গুগল ড্রাইভে সহজেই ফাইল খুঁজবেন যেভাবে

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : অনলাইনে ফাইল সংরক্ষণের জন্য বেশ জনপ্রিয় সেবা গুগল ড্রাইভ। একজন ব্যবহারকারী বিনামূল্যে ১৫ গিগাবাইট জায়গা পেয়ে থাকেন এতে। এ ড্রাইভে ছবি,ভিডিও, ডকুমেন্ট, অডিও, ছবিসহ সব ধরনের ফাইল সংরক্ষণ করে রাখা যায়।

এতে অনেক ফাইল রাখলে সহজেই প্রয়োজনীয় ফাইল পেতে অনেক সময় বেগ পেতে হয়। তবে সার্চ টুল ব্যবহার করলে সহজেই তা খুঁজে পাওয়া যায়।

কিভাবে সার্চ অপশন ব্যবহার করে আরও সহজে গুগল ড্রাইভ থেকে কোনো ফাইল খুঁজে পাওয়া যাবে তা এ টিউটোরিয়ালে তুলে ধরা হলো।

প্রথমে গুগল ড্রাইভে ইউজার নাম ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে হবে।

তারপর উপর ‘search drive’-এ যে ফাইল প্রয়োজন বা খুঁজে পেতে হবে তা নামটি লিখতে হবে।

এরপর এ বক্সের ডান পাশে থাকা অ্যারো চিহ্নে ক্লিক করতে হবে।

তাহলে নতুন একটি অপশন প্রদর্শিত হবে।

সেখান থেকে যে ফাইলটি সার্চ করতে হবে- সেটি কি ধরনের, কবে ফাইল রাখা হয়েছিলো কিংবা ফাইলটি কার সঙ্গে শেয়ার করা হয়েছিলো ইত্যাদি তথ্যগুলো দিয়ে নিচে থাকা সার্চ বাটনে ক্লিক করতে হবে।

তাহলে মুর্হূতের মধ্যে আরও কম সময়ে প্রয়োজনীয় ফাইলটি খুঁজে পাওয়া যাবে গুগল ড্রাইভে।

ইউটিউবের ডার্ক মোড যেভাবে ব্যবহার করবেন

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর :  উজ্জ্বল আলোর দিকে দীর্ঘক্ষণ তাকিয়ে থাকা চোখের জন্য ক্ষতিকর। তাই ইউটিউবে আলো কমিয়ে ভিডিও দেখার জন্য রয়েছে ডার্ক মোড অপশন।

বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ভিডিও প্লাটফর্ম তাদের ‘ডার্ক মোড’ অপশনটি গোপন করে রেখেছে। তবে আপনি চাইলে সহজেই ফিচারটি ব্যবহার করতে পারবেন। কিভাবে অপশনটি ব্যবহার করা যাবে তা নিয়েই তৈরি করা হয়েছে আজকের টিউটোরিয়াল।

প্রথমে আপনার ক্রোম ব্রাউজারটি সর্বশেষ সংস্করণে আপডেট করে নিতে হবে।

এরপর ইউটিউবে গিয়ে আইডি ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে হবে।

12

তারপর ক্রোমের ডেভেলপার টুলস চালু করতে হবে। উইন্ডোজ ব্যবহারকারীদেরকে এর জন্য Ctrl-Shift-I প্রেস করতে হবে।
এরপর উপরে থাকা ট্যাব থেকে ‘ Console’ ট্যাবে যেতে হবে।

13

যেখানে document.cookie=”VISITOR_INFO1_LIVE=fPQ4jCL6EiE” এই টেক্সটি কপি করে পেস্ট করে দিয়ে এন্টারে ক্লিক করতে হবে।

তারপর ক্রোমের ডেভেলপার টুলস প্যানেলটি বন্ধ করে ইউটিউব পেইজটি রিফ্রেশ দিতে হবে।

youtube-dark-mode-techshohor]

এরপর ইউটিউবের ডান পাশে থাকা প্রোফাইল আইকনে ক্লিক করলে ভিন্ন ধরনের অনেকগুলো অপশন দেখা যাবে। সেখানে থাকা ‘dark theme’ এ ক্লিক করে ‘ACTIVATE DARK THEME’ অপশনটি অন করে নিতে হবে।

তাহলেই ডার্ক মুডে ইউটিউব ব্যবহার করা যাবে।

আরও পড়ুন: 

উইন্ডোজ পিসি স্টোরেজ বাড়াতে ৩ টিপস

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : স্টোরেজ নিয়ে ঝামেলায় পরার বিষয়টি কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের জন্য নতুন নয়। স্টোরেজ সংকটে পড়ে অনেক প্রয়োজনীয় ফাইল সংরক্ষণ করা যায় না। এছাড়া হার্ডড্রাইভে স্টোরেজ পরিপূর্ণ হয়ে গেলেও অনেক সময় কম্পিউটারের গতি কমে যায়। তাই উইন্ডোজ ব্যবহারকারীদের স্টোরেজ বাড়তে এই টিউটোরিয়ালে তিনটি টিপস তুলে ধরা হলো ।

ডিস্ক ক্লিনিংআপ:

এটি উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম চালিত ডিভাইসের স্টোরেজ বাড়ানোর অন্যতম একটি উপায়। উইন্ডোজ মেনুতে সার্চ করে টেম্পরারি ফাইল, অপ্রয়োজনীয় অ্যাপের ব্যাকআপ ফাইল ইত্যাদি মুছে দিতে হবে। এছাড়া ‘Clean up system files’ অপশন থেকে পুরানো উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমের (ওএস) ফাইলগুলো মুছে জায়গা বৃদ্ধি করা যাবে।
অনেক সময় মুছে ফেলা ফাইলগুলোও রিসাইকেল বিনে থেকে যায়। যা অনেকখানি জায়গা দখল করে রাখে। সেক্ষেত্রে রিসাইকেল বিনে থাকা অপ্রয়োজনীয় ফাইলগুলো  চেক করে ডিলেট করে দেয়া উচিত। এতে স্টোরেজ বৃদ্ধি পাবে।

windows 10

ভারি সফটওয়্যার আনইন্সটল করা:

নানা কাজের প্রয়োজনে নতুন অনেক সফটওয়্যার কম্পিউটারে ইন্সটল করতে হয়। আবার অন্যদিকে এমন অনেক সফটওয়্যার আছে যা দীর্ঘদিন ধরে কম্পিউটারে ইন্সটল করা থাকলেও ব্যবহার করা হয় না। এধরনের সফটওয়্যারগুলো কোনো কারণ ছাড়াই কম্পিউটারের স্টোরেজ নষ্ট করে। তাই এই সকল ভারি সফওয়্যারগুলো আনইন্সটল করে দেয়া উচিত। এই কাজটি করতে হলে Settings গিয়ে System যেতে হবে তারপর Apps & feature অপশন থেকে সফটওয়্যারটি আনইন্সটল করে দিতে হবে।

একই ফাইল মুছে ফেলা:

ডিস্ক ক্লিনিংআপ ও সফটওয়্যার মুছে ফেলার পরেও অনেক সময় অধিক স্টোরেজের প্রয়োজন হয়। এক্ষেত্রে কম্পিউটারের হার্ডড্রাইভে থাকা ফাইলগুলোর দিকে নজর দিতে হবে। অনেক সময় একই ফাইল একাধিক জায়গায় থাকে যা কম্পিউটারের  স্টোরেজ জায়গা দখল করে রাখে। তাই একই রকম ফাইলগুলো খুঁজে খুঁজে ডিলেট করে দিতে হবে। যেন একই ফাইল একাধিক স্টোরেজ দখল করে না রাখে।

আরও পড়ুন: 

হোয়াটসঅ্যাপের অজানা ৪ ফিচার

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : স্মার্টফোনের বার্তা আদান-প্রদানের জনপ্রিয় অ্যাপ হোয়াটসঅ্যাপ সম্প্রতি নতুন একটি সংস্করণে এনেছে।

হালনাগাদ এই সংস্করণে যুক্ত করা হয়েছে নতুন কিছু সুবিধা। অনেকেই এই সুবিধাগুলো সর্ম্পকে ওয়াকিবহাল না। তাই এই টিউটোরিয়াল হোয়াটসঅ্যাপের এই সুবিধাগুলো সম্পর্কে তুলে ধরা হলো।

ভিডিও কল বাটন
এক সময় হোয়াটসঅ্যাপে শুধু টেক্সট বার্তা আদান-প্রদান করা যেতো। কিন্তু অন্য ম্যাসেঞ্জার ভিত্তিক অ্যাপগুলোর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে থাকতে অডিও ও ভিডিও কল ফিচার যুক্ত করে হোয়াটসঅ্যাপ। গ্রাহকরা যেন আরও সহজে ভিডিও কল করতে পারে। তাই ‘সংযুক্তি বোতাম’-এর জায়গায় ভিডিও কল বাটন যুক্ত করা করেছে। ফলে আরও সহজে ভিডিও কল করতে পারবেন ব্যবহারকারীর।

পিন চ্যাট
ধরুণ আপনি হোয়াটসঅ্যাপে অনেকের সঙ্গেই চ্যাট করেন। জরুরি প্রয়োজনে দ্রুত একজনকে বার্তা পাঠাতে হবে। কিন্তু তার সাথে অনেকে আগে চ্যাট হওয়ার কারণে তাকে খুঁজে বের করতে কিছু সময় ব্যয় হবে।

এই ঝামেলা থেকে মুক্তি দিতে পিন চ্যাট সুবিধা যুক্ত করা হয়েছে। ফলে গুরুত্বপূর্ণ কোনো চ্যাট পিন করে রাখলে তা সবার উপরে প্রদর্শন হবে। একটি চ্যাট পিন করতে নির্দিষ্ট চ্যাটের ওপর আলতো করে চেপে ধরলেই হবে। এরপর থেকে তা শীর্ষে অবস্থান করবে।

উন্নত নিরাপত্তা
বর্তমানে সময়ে সাইবার অপরাধের পরিমাণ তুলনামূলকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। তাই গ্রাহকদের আইডি নিরাপদ রাখতে হোয়াটসঅ্যাপ রয়েছে পাসকোড সুবিধা। ফলে ব্যবহারকারীর মোবাইল নম্বর দিয়ে অন্য কেউ তা ব্যবহার করতে পারবেন না। হোয়াটসঅ্যাপের সেটিংসে গিয়ে পাসকোর্ড করে নেওয়া যাবে।

হোয়াটসঅ্যাপের বার্তা পড়বে সিরি
পূর্বে অ্যাপলের ভার্চুয়াল সহযোগী সিরি হোয়াটসঅ্যাপের বার্তা পড়তে পারতো না। কিন্তু এখন আইওএস ব্যবহারকারীরা হোয়াটঅ্যাপের ২.১৭.২০ সংস্করণ ইন্সটল করে নিলেই সিরি বার্তা পড়ে শুনাতে পারবে।

আরও পড়ুন:

তুসিন আহমেদ

ফোনের ব্যাটারি ভালো রাখার ৭ উপায়

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ফোনের গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ হলো ব্যাটারি। যদি ব্যাটারি সঠিকভাবে চার্জ করা না হয়ে থাকে তাহলে কম সময়ে তা নষ্ট হয়ে যেতে পারে।প্রতিটি ব্যাটারির একটি নির্দিষ্ট জীবন মেয়াদ থাকে। ফোন ব্যবহারের উপর ব্যাটারির আয়ু অনেকাংশ নির্ভর করে।

অনেকেই জানেন না কখন, কিভাবে ফোনটি চার্জ দিতে হবে। এছাড়া কোন চার্জার দিয়ে চার্জ দেয়া উচিত বা উচিত নয় তাও অজানা অনেকের।

ফোনের ব্যাটারি ভালো রাখতে তেমনটি ৭ টিপস নিয়ে এই টিউটোরিয়াল।

ফোনের নিজস্ব চার্জার দিয়ে চার্জ দেওয়া

শখের ফোনটি যদি সেই ফোনের সাথে পাওয়া চার্জারে চার্জ দেওয়া হয় তবে ব্যাটারির আয়ু বাড়ে। এখন অবশ্য ফোনে চার্জ দেওয়ার জন্য রয়েছে মাইক্রোইউএসবি পোর্ট। তাই যে কোনো চার্জার দিয়ে ফোনে চার্জ দেওয়া যায়।

তবে যদি চার্জিংয়ের সময় ফোনের নিজস্ব চার্জার ব্যবহার না করা হয় তাহলে ধীরে ধীরে ব্যাটারির চার্জ ধরে রাখার ক্ষমতা কমতে থাকে। কেননা ফোনের সঙ্গে থাকা চার্জারে নির্দিষ্ট পরিমাণ আপটপুট ভোস্টেজ এবং কারেন্ট রেটিং থাকে। যা ফোনের সঙ্গে মিলিয়ে তৈরি করা হয়ে থাকে।

সস্তা চার্জার ব্যবহার না করা

অনেক সময় ফোনের জন্য নির্ধারিত চার্জারটি হারিয়ে বা নষ্ট হয়ে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে অনেকেই বাজার থেকে সস্তা ও অখ্যাত ব্র্যান্ডের চার্জার কেনেন। এসব চার্জারে চার্জ দিলে ফোন অতিরিক্ত গরম হয়ে যায়। চার্জ হতেও সময় বেশি নেয়। আর অ্যাডাপ্টারে সমস্যা দেখা দিলে ফোন ও ব্যাটারি দুটোই নষ্ট হতে পারে। তাই সস্তা চার্জার ব্যবহার না করাই ভালো।

কেস খুলে রাখা

যখন ফোন চার্জে দেওয়া হয় তখন ব্যাটারি কিছুটা গরম হয়ে যায়। ব্যাটারি গরমের প্রভাব ফোনে ছড়িয়ে পড়ে। তাই ফোনকে অতিরিক্ত গরমের হাত থেকে রক্ষা করতে চার্জে থাকা অবস্থায় ফোনের নিরাপত্তামূলক কেসিং বা কভার খুলে রাখা উচিত ।

সারা রাত চার্জ নয়

অনেকেই রাতের বেলা ফোন চার্জে দিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। এতে ফোনটি সারা রাত ধরে চার্জ হয়। এর ফলে ওভার চার্জিং হয়ে থাকে। যা ফোনের জন্য মোটেও ভালো কিছু নয়। এছাড়া সারা রাত ফোনে চার্জে দেওয়ার ফলে ব্যাটারি অতিরিক্তি গরম হয়ে বিস্ফোরণও ঘটতে পারে।

ব্যাটারি অ্যাপ্লিকেশন

ফোনের জন্য অনেক থার্ডপার্টি ব্যাটারি অপটিমাইজ অ্যাপ রয়েছে। এই অ্যাপগুলো ফোনের ব্যাকগ্রাউন্ডে চালু থাকে। এতে করে ফোনের চার্জ আরও বেশি ব্যয় হয়। এছাড়া লকস্ক্রিনটি অ্যাপগুলো এড লোড করে থাকে। তাই ফোনে আদালা কোনো ব্যাটারি অ্যাপ ব্যবহার করা উচিত নয়।

কখন চার্জে দিবেন ফোন

ফোনে ২০ শতাংশের উপরে চার্জ থাকলে চার্জ দেওয়া উচিত নয়। আবার ব্যাটারি চার্জ শূন্য করেও চার্জে দেওয়া ঠিক নয়। কেননা অপ্রয়োজনীয় রিচার্জে ব্যাটারির আয়ু কমে যায়। সেক্ষেত্রে কমপক্ষে ৫-২০ শতাংশ চার্জ থাকা অবস্থায় ফোন চার্জে দেওয়া ভালো।

পাওয়ার ব্যাংক ব্যবহারের সময়

পাওয়ার ব্যাংকের মাধ্যমে চার্জ দেওয়া অবস্থায় ফোন ব্যবহার করা উচিত নয়। কেননা পাওয়ার ব্যাংকের সাহায্যে চার্জ করার সময় ব্যাটারি গরম হয়ে যায়। একই সময় ফোনটি ব্যবহার করলে তা আরও গরম হয়ে যাবে। যা ব্যাটারির জন্য ক্ষতিকর।

তুসিন আহমেদ

ফেইসবুক অ্যাপে নিউজফিড কাস্টমাইজ করবেন যেভাবে

তুসিন আহমেদ,টেকশহর কনটেন্ট কাউন্সিলর:  ফেইসবুক আমাদের জীবনেরই একটি অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। অনেকেই আছেন যারা ফেইসবুকে ঢুঁ না মেরে একটি দিনও কাটাতে পারেন না। ফেইসবুকে লগইন করার পরে নিউজ ফিডে বিভিন্ন পোস্ট থাকে। তবে এত সব পোস্টের ভিড়ে ফিডে থাকা অনেক পোস্টই ব্যবহারকারীদের বিরক্তকর মনে হতে পারে।

একসঙ্গে সব পোস্ট দেখতে গেলে মূল্যবান সময়ও নষ্ট হতে পারে। চাইলে সহজেই নিউজ ফিড ফিল্টার করে বিরক্তকর কিছু পোস্ট থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে। কিভাবে ফেইসবুকে অ্যাপ্লিকেশনের সাহায্যে কাজটি করতে হবে তা এই টিউটোরিয়ালে তুলে ধরা হলো।

  • প্রথমে আপনাকে ফেইসবুকের মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনে যেতে হবে।
  • তারপর ডান পাশে থাকা অপশন আইকনে ক্লিক করতে হবে।
  • এরপর সেটিংস ও অপশন পেইজটি চালু হবে সেখান থেকে ‘News Feed preferences’ এ ক্লিক করতে হবে।
  • এতে চারটি অপশন দেখতে পারবেন। সেগুলো থেকে নিউজফিড কাস্টমাইজ করা যাবে।

কোনো বিশেষ ব্যক্তির পোস্ট আপনি নিউজফিডে দেখতে চাইলে সিলেক্ট করুন ‘prioritize who to see first’ অপশনটি। চাইলে ‘সি ফার্স্ট’ লিস্ট থেকে বন্ধু তালিকায় পরিবর্তন আনা যাবে।

দ্বিতীয় অপশন ‘unfollow people to hide their posts’ অপশনটি ব্যবহার করে যদের পোস্ট আপনি দেখতে চান না তাদেরকে আনফলো করা যাবে।

তৃতীয় অপশন ‘Reconnect with people you unfoloowed’ এ অপশন থেকে যে সকল বন্ধুদের আপনি আনফলো করেছেন তার তালিকা প্রদর্শিত হবে। চাইলে এখান থেকে আনফলো করা বন্ধুদেরও ফলো করা যাবে।

চতুর্থ অপশন ‘discover pages that match your interests’ থেকে আপনার পছন্দের পেইজগুলো নির্ধারণ করতে পারবেন।

এছাড়া সবার নিচে ‘more options’এ ক্লিক করে নিউজ ফিড কাস্টমাইজ করা যাবে।

আরও পড়ুন: 

অ্যান্ড্রয়েড ‘ও’ ইন্সটল করবেন যেভাবে

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : গুগলের ডেভেলপার সম্মেলনে বিভিন্ন হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যারের আপডেট আনার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এবার জনপ্রিয় অপারেটিং সিস্টেম অ্যান্ড্রয়েডের নতুন আপডেট অ্যান্ড্রয়েড ‘ও’ আনা হয়েছে নতুন অনেক ফিচার সমেত।  তবে আনুষ্ঠানিকভাবে পূর্নাঙ্গ সংস্করণটি উন্মুক্ত হতে আরও কিছুদিন সময় লাগবে।

আপাতত অ্যান্ড্রয়েড ও ব্যবহার করা যাবে নেক্সাস ৬পি, নেক্সাস ৫এক্স, নেক্সাস প্লেয়ার, পিক্সেল সি, পিক্সেল, পিক্সেল এক্সএল ডিভাইসে।

আপনি যদি এসব ডিভাইস ব্যবহার করেন, তাহলে ওএসটি পরখ করে নিতে পারবেন। কিভাবে কাজটি করবেন তা এ টিউটোরিয়ালে তুলে ধরা হলো।

andriod-o-techshohor

প্রথমে আপনার ডিভাইসটিকে অ্যান্ড্রয়েড বেটা প্রোগ্রামে নিবন্ধন করে নিতে হবে।

গুগলের সবগুলো নিয়ম মেনে সম্মতি দিয়ে নিবন্ধন করার পরে আপনার ডিভাইসটি আপডেটের জন্য তৈরি হবে। এরপর ডিভাইসটিতে আপডেট পৌঁছে যাবে।

তারপর স্বয়ংক্রিয়ভাবে আসা আপডেটটি চেক করতে ফোনের সেটিংস থেকে সিস্টেম আপডেটসে যেতে হবে।

ে

আপডেটটি ডাউনলোড হওয়ার পরে তা সিস্টেম আপডেটসে ক্লিক করে দেখে নেওয়া যাবে। এরপর ডিভাইসটি রিস্টার্ট নিবে এবং অ্যান্ড্রয়েড ও ইন্সটল হয়ে যাবে।

তবে আপনি যদি ডেভেলপার হয়ে থাকেন তাহলে এ ঠিকানায় গিয়ে অ্যান্ডেয়েড ও অপারেটিং সিস্টেমটি ডাউনলোড করে ফোনে ম্যানুয়ালি ইন্সটল করে নিতে পারেন।

ফোনে অ্যান্ড্রয়েড ও অপারেটিং সিস্টেমটি আপডেট করতে অবশ্যই ডিভাসইটির ফাইলের ব্যাকআপ রাখবেন আগে। যাতে জরুরি কোনো ফাইল মুছে গেলে ঝামেলায় পড়তে না হয়।

তুসিন আহমেদ

আরও পড়ুন 

ফোন নিরাপদ রাখার দুই টিপস

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ম্যালওয়্যার ও ভাইরাসের আক্রমণ বাড়ছে। কম্পিউটারের পাশাপাশি এ আক্রমণের শিকার হচ্ছে অনেক অ্যান্ড্রয়েডচালিত ডিভাইস। একবার কোনোভাবে ফোনে ম্যালওয়্যার ঢুকলে আর রক্ষা নেই। হারিয়ে যেতে পারে গুরুত্বপূর্ণ অনেক তথ্য।

তাই আক্রান্তের আগেই সর্তক থাকা উচিত। ফোনকে নিরাপদ রাখতে তেমনি দুটি টিপস তুলে ধরা হলো এ টিউটোরিয়ালে।

গার্লফোন ব্যবহারকারী-টেকশহর

অজানা সোর্স থেকে অ্যাপ্লিকেশন ইন্সটল বন্ধ রাখা
কোনো অ্যাপ্লিকেশন ডিভাইসে ইন্সটলের আগে মনে রাখতে তা যেন গুগল প্লে থেকে সরাসরি ইন্সটল করা হয়। এতে ভাইরাস বা ম্যালওয়্যার আক্রান্তের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায় অনেকাংশে।

আবার অনেক সময় কিছু ম্যালওয়্যার স্বয়ংক্রিয়ভাবে ফোনে ইন্সটল হতে চায়। এটি বন্ধ করতে অজানা সোর্স থেকে অ্যাপ্লিকেশন ইন্সটল বন্ধ রাখতে হবে।

এ জন্য প্রথমে ফোনের সেটিংস অপশনে যেতে হবে। এরপর ‘security’ অপশনে ক্লিক করতে হবে। সেখান থেকে ‘unknown sources’ অপশনটি অন করে দিতে হবে।

তাহলে যে কোনো অজানা সোর্স থেকে অ্যাপ্লিকেশন সারাসরি ইন্সটল হবে না।

অজানা ওয়াই-ফাই সংযোগ ব্যবহার না করা

কোথায় বেড়াতে গিয়ে বা কোনো শপিং মলে কেনাকাটা করতে গিয়ে ফ্রি পাবলিক ওয়াই-ফাই ব্যবহারের আগে সতর্ক হতে হবে। এমন পাবলিক ওয়াই-ফাই থেকে হ্যাকিং বা ম্যালওয়্যার আক্রান্তের শিকার হতে পারে আপনার ডিভাইস।

সাইবার অপরাধীদের অনেকে ফ্রি এমন সংযোগের মাধ্যমে হ্যাকিং বা ভাইরাস ছাড়ানোর কাজটি করে থাকে। তাই অজানা কোনো ওয়াই-ফাই সংযোগের সঙ্গে ফোন যুক্ত করা উচিত নয়।

আরও পড়ুন

এডোবি প্রিমিয়ার প্রোয়ের ১০ কিবোর্ড শর্টকাট

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ভিডিও এডিটের জনপ্রিয় সফটওয়্যার এডোবি প্রিমিয়ার প্রো। এ সফটওয়্যারের সাহায্যে সহজে ভিডিও এডিট শেখার পর শখের শর্টফিল্ম এডিট করা ছাড়াও প্রফেশনাল কাজও করা সম্ভব।

আউটসোর্সিং, ইউটিউব থেকে আয়, মিডিয়া হাউজে ভিডিও এডিটর হওয়াসহ অনেক ধরনের মিডিয়ার কাজে ভিডিও এডিটের প্রয়োজন হয়ে থাকে।

ভিডিও এডিটের কাজটি আরও সহজ করতে এডোবি প্রিমিয়ার প্রোয়ের ১০ কিবোর্ড শর্টকাট তুলে ধরা হলো এ টিউটোরিয়ালে।

Adobe-Premiere-Pro-techshohor

  • কোন ক্লিপ মার্ক করতে স্পেস করতে হবে → X
  • রেন্ডারিং করতে → CTRL + M
  • মার্ক ইন ও আউট করতে → I/O
  • স্পিড ও সময় সেটিংস পেতে → CTRL + R
  • লিংক ও আনলিংক করতে → CTRL + L
  • প্রজেক্ট বন্ধ করতে → Ctrl+Shift+W
  • অডিও ট্রান্সিশন এপ্লাই করতে → Ctrl+Shift+D
  • অডিও ক্লিপ যুক্ত করতে → Shift+9
  • এআরএম ট্র্যাক রেকর্ডের জন্য → Ctrl+Alt+R
  • ভিডিও চালু ও বন্ধ করতে → Space

তুসিন আহমেদ

আরও পড়ুন

টাইমলাইনে হাউড করা ছবি পোস্ট ফিরিয়ে আনা

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ফেইসবুকের টাইমলাইন থেকে অনেক সময় কিছু ছবি বা পোস্ট আমরা হাইড করে দেই। ভুলেও কাজটি হয়ে থাকে অনেক সময়। কিছু সময়ের পরে হয়ত সেটি আবার টাইমলাইনে ফিরিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নেই। তখন কিভাবে হাইড ছবি বা পোস্ট আবার টাইম লাইনে আনতে হবে তা নিয়ে বিপাকে পরেন অনেকেই।

এ কাজ করে নেওয়া যায় মাত্র কয়েক ক্লিকে। কিভাবে কাজটি করতে হবে তা এ টিউটোরিয়ালে তুলে ধরা হলো।

প্রথমে ফেইসবুকে লগইন করে উপরে ডান পাশ থেকে ‘activity log’-এ ক্লিক করতে হবে।

1

এরপর বাম পাশে থাকা অপশন থেকে ‘posts you’ve hidden’- এ ক্লিক করতে হবে।

তাহলে আপনার টাইমলাইনে হাইড করে রাখা ছবিগুলো প্রদর্শিত হবে। ডান পাশে সাল অনুযায়ী টাইমলাইন দেখা যাবে।

4

সেখান থেকে যে ছবিটি আপনি হাইড করেছিলেন সেটি আনহাইড করতে ছবি পাশ থেকে হাইড আইকনের উপর ক্লিক করতে হবে।

তারপর ‘allowed on timeline’-এ ক্লিক করতে হবে। তাহলেই হাইড করা ছবিটি পুনরায় টাইমলাইনে প্রদর্শিত হবে।

আরও পড়ুন  

স্ন্যাপচ্যাটে হয়রানির অভিযোগ করবেন যেভাবে

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে নানা কারণে সমস্যায় পড়তে হয়। কেউ আপনার ছবি ব্যবহার করে ভুয়া আইডি খুলতে পারে। কেউ আবার আপনার ছবি মিথ্যা কোনো সংবাদে যুক্ত করে সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দিতেও পারে।

এই ঝামেলাগুলো এড়াতে প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যবস্থা নিয়ে থাকে। তবে ফেইসবুকে অভিযোগ করলে তা সমাধান হতে অনেক সময় লেগে যায়। এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ছবি ও ভিডিও শেয়ারিং প্লাটফর্ম স্ন্যাপচ্যাট। ব্যবহারকারীদের অভিযোগ ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এমন সমাধানে সুনাম রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির।

কেউ যদি স্ন্যাপচ্যাট ব্যবহার করে আপনার ক্ষতি বা মিথ্যা ছবি, ভিডিও ছড়িয়ে থাকে তাহলে কিভাবে অভিযোগ করবেন তা তুলে ধরা হলো এই টিউটোরিয়ালে।

প্রথমে স্ন্যাপচ্যাটের সাইটের উপরে থাকা Policies & Safety অপশনে গিয়ে Safety Concern অপশনে যেতে হবে। চাইলে সরাসরি এই লিংক ক্লিক করলেও হবে।

spnapchat-techshohor (2)

তারপর ‘I need help’ অপশন থেকে যে সমস্যাটি জন্য আপনি অভিযোগ করবেন তা নির্বাচন করতে হবে।

spnapchat-techshohor (3)

এরপর পর্যায়ক্রমে অনেকগুলো অপশন দেখাবে। ব্যবহারকারীদের প্রয়োজন মতো স্যামসাগুলো চিহ্নিন্ত করতে হবে।

পরবর্তীতে ধাপে অভিযোগকারী ব্যক্তিকে যেনো আপনি ব্লক করে দেন এমন বার্তা দেখাবে।

spnapchat-techshohor (1)

স্ন্যাপচ্যাটে ডিফল্ট থাকা অভিযোগগুলো যদি আপনার সমস্যার সাথে না মিলে তাহলে বিস্তারিত অভিযোগ লিখতে ‘yes’ ক্লিক করতে হবে।

তারপর অভিযোগের ধরণ বিস্তারিত লিখে, অভিযোগ আইডিটি, বয়স ইত্যাদি দিয়ে সাবমিট বাটনে ক্লিক করতে হবে।

তারপর অভিযোগ পর্যালোচনা করে ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই ফলাফল জানাবে স্ন্যাপচ্যাট।

আরও পড়ুন: