অ্যাপ থেকে জানা যাবে কোন গাড়ি কোন রুটে চলে

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : এই নগর জীবনের যাত্রা কালে পথে ভুল হতেই পারে। বিশেষ করো এতো সব বাসের মাঝে কোনটি কোন রুটে যায় তা অনেক সময়ই আমরা ভুলে যাই। বিশেষ করে নতুন কোনো জায়গায় গেলে তা নিয়ে বিপাকে পড়তে হয়। এই ঝামেলা থেকে মুক্তি দিবে ‘ঢাকা সিটি বাস রুট’ নামে অ্যাপ্লিকেশনটি।

এক নজরে অ্যাপ্লিকেশনটির ফিচার সমূহ:
অ্যাপ্লিকেশনটির মাধ্যমে বাংলা ও ইংরেজ ভাষায় ঢাকার রাস্তায় চলাচল করা বাসগুলোর রুট সম্পর্কে জানা যাবে।

অ্যাপটিতে সার্চ করার সুবিধা রয়েছে। এতে যেকোনো বাসের নাম সার্চ করে জেনে নেওয়া যাবে বাসটি কোন কোন রুটে যাতায়ত করে।

dhaka-bus-techshohor-apps

চাইলে অ্যাপটি থেকে টেক্সট কপি করেও শেয়ার করা যাবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।
সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো অফলাইনেও থাকলেও অ্যাপটি ব্যবহার করা যাবে। তাই একবার ডাউনলোড করা হলে পুনরায় ইন্টারনেট সংযোগ ব্যবহারের প্রয়োজন হবে না।

অ্যাপটির প্রতিটি পেইজে বিজ্ঞাপন প্রদর্শিত হয়। বিষয়টি অনেকের কাছে বিরক্তকর মনে হতে পারে।

৪.২ রেটিং প্রাপ্ত অ্যাপ্লিকেশনটি গুগল প্লে থেকে ১০ হাজারের বেশি ডাউনলোড হয়েছে। এই ঠিকানা থেকে অ্যাপটি ডাউনলোড করে বিনামূল্যে ব্যবহা করা যাবে।

আরও পড়ুন: 

সফটওয়্যার সেবায় ধ্রুবতারা হতে চায় ধ্রুবক

ভালো একটি চাকরি চাই- বেশিরভাগের এমন ভাবনার মাঝে ব্যতিক্রম দুই তরুণ। অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস নিয়ে তাদের নতুন কিছু করার চিন্তা পরিণত হয়েছে এক সফল উদ্যোগে। বিস্তারিত জানাচ্ছেন ইমরান হোসেন মিলন।

দেশে সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট ও অ্যান্ড্রয়েড প্ল্যাটফর্মে দক্ষতায় সেরাদের একজন মেহেদী হাসান খান। একই ভাবনার সঙ্গী হিসেবে পেয়েছেন সফটওয়্যারে বিশেষ পারদর্শী আশিক-উজ-জোহাকে। বুয়েটে প্রকৌশল শিক্ষা গ্রহণের সময়ই তাদের দীর্ঘদিনের পরিকল্পনা রূপ নিয়েছে ধ্রুবক ইনফোটেক সার্ভিসেসে

তরুন এ দুই প্রকৌশলী নিজেরাই কিছু করতে চেয়েছিলেন। নিজেদের দেশেই সফটওয়্যারের বিকাশে কাজে লাগাতে চেয়েছিলেন অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস প্লাটফর্মকে। তাদের সেই যৌথ প্রচেষ্টা এখন বাস্তব রূপ পেয়েছে।

Drubak-infotech-techshohor

মোবাইল প্ল্যাটফর্মে উভয়ের আগ্রহ ও দক্ষতার সুবাদে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন, গেইমস, ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্টের সেবা প্রদানে বেশ সুনাম করেছে তাদের প্রতিষ্ঠানটি।

বুয়েটের কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগে পড়াশোনা করা আশিক ও মেহেদী মিলে ২০১৩ সালের মার্চে প্রতিষ্ঠা করেন ধ্রুবক ইনফোটেক সার্ভিসেস লিমিটেড। চার বছর পর তাদের এ উদ্যোগ ক্রমে বড় হয়েছে। এখন তাদের সঙ্গে কাজ করছেন আরও আট প্রকৌশলী। দেশি ও বিদেশি প্রতিষ্ঠানকে প্রযুক্তি সহায়তা দিচ্ছেন।

সফটওয়্যার প্রকৌশলী আশিক ধ্রুবকের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। অপর সহ-প্রতিষ্ঠাতা মেহেদী ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্বে রয়েছেন।

dhurok-all-rounder-techshohor

পিছন ফিরে দেখলে

সব উদ্যোগেরই পেছনে তাকালে সাধারণ হোক আর অসাধারণই হোক, একটা গল্প উঠে আসে। ধ্রুবকের রয়েছে তেমনি একটি গল্প। সাদামাটা হলেও তরুন এ দুই উদ্যোক্তার দৃঢ়তা, নিবিড় পরিশ্রম ও সংগ্রামের চিত্র উঠে এসেছে তাতে।

আশিক বলেন, বুয়েটে পড়ালেখার সময় তিন ও মেহেদী বেশিরভাগ ল্যাব, প্রজেক্ট, থিসিসগুলোতে একই গ্রুপে ছিলেন। সেই সুবাদে বন্ধুত্ব ও কাজকর্মের ব্যাপারে বোঝাপড়া তৈরি হয়েছে।

পুরনো দিনের কথা তুলে ধরে তরুন এ উদ্যোক্তা জানান, তারা বিভিন্ন বিষয়, আইডিয়া নিয়ে আলাপ করতেন। পড়ালেখা শেষের দিকে থাকায় ক্যারিয়ারের চিন্তাটা সামনে চলে আসে। দুজনেই তখন নিজেরা কিছু করা যায় কিনা সে বিষয়ে ভাবতে শুরু করেন। সেই ভাবনা রূপ নেয় পরিকল্পনায়, গড়ে ওঠে ধ্রুবক।

নিজের এ উদ্যোগকে এগিয়ে নেওয়ার দিনগুলো খুব সহজ ছিল না তাদের। এ সময়ে চোখের সামনে ‘ভালো’ চাকরির হাতছানিও ছিল। সেগুলো গ্রহণ করবেন, নাকি নিজেরা কিছু করে ভবিষ্যতে অন্যদের সেখানে চাকরি দেবেন- সে সিদ্ধান্ত নিতেও তাদের বেগ পেতে হয়েছে।

আশিকের ভাষায়, ‘আমাদের প্যাশন ছিল মোবাইল অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট। ছাত্র অবস্থায় ২০১১ সালে ফ্রিল্যান্স ডেভেলপার হিসেবে মার্কেটপ্লেসে কাজ করা শুরু করি। ২০১২-১৩ সালের দিকে তখন মোবাইল অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট ব্যাপারটায় এখনকার মত ক্রেজ ছিল না। মোবাইল অ্যাপ ডেভেলপমেন্টকে কেন্দ্র করে ক্যারিয়ার শুরু করতে চেয়েছি, তাই নিজেরাই কোম্পানি শুরু করার সিদ্ধান্ত নিই।’

বুয়েটে পড়ে ভালো চাকরির পিছনে না ছুটে তখন এমন সিদ্ধান্ত নেওয়াকে অনেকটাই চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখেন এ দুই উদ্যোক্তা। তবে সামাজিক অবমূল্যায়নের ভয়কে থোড়াই কেয়ার করে, নিজেদের পরিকল্পনায় থেকেছেন অটল।

আশিক বলেন, বড় সমর্থনটাই পেয়েছি পরিবার থেকে। ক্যারিয়ারের শুরুতে এ রকম একটা সিদ্ধান্তে পরিবারের সমর্থন অনেক বড় ব্যাপার। ছাত্র অবস্থায় জমানো সামান্য কিছু টাকা নিয়ে স্নাতকের পরই বনশ্রীতে একটি আবাসিক অ্যাপার্টমেন্টে ধ্রুবক ইনফোটেক সার্ভিসেস যাত্রা শুরু করে। এরপর ২০১৪ সালের শেষের দিকে অফিস মেরুল বাড্ডাতে বাণিজ্যিক ভবনে চলে আসে।

প্রতিষ্ঠানটিতে এখন আটজন কর্মী কাজ করছেন। যাদের বেশিরভাগই কম্পিউটার প্রকৌশলী।

যে ধরনের কাজ করে ধ্রুবক
ধ্রুবক মূলত সপটওয়্যার ডেভলপমেন্ট সেবা প্রদান করে। তাদের প্রতিষ্ঠান গুগলের অ্যান্ড্রয়েড ও অ্যাপলের আইওএস অপারেটিং সিস্টেমের জন্য মোবাইল অ্যাপ ও আনুষঙ্গিক সিস্টেম ইনফ্রাস্ট্রাকচার তৈরিতে বিশেষভাবে পারদর্শী।

এ ছাড়াও প্রতিষ্ঠানটি পিএইচপি (লারাভেল, কোড-ইগনাইটর) এবং জাভাস্ক্রিপ্ট (নোড জেএস, অ্যাঙ্গুলার জেএস) ফ্রেমওয়ার্কগুলোতে ওয়েবসাইট ও ওয়েবঅ্যাপ বানায়।

dhrubok-techshohor-office

গ্রাহক কারা
ধ্রুবক থেকে সেবা গ্রহণের তালিকায় দেশি-বিদেশি টেক-স্টার্টআপ ও করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোই উল্লেখযোগ্য বলে বলেন আশিক-উজ-জোহা। তিনি বলেন, দেশে অনেক প্রতিষ্ঠান আছে যেগুলো স্টার্টআপ হিসেবে শুরু করে ব্যবসায়িক দিকটি ভালো নিয়ন্ত্রণ ও ব্যবস্থাপনা করতে পারলেও, প্রযুক্তিগত দিক থেকে কিছুটা দুর্বল। তাদের সেবা দেওয়া একটা লক্ষ্য ধ্রুবকের।

ধ্রুবক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পণ্য ও সেবার ধরন, গ্রাহকের চাহিদা ও সংখ্যা বিবেচনায় নিয়ে যথোপযুক্ত সার্ভার সিস্টেম, রেস্ট(REST) এপিআই, মোবাইল অ্যাপ, ম্যানেজমেন্ট ও অ্যানালাইটিক সিস্টেম নির্মাণে সহায়তা করে ।

প্রতিবন্ধকতা

ধ্রুবক ইনফোটেক সার্ভিসেস প্রতিষ্ঠার পরে গত চার বছরে অনেক প্রতিকূলতা ও প্রতিবন্ধকতার মধ্য দিয়ে সময় পার করতে হয়েছে বলে বলেন আশিক।

প্রতিষ্ঠানের জন্য দক্ষ, যোগ্য ও সঠিক মননের সফটওয়্যার প্রকৌশলী খুঁজে নেওয়ার ক্ষেত্রে অনেক সমস্যায় পড়তে হয়েছে। তিনি বলেন, ভালো সফটওয়্যার প্রকৌশলী হওয়া একটি চলমান প্রক্রিয়া। একজন প্রোগ্রামারকে প্রতিনিয়ত নিজের জ্ঞানের পরিধি, ব্যাপ্তি ও গভীরতা বৃদ্ধি করতে হয়; নতুন প্রযুক্তি, ল্যাংগুয়েজ ও প্রক্রিয়ায় নিজের পারদর্শিতা বৃদ্ধি করতে হয়। কিন্তু এমন সুপরিকল্পিত প্রকৌশলীর অভাব বোধ করেছেন তারা।

এ ছাড়াও বড় একটা সমস্যা ছিল পেমেন্ট গেটওয়ে। তাদের বেশিরভাগ গ্রাহক বিদেশি কোম্পানি ও নাগরিক হওয়ায় অধিকাংশ আয় আসে বিদেশ থেকে বিশেষ করে আমেরিকা ও অস্ট্রেলিয়া থেকে। সেই অর্থ নিয়ে আসতে পেমেন্ট গেটওয়ে নিয়ে সমস্যায় পড়তে হয়েছে। পোহাতে হয়েছে অনেক হয়রাণি।

ভবিষৎ পরিকল্পনা
তাদের স্বপ্ন ধ্রুবকে দেশে ও দেশের বাইরে সফটওয়্যার তৈরি ও সেবায় একটি ব্র্যান্ড ও নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠানে পরিণত করা। ভবিষ্যৎ লক্ষ্যের অনেকটাই কম্পিউটার ভিশন, মেশিন লার্নিং ও আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স কেন্দ্রিক। সেই লক্ষ্যে তারা ধ্রুবকে এসব প্রযুক্তিতে দক্ষ ও পারদর্শী জনবল তৈরিতে কাজ করছেন।

প্রতিষ্ঠানটি মোবাইলকেন্দ্রিক বুদ্ধিমান সফটওয়্যার তৈরির মাধ্যমে দেশি ও আন্তর্জাতিক সমস্যার সমাধান ও মানুষের জীবনমান উন্নয়নে কাজ করতে চায়।

যোগাযোগ
সেঞ্চুরি সেন্টার (ফ্লোর ৮)
খ ২২৫ প্রগতি সরণী
মেরুল বাড্ডা
ঢাকা ১২১২
ওয়েবসাইট: www.dhrubokinfotech.com
ফেইসবুক পেইজ

খাওয়ার সময় পরিমান মনে করিয়ে দেবে অ্যাপ

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ব্যস্ততার কারেণ অনেক সময় খাওয়া-দাওয়ার ঠিক থাকে না। অসময়ে খেতে হয় দিনের খাবার। তবে প্রতিদিনই এমন চলতে থাকলে তা স্বাস্থ্যের ওপর মারাত্মক প্রভাব ফেলে। নিয়ম মেনে ও প্রতিদিন নির্দিষ্ট পরিমান না খেলে অসুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়।

এ ছাড়া কোন খাবার কি পরামান খাওয়া উচিত তা জানা নেই অনেকের। এ সমস্যার সমাধান মিলবে ফোনে হেলথ মাস্টার নামের অ্যাপ্লিকেশনটি ইন্সটল করা থাকলে।

apps-techshohor

এক নজরে অ্যাপ্লিকেশনটির ফিচারগুলো
খাওয়ার সময় খেতে ভুলে গেলো ‘ফুড রিমাইন্ডার’ অপশনটি তা মনে করিয়ে দেবে।

অ্যাপটি ব্যবহারকারীর উচ্চতা, ওজন ইত্যাদি তথ্য নিয়ে সে অনুযায়ী কি ধরনের খাবার খাওয়া উচিত সে সম্পর্কে জানাবে।

এতে বিকল্প খাবার সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে । বিভিন্ন শর্করা, আমিষ, ফ্যাট, শাকসবজি, দুগ্ধজাতীয় খাবার, ফলমূল, ডালজাতীয় খাবার ইত্যাদি খাবারের বিকল্প খাদ্যের চার্ট দেওয়া রয়েছে।

অ্যাপটির মাধ্যমে পুষ্টিবিদসহ বিভিন্ন চিকিৎসকের স্বাস্থ্য ও পুষ্টি বিষয়ক নানা উপদেশ ও পরামর্শ পড়ার সুবিধা রয়েছে।

জরুরি প্রয়োজনে হাসপাতালে যেতে হলে ম্যাপের মাধ্যমে সহজেই নিকটস্থ হাসপাতালের ঠিকানা খুঁজে দিবে অ্যাপটি।

অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীরা বিনামূল্যে ইএটিএলঅ্যাপসের এ ঠিকানায় গিয়ে ডাউনলোড করতে নিতে পারবেন অ্যাপটি।

চাইলে এখানে ক্লিক করে সরাসরি ডাউনলোড করে নেওয়া যাবে।

আরও পড়ুন

গুগল প্লে স্টোরের পেইড অ্যাপ বিনামূল্যে ডাউনলোড

 টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বেশ নিরবেই গুগল প্লে স্টোরে নতুন একটি সেকশন সংযুক্ত করা হয়েছে। ‘ফ্রি অ্যাপ অব দ্যা উইক’ নামে সেকশনটির সাহায্যে নিদিষ্ট পেইড অ্যাপ বিনামূল্যে ব্যবহারের সুযোগ পাবেন অ্যান্ড্রয়েড ওএস ব্যবহারকারীরা।

প্রতি সপ্তাহে এই সেকশনে যুক্ত হবে নতুন পেইড অ্যাপ্লিকেশন। যা বিনামূল্যে ডাউনলোডের সুবিধা দেও য়া হবে।

আপাতত শুধুমাত্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবহারকারীদের জন্য এই সেকশনটি চালু করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, ধারাবাহিকভাবে বিশ্বের অন্য দেশে থাকা অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের জন্যও উন্মুক্ত হবে এটি।

playstore-techshohor

বর্তমানে এই সেকশনের আওতায় ২.৯৯ মার্কিন ডলারের মূল্যের কার্ডওয়ার’স গেইমটি বিনামূল্যে ডাউনলোড সুবিধা পাচ্ছেন ব্যবহারকারীরা।

২০১৫ সালেও সীমিত সংখ্যাক পেইড অ্যাপ বিনামূল্যের ডাউনলোডের সুবিধা চালু করা হয়েছিল। কিন্তু সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে বন্ধ হয়ে যায় এই সুবিধাটি। এবার সেকশনটি সহজেই বন্ধ হবে না বলে মনে করা হচ্ছে। যদিও গুগল এই সম্পর্কে এখনো কিছু বলেনি।

playstore-techshohor

এই সেকশনের আওতায় পেইড অ্যাপ ডাউনলোড করতে গেলেই ‘ফ্রি’ লেখা চোখে পড়বে। পাশেই অ্যাপটির মূল্য কত ছিলো তাও উল্লেখ্য থাকবে। ফলে অ্যাপটি বিনামূল্যের ডাউনলোড কত ডলার বেঁচে গেলো তা ব্যবহারকারীরা বুঝতে পারেন।

পেইড অ্যাপ ফ্রিতে দেওয়ার নানা অফার ও ক্যাম্পেইন অ্যাপলের অ্যাপস্টোরে করা হয়ে থাকে। বিশেষ দিনগুলোতে অ্যাপস্টোরে সধারণত এমন অফার দেয়।

দ্য নেক্সট ওয়েব ও ম্যাশেবল অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

আরও পড়ুন: 

অ্যাপল আইডির পেমেন্ট মেথড ঝামেলা থেকে মুক্তি

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : অ্যাপলের ডিভাইস ব্যবহারের জন্য বিশেষ একটি আইডির প্রয়োজন হয়। যাকে বলা হয় অ্যাপল আইডি। গুগলের অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম চালিত ডিভাইস ব্যবহারে যেমন লাগে জিমেইল আইডি। আইফোন ও আইপ্যাডের বেলায় অ্যাপল আইডিও ঠিক তাই।

বাংলাদেশ থেকে অ্যাপল আইডি খোলা নিয়ে বিপাকে পড়তে হয় অনেককে। এ সমস্যা সমাধানে টেক শহর ডটকমে অ্যাপল আইডি খোলার টিউটোরিয়াল পাবলিশ করা হয়েছিল।

এ টিউটোরিয়ালে থাকছে অ্যাপল আইডি থেকে পেমেন্ট করার ক্ষেত্রে যেসব সমস্যা দেখা দেয় সেগুলো দূর করার উপায়।

Fix-Verification-techshohor

অ্যাপলের আইডি খোলার পর অনেক ব্যবহারকারী অ্যাপ স্টোর থেকে কোনো অ্যাপ নামাতে গেলে পেমেন্ট মেথড নিয়ে বিপাকে পড়েন । যখন অ্যাপ স্টোর থেকে অ্যাপ ডাউনলোডের জন্য ক্লিক করা হয় তখন ভিসা, ব্যাংক কিংবা মাস্টার কার্ডের তথ্য দিতে বলা হয়।

তথ্যগুলো সঠিক না হওয়া পর্যন্ত কোনো অ্যাপ ডাউনলোড করা যায় না। অনেক ব্যবহারকারীদের আন্তজার্তিক ভিসা বা মাস্টার কার্ড নেই। ফলে নতুন কোনো অ্যাপ নামামো সম্ভব হয় না। ফ্রি অ্যাপের ক্ষেত্রেও এমন ঝামেলা হয়।

এমন ক্ষেত্রে নিচের পদ্ধতিগুলো অনুসরণ করলে সহজেই ফ্রি অ্যাপ নামানো যাবে।

প্রথম আইফোন বা আইপ্যাড থেকে সেটিংস অপশনে যেতে হবে।

তারপর বাম পাশে থাকে অপশনগুলো থেকে ‘itunes & store’-এ ক্লিক করতে হবে।

apps-store-techshohor (4)

তাহলে নতুন এটি পেইজের ডান পাশে অ্যাপল আইডিটি প্রদর্শিত হবে।

সেখান থেকে অ্যাপল আইডিটির মেইল নামের উপর ক্লিক করতে হবে। তাহলে পপ আপে একটি নতুন পেইজ আসবে।

apps-store-techshohor (1)

সেখান থেকে ‘view apple id’ অপশনটিতে ক্লিক করতে হবে।

apps-store-techshohor (2)

তারপর পাসওয়ার্ড চাইলে, তা দিতে হবে। তাহলে অ্যাপল আইডির তথ্যগুলো দেখা যাবে। সেখান থেকে ‘payment information’-এ ক্লিক করতে হবে।

apps-store-techshohor (3)

নতুন আরেকটি পেইজ আসবে। এরপর ‘payment type’ থেকে ‘none’-এ ক্লিক করে ‘done’-এ ক্লিক করতে হবে।

তাহলেই অ্যাপস্টোর থেকে কোনো অ্যাপ ডাউনলোড করতে পেমেন্ট মেথড বার বার দেখাবে না।

আরও পড়ুন 

এক বছরে স্মার্টফোনে ইন্সটল হয়েছে ১৯২০ কোটি অ্যাপ

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : অ্যাপ্লিকেশন ছাড়া স্মার্টফোন অচল। তাই তো অ্যাপ্লিকেশনের চাহিদা বেশি। ফোনে নিত্য নতুন অ্যাপ্লিকেশন ইন্সটল করে পরখ করে নিতে পছন্দ করেন ব্যবহারকারীরা। জনপ্রিয়তার হাত ধরে গেলো বছর অ্যাপল ও গুগলের মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন প্লাটফর্ম থেকে ৮ দশমিক ৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় হয়েছে। সব মিলিয়ে ২০১৬ সালে ১৯২০ কোটি অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহারকারীদের ফোনে ইন্সটল করা হয়েছিলো।

গেলো বছর আইফোন থেকে তুলনামূলকভাবে কম মুনাফা অর্জন করছে। ২০১৭ সালে আইফোন বাজারে আনার পরে প্রথমবারের মত মুনাফা কমেছে প্রতিষ্ঠানটির। তবে অ্যাপস্টোরের আয় ৬০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

অ্যাপল ইনসাইডারের তথ্যমতে, ২০১৫ সালের তুলনায় ২০১৬ সাথে অ্যাপস্টোরে আয় ৬০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

o-TEEN-GIRL-USING-SMARTPHONE-facebook

অ্যাপস্টোরের আয়ের দিক দিয়ে শীর্ষে রয়েছে বিভিন্ন ভিডিও ও অডিও স্টিমিং সার্ভিসগুলো। তালিকায় সেরা পাঁচে রয়েছে স্পোটিফাই, নেটফিক্স, লাইন, এইচবিও নাও ও টিন্ডার।

এদিকে অ্যালফাবেটের গুগল প্লেস্টোরে আয় হয়েছে ৩৩০ কোটি মার্কিন ডলার। যা ২০১৫ সালের তুলনায় ৮২ শতাংশ বেশি। আয়ের দিক দিয়ে শীর্ষে রয়েছে লাইন, টিন্ডার, প্যানডোরা, এইচবিও নাও ও লাইন ম্যানগা।

এই থেকে বোঝা যাচ্ছে অ্যাপ্লিকেশনের বাজার চাঙ্গা ছিলো গেলো বছর। সেই ধারাবাহিকতায় চলতি বছরও অ্যাপ্লিকেশনের বাজার থেকে আয় বেশি হবে বলে ধারণা প্রযুক্তি বিশ্লেষকদের।

ফোন এরিনা অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

আরও পড়ুন: 

মনে রাখার কাজ সহজ করবে কালারনোট

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : হাতে একটা স্মার্টফোন থাকলে এখন আর কোনো কিছু টুকে রাখতে বা কাজের সূচী মনে রাখতে নোটবই ব্যবহার করতে হয় না। স্মার্টফোনে বিভিন্ন উপায়েই নোট রাখা যায়। তবে এখন অ্যাপের উপরই ভরসা করেন সবাই। এমন অনেক অ্যাপের মধ্যে বেশ কাজের কালারনোট।

কালারনোট ব্যবহার করে দ্রুত ও সহজে নোট, বার্তা, শপিং লিস্ট, কাজের তালিকা সংরক্ষণ করা যাবে।

অন্য নোট অ্যাপ থেকে এটির ইন্টারফেস বেশ সহজ ও সাধারণ হওয়ার কারণে যে কোনো ব্যবহারকারী এটি স্বাচ্ছন্দ্যে ব্যবহার করতে পারবেন।

apps-techshohor

এক নজরে অ্যাপ্লিকেশনটির ফিচার সমূহ:
১. অ্যাপটিতে রয়েছে পছন্দমতো রঙয়ে নোট রাখার উপায়।

২. স্টিকি নোট রাখার জন্য রয়েছে উইজেট। ফলে ফোনের হোমে স্ক্রিনশট নোট স্টিকি করে রাখা যাবে।

৩. এতে রয়েছে চেকলিস্ট আকারে টুডু লিস্ট তৈরির সুবিধা। ফলে সহজেই কোনো কাজ শেষ হলে তা মার্ক করা যাবে।

৪. ক্যালেন্ডার অনুযায়ী অ্যাপটি ব্যবহার করে ডায়েরি আকারে লেখা সংরক্ষণ করা যাবে।

৫. নোটগুলো এসডি কার্ডে ব্যাকআপ রাখা যাবে ।

৬. চাইলে অনলাইনেও সিনক্রোনাইজ করে রাখা যাবে নোট।

৭. অনেকগুলো নোট থাকলে তা সহজে খুঁজে বের করার জন্য রয়েছে উন্নত সার্চ সুবিধা।

অ্যাপ্লিকেশনটি বিনামূল্যে এ ঠিকানা থেকে ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।

অ্যাপ জানাবে খারাপ রাস্তার খবর

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : চলার পথে অনেক রাস্তায় সমস্যা থাকে, তখন যাতায়ত করতে ঝামেলা পোহাতে হয়। যদি যাত্রার আগে জানা যায় যে গন্তব্যে যাওয়া হচ্ছে তাতে কোনো খারাপ বা ভাঙ্গা রাস্তা রয়েছে কিনা। তাহলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া যায়।

বিষয়টি একটু কঠিন হলেও স্মার্টফোনের এই সময়ে অ্যাপের মাধ্যমেই তেমন তথ্য জানা যাবে। শুনে অবাক হতেই পারেন। তবে তেমনই একটি অ্যাপ্লিকেশন হলো ‘আমাদের রাস্তা’। অ্যাপ্লিকেশনটি তৈরি করেছে দেশীয় অ্যাপের মার্কেটপ্লেস অ্যাপবাজার।


এক নজরে অ্যাপ্লিকেশনটির ফিচার 

অ্যাপটি চালু করলে ম্যাপে দেখা যাবে। ৫০ কিলোমিটারের ভিতরে অন্যান্য ব্যবহারকারীর পাঠানো রিপোর্ট  থেকে ব্যবহারকারীরা সহজেই বুঝতে পারবেন চলতি পথে কোথায় রাস্তার বর্তমান অবস্থা কি। যা নিরাপদ ভ্রমণের জন্য অনেক সহায়ক হবে।

সাধারণ ব্যবহারকারী তার হাতের স্মার্টফোন দিয়ে ভাঙা রাস্তা, ব্রিজ, দুর্ঘটনার একটি ভিডিও এবং দুটি ছবি নিয়ে সার্ভারে পাঠাতে পারবেন।

apps-amaderrasta-techshohor

আমাদের রাস্তা অ্যাপ স্বয়ংক্রিয়ভাবে রাস্তার পজিশন নিয়ে নেবে যাতে ব্যবহারকারী লোকেশন বদলাতে না পারে।

সার্ভার অ্যাডমিন ব্যবহারকারীর রিপোর্ট দেখবে এবং তথ্য সঠিক থাকলে অনুমোদন করবে যেটা আবার একটা পাবলিক ওয়েবসাইট দেখাবে|

ব্যবহারকারী একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে পারবে তার পাঠানো তথ্যের বর্তমান অবস্থা জানার জন্য।

অ্যাপটি ব্যবহার করতে ইন্টারনেট সংযোগের প্রয়োজন হবে।

অ্যাপটি এই ঠিকানা থেকে ডাউনলোড করে বিনামূল্যে ব্যবহার করা

তৈরি হবে মানবতার জন্য অ্যাপ

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মানবতার জন্য মোবাইল বা কম্পিউটার অ্যাপ্লিকেশন তৈরি ও ধারণা জমা দেওয়ার একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করছে ইন্সটিটিউট অব ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (আইইইই) বাংলাদেশ সেকশন।

শারীরিক প্রতিবন্ধীদের জন্য মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে নতুন কিছু তৈরি করতে এই প্রতিযোগিতা হবে ১২ আগস্ট।

দুটি ক্যাটাগরিতে প্রতিযোগিতাটি অনুষ্ঠিত হবে। একটি শুধু ধারণা জমাদান এবং আরেকটি সেটার বাস্তবায়ন। যেটাকে কোড এ থন বলা হচ্ছে।

one-billion-apps-techshohor

দেশের যে কেউ এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারবেন। এজন্য তাদের দুই অথবা চার জনের একটি করে দলে ধারণাপত্র জমা দিতে হবে। এই ধারণাপত্র জমা দেওয়া যাবে ৫ আগস্টের মধ্যে।

১২ আগস্ট রাজধানীর ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে বসবে প্রতিযোগিতার বাংলাদেশের আসর। সেখান থেকে নির্বাচিত সেরা তিনটি ধারণাপত্র পাঠানো হবে ভারতে তামিলনাড়ুতে ৮-৯ সেপ্টেম্বর চূড়ান্ত আসরে। আর এর সব খরচ বহন করবে আইইইই বাংলাদেশ সেকশন।

প্রতিযোগিতাটির বাংলাদেশ সেকশনের কো-অর্ডিনেটর ড. শামীম কায়সার বলেন, এটা শারীরিক প্রতিবন্ধীদের কাজে লাগে এমন বিশেষ অ্যাপ্লিকেশন তৈরির একটি প্রতিযোগিতা। যেখানে তাদের কাজে লাগে এমন ধারণা ও তার উপর কাজ করার জন্য প্রস্তুতি প্রয়োজন।

এই ঠিকানায় গিয়ে প্রতিযোগিতাটিতে অংশ নিতে আবেদন করা যাবে।

স্মার্টফোন চুরি ঠেকাবে যে অ্যাপ

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : পার্কিং এলাকায় এখন অনেক মোটরবাইক বা গাড়িতে টাচ অ্যালার্ম লাগানো থাকে। সহজে যাতে কেউ চুরি করতে না পারে সেজন্য এসব বাহনে আলাদা ডিভাইস লাগানো হয়, যা অ্যালার্ম দিয়ে সর্তক করে। আপনার স্মার্টফোনে এমন সতর্কতামূলক অ্যালার্ম রাখার ব্যবস্থা হলে কেমন হবে?

ঈদের ভীড়ে শপিং মলে কিংবা রেল বা বাস স্ট্যান্ডে পকেট থেকে কেউ সাধের স্মার্টফোনটি তুলে নেওয়ার চেষ্টা করলো। তখন সঙ্গে সঙ্গে অ্যালার্মটি আপনাকে সাবধান করে দেবে।

আপনার মনে প্রশ্ন জাগছে বাইক বা গাড়ির মতো এ অ্যালার্ম পেতে কি আলাদা ডিভাইস টাকা দিয়ে কিনতে হবে? না! স্মার্ট এ যুগে একটি অ্যাপ্লিকেশনের সাহায্যেই কাজটি করা যাবে অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে। তেমনি একটি অ্যাপ হলো ‘ডু নট টাচ মাই ফোন’।

phone-thief-techshohor

এক নজরে অ্যাপ্লিকেশনটির ফিচারগুলো
এটির ইন্টারফেস খুবই সহজ। শুধু অ্যাপটি চালু করে অ্যালার্ম অপশনটি ওপেন করে দিতে হবে।

অ্যালার্ম চালু  হলে পাসওয়ার্ড না দেওয়া পর্যন্ত তা বাজতে থাকবে। সেটিংস থেকে পাসওয়ার্ড দিয়ে দিতে হবে।

apps-techshohor
ফোনটি অন্য কারও হাতে গেলে তখন যে অ্যালার্ম বেজে উঠবে তা পছন্দমত পরিবর্তন করা যাবে। শুধু এ অপশন পেতে অ্যাপ্লিকেশনটি কিনতে হবে। এ জন্য ব্যয় করতে হবে ১.৩৯ মার্কিন ডলার। তাছাড়া এটি বিনামূল্যের অ্যাপ।

ইন্টারনটে ছাড়া সম্পূর্ণ অফলাইনে কাজ করবে এটি। তাই একবার ডাউনলোড করলে ইন্সটলের পর আর ইন্টারনেট সংযোগের প্রয়োজন হবে না।

বিনামূল্যে অ্যাপ্লিকেশনটির এ ঠিকানা থেকে ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।

আরও পড়ুন

 

 

 

ঈদের যে পাঁচ অ্যাপ অবশ্যই কাজের

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর :  কাল (বৃহস্পতিবার) ঈদ। উৎসব পালনের চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিচ্ছেন সবাই। ঈদে আপনার প্রস্তুতিকে আরও সহজ ও আকর্ষণীয় করতে কাজে লাগাতে পারেন হাতের মুঠোয় থাকা স্মার্টফোনটিকে। শুধু নামিয়ে হবে কিছু অ্যাপ।

অ্যাপে ঈদের রান্না :
ঈদের দিন বাসায় বেড়াতে আসেন অনেক আত্নীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধবসহ অনেকেই। তাই তো এই দিনে তৈরি করা হয় অনেক মজাদার খারাব। অনেকেই জানেন না ঈদ উপলক্ষ্যে নানা মজাদার খাবার কীভাবে তৈরি করতে হয়। না জানা থাকলে সমস্যা নেই স্মার্টফোনের অ্যাপই শিখিয়ে দেবে রান্না। এমনই অ্যাপ্লিকেশন হলো ‘ঈদের রেসিপি’।

eid-food-techshohor

অ্যাপটিতে নানা মজাদার খাবারের রেসিপি দেয়ার রয়েছে। বাংলা ভাষার সবগুলো রেসিপি’র বর্ণনা দেয়া আছে। ইন্টারনেট ছাড়াই সম্পূর্ণ অফলাইনে ব্যবহার করা যাবে অ্যাপ্লিকেশনটি। এই ঠিকানা থেকে বিনামূল্যে ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে অ্যাপটি।

ঈদের ধর্মীয় নিয়ম-কানুন :
ঈদ একটি পবিত্র উৎসবের দিন। এই দিনটি কিভাবে পালন করতে হবে তা নিয়ে ধর্মীয় নানা নিয়ম রয়েছে। যেমন : ঈদের সুন্নত তরিকা হলো ঈদের নামাজের আগে গোসল করে নেয়া, ভালো পোশাক পরে আতর-সুগন্ধি মেখে ঈদগাহে যাওয়া। এছাড়া ঈদের নামাজের নিয়মসহ এমন নানা নিয়ম রয়েছে যা আমাদের অনেকেই জানা নেই বা ভুলে বসে আছি।

eid-prayer-techshohor

ঈদের দিনের এই ধর্মীয় নানা নিয়মের বিষয়ে জানাবে ‘ঈদের দিনের আমল’  নামে অ্যাপ্লিকেশন। এতে ঈদের দিনে করণীয় নানা বিষয়গুলো রয়েছে বাংলা ভাষায়। এই ঠিকানা থেকে বিনামূল্যে অ্যাপ্লিকেশনটির ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।

অ্যাপে ঈদ কার্ড  ও শুভেচ্ছা :
অাগে ঈদের আনন্দের একটি বিরাট অংশ ছিলো ঈদের কার্ড। পাড়ার মোড়ে মোড়ে ছিলো ঈদের কার্ডের দোকান। কিন্তু সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে ঈদের কার্ড হারিয়ে যাচ্ছে। এই জায়গা দখল করে নিয়েছে প্রযুক্তি। কাগজে কার্ডের জায়গা দখল করে নিয়েছে ডিজিটাল কার্ড। স্মার্টফোনে ছোট একটি অ্যাপ ইন্সটল করা থাকলে তা দিয়ে সহজেই বানিয়ে ফেলা যায় ঈদ কার্ড। তারপর তা পাঠানো যাবে ঈদ শুভেচ্ছায়।  তেমনি একটি অ্যাপ্লিকেশন হলো ‘ঈদ কার্ড’।

eid-card-techshohor

অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করে ভালো মানের কার্ড ডিজাইন করা যাবে। কার্ডে বন্ধুদের নাম স্বয়ংক্রিয়ভাবে যুক্ত করা যাবে। কার্ড তৈরি করার পর তা অ্যাপটি থেকেই বন্ধুদের বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করা যাবে। বিনামূল্যে অ্যাপ্লিকেশনটি এই ঠিকানা থেকে ডাউনলোড করা যাবে।

ঈদের বার্তা পাঠাতে অ্যাপ :
অনেক ভেবেও ঈদে প্রিয় বন্ধুকে পাঠানোর জন্য কোনো বার্তা খুঁজে পাচ্ছেন না। তাহলে চিন্তার কারন নেই আপনার স্মার্টফোনে একটি অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে সুন্দর বার্তা খুব সহজে পাঠানো যাবে। অ্যাপ্লিকেশনটির নাম হলো ‘ঈদ স্পেশাল এসএমএস’। শুধু এ ঠিকানা থেকে অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করে পছন্দের বার্তাটি বেছে নিন। আর পাঠিয়ে দিন বন্ধুর ঠিকানায়।

apps-eid-techshohor

অ্যাপটি ব্যবহার করে ব্লুটুথের মাধ্যকে বন্ধুকে বার্তা পাঠানো যাবে। এ ছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক, টুইটার ও গুগল প্লাসে বন্ধুকে ঈদের শুভেচ্ছা বার্তা প্রেরণ করা যাবে অ্যাপটি ব্যবহার করে।

ঈদে নিয়ে মেহেদির ডিজাইন :
ঈদে হাতে মেহেদি দিয়ে হাত রাঙ্গাতে ভালোবাসেন অনেকে। বিশেষত নারীদের ও তরুণীদের জন্য মেহেদী লাগানো চাই। মেহেদী প্রেমীদের কাজ সহজ করতে রয়েছে একটি অ্যাপ। মাথা খাটিয়ে সময় নষ্ট করে হাতে মেহেদির ডিজাইন করতে হবে না, যদি স্মার্টফোনে নামানো থাকে অ্যাপটি।

eid-mahedi-techshohor

মেহেদি দেওয়ার জন্য অ্যাপটিতে পাওয়া যাবে এইচডি কোয়ালিটির হরেক রকম নতুন নতুন মেহেদি ডিজাইন। এ ঠিকানা থেকে অ্যাপটি ডাউনলোড করা যাবে।

আরও পড়ুন: