নতুন মন্ত্রীসভা নিয়ে ফেইসবুক সরব

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বঙ্গভবনে শপথ নিলেন ৪৯ জনের নতুন মন্ত্রীসভা। রোববার বিকেলে বঙ্গভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ নতুন মন্ত্রীসভায় ২৯ জন মন্ত্রী, ১৭ জন প্রতিমন্ত্রী ও দুজন উপমন্ত্রী শপথ নেন। রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীদের শপথবাক্য পাঠ করান। শেখ হাসিনা তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন।

দিনভর মানুষের আলোচনার এই বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ সাইট ফেইসবুকেও সরব। কেউবা শুভেচ্ছা জানিয়ে বাহবা দিয়েছেন। কেউবা সমালোচনা করেছেন। কেউবা আবার ব্যাঙ্গাত্বকভাবে বিষয়টি নিয়ে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। ফেইসবুকে প্রকাশিত এমনই কিছু স্ট্যাটাস এখানে তুলে ধরা হলো।

প্রতিমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচিত হওয়া এমপি জুনায়েদ আহমেদ পলক লিখেছেন- “প্রাণপ্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে প্রতিমন্ত্রী হিসেবে মনোনীত করেছেন। আগামীকাল শপথ গ্রহণ করবো ইনশা আল্লাহ্। সবার দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করি”।

মিলটন হাসনাত লিখেছেন- ‘২০০৯ সালের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট ছিল ভিন্ন। সংস্কারবাদিতা, বিশ্বাস-অবিশ্বাস, মান-অভিমানের প্রেক্ষিতে আমরা মহাজোটের যে মন্ত্রীসভাটি পেয়েছিলাম, তা অনেককেই বিস্মিত করেছিল। ক্ষমতার পাঁচ বছরে তাদের অনেকেরই পারফর্মেন্স আশানুরূপ ছিল না। আমি অনেক আগে এক লেখায় বলেছিলাম শেখ হাসিনা তা ‘সি’ টিম নিয়ে রাজনীতির মাঠে খেলছেন। কিন্তু এবারের মন্ত্রী সভা গতবারের মত হয়নি। বরং দেশের সংকট কালে প্রধানমন্ত্রী শেথ হাসিনা তার ‘এ’ টিম নিয়েই রাজনীতির মাঠে নেমেছেন। এবারের মন্ত্রীসভায় যোগ্য, অভিজ্ঞ ও দক্ষ মুখের ছড়াছড়ি। আমার ধারনা, শেখ হাসিনা তার এই পরিষদ নিয়ে আগামী দিনগুলো ভালভাবেই কাটাতে পারবেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গত টার্মে আমরা উন্নয়নের জোয়ার দেখেছি, কিন্তু কাঙ্খিত সুশাসণ পাইনি। আশা করি, এবার উন্নয়নের পাশাপাশি সুশাসনও পাব”।

জ.ই. মামুন লিখেছেন- “সেদিন গণভবনে সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে প্রশ্ন করেছিলাম, গত ৫ বছর তার আশপাশে থেকে কোটি কোটি টাকা আর হাজার হাজার বিঘা জমির মালিক হওয়া মন্ত্রী এমপিদের ব্যাপারে, প্রধানমন্ত্রী সেদিন কৌশলী উত্তর দিয়েছিলেন, তবে সারাসরি উত্তরটা আজ দিলেন, কথায় নয়- কাজে… নতুন মন্ত্রিসভায় সেই টাকার কুমিরগুলো একটাও নেই, আমার প্রশ্নের উত্তরটা এত সুন্দরভাবে দেয়ার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা…”

চৌধুরী আকবর হোসেন বলেছেন- “সর্ষের মধ্যে ভূত
স্বৈরাচার গণতন্ত্রের মানসকন্যার বিশেষ দূত”

আবুল কাশেম লিখেছেন- “এরশাদের সমলোচনায় একটা অবিচার হচ্ছে। তারে নিয়ে একবার হাসলে যারা তারে হাসির পাত্র বানায় তাদেরও একবার গালি দেয়া উচিত”।

ঊদিশা ইমন লিখেছেন- “একজন রাষ্ট্রপতি মন্ত্রীর পদমযাদায় ডিমোশন পাইয়া ’সুস্থ’ হয়ে উঠেছে। হাসপাতাল ছেড়ে তিনি বাসায় পৌঁছায় গেলেন দূতিয়ালির খাতিরে…”

রাজিব হাসান লিখেছেন- “মাননীয় প্র্রধানমন্ত্রী সহ নতুন মন্ত্রী সভার সবাইকে স্বাগত ।যদিও গনতন্ত্রের পথে আপনারা নাই । তারপরও চাই সুন্দর, সমৃদ্ধ একটি বাংলাদেশ”।

আরিফুল ইসলাম শাওন লিখেছেন- “নতুন সরকারেও “ওবায়দুল কাদের” সাহেবকে থাকতে দেখে ভালই লাগলো! উনি মানুষ কিসেবে কেমন জানি না কিন্তু ওনার স্বল্প সময়ের কর্মকাণ্ডে এবং সাফল্যে আমি সন্তুষ্ট”!

সাইফুল্লাহ সাম্য লিখেছেন- “নতুন মন্ত্রিসভায় নারী সদস্য কম। আবুলের পরিমান ও কম মনে হচ্ছে। আগের বারের মত (আবুল, সাহারা, খুকুমনি, মখা) আবালদের অত্যাচার কম হবে আশা করি। তবে অটল আছেন “মাল মুহিত” 😐

এ এন ফয়সাল আহমেদ লিখেছেন- “এই মন্ত্রীপরিষদ কে বর্জন করলাম। এখানে তরুন ফেসবুক সমাজের আকাঙ্খার প্রতিফলন ঘটেনি !! এখানে “ফেসবুক” সংক্রান্ত কোন মন্ত্রনালয় রাখা হয় নি এমনকি ফেসবুকের কোন সেলিব্রেটিকেও মন্ত্রি/প্রতিমন্ত্রি কিংবা উপমন্ত্রী করা হয় নি !! এইডা কিছু হইলো?? আমাদের কথা ভাবার আসলেই কেউ নাইরে ভাই… কেউ নাই !!”

আবু বকর লিখেছেন- “ক্ষমতা ধরে রাখার জন্য সরকার একটা নাটক তৈরি করেছে, এরশাদ এখনে ট্রাম-কার্ড হিসাবে ব্যবহৃত হয়েছে। সরকার বুঝতে পেরেছিল যে বিরুধীদলের হুমকির মুখে ৩০০ আসনে নির্বাচন করা অসম্ভব, তই এরশাদকে দিয়ে ভোট বর্জনের নাটক করানো হয়, তাতে করে ভাগাভাগির মাধ্যমে জয় নিশ্চিত করতে সুবিধা হয়েছে—————— কম আসনে বেশি নিরাপত্তা দিয়ে সুষ্ঠ নির্বাচন করার পরিকল্পনায় সরকার ব্যার্থ হয়েছে, কারণ এত বেশি নিরাপত্তা দেওয়ার পরও সাধারন মানুষ ভোট দিতে যায়নি”।

মাসুম রানা লিখেছেন- “ক্যারে আম্লিগ, আমারে কেউ একটা পদ দ্যাস না। দলে দলে সব আগাছাগুলা মন্ত্রী হইতাছে, গাজীপুরের সন্ত্রাসীর নেতার জায়গাটা ফাকা আছে। আমারে দেওন যায় চাইলে”।

আরিফুল ইসলাম পলাশ লিখেছেন- “ feeling মন্ত্রী হমু ! এবার মনে হয় ভুল একটা কইরাই ফালাইলাম, কোনভাবে বয়স টয়স বাড়ায়া যদি নির্বাচনে দাড়ায়া যাইতাম তাইলেই তো হইছিল কাম ! নির্বাচনী পচারণাতে (প্রচারণা পড়াই উত্তম) দেশে ৫জি, ৬জি আইনা দিমু এগুলা কইলেই কাম সারছিল ! যাক ব্যাপার না। সামনেবার হপে !”

Related posts

*

*

Top