ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন এক্সপেরিয়া জেডওয়ান নজর কাড়ছে

শাহরিয়ার হৃদয়, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : চলতি বছরের মাঝামাঝি বেশ সাড়া ফেলে বাজারে এসেছিল জাপানী নির্মাতা সনির এক্সপেরিয়া জেড। বছরের শেষ দিকে বাজারে অবস্থান ধরে রাখতে তারা নিয়ে আসে জেডওয়ান। এখনকার অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন বাজারের অন্যতম ফ্ল্যাগশিপ ফোন এটি, যা প্রতিদ্বন্দ্বিন্তা করছে এইচটিসি ওয়ান বা গ্যালাক্সি এস ফোরের মতো ফোনের সঙ্গে।

ডিজাইন

প্রায় জেডের মতোই দেখতে এ মোবাইল ফোনের পুরুত্ব মাত্র ৮.৫ মিলিমিয়ার, ওজন ১৭০ গ্রাম। ভিন্ন ধাঁচের স্লিক ও ফ্ল্যাট ডিজাইন দিয়ে জেড যেমন ভোক্তাদের মন জয় করেছিল, জেডওয়ানই তাই করেছে। দারুণ স্মুথ ফিনিশিং বাড়তি সৌন্দর্য পেয়েছে চকচকে অ্যালুমিনিয়ামের প্রলেপে। এ ছাড়া ধুলো ও পানি প্রতিরোধক বিশেষ কোটিং তো আছে – এতে দৈনন্দিন ব্যবহারেও ফোনটির সৌন্দর্য নষ্ট হবে না।

sony experia Z1_techshohor

ডিসপ্লে

জেডওয়ানের ৫ ইঞ্চি ডিসপ্লের রেজুল্যুশন ১৯২০*১০৮০ পিক্সেল। অর্থাৎ পিপিআই (পিক্সেল পার ইঞ্চি) ৪৪১। আউটস্ট্যান্ডিং ডিসপ্লে কোয়ালিটি প্রথম দেখায় যে কাউকে মুগ্ধ করবে। কালার যেমন নিখুঁত, তেমনই উজ্জ্বল। তবে এত উঁচু দরের স্ক্রিন হওয়া সত্ত্বেও এটি এলইডি নয়, যে কারণে পাশাপাশি রাখলে এইচটিসি ওয়ান বা গ্যালাক্সি এস ফোরের তুলনায় দুর্বল মনে হতে পারে।

ক্যামেরা

ক্যামেরার প্রসঙ্গ আসলে সবাইকে নড়েচড়ে বসতেই হবে! কারণ জেডওয়ানের ২০.৭ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা শুধু হাইএন্ড স্মার্টফোন নয়, অনেক ডিএসএলআরকেও লজ্জায় ফেলে দেবে। একটি ফোন ক্যামেরার দৌড় কেমন হতে পারে, তার প্রমাণ এই ফোন। ছবি কোয়ালিটির প্রশংসা করার আগে বিশেষ ক্যামেরা অ্যাপটিরও প্রশংসা করতে হবে। সনির নিজস্ব এ অ্যাপটি ব্যবহার করা যেমন সহজ, তেমন ফিচার সমৃদ্ধ। স্মার্টফোন ক্যামেরায় যতরকম ফিচার থাকা সম্ভব, তার প্রায় সবই এতে রয়েছে। এটির সব ফিচারের সঙ্গে ভালোভাবে পরিচিত হতে সময়ও লাগবে অনেক। এ ছাড়া ফোনের সামনে ২ মেগাপিক্সেলের একটি সেকেন্ডারি ক্যামেরা আছে। দুটি ক্যামেরা দিয়েই ১০৮০ পিক্সেলে ভিডিও রেকর্ড করা যাবে।

কনফিগারেশন

এর ভেতর রয়েছে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৮০০ চিপসেট, কোয়াড কোর ২.২ গিগাহার্জ ক্রাইট ৪০০ প্রসেসর। গ্রাফিক্স প্রসেসর অ্যাড্রেনো ৩৩০ ও র‍্যাম ২ গিগাবাইট। ইন্টারনাল মেমরি ১৬ গিগাবাইট, যা বাড়ানো যাবে ৬৪ গিগাবাইট পর্যন্ত। ব্লুটুথ, এনএফসি, ওয়াইফাই, ওয়াইফাই হটস্পট, থ্রিজিসহ স্মার্টফোনের সবরকম কানেক্টিভিটি সুবিধা রয়েছে।

সফটওয়্যার ও পারফর্ম্যান্স

জেডওয়ানের ডিফল্ট অপারেটিং সিস্টেম অ্যান্ড্রয়েড জেলি বিন ৪.২, যা শিগগির সর্বশেষ সংস্করণ কিটক্যাটে উন্নীত করা হবে। এর আলট্রা ফাস্ট পারফর্ম্যান্সকে কেবল গ্যালাক্সি এস ফোরের সঙ্গেই তুলনা করা যায়। অ্যাপ চালানো, ব্রাউজিং, মেসেজিং – সবকিছুই যেন আপনার নির্দেশ পালন করতে প্রস্তুত। আপনাকে কেবল আঙ্গুল দিয়ে স্পর্শ করতে হবে! শক্তিশালী গ্রাফিক্স প্রসেসরের ফলে অ্যান্ড্রয়েড গেইমিংয়ে নতুন স্বাদ পাওয়া যাবে।

ব্যাটারি

ফোনটির নন-রিমুভেবল ব্যাটারির ধারণক্ষমতা ৩ হাজার অ্যাম্পিয়ার-আওয়ার। এক্সপেরিয়া জেডের চেয়ে যা উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বেশি। তবে তুলনামূলক বেশি শক্তিশালী কনফিগারেশন ও বড় স্ক্রিনের ফলে ব্যাটারি লাইফ খুব বেশি বাড়েনি। সাধারণ ব্যবহারে এটি ৪.৪৮ ঘণ্টার ব্যাকআপ দেবে, যেখানে গ্যালাক্সি এস ফোরের ব্যাকআপ প্রায় দশ ঘণ্টা।

দেশের বাজারে ফোনটির দাম ৫০ হাজার টাকা।

এক নজরে ভালো

–       ডিজাইন ও স্টাইলের দিক দিয়ে অতুলনীয়

–       হাইএন্ড ক্যামেরা

–       পারফর্ম্যান্স শতভাগ স্মুথ ও ত্রুটিবিহীন

এক নজরে খারাপ

–       কিছু ব্লটওয়্যার অ্যাপ আছে

–       ডিসপ্লে এলইডি নয়

ট্যাগ

Related posts

*

*

Top