনুসন্ধানী রিপোর্টে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। দেশটির তথ্য অধিকার আইনের আওতায় পাওয়া তথ্যে ভিত্তিতে রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়েছে।

ওয়াশিংটন পোস্টের রিপোর্টে বলা হয়েছে গত বছরের এ ড্রোন দুর্ঘটনার কারণে যুক্তরাষ্ট্রের বিমান বাহিনীর ২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ক্ষতি হয়েছে।

মার্কিন বিমান বাহিনীর ড্রোনগুলো অনেক উন্নত প্রযুক্তির। তবে এর মধ্যেও দেশটির সবচেয়ে বেশি উন্নত দ্য রিপার ড্রোনও দুর্ঘটনায় আক্রান্ত হয়েছে।এ কারণে ড্রোন দুর্ঘটনার হার বৃদ্ধি পাওয়ার ক্ষতিকর প্রভাবের বিষয়ে সতর্ক করেছে বিশেষজ্ঞরা।

বিবিসি অবলম্বনে সৌমিক আহমেদ

ড্রোন দিয়ে আলোর খেলা দেখিয়ে গিনেস বুকে ইন্টেল!

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ড্রোন দিয়ে আতশবাজির মতো আলোর খেলা দেখিয়ে গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড গড়েছে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ইন্টেল আর ফিউচারল্যাব।

আতশবাজির পরিবর্তে ড্রোন দিয়ে একই রকম আলোর খেলা দেখানো যায়, তা প্রমাণ করতেই এমন ব্যতিক্রম আয়োজন করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ইনটেল সিইও ব্রায়ান ক্রাজানিক।

ইন্টেলের প্রধান নির্বাহী মনে করেন ভবিষ্যতে ড্রোন দিয়েই আতশবাজি করা হবে। কেননা এটি পরিবেশের ক্ষতি করবে না পাশাপাশি কোন রকম দুর্ঘটনার আশঙ্কাও থাকবে না।

intel_

জার্মানির হামবুর্গের আরেনলোহে এয়ারফিল্ডে করা হয় ব্যতিক্রম এ আয়োজন। এতে অংশ নেয় অ্যাসেন্ডিং টেকনোলজিসের তৈরি ১০০টি ড্রোন। আর ড্রোনগুলো নিয়ন্ত্রণের জন্য সফটওয়্যার তৈরি করেছে মার্কিন জায়ান্ট চিপ নির্মাতা ইন্টেল।

অর্কেস্ট্রা বাদযন্ত্রীদের একটি দলের মিউজিকের তালে তালে ওই ড্রোনগুলো ৩২৮ ফিট উচ্চতায় এলইডি লাইটের সাহায্যে আলোর খেলা দেখায়। টানা সাত মিনিট ধরে চলা ওই আলোর খেলার মাধ্যমে ইন্টেলের লগো তৈরি করে ড্রোনগুলো।

বিশ্বরেকর্ড গড়া এ কাজটি করা হয়েছে গত বছরের ৪ নভেম্বর। তবে এর ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত কনজ্যুমার ইলেক্ট্রোনিক্স শো তে (সিইএস)।

এমন মজার ও ভিন্ন আয়োজনের পর প্রতিষ্ঠানগুলো এবার ইউএভি প্রযুক্তি সংশ্লিষ্ট চমক দেখানো পরিকল্পনা করছে।

টেক টাইমস অবলম্বনে সৌমিক আহমেদ

ড্রোনের জন্য ড্রোনপোর্ট তৈরি করছে যুক্তরাষ্ট্র

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ড্রোনের জন্য এয়ারপোর্ট বানাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির নেভাডা অঙ্গরাজ্যের সিটি অফ বোল্ডার গড়ে তোলা হচ্ছে এয়ারপোর্টটি।

এয়ারপোর্টটির নাম দেওয়া হয়েছে এলডোরাডো ড্রোনপোর্ট। ৫ একর জায়গায় তৈরি করা হচ্ছে এয়ারপোর্টটি। তিন বছরের মধ্যে এয়ারপোর্টটি নির্মাণ কাজ শেষ করার লক্ষ ঠিক করা হয়েছে।

এয়ারপোর্টটি তৈরিতে কাজ করছে ড্রোন চালানোর প্রশিক্ষণ দেওয়া মার্কিন প্রতিষ্ঠান অ্যারোড্রোম। দেশটির আরো তিনটি অঙ্গরাজ্যে ড্রোন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির।

Drones

অ্যারোড্রোম জানিয়েছে বাণিজ্যিক কাজে ড্রোন ব্যবহার করা প্রতিষ্ঠানগুলোর চালকদের প্রশিক্ষণ, ড্রোন রক্ষণাবেক্ষণ ও প্রযুক্তিগত বিভিন্ন বিষয়ে সহযোগিতা করবে এয়ারপোর্টটি।

এয়ারপোর্টটি ড্রোন খাত সম্প্রসারণে নতুন মাত্রা যুক্ত করবে বলে জানিয়েছেন অ্যারোড্রোম প্রেসিডেন্ট জোনাথন ডেনিয়েলস।

ড্রোন ভিন্ন ধরণের আকাশযান বলে এটি চালানো ও ব্যবস্থাপনা ভিন্ন হওয়া উচিৎ বলে এমন পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে জানিয়েছেন অ্যারোড্রোম প্রেসিডেন্ট।

টেকক্রাঞ্চ অবলম্বনে সৌমিক আহমেদ

ড্রোন স্কোয়াড গঠন করেছে টোকিও পুলিশ

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ড্রোন স্কোয়াড নামে পুলিশের একটি বিশেষ শাখা গঠন করেছে টোকিও পুলিশ।

এই বিশেষ প্রোজেক্টটির মাধ্যমে দেশটির প্রধানমন্ত্রীর অফিসসহ গুরুত্বপূর্ণ অফিস ও ভবনে টহল দেবে টোকিও পুলিশের ড্রোন স্কোয়াড।

যদি সন্দেহভাজন কোন ড্রোন চিহ্নিত হয় তবে তাৎক্ষণিকভাবে স্পিকারের মাধ্যমে ভূমিতে দায়িত্বে থাকা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে জানবে ভবনের দায়িত্বে থাকা অপারেটর।

drone_

যদি ভবনের দায়িত্বে থাকা আইন শৃঙ্খলা বাহিনী সন্দেহভাজন ড্রোনটি থামাতে ব্যর্থ হয় তবে পুলিশের ড্রোন স্কোয়াড জাল নিয়ে ওই ডিভাইসটি ভূমিতে নিয়ে আসবে।

ওয়েবসাইটে দেওয়া বিবৃতিতে জাপান পুলিশ জানিয়েছে ড্রোন ব্যবহার করে জঙ্গি বা সন্ত্রাসী হামলা হতে পারে এমন আশঙ্কা থেকে ড্রোন স্কোয়াড গঠন করা হয়েছে। ড্রোন স্কোয়াডের মহড়া দেওয়ার একটি ভিডিও আপলোড করেছে জাপান পুলিশ।

২০১৪ সালের এপ্রিল মাসে দেশটির প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের দেয়াল থেকে অল্প পরিমাণ বিষ্ফোরকসহ একটি ড্রোন উদ্ধার করা হয়।
ওই ঘটনায় কেউ হতাহত না হলেও বিষয়টি নিয়ে নড়েচড়ে বসে দেশটির আইন শৃঙ্খলা বাহিনী।

বিবিসি অবলম্বনে সৌমিক আহমেদ