নেক্সাসের বিকল্প হতে পারে আসুসের ফোনপ্যাড

শাহরিয়ার হৃদয়, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : অ্যান্ড্রয়েড মার্কেটে আসুসের সবচেয়ে সফল ডিভাইস নেক্সাস সেভেন। এ ছাড়া আরও একটি ট্যাব সিরিজ রয়েছে আসুসের – ফোনপ্যাড। নেক্সাসের চেয়েও কমদামে ও কিছু বাড়তি সুবিধা সংবলিত এ সিরিজের ফোনপ্যাড এমই৩৭১এমজি।

ডিজাইন ও গড়ন

দেখতে অনেকটা নেক্সাস সেভেনের মতোই ট্যাবটি। বডি তৈরি অ্যালুমিনিয়াম ও প্লাস্টিকে। ৭ ইঞ্চি স্ক্রিনের চারপাশে বেজেল বেশ পুরু। ওজন ৩৪০ গ্রাম ও পুরুত্ব ১০.৪ মিলিমিটার। যদিও একই আকারের আরও হালকা ও স্লিম ট্যাব রয়েছে বাজারে। এ ছাড়া পেছনের ব্যাককভারটি রিমুভ করা যায়।

asus fonopad_techshohor

স্ক্রিন ও ক্যামেরা

ফোনপ্যাডের ৭ ইঞ্চি আইপিএস ডিসপ্লের রেজুল্যুশন ১২৮০*৮০০ পিক্সেল, যা নেক্সাসের তুলনায় বেশ কমই বলতে হবে। স্ক্রিনে সূর্যের আলোর প্রতিফলনের কারণে কড়া রোদে ব্যবহার করতে কিছুটা সমস্যা হতে পারে। এ ছাড়া ফোনটির একটি বড় দুর্বলতা এতে মাত্র একটি ক্যামেরা রয়েছে। ১.২ মেগাপিক্সেলের এ ফ্রন্ট ক্যামেরার ছবির কোয়ালিটিও তেমন ভালো নয়।

কনফিগারেশন

ট্যাবটির পেছনে ইন্টেলের একটি লোগো রয়েছে। সাধারণত ট্যাবের বাজারে এমন লোগো চোখে পড়ে না। এর কারণ এতে ব্যবহার করা হয়েছে ইন্টেল অ্যাটম সিঙ্গেল কোর প্রসেসর। প্রসেসরের ক্লক স্পিড ১.২ গিগাহার্জ হলেও তা হাইপারথ্রেডিং প্রযুক্তি সাপোর্ট করে। আরও রয়েছে ১ গিগাবাইট র‍্যাম, পাওয়ারভিআর জিপিইউ। ১৬ গিগাবাইটের ইন্টারনাল মেমোরি রয়েছে, যা মেমোরি কার্ড দিয়ে ৩২ গিগাবাইট পর্যন্ত বাড়ানো যাবে। এটি ওয়াইফাই, ব্লুটুথ ইত্যাদির পাশাপাশি সিম ও থ্রিজি নেটওয়ার্ক সাপোর্ট করে।

ব্যাটারি

৪২৭০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার-আওয়ার ব্যাটারির সাহায্যে ফোনপ্যাডে ফুল লোডে প্রায় সোয়া ৪ ঘণ্টা চার্জ থাকবে। তবে এর অন্য একটি সমস্যা হলো পুরোপুরি চার্জ হতে অনেক সময় লাগে। ফুল ব্যাটারি চার্জ হতে আটঘণ্টাও লাগতে পারে।

সফটওয়্যার ও পারফর্ম্যান্স

বর্তমানের বেশিরভাগ ট্যাবে অন্তত ডুয়াল কোর প্রসেসর ব্যবহার করা হচ্ছে। ফোনপ্যাডের প্রসেসরটি সিঙ্গেল কোর হওয়া সত্ত্বেও ইন্টেলের হওয়ায় ও হাইপারথ্রেড সাপোর্ট করায় অ্যান্ড্রয়েড জেলি বিনকে মসৃণ গতিতে চালাতে পারবে। ব্রাউজিং, গেইমিং, ভারি অ্যাপ চালানো ইত্যাদি কাজ ভালোভাবেই করা যাবে। তবে এ ক্ষেত্রে সবদিক দিয়েই এগিয়ে থাকবে নেক্সাস সেভেন। তবে দুর্বল গ্রাফিক্স প্রসেসরের কারণে অ্যান্ড্রয়েড ইন্টারফেস ও গ্রাফিক্সনির্ভর অ্যাপগুলোর পুরো মজা পাওয়া যাবে না।

দেশের বাজারে ট্যাবটির দাম ১৯ হাজার ৫০০ টাকা।

এক নজরে ভালো

–      দাম কম, দেখতে চমৎকার

–      সিম সুবিধা

এক নজরে খারাপ

–      ডিসপ্লের মান মোটামুটি, ব্যাক ক্যামেরা নেই

–      পারফর্ম্যান্স মাঝারি মানের

Related posts

*

*

Top