সেবায় না থাকলেও ভিওআইপিতে আছে সিটিসেল

জামান আশরাফ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বেশ কয়েক মাস ধরে গ্রাহক সেবায় নেই মোবাইল ফোন অপারেটর সিটিসেল। তবে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের সাম্প্রতিক এক অভিযানে দেশের সবচেয়ে পুরনো অপারেটরটির অন্তত ২৭ সিম (রিম) পাওয়ায় বিস্মিত কর্মকর্তারা।

বিটিআরসির একটি দল গত ২২ মার্চ রাজধানীর মতিঝিল এলাকায় অভিযান চালিয়ে মোট ৫ হাজার ৪৪৯টি সিম উদ্ধার করে, যা বিদেশ থেকে আসা কলের অবৈধ কার্যক্রমে ব্যবহার হচ্ছিল।

এগুলোর মধ্যে চার হাজার ১৮১ সিম রাষ্ট্রায়ত্ত অপারেটর টেলিটকের। ওখানে রবির সংযোগ ছিল ৫২০, গ্রামীণফোনের ৪৪১, এয়ারটেলের ১৮৪ ও বাংলালিংকের ১০৬।

Citycell_Logo_techshohor

তবে অন্য অপারেটরগুলোর সিম ভিওআইপিতে ব্যবহার স্বাভাবিক হলেও অপারেশনে না থাকা সিটিসেলের সংযোগ পাওয়ায় বিস্মিত হয়েছেন বিটিআরসির কর্মকর্তারাও।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দীর্ঘ দিন পরে অবৈধ ভিওআইপির কোনো অভিযানে সিটিসেলের সিম ধরা পড়ল। তাদের মতে, গ্রাহকবিহীন কার্যত বন্ধ এ অপারেটরের সংযোগ ব্যবহার করে অবৈধ সেবা দিলে তা কারও নজরে আসবে না- এমন সুযোগ নিতে চেয়েছে একটি চক্র।

বিটিআরসির বকেয়া টাকা পরিশোধ না করায় গত বছরের জুলাইতে নোটিশ দেওয়ার পর অক্টোবরে সিটিসেলের স্পেকট্রাম স্থগিত করে দেওয়া হয়। নানা চড়াই উৎরাই পেরিয়ে আদালতের আদেশে অপারেটরটি স্পেকট্রাম ফেরত পেলেও গ্রাহক সেবা আর আগের মতো চালু করতে পারেনি।

তবে সীমিত এলাকায় তাদের সেবা রয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। এটাকেই সুযোগ হিসেবে নিয়েছে অপরাধীরা।

বন্ধ হওয়ার আগে বিটিআরসির হিসাব অনুসারে সিটিসেলের দেড় লাখ কার্যকর সংযোগ ছিল।

চট্টগ্রামে অবৈধ ভিওআইপিতে জড়িত ৬ হাজার সিম জব্দ

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রন কমিশন এবং আইন শৃঙ্খলা বাহিনী অভিযান চালিয়ে চট্টগ্রাম শহরের একটি ফ্ল্যাট থেকে ছয় হাজার ৬৪টি সিম জব্দ করেছে।  জব্দ করা সিমের বেশিরভাগই সঠিকভাবে বায়োমেট্টিক নিবন্ধন করা। 

এসময় অবৈধ ভিওআইপি কাজে জড়িত থাকার অভিযোগে ঘটনাস্থল থেকে তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

মঙ্গলবার দিবাগত রাতে চট্টগ্রামের পাঁচলাইশ থানার তাহেরাবাদ আবাসিক এলাকার একটি ফ্ল্যাটে এই অভিযান পরিচালনা করে সংস্থা দুটি।

voip_TechShohor

অভিযানে এই বিপুল পরিমাণ সিমসহ প্রায় ৪০ লাখ টাকা মূল্যের ভিওআইপি কাজে ব্যবহৃত সরঞ্জাম উদ্ধার ও জব্দ করেছে র‍্যাব-৭ এর ওই দল।

ভিওআইপি কাজে জড়িত থাকায় যেসব সিম উদ্ধার করা হয়েছে তার মধ্যে রাষ্ট্রায়াত্ত টেলিযোগাযোগ প্রতিষ্ঠান টেলিটকের সিম সবচেয়ে বেশি দুই হাজার ৯৭৮টি সিম রয়েছে।

এছাড়াও গ্রামীণফোনের এক হাজার ৪১৪টি, রবির ৭৮২, এয়ারটেলের ৫৭০ এবং বাংলালিংকের ৩২০টি সিম জব্দ করা হয়েছে।

ভিওআইপি কাজে জড়িত ২৫৬, ৬৪ এবং ৩২ সিম পোর্ট বিশিষ্ট ১০টি জিএসএমএ গেটওয়ে, তিনটি মডেম, চারটি রাউটার, পাঁচটি ল্যাপটপ, ৭৮টি জিএসএমএ অ্যান্টেনাসহ এই কাজে ব্যবহৃত আনুষঙ্গিক সরঞ্জাম জব্দ করা হয়েছে।

বিটিআরসির কর্মকর্তারা জানান, মঙ্গলবার রাত ১০টায় তাহেরাবাদের স্কাই ব্লু নামক বাসায় অভিযান শুরু করে ভোরে শেষ হয়। সেখানে এই কাজে সরাসরি জড়িত থাকায় স্পট থেকেই তিন জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বিটিআরসি জানিয়েছে, এই ঘটনায় চট্টগ্রামের পাঁচলাইশ থানায় টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলাও দায়ের করা হয়েছে।

ইমরান হোসেন মিলন