রবি ট্র্যাকারে চুরি যাওয়া গাড়ি উদ্ধার

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : গত ১৯ এপ্রিল সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে কুষ্টিয়া থেকে একটি গাড়ি ছিনতাই হয়। তবে ছিনতাইয়ের শিকার মো. মান্নান খান তার গাড়িটি উদ্ধারে আইনশৃঙ্খরা বাহিনীর স্মরনাপন্ন হয়নি। তিনি  ব্যবহার করেন রবি ভেহিক্যাল ট্র্যাকিং সার্ভিস (ভিটিএস) এবং ফিরেও পান তার গাড়ি।

ভিটিএস এর সাহায্যে মান্নান খান সাথে সাথে তার গাড়িটি কোথায় আছে তা জানার জন্য রবি’র ট্র্যাকার হেলপলাইনে যোগাযোগ করেন। গ্রাহক সনাক্তকরণ প্রক্রিয়া শেষে হেলপলাইনের এজেন্ট আব্দুল কাইয়ুম হাসান ও মো. বাহার উদ্দিন তাকে গাড়ির অবস্থান সম্পর্কে জানান।

RobiTracker-techshohor

তখন মান্নান হেলপলাইন এজেন্টদের গাড়ির ইঞ্জিনটি বন্ধ করে দেওয়ার অনুরোধ করেন। গ্রাহকের অনুরোধে তারা দূর থেকেই গাড়ির ইঞ্জিনটি বন্ধ করে দেন।

পরে কয়েকটি ধাপ অতিক্রম করে নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে মান্নান খান তার গাড়িটি উদ্ধারে সক্ষম হন।

রবি’র সেলস অপারেশন, এম টেকনোলজি অ্যান্ড সলিউশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট বলেন, রবি গ্রাহক মান্নানের গাড়িটি খুঁজে দেওয়ার কাজটি ছিল আমাদের দক্ষতা কাজে লাগানোর এক অনন্য সুযোগ।

তিনি বলেন, এ ঘটনায় এটা স্পষ্ট যে রবির ভেহিক্যাল ট্র্যাকিং কীভাবে গ্রাহকদের গাড়িটি নিরাপদে রাখতে পারে। ডিজিটাল জীবনধারায় গ্রাহকরা স্বচ্ছন্দ্য হয়ে উঠছে, আর পাশাপাশি জনপ্রিয়তা পাচ্ছে এ ধরণের ডিজিটাল সেবা।

ইমরান হোসেন মিলন

চাবি মানিব্যাগ খুঁজে দেবে নাট স্মার্ট ট্র্যাকার

এস এম তাহমিদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ছোটখাট কিন্তু জরুরি জিনিস, যেমন চাবি বা ওয়ালেট হঠাৎ খুঁজে না পাওয়া গেলে ভোগান্তি চরমে উঠতে দেরি হয় না। বিশেষত যাদের এসব জিনিস সহজেই হারিয়ে ফেলার প্রবণতা রয়েছে, তাদের জন্য খুবই কাজের একটি গ্যাজেট ব্লুটুথ ট্র্যাকার।

প্রযুক্তি এখন জীবন যাপনকে অনেক সহজ করেছে। এ ডিভাইস তার একটি দারুণ উদাহরণ। স্বল্প মূল্যের একটি ট্র্যাকার হচ্ছে নাট ব্লুটুথ ট্র্যাকার ২।

ক্ষুদ্রাকৃতির এ ডিভাইস ব্লুটুথের মাধ্যমে ফোনের সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে সেটির সঙ্গে রাখা যে কোনও কিছুর অবস্থান বের করার কাজটি করে থাকে

DSC0203621

এক নজরে নাট ব্লুটুথ ট্র্যাকার

  • ব্লুটুথ ৪.০ কানেকশন
  • ৩ মাস পর্যন্ত ব্যাটারি লাইফ, কয়েন-সেল লিথিয়াম ব্যাটারি
  • ফোন থেকে হারানো ডিভাইসে অ্যালার্ম বাজানোর সুবিধা
  • ডিভাইস থেকে হারানো ফোনে অ্যালার্ম বাজানোর সুবিধা
  • ডিভাইস রেঞ্জের বাইরে চলে গেলে তাৎক্ষণিকভাবে সেটি ব্যবহারকারীকে জানানোর সুবিধা

গঠন
নাট ট্র্যাকার২ ডিভাইসটির গঠন খুবই ছোট আকৃতির। চতুষ্কোন প্লাস্টিকের বক্সের এ যন্ত্রে রয়েছে নাট লোগো ও একটি বাটন। পুরোটি প্লাস্টিকে তৈরি হলেও, খুবই উন্নতমানের প্লাস্টিক ব্যবহার করায় সহজেই নষ্ট হয়ে যাবার সম্ভাবনা নেই।

ডিভাইসটি খুলে ফেলার পর দেখা যাবে একটি কয়েন-সেল ব্যাটারি লাগানোর স্থান রয়েছে। নাটের দাবি অনুযায়ী একটি ব্যাটারিতে ডিভাইসটি প্রায় তিন মাস পর্যন্ত কাজ করতে সক্ষম।

ডিভাইসের উপরের বাটনটি দেখে সেটি পাওয়ার বাটন মনে হলেও, ডিভা‍ইসটিতে আসলে কোনও পাওয়ার বাটন নেই। খুবই কম শক্তি ব্যবহার করায় এটি সবসময়ই চালু থাকে। বাটনটির মূল কাজ হচ্ছে অ্যালার্ম বন্ধ করা ও ফোনে অ্যালার্ম বাজানো।

nut.m2t_snapshot_01.04_2015.03.28_00.15.331

ব্যবহারের নিয়ম
নাট ডিভাইসটি ব্যবহার করতে হলে প্রথমেই ফোনে সেটির অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করে নিতে হবে। ডাউনলোড হয়ে যাবার পর সেটির মাধ্যমে ডিভাইসটি পেয়ার করে নেবার পর আর কোনও কাজ নেই।

এবার নাটটি যে জিনিস খুঁজে বের করার জন্য প্রয়োজন সেটির সঙ্গে সংযুক্ত করে দিলেই হবে। হারানো জিনিসটি খুঁজে পেতে ফোনের অ্যাপ থেকে অ্যালার্ম বাজালেই ডিভাইসটি বাজতে শুরু করবে – এরপর শব্দ শুনে তা বের করে নেয়া যাবে সহজেই।

এ ছাড়া ডিভাইসটি একটি নির্দিষ্ট দূরত্বে চলে যাওয়ার সাথে সাথে ফোনে অ্যালার্ম বাজতে শুরু করবে ও শেষ কোথায় সেটি দেখা গিয়েছিল সেটির তথ্য জানাবে।

এমনকি অনান্য নাট ব্যবহারকারীদের মাঝে তথ্য ছড়িয়ে দেয়ার অপশন দেওয়া যাবে, যাতে অন্য কেউ খুঁজে পেলে যোগাযোগ করতে পারে।

nut.m2t_snapshot_01.12_2015.03.28_00.16.41

শুধু ট্র্যাকারটি হারিয়ে গেলে ফোন থেকে খুঁজে পাওয়াই নয়, ফোন হারিয়ে গেলে ট্র্যাকারের বাটনটি চেপে ধরে ফোনে অ্যালার্ম বাজিয়ে সেটিও বের করা যাবে।

ট্র্যাকারটির মূল সমস্যা বলা যেতে পারে ব্যাটারিটি রিচার্জেবল নয়। ফলে সেটি কিছু মাস পর পর বদল করতে হবে।

এ ছাড় ট্র্যাকারটি পানি-নিরোধক নয়। এ কারণে সেটি বাইরে বৃ্ষ্টির মাঝে ব্যবহার করার মত জিনিসের সাথে চালানো যাবে না। তবে দাম অনুসারে এ টুকু সমস্যা মেনে নেয়া যায়।

মূল্য : ট্র্যাকারটি ৭০০-১০০০ টাকায় দেশের বাজারেও পাওয়া যাবে।

একনজরে ভাল

  • হালকা, শক্তপোক্ত
  • স্বল্পমূল্য
  • ভাল ব্যাটারি লাইফ

একনজরে খারাপ

  • ব্যাটারিটি রিচার্জেবল নয়
  • পানি নিরোধী নয়

ব্যবহারকারীদের লোকেশন ট্র্যাক করছে ফেইসবুক

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : শীর্ষস্থানীয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক তার ব্যবহারকারীদের লোকেশন ট্র্যাক করছে। এই ট্র্যাক করার বিষয়টি স্বীকারও করেছে ফেইসবুক।

‘পিপল ইউ মে নো’ নামের ফিচারটি দিয়ে ব্যবহারকারীদের লোকেশন ট্র্যাক করা হয়। এটি নিয়ে অনেক ব্যবহারকারী বিড়ম্বনাতেও পড়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন তারা।

ফেইসবুক বলছে, ব্যবহারকারীদের বন্ধু খুঁজে দিতে এই ফিচারটি কাজ করে। ব্যবহারকারীরা যেন সহজে  সঠিক বন্ধু খুঁজে পায় এই লক্ষ্য নিয়েই তাদের লোকেশন ট্র্যাক করা হয়।

facebook-techshohor

ট্র্যাকিংয়ের ঘটনাটি তখনই ঘটে, যখন দুজন ব্যবহারকারী একই সময়ে একই স্থানে স্মার্টফোনে ফেইসবুক ব্যবহার করেন। এছাড়াও তাদের মধ্যে মিলে যায় এমন কিছু বৈশিষ্ট্যও থাকতে হবে।

তবে ফেইসবুক বলছে, তারা লোকেশন ট্র্যাকের ক্ষেত্রে ব্যবহারকারীদের বাধ্য করে না। ফোনের সেটিংস অপশনে গিয়ে ব্যবহারকারীরা চাইলে এই ট্রাকিং ফিচারটি বন্ধ করে রাখতে পারবেন।

ফেইসবুকের একজন মুখপাত্র এ সম্পর্কে জানিয়েছেন, এই লোকেশনের তথ্যটি কাছাকাছি অবস্থান করা দুজন মানুষকে পরিচয় করিয়ে দিতে পারে। এরপর তারা চাইলে বন্ধু হতে পারেন আবার নাও পারেন। এটি পুরোপুরি তাদের বিষয়।

দ্য হিন্দুস্তান টাইমস অবলম্বনে শামীম রাহমান

আরও পড়ুন: 

ব্যাগ হারানোর নেই ভয়!

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ভ্রমণে অনেকেই ব্যাগ হারানোর ভয়ে থাকেন। মাথায় ব্যাগের চিন্তা নিয়ে ঘুরে বেড়ান। আর কপাল খারাপ হলে শখের বেড়ানো মাটি হয়ে যায়। তবে ভয় নেই, আপনার ব্যাগ হারানোর চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলতে পারেন!

ভিক্টোরিনক্স সুইস আর্মি নাইফ বাজারে এনছে লাগেজ ট্র্যাকার। ভিক্টোরিনক্স চেকস্মার্ট লাগেজ ট্র্যাকার নামের এই ছোট গ্যাজেটটি বাগ হারানোর ভয় তাড়াবে।

লাগেজ ট্র্যাকারটিতে রয়েছে দুটি এএ ব্যাটারি। আগে থেকেই লাগানো রয়েছে সিম কার্ড। জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া বাদে বিশ্বের যেসকল স্থানে জিএসএম নির্ভর মোবাইল সেবা পাওয়া যায় সেখানেই এটি ব্যবহার করা যাবে।

Luggage tracker-TechShohor

ট্র্যাকারটি ব্যবহার করতে প্রথমে ভিক্টোরিনক্সে একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে এবং ডিভাইসে ইউনিক আইডি দিয়ে চালু করতে হবে। ডিভাইসটি চালু হলে এটি আপনার ব্যাগেই রেখে দিন।

এরপর আর চিন্তা নেই! কারণ আপনি যেকোনো স্থানেই বলে ওয়েব ব্রাউজার বা এর বিনামূল্যের অ্যাপের মাধ্যমে ব্যাগটি কোথায় আছে সেটি দেখতে পারবেন। এই সেবার মাধ্যমে আপনার ব্যাগের স্থান এসএমএস ও ইমেইলের মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হয়।

এর অ্যাপটির মাধ্যমে ব্লুটুথ নোটিফিকেশনও চালু করা যায়। ফলে যখনই আপনি ব্যাগের কাছাকাছি আসবেন তখনই আপনার ফোনে নোটিফিকেশন দেবে। ডিভাইসটি দামের সাথে একবছরের সেবার মূল্য সংযুক্ত রয়েছে এবং ব্যবহারকারীকে কোনো রোমিং ফিস দিতে হবে না। তবে পরের বছর থেকে বছরে ১৯ দশমিক ৯৫ ডলার পরিশোধ করতে হবে।

অসাধারণ এই ট্র্যাকারের দাম বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৮৪০০ টাকা। ভিক্টোরিনক্সসহ বিভিন্ন ই-কমার্স সাইট থেকে এটি কেনা যাবে।

ইকোনমিক টাইমস অবলম্বনে ফারজানা মাহমুদ পপি