হরিন ছানার বাংলাদেশ গানে মাতামাতি

তুহিন মাহমুদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : “জানো নাকি মা এখান থেকে বহু দূরে/আছে যে এক মিষ্টি মধুর দেশ, তুমি কি জানো সেই দেশটার নাম?/সেই দেশটার নাম বাংলাদেশ”। এই গানটি এখন ফেইসবুক, টুইটারে ছড়িয়ে বেড়াচ্ছে। ছোট্র মেয়ে আরুশী ও তার বাবা বুয়েটের লেকচারার মুনতাজার মনসুরের গাওয়া এই গানটি এখন অনেকেরই মুখে মুখে।

“হরিণ ছানাকে নিয়ে আমরা বাংলাদেশ ছেড়ে এসেছি আজ প্রায় আড়াই বছর হতে চলল। ওকে আমরা সবসময় খুব সুন্দর একটা বাংলাদেশের গল্পই শুনিয়েছি এবং ভবিষ্যতেও শোনাবো। এ গানটা হরিণ ছানার মতো আরও অসংখ্য শিশুদের উৎসর্গ করলাম, যারা দেশ থেকে বহুদূরে বাংলাদেশের জন্য বুকভরা ভালবাসা নিয়ে বেড়ে উঠছে।” ফেইসবুক ও ইউটিউবে গত ২৮ নভেম্বর একথাটিই লিখে ভিডিও শেয়ার করেন মুনতাজার মনসুর। গানটি তিনি নিজেই লিখেছেন ও সুর করেছেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশের পরপরই আলোচনায় আসে গানটি।

এ পর্যন্ত ইউটিউবে শেয়ার করা এই ভিডিওটি প্রায় ৪০ হাজার বার দেখা হয়েছে। এছাড়া প্রায় ১৭’শ লাইক এবং আড়াইশ’র মতো কমেন্ট পড়েছে। ফেইসবুকে বিভিন্ন ব্যবহারকারীর মাধ্যমে হরহামেশাই ভিডিওটি শেয়ার হচ্ছে। যিনি একবার দেখছেন তিনি শেয়ার না করে পারছেন না!

দেশমাতৃকার প্রতি ভালোবাসার এই গানটি দর্শকদের মন কেড়েছে। তারা এ ধরণের আরও গান শোনার অধীর আগ্রহ প্রকাশ করেছেন ইউটিউবসহ সামাজিক যোগাযোগ সাইটগুলোতে।

ঠিক তেমনি ইউটিউবে হ্যালো ওয়ার্ড নামের এই ব্যবহারকারী লিখেছেন- “অসাধারণ। খুব ভালো লাগলো গানটা আর হরিন ছানা। আরও গান চাই”।

ফজলে সোবহার চৌধুরী লিখেছেন – “দেশের প্রতি ভালোবাসার এই গান দেখে খুবই ভালো অনুভব করছি”।

বিল্লাল হোসেন রিয়াদ লিখেছেন – “আপনার মেয়েটি রাজকন্যার মতো। সে খুবই খুবই কিউট। আপনার গলাও গানের মতোই সুন্দর। সত্যিই গানটি আমার হৃদয় ছুয়ে গেছে”।

আসিফ আব্দুল্লাহ লিখেছেন- “আমার পক্ষ থেকে হরিন ছানাকে ১০০টি চকলেট কিনে দিয়েন”।

বিদেশে থেকেও দেশের প্রতি টান সবারই থাকে। তেমনি এক প্রবাসী ইসমাইল অপু লিখেছেন – “সুন্দর গান ও কিউট বেবি। আমরা সবসময় আমাদের দেশকে ভালোবাসি। ধন্যবাদ। আমরা প্রবাসী কিন্তু সবসময় আমাদের বাংলাদেশ নিয়ে ভাবি”।

শিবলি রহমান শিপু লিখেছেন – “ভাইয়া আপনার এবং আপনার হরিণ ছানার গানটা শুনে কেন জানি আমার এতো ভাল লাগছে…যা বলার মতন না…আর সবচেয়ে বেশি ভালো লাগছে হরিণ ছানার মুখ থেকে “হরিণ ছানা” শুনতে…আসলে কোনো প্রবাসী বাচ্চাদের মুখ থেকে “বাংলাদেশ” শব্দটা শুনলে এতো ভালো লাগে যা আপনাকে বলে বোঝাতে পারব বলে মনে হয় না…আপনাদের জন্য অনেক শুভকামনা রইলো…”।

Related posts

*

*

Top