Maintance

ওয়ালটন প্রিমো এস২ : অ্যান্ড্রয়েডের সব সুবিধা

প্রকাশঃ ৫:১৪ অপরাহ্ন, এপ্রিল ৮, ২০১৪ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৫:১৪ অপরাহ্ন, এপ্রিল ৮, ২০১৪

শাহরিয়ার হৃদয, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ওয়ালটনের দুটি হাই কনফিগারেশনের স্মার্টফোন বাজারে আসছে এপ্রিলে। এর মধ্যে একটি ওয়ালটন প্রিমো এস২। দামের বিচারে আকর্ষণীয় ফিচার ফোন হিসেবে এটি আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ডগুলোর সঙ্গে ভালোই পাল্লা দিতে পারে।

ডিজাইন
গুগলের নেক্সাস ৫ এর সঙ্গে এর আকারের মিল রয়েছে। কালো বডির ফিনিশিং বেশ মসৃণ। এর পুরুত্ব ৮.৯ মিলিমিটার ও ওজন ১৪০ গ্রাম।

Walton-Primo-S2_techshohor

ডিসপ্লে
এর ডিসপ্লে সাইজ পাঁচ ইঞ্চি। রেজুল্যুশন ১২৮০*৭২০ পিক্সেল। আইপিএস২ প্যানেলের স্ক্রিনটির ওপর গরিলা গ্লাসের প্রলেপ রয়েছে, যার ফলে সহজে এতে দাগ পড়বে না।

কানেক্টিভিটি
এটি ডুয়াল সিম ও ডুয়াল স্ট্যান্ডবাই সাপোর্ট করে। থ্রিজির পাশাপাশি রয়েছে জিপিএস, ওয়াই-ফাই, ওয়াই-ফাই হটস্পট, ব্লুটুথ ৪.০, মাইক্রোইউএসবি, এফএম রেডিও ও দ্রুত ফাইল শেয়ারের জন্য এনএফসি।

সেন্সরের মধ্যে রয়েছে থ্রিডি অ্যাক্সেলেরোমিটার, লাইট সেন্সরজাইরোস্কোপ, প্রক্সিমিটি ও কম্পাস।

ক্যামেরা
ফোনটির মূল ক্যামেরা ১৩ মেগাপিক্সেল। এতে বিশেষ অমনিভিশন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে। সঙ্গে রয়েছে এলইডি ফ্ল্যাশ। ক্যামেরা দিয়ে ১৯২০*১০৮০ পিক্সেলে ভিডিও রেকর্ড করা যাবে। চ্যাট করার ফ্রন্ট ক্যামেরাটিও বেশ উন্নত- ৫ মেগাপিক্সেল।

কনফিগারেশন
এতে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৪০০ চিপসেট ও ১.৪ গিগাহার্জ কোয়াড প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। গ্রাফিক্স প্রসেসরও বেশ শক্তিশালী- অ্যান্ড্রেনো ৩০৫। ২ জিবি র‌্যাম রয়েছে, ইন্টারনাল মেমরি ১৬ জিবি। মেমরি কার্ড দিয়ে তা ৩২ জিবি পর্যন্ত বাড়ানো যাবে। উন্নত সাউন্ড কোয়ালিটির জন্য ইয়ামাহা অডিও চিপ ব্যবহার করা হয়েছে।

পারফরম্যান্স
অপারেটিং সিস্টেম হিসাবে রয়েছে অ্যান্ড্রয়েড ৪.৩ জেলি বিন। হার্ডওয়্যারের দিক দিয়ে খুবই সমৃদ্ধ ফোনটিতে অ্যান্ড্রয়েডের প্রতিটি ফিচার থেকে সর্বোচ্চ সুবিধা পাবেন।

শক্তিশালী প্রসেসর ও গ্রাফিক্স প্রসেসরের জন্য প্লে স্টোরের যে কোনো গেইম কোনো ল্যাগিং ছাড়া খেলতে পারবেন। বড় স্ক্রিনে উপভোগ করতে পারবেন হাই ডেফিনিশন মুভি।

এ ছাড়া ব্রাউজিং, ভিডিও চ্যাট, ফাইল শেয়ারিং ইত্যাদিতেও এটি সন্তোষজনক পারফরম্যান্স দেবে। এনএফসি থাকায় ফাইল শেয়ারিং আগের চেয়ে অনেক সহজে করতে পারবেন।

ব্যাটারি
এতে ২৫০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ারের ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে।

ফোনটির দাম ধরা হয়েছে ১৮ হাজার ৯৯০ টাকা।

এক নজরে ভালো
– উন্নত কনফিগারেশন ও ফিচার
– গতিশীল পারফরম্যান্স, এনএফসি সুবিধার

এক নজরে খারাপ
– ডিসপ্লে রেজুল্যুশন তুলনামূলক কম

*

*