উইন্ডোজ পিসি স্টোরেজ বাড়াতে ৩ টিপস

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : স্টোরেজ নিয়ে ঝামেলায় পরার বিষয়টি কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের জন্য নতুন নয়। স্টোরেজ সংকটে পড়ে অনেক প্রয়োজনীয় ফাইল সংরক্ষণ করা যায় না। এছাড়া হার্ডড্রাইভে স্টোরেজ পরিপূর্ণ হয়ে গেলেও অনেক সময় কম্পিউটারের গতি কমে যায়। তাই উইন্ডোজ ব্যবহারকারীদের স্টোরেজ বাড়তে এই টিউটোরিয়ালে তিনটি টিপস তুলে ধরা হলো ।

ডিস্ক ক্লিনিংআপ:

এটি উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম চালিত ডিভাইসের স্টোরেজ বাড়ানোর অন্যতম একটি উপায়। উইন্ডোজ মেনুতে সার্চ করে টেম্পরারি ফাইল, অপ্রয়োজনীয় অ্যাপের ব্যাকআপ ফাইল ইত্যাদি মুছে দিতে হবে। এছাড়া ‘Clean up system files’ অপশন থেকে পুরানো উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমের (ওএস) ফাইলগুলো মুছে জায়গা বৃদ্ধি করা যাবে।
অনেক সময় মুছে ফেলা ফাইলগুলোও রিসাইকেল বিনে থেকে যায়। যা অনেকখানি জায়গা দখল করে রাখে। সেক্ষেত্রে রিসাইকেল বিনে থাকা অপ্রয়োজনীয় ফাইলগুলো  চেক করে ডিলেট করে দেয়া উচিত। এতে স্টোরেজ বৃদ্ধি পাবে।

windows 10

ভারি সফটওয়্যার আনইন্সটল করা:

নানা কাজের প্রয়োজনে নতুন অনেক সফটওয়্যার কম্পিউটারে ইন্সটল করতে হয়। আবার অন্যদিকে এমন অনেক সফটওয়্যার আছে যা দীর্ঘদিন ধরে কম্পিউটারে ইন্সটল করা থাকলেও ব্যবহার করা হয় না। এধরনের সফটওয়্যারগুলো কোনো কারণ ছাড়াই কম্পিউটারের স্টোরেজ নষ্ট করে। তাই এই সকল ভারি সফওয়্যারগুলো আনইন্সটল করে দেয়া উচিত। এই কাজটি করতে হলে Settings গিয়ে System যেতে হবে তারপর Apps & feature অপশন থেকে সফটওয়্যারটি আনইন্সটল করে দিতে হবে।

একই ফাইল মুছে ফেলা:

ডিস্ক ক্লিনিংআপ ও সফটওয়্যার মুছে ফেলার পরেও অনেক সময় অধিক স্টোরেজের প্রয়োজন হয়। এক্ষেত্রে কম্পিউটারের হার্ডড্রাইভে থাকা ফাইলগুলোর দিকে নজর দিতে হবে। অনেক সময় একই ফাইল একাধিক জায়গায় থাকে যা কম্পিউটারের  স্টোরেজ জায়গা দখল করে রাখে। তাই একই রকম ফাইলগুলো খুঁজে খুঁজে ডিলেট করে দিতে হবে। যেন একই ফাইল একাধিক স্টোরেজ দখল করে না রাখে।

আরও পড়ুন: 

উইন্ডোজ ১০ব্যবহারকারী ৫০ কোটি

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ৫০ কোটি ব্যবহারকারীর মাইলফলক স্পর্শ করলো সফট জায়ান্ট মাইক্রোসফটের উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেম।

বুধবার অনুষ্ঠিত মাইক্রোসফটের ডেভেলপার সম্মেলন ‘বিল্ড ২০১৭’তে এই তথ্য জানায় প্রতিষ্ঠানটি।

অনুষ্ঠানে মাইক্রোসফটের প্রধান নির্বাহী সত্য নাদেলা বলেন, উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেম অল্প সময়ের গ্রাহকদের কাছে জনপ্রিয়তা পেয়েছে। ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বর মাসে ৪০ কোটি ব্যবহারকারী ছিলো। এরপর মাত্র ৮ মাসে ১০ কোটি ব্যবহারকারী উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার করায় দ্রুতই আমরা ৫০ কোটির মাইলফলক স্পর্শ করি। আশা করছি ২০১৮ সালের মধ্যে ১০০ কোটি গ্রাহক এই ওএসটি ব্যবহার করবেন।

windows-10-techshohoir

তিনি আরও জানান, ইন্টারনেট নির্ভর হার্ডওয়্যার ও সেবার পাশাপাশি আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলেজেন্স বা এআইয়ের দিকে নজর দিচ্ছে মাইক্রোসফট।

মাইক্রোসফট জানিয়েছে, অফিস ৩৬৫ এর মাসিক বাণিজ্যিক সক্রিয় ব্যবহারকারী এখন ১০০ মিলিয়ন। সেই সাথে করটার্নার ব্যবহারকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে সঠিক কত সংখ্যক ব্যবহারকারী করটার্নার ব্যবহার করেন সেই সংখ্যা জানানো হয়নি।

উল্লেখ্য, গুগলের ক্রোম ওএসের সাথে পাল্লা দিতে সম্প্রতি উইন্ডোজ ১০ এস নামে নতুন একটি বিশেষ সংস্করণ উন্মুক্ত করে মাইক্রোসফট। ধারণা করা যাচ্ছে এই সুবাদে কমদামী হার্ডওয়্যারযুক্ত ডিভাইসে আরও সহজে উইন্ডোজ ওএস ব্যবহার করা যাবে।

দ্য নেক্সট ওয়েব অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

ওয়ালপেপারে একাধিক ছবি যুক্ত করবেন যেভাবে

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর :কম্পিউটারের ওয়ালপেপারে একই ছবি দেখতে দেখতে অনেক সময় বিরক্ত হয়ে যাই আমরা। তখন ছবিটি পরিবর্তন করে নতুন ছবি যুক্ত করে দেই। চাইলে কম্পিউটারের ওয়ালপেপারে নিজের পছন্দমত ছবির সম্পূর্ণ ফোল্ডারটি যুক্ত করা যাবে।

সেক্ষেত্রে স্বয়ংক্রিয়ভাবে নির্দিষ্ট সময় পর পর পরিবর্তন হবে ওয়ালপেপার।

চলুন দেখে নেয়া কিভাবে কাজটি করতে হবে।

প্রথমে স্টার্ট মেন্যুতে ক্লিক করে সেটিংস এ যেতে হবে।

তারপর সেখান থেকে ‘personalization’ অপশনে ক্লিক করতে হবে।

1

এপর নতুন একটি পেইজ চালু হবে সেখান থেকে ‘background’-এ ক্লিক করতে হবে।

তাহলে কম্পিউটারের ব্যাকগ্রাউডে ওয়ালপেপার নির্ধারণের অপশন আসবে।

2

যেখানে ‘background’ অপশনে গিয়ে ‘slideshow’ অপশনে ক্লিক করতে হবে।

3

তারপর ‘choose albums for your slideshow’ থেকে ‘browse’-এ ক্লিক করে যে ফোল্ডারের ওয়ালপেপারের জন্য ছবি রয়েছে সে ফোল্ডারটি নির্ধারণ করে দিতে হবে।

তাহলেও নির্ধারিত ফোল্ডারে যতগুলো ছবি আছে সবগুলো পযার্য়ক্রমে প্রদর্শিত হবে ওয়াপেপার হিসেবে।

চাইলে ‘change picture every’ অপশনে গিয়ে নির্ধারণ করে দেওয়া যাবে, কত সময় পরে ওয়ালপেপারে ছবি পরিবর্তন করা হবে।

আরও পড়ুন

 

উইন্ডোজ ১০ এ নতুন আপডেট চলতি মাসেই

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেমের নতুন আপডেট নিয়ে হাজির হচ্ছে প্রযুক্তি জায়ান্ট মাইক্রোসফট। চলতি মাসেই সেটা পাওয়া যাবে।

এক ব্লগপোস্টে আনুষ্ঠানিভাবে প্রতিষ্ঠানটি এই ঘোষণা দিয়েছে। ‘উইন্ডোজ ১০ ক্রিয়েটরস ‘ নামে আপডেটটি চলিতে মাসে ১১ তারিখ উন্মুক্ত হবে। এটি সাম্প্রতিক সময়ে উইন্ডোজ ১০ এর সবচেয়ে বড় আপডেট।

নতুন আপডেটে থ্রিডি অ্যাপ ও প্রিন্টিংয়ের বিষয়ে নজর দেয়া হয়েছে। কেননা ২০২০ সাল নাগাদ থ্রিডি প্রিন্টিয়ের বাজার ৬২ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। তাই মাঠে নামতে প্রস্তুত মাইক্রোসফট। নতুন আপডেটে পেইন্ট অ্যাপে আরও সহজেই থ্রিডি ছবি নিয়ে কাজ করা যাবে।

windows-10-techshohor

এতে উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার করে এক্সবক্সে গেইম খেলা হবে আরও সহজ। এছাড়া মাইক্রোসফট এইজ ব্রাউজারের উন্নত সংস্করণ আনা হবে। ফলে আরও দ্রুত ও নিরাপদে ব্রাউজিং সুবিধা পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছে মাইক্রোসফট।

রাতে কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের জন্য ‘নাইট লাইট’ নামে বিশেষ ফিচার আনা হবে। থাকবে পূর্বের নিরাপত্তা বাগ ফিক্সডসহ আরও নানা ফিচার।

প্রথম ধাপে প্রতিষ্ঠানটির নতুন ডিভাইস ও হার্ডওয়্যার পার্টনারদের দেবে উইন্ডোজ ১০ ক্রিয়েটরস আপডেট। তারপর ধীরে ধীরে সব ব্যবহারকারীদের জন্য উন্মুক্ত হবে এটি।

এদিকে একই দিনে উইন্ডোজ ভিসতার সকল সাপোর্ট বন্ধ করে দিতে যাচ্ছে মাইক্রোসফট। প্রতিষ্ঠানটির ইতিহাসে সবচেয়ে সমালোচিত অপারেটিং সিস্টেম ছিল ভিসতা।

মাইক্রোসফট ব্লগ অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

আরও পড়ুন: 

আপডেটের কারণে রিস্টার্ট নেবে না উইন্ডোজ ১০

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেম প্রতিনিয়ত আপডেট করা হয়। এর মাধ্যমে নানা বাগ ও নিরাপত্তা ক্রুটি ঠিক করা হয়। কম্পিউটার বা ল্যাপটপে ইন্টারনেট সংযোগ থাকলে কাজের সময় এসব আপডেট ডাউনলোড হয়ে থাকে। পরে এগুলোর ইন্সটল শেষ হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে কম্পিউটার রিস্টার্ট নিয়ে থাকে বা নিতে চায় ।

তবে অনেক সময় জরুরি কাজের মাঝে কম্পিউটার রিস্টার্ট নিলে ব্যাপক অসুবিধার মুখে পড়তে হয়। আবার এর বিকল্পও খুব একটা নেই। ব্যবহারকারীদের এমন পরিস্থিতির কথা চিন্তা করে উইন্ডোজ ১০-এ রয়েছে বিশেষ সুবিধা।

জরুরি প্রয়োজনে কাজের সময় নির্ধারণ করে দিলে আপডেটের পর কম্পিউটার নিজে থেকে রিস্টার্ট নেবে না। কিভাবে কাজটি করতে হবে তা এ টিউটোরিয়ালে তুলে ধরা হলো।

প্রথমে স্টার্ট মেন্যু থেকে সেটিংসে যেতে হবে।

তারপর সেখান থেকে ‘update and security ‘-এ ক্লিক করতে হবে।

1

এরপর ‘update settings’-এর নিচে অনেকগুলো অপশন দেখা যাবে। সেখান থেকে ‘change active hours’-এ ক্লিক করতে হবে।

তারপর সময় নির্ধারণ করে দিতে হবে। কখন আপনি কম্পিউটারে কাজ করেন। ধরুন আপনি সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত কম্পিউটারে জরুরি কাজ রয়েছে আপনার। এ সময়টুকু নির্ধারণ করলে কম্পিউটার এ সময়ে রিস্টার্ট নেবে না।

3

প্রয়োজনমত সময় নির্ধারণ করে ‘save’ বাটনে ক্লিক করতে হবে।

তাহলে কাজের সময় উইন্ডোজ ১০ আপডেটজনিত কারণে কম্পিউটার রিস্টার্ট নেবে না।

ডেক্সটপ দিয়ে ইনস্টাগ্রামে ছবি আপলোড করবেন যেভাবে

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : আপনি প্রতিনিয়ত ইনস্টাগ্রাম ব্যবহার করেন? হঠাৎ আপনার ফোনটি নষ্ট হয়ে গেলো বা অন্য কোনো কারণে ফোনে ইনস্টাগ্রাম ব্যবহার করতে পারছেন না। তখন কী করবেন ভাবছেন?

অথচ আপনার হাতের কাছেই রয়েছে ডেক্সটপ। তবে ডেক্সটপে ওয়েব ব্রাউজারের মাধ্যমে ইনস্টাগ্রাম ব্যবহার করলেও তাতে কোনো ছবি আপলোড করা যায় না। ওয়েবসাইটে গিয়ে লগইন করে শুধুমাত্র ব্যবহারকারীর প্রোফাইল ও হোম ফিড দেখা যায়।

উইন্ডোজ ১০ কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের জন্য ইনস্টাগ্রাম অ্যাপ্লিকেশন রয়েছে উইন্ডোজ অ্যাপস্টোরে। তবে টাচস্ক্রিন ল্যাপটপ বা ট্যাবলেট ছাড়া অ্যাপটি ব্যবহার করে কোনো ছবি আপলোডের সুবিধাও পাওয়া যাবে না।

তবে উপায়? উপায় আছে। উইন্ডোজ ১০ চালিত ডেক্সটপ কম্পিউটার থেকে কিভাবে ছবি আপলোড করবেন সেটাই প্রক্রিয়া তুলে ধরা হলো এই টিউটোরিয়ালে।

instapic-app_techshohor

যেহেতু সরাসরি ইনস্টাগ্রামের অ্যাপ দিয়ে ছবি আপলোড করা যায় না তাই একটু ঘুরিয়ে কাজটি করতে হবে। এর জন্য আপনাকে ব্যবহার করতে হবে ইনস্টাপিক নামে একটি অ্যাপ।

অ্যাপটি ইন্সটল করতে উইন্ডোজ অ্যাপস্টোরে দিয়ে সার্চে লিখতে হবে ‘InstaPic’। তারপর এন্টার ক্লিক করলেই অ্যাপটি দেখা যাবে এরপর তা ইন্সটল করে নিতে হবে।

তারপর সেটি চালু হলে সেখানে ইনস্টাগ্রামের ইউজার নাম ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে হবে। তাহলে ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট চালু হবে।

Screenshot_2

এরপর অ্যাপটির বাম পাশে থাকা ক্যামেরা আইকনের উপর ক্লিক করতে হবে। তাহলে ফোনে থাকা ইনস্টাগ্রাম অ্যাপের মতই ক্যামেরা অপশন ও ছবি নিবার্চন অপশনটি প্রদর্শিত হবে। আপনার ডেক্সটপ যদি ওয়েবক্যাম থাকে তাহলে সেটার সাহায্য সরাসরি ছবি তুলে আপলোড করা যাবে।

instapic-apps_techshohor

আর যদি কম্পিউটার থাকা ছবি আপলোড করতে চান সেজন্য ‘ইমেজ’ আইকনে ক্লিক করতে হবে। তারপর যে ফোল্ডারে ছবি আছে সেখান থেকে ছবি নির্বাচন করতে হবে। এরপর পছন্দমত ফিল্টার দিয়ে ছবি আপলোড করতে হবে।

আরও পড়ুন: 

এপ্রিলে বন্ধ হচ্ছে উইন্ডোজ ভিসতা সাপোর্ট

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর :  উইন্ডোজ ভিসতার কথা মনে আছে? মাইক্রোসফটের বহুল জনপ্রিয় অপারেটিং সিস্টেম। এক্সপির পরেই বাজারে আনা হয়েছিল?

মনে না থাকলে মনে করুণ। খুব বেশি দিনের কথা নয় কিন্তু। ২০০৭ সালের কথা।

কিন্তু যতটা আশা নিয়ে ওএসটি আনা হয়েছিল ঠিক ততোটাই হতাশ করেছে ব্যবহারকারীদের। ফলে মাইক্রোসফটের ইতিহাসে সবচেয়ে সমালোচিত অপারেটিং সিস্টেম হিসেবেও স্থান পেয়েছে এটি।

দীর্ঘ দশ বছর পরে অপারেটিং সিস্টেমটির সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করতে যাচ্ছে মাইক্রোসফট। প্রতিষ্ঠানটি আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা দিয়েছে চলতি বছর এপ্রিলের ১১ তারিখ থেকে বন্ধ হয়ে যাবে ভিসতার সকল সাপোর্ট।

windows-vista-techshohor

মাইক্রোসফট জানিয়েছে, সাপোর্ট বন্ধ হওয়ার পর থেকে ভিসতার জন্য কোনো ধরনের আপডেট, সিক্যুরিটি ফিক্স, অনলাইন সাপোর্ট পাওয়া যাবে না।

এক ব্লগপোষ্টে মাইক্রোসফট আরও জানায়, মাইক্রোসফট উইন্ডোজ ভিসতার ব্যবহারকারীদের ১০ বছর সাপোর্ট দিয়েছিলো। এগিয়ে যাওয়া প্রযুক্তি সাথে তাল মিলিয়ে দিতে পুরানো ওএসটি সাপোর্টের জন্য সময় নষ্ট চায় না মাইক্রোসফট। তাই সেবা বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে।

সে সকল ব্যবহারকারীরা এখনো ভিসতা ব্যবহার করেছেন তারা যেন দ্রুত উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেমটি আপডেট করে নেন।

উল্লেখ্য বর্তমানে ভিসতার ব্যবহারকারী খুবই কম। মাত্র ০.৭৮ শতাংশ ব্যবহারকারী সমালোচিত ওএসটি ব্যবহার করছেন। উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার করছেন ২৫ শতাংশ ব্যবহারকারী।

২০১৪ সালে সাপোর্ট বন্ধ হওয়ার পরেও এখনো ৫ শতাংশ ব্যবহারকারী এক্সপি ব্যবহার করছেন। তবে ৪৮ শতাংশ ব্যবহারকারী এখনো উইন্ডোজ ৭ ব্যবহার করছেন।

তাই যে সকল অল্প সংখ্যাক ব্যবহারকারীরা এখনো উইন্ডোজ ভিসতা ব্যবহার করছেন দ্রুতই অপারেটিং সিস্টেমটি পরিবর্তন করে নেয়া উচিত।

সিনেট অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

সফটওয়্যার ছাড়া উইন্ডোজ ১০-এ পিডিএফ তৈরি

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : কম্পিউটার থেকে কোনো ডকুমেন্ট প্রিন্ট বা অন্যদের কাছে পাঠানোর চমৎকার ফরম্যাট পিডিএফ। ছবি বা ডক ফাইলের তুলনায় পিডিএফে প্রিন্ট করার ঝামেলা কম। ফন্ট ভাঙ্গার ঝামেলা এড়াতে অনেক সময় আমাদের যে কোনো ডকুমেন্টকে পিডিএফ করার প্রয়োজন হয়। তখন থার্ডপার্টি বিভিন্ন সফটওয়্যার ডাউনলোডের প্রয়োজন হয় পিডিএফ ফরম্যাট তৈরি করতে।

ব্যবহারকারীদের কথা চিন্তা করে উইন্ডোজ ১০ অপরেটিং সিস্টেমে ডক, ছবির মতো ফাইলগুলো পিডিএফ ফরম্যাটে প্রিন্ট করার ফিচার রয়েছে। এ জন্য আলাদা কোনো সফটওয়্যারের প্রয়োজন হবে না।

উইন্ডোজ ১০-এ ডিফল্টভাবে কাজটি করা যায়। যেভাবে কাজটি করতে হবে এ টিউটোরিয়ালে তা তুলে ধরা হলো।

windows 10-techshohor (1)

যে ফাইলটি পিডিএফে কনভার্ট করতে চান সেটির ওপর মাউস রেখে ডান ক্লিক করে সেখান থেকে ‘print’ অপশনে ক্লিক করতে হবে।

তাহলে যে পেইজ চালু হবে তার উপরে ‘printer’ অপশনটি ক্রল করলেই ‘microsoft print to pdf’ অপশনটি দেখা যাবে। এখন সেটি নির্বাচন করতে হবে।

windows 10-techshohor (2)

এটি নির্বাচন করে ‘print’ বাটনে ক্লিক করতে হবে। তারপর পিডিএফ ফাইলে সেখানে সংরক্ষণ করতে হবে তা দেখিয়ে দিতে হবে।

windows 10-techshohor (2)

তাহলে যে ফোল্ডারে ফাইলটি সংরক্ষিত করা হলো সেখানে পিডিএফ ফাইলটি পাওয়া যাবে।

এটি এখন প্রিন্ট কিংবা মেইল করতে পারবেন সহজেই।

আরও পড়ুন:

নতুন উইন্ডোজ ফোন আসবে আগামী বছর

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : উইন্ডোজ ফোন নিয়ে বাজারে সুবিধাজনক অবস্থানে নেই সফট জায়ান্ট মাইক্রোসফট। তবুও চেষ্টা চালিয়ে যেতে চায় প্রতিষ্ঠানটি। প্রযুক্তি বিশ্বে গুঞ্জন চলছে এইচপির সঙ্গে মিলে মাইক্রোসফট নতুন উইন্ডোজ চালিত স্মার্টফোন তৈরি করছে। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী বছর দেখা মিলবে নতুন উইন্ডোজ ফোনের।

ফোনটির কনফিগারেশন কী হতে পারে এই সম্পর্কে তেমন কোনো তথ্য প্রকাশ হয়নি। ধারণা করা হচ্ছে, লুমিয়ার মত দেখতে ডিজাইন হতে পারে এই ফোনের। তবে থাকবে উন্নত ক্যামেরা এবং প্রসেসর।

IE_Pin_LiveTile_WindowsPhone_techshohor

আরেক গুঞ্জনে ধারণা করা হচ্ছে মাইক্রোসফট এমনভাবে নতুন স্মার্টফোনটি তৈরি করতে পারে যা একই সঙ্গে মিনি ল্যাপটপের মতই কাজ করবে। উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেম চালিত স্মার্টফোনগুলো একই সাথে ফোন ও কম্পিউটার হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

মাইক্রোসফট অফিসিয়ালভাবে কোনো তথ্য না জানালেও এটি নিশ্চিত, হার্ডওয়্যার বাজারে শক্ত অবস্থানে যেতে চায় প্রতিষ্ঠানটি। তাই তো চলতি বছর নতুন সারফেস বুক, সারফেস স্টুডিও এনে বিশ্বসে তাক লাগিয়ে দিয়েছিল। কম্পিউটারের পর এবার মাইক্রোসফটের নজর স্মার্টফোন নিয়ে বাজারের দিকে।

সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে ঘোষণা আসতে পারে নতুন ফোনের। তবে অফিসিয়ালভাবে যেহেতু কোনো ঘোষণা আসেনি তাই উইন্ডোজ ফোন ভক্তদের অপেক্ষা পালা শুরু।

ফোনএরিনা অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

মাউস নড়লেও সচল থাকবে স্লিপ মুড

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : কম্পিউটারের বড় কোনো ফাইল বা মুভি ডাউনলোডের সময় দীর্ঘক্ষণ অন রাখার প্রয়োজন হয়। বিদ্যুৎ বা ল্যাপটপের চার্জ সাশ্রয় করতে সে সময় কম্পিউটারকে স্লিপ মুডে রাখেন অনেকেই। এক্ষেত্রে মাউসে হঠৎ স্পর্শ লেগে নড়লে আবার কম্পিউটার সচল হয়ে যায়। অনেকের কাছে এটি বিরক্তকর মনে হতেও পারে। স্লিপ মুড থেকে কম্পিউটারকে সচল করতে অনেকে আবার শুধু কিবোর্ড ব্যবহার করতে চান।

তবে একটি উপায় আছে যখন আপনার কম্পিউটাররের মাউস স্পর্শ করেও স্লিপ মুডে রাখা যায়। ভাবছেন কিন্তু কিভাবে! সেই কৌশল তুলে ধরা হলো এই টিউটোরিয়ালে।

প্রথমে কম্পিউটারের স্টার্ট বা নোটিফিকেশন বার থেকে সেটিংস অপশনে যেতে হবে।

সেখান থেকে এবার ‘Devices’ অপশনে যান।

1

ডিভাইস অপশনে গেলে সেখানে বাম পাশের অপশন থেকে ‘mouse & touchpad’ অপশনে ক্লিক করুন।

2

ক্লিকে একটি নতুন পেইজ চালু হবে। নতুন পেইজে ‘additional mouse options’ এ ক্লিক করতে হবে।

3

তাহলে ‘mouse properties’ অপশনটি চালু হবে। সেখান উপরের ট্যাব থেকে ‘hardware’ অপশনে ক্লিক করতে হবে।

4

এবার নিচের দিকে থেকে ’properties’ এ ক্লিক করলে নতুন আরেকটি পেইজ চালু হবে। সেখান থেকে ‘change settings’ এ ক্লিক করুন।

5

এরপর নতুন যে পেইজ চালু হবে সেখান থেকে ‘ power management’ অপশনে ক্লিক করে ‘allow this device to wake the computer’ এ টিক চিহ্ন তুলে দিয়ে ‘Ok’ অপশনে ক্লিক করুন।

আর সেখান থেকেই আপনি কম্পিউটার স্লিপ মুডে থাকা অবস্থাতেও মাউস নড়াচড়া করলে তা জেগে উঠেবে না।

উইন্ডোজ ১০-এর সর্বশেষ আপডেট ইন্সটলের উপায়

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহারকারীদের জন্য সম্প্রতি বড় ধরনের আপডেট এনেছে মাইক্রোসফট। এতে অনেক পরিবর্তন ও নতুন ফিচার যুক্ত করা হয়েছে।

এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- এইজ ব্রাউজারের উন্নতি, ভিজুয়াল মোডিফিকেশন, স্টার্ট মেন্যুতে নতুন ফিচার ও নিরাপত্তা মূলক নানা আপডেট।

সাধারণত উইন্ডোজ ১০-এর নতুন আপডেট পেতে অনেককে কোনো ঝামেলা পোহাতে হয় না। ইন্টারনেট সংযোগ চালু থাকলে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই এটি আপডেট হয়ে যায়।

WINDOWS-10

তবে অনেক ব্যবহারকারী নতুন আপডেট স্বয়ংক্রিয়ভাবে পাচ্ছেন না। তার কারণ হতে পারে, মাইক্রোসফট সব ব্যবহারকারীদের জন্য একত্রে স্বয়ংক্রিয় আপডেট না দিয়ে ধীরে ধীরে দিয়ে থাকে।

এ ছাড়া যদি ব্যবহারকারীরা সম্প্রতি উইন্ডোজ ৭ বা ৮.১ থেকে উইন্ডোজ ১০-এর আপডেট করে থাকে তাহলে ৩০ দিন না হলে নতুন আপডেট পাওয়া যাবে না।

৩০ দিন পর উইন্ডোজের পুরানো ওএসের ব্যাকআপ ফোল্ডালটি ডিলিট করলে আপডেট পাওয়া যাবে। কিভাবে উইন্ডোজ ওএসের পুরানো ব্যাকআপ ডিলিট করতে হবে তা এ টিউটোরিয়ালে পাবেন।

এরপর ‘settings menu’-তে গিয়ে Update & security অপশনে ক্লিক করে Windows Update-এ ক্লিক করতে হবে।

তারপর আপডেট স্ক্যান করতে কিছু সময় অপেক্ষা করতে হবে। অপেক্ষার পরে আপডেট ডাউনলোড শুরু হবে।

সম্পূর্ণ ডাউনলোড হলে কম্পিউটারটি রিস্টার্ট দিলেই নতুন আপডেট কাজ শুরু করবে।

Windows 10 Upgrade Assistan

যদি এ পদ্ধতি কাজ না করে তাহলে প্রথমে এ পেইজে যেতে হবে। যেখানে গিয়ে ‘Get the Anniversary Update now’ অপশনটিতে ক্লিক করতে হবে। তাহলে একটি .exe ফাইল ডাউনলোড হবে।

এরপর ডাউনলোড করা ফাইলটি ক্লিক করে চালু করলেই হবে। এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপডেট প্রক্রিয়া কিভাবে হবে সেটির সব ধাপ দেখিয়ে দেবে।

আরও পড়ুন