ওয়ালটন প্রিমো এন : স্বল্প বাজেটে হাইএন্ড স্মার্টফোনের স্বাদ

শাহরিয়ার হৃদয়, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ওয়ালটনের অন্যতম সফল স্মার্টফোন প্রিমো এনওয়ান। এটি হাইএন্ড ফোন হওয়ায় দামও কিছুটা বেশি। সাধারণ ইউজারদের জন্য আরও কম দামে চলতি মাসে তারা এনেছে প্রিমো এন।

ডিজাইন

এটি দেখতে অনেকটা প্রিমো এন-এর মতই, বিশেষ করে সামনের দিকটি। তৈরি করা হয়েছে একই রকম প্লাস্টিক দিয়ে। আকারে আগের চেয়ে বড় হলেও পুরুত্ব মাত্র ৯.৬ মিলিমিটার। তাই আরামদায়কভাবে হাতে ধরা যাবে।

walton primo n_techshohor

ডিসপ্লে

এনওয়ানের স্ক্রিন যেখানে ছিল ৫.৩ ইঞ্চি, সেখানে এন-এ রয়েছে ৫.৫ ইঞ্চি এফডব্লিউভিজিএ ডিসপ্লে। কালার ও ছবির আউটপুট কোয়ালিটির দিক দিয়ে ডিসপ্লে আগের চেয়ে উন্নত। কিন্তু রেজুল্যশন বেশ কম, মাত্র ৮৫৪*৪৮০ পিক্সেল। অর্থাৎ ডিসপ্লে আগের চেয়ে বড় হলেও রেজুল্যুশন সেই অনুপাতে বাড়ানো হয়নি। তাই অ্যান্ড্রয়েড ইন্টারফেসসহ বিভিন্ন গেইমে গ্রাফিক্স কিছুটা ঘোলা আসতে পারে।

কানেক্টিভিটি

এতে রয়েছে চতুর্থ প্রজন্মের ব্লুটুথ, মাইক্রোইউএসবি টু, ওয়াই-ফাই হটস্পট, ওয়্যারলেস ডিসপ্লে শেয়ারিং, জিপিএস, থ্রিজি ইত্যাদি সুবিধা। ডুয়াল সিম ও ডুয়াল স্ট্যান্ডবাই সাপোর্ট করে। এ ছাড়া অ্যাক্সেলোমিটার, ওরিয়েন্টেশন সেন্সর, লাইট সেন্সর, প্রক্সিমিটি সেন্সর, কম্প্যাসসহ অ্যান্ড্রয়েডের বেশিরভাগ সেন্সর রয়েছে।

ক্যামেরা

এটি কিছুটা বাজেটবান্ধব ফোন হওয়ায় কম শক্তিশালী ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে। প্রধান ক্যামেরাটি ৫ মেগাপিক্সেল, ফ্রন্ট ক্যামেরা ভিজিএ। ফ্ল্যাশ আছে।

কনফিগারেশন

এতে ব্যবহার করা হয়েছে ১.২ গিগাহার্জ কোয়াড কোর প্রসেসর। জিপিউ পাওয়ারভিআর এসজিএক্স৫৪৪। র‍্যাম ১ গিগাবাইট। ইন্টারনাল মেমরি ৪ গিগাবাইট, যা ৩২ গিগাবাইট পর্যন্ত বাড়ানো যাবে। হার্ডওয়্যার স্পেসিফিকেশন প্রিমো এনওয়ানের চেয়ে একধাপ নিচের বলা যেতে পারে।

পারফর্ম্যান্স

৪.২.১ জেলি বিন অপারেটিং সিস্টেম এতে মসৃণ গতিতে চলবে। তবে হার্ডওয়্যারের কারণে ভারি অ্যাপস চালাতে সমস্যা হতে পারে। তবে মিডিয়া পারফর্ম্যান্স ভালো, অর্থাৎ ছবি তোলা ও ভিডিও করা- ইত্যাদিতে দামের সঙ্গে আশানুরূপ এক্সপেরিয়েন্স পাওয়া যাবে। ব্রাউজ করতেও কোনো সমস্যা হবে না।

ব্যাটারি

ফোনটির আরেকটি সমস্যা এর ব্যাটারি লাইফ। এনওয়ানে যেখানে ৩০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার-আওয়ারের ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছিল, সেখানে এতে দেওয়া হয়েছে ২২৫০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার-আওয়ারের ব্যাটারি। ডিসপ্লে বড় হওয়ায় চার্জ বেশি প্রয়োজন হয়। তাই এর ব্যাটারি লাইফকে খুব সন্তোষজনক বলা চলে না।

ফোনটি পাওয়া যাচ্ছে ১২ হাজার ১৯০ টাকায়।

এক নজরে ভালো

–        দাম কম, ডুয়াল সিম সুবিধা

–        দামের তুলনায় কনফিগারেশন ভালো

এক নজরে খারাপ

–        একঘেয়ে স্ক্রিন

–        চার্জ তেমন  থাকে না

Related posts

*

*

Top