টাচস্ক্রিন নিয়ে আসুসের ভিভোবুক এস৩০০সিএ

শাহরিয়ার হৃদয়, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মাঝারি আকারে টাচস্ক্রিন ডিসপ্লের নোটবুকের চাহিদা সম্প্রতি বেশ বেড়েছে। এন্ট্রি লেভেল ও দৈনন্দিন ব্যবহারের জন্য এমনই একটি উইন্ডোজ এইটভিত্তিক নোটবুক আসুস ভিভোবুক এস৩০০সিএ।

গড়ন ও ডিসপ্লে

ভিভোবুক সিরিজের সব ল্যাপটপেই আসুস অ্যালুমিনিয়ামের বডি ব্যবহার করেছে। এতেও তাই। ফলে এর গড়ন বেশ মজবুত ও আকর্ষণীয়। পুরুত্ব মাত্র ২১ মিলিমিটার, ওজন ১.৮ কেজি। ১৩.৩ ইঞ্চির টাচস্ক্রিন ডিসপ্লের রেজুল্যুশন ১৩৬৬*৭৬৮ পিক্সেল। তবে ইমেজ কোয়ালিটি তেমন আহামরি নয়। ঘরে বা অফিসে কাজ করা গেলেও গ্রাফিক্স প্রফেশনালদের জন্য সমস্যা হতে পারে।

Asus_Vivobook_techshohor

ইনপুট ও কানেক্টিভিটি

একটি ইউএসিবি ৩.০ সহ নোটবুকটিতে তিনটি ইউএসবি ইনপুট। দুই ধরনের ডিসপ্লে ইনপুট রয়েছে- ভিজিএ ও এইচডিএমআই। আরও আছে গিগাবিট ল্যান পোর্ট, এসডি কার্ড রিডার, হেডফোন ও মাইক্রোফোনের জন্য ৩.৫ মিলিমিটার জ্যাক। ওয়্যারলেস কানেক্টিভিটির মধ্যে আছে ওয়াইফাই ও ব্লুটুথ ৪.০। ডিসপ্লের উপর ০.৯ মেগাপিক্সেলের ওয়েবক্যাম আছে।

কনফিগারেশন

নোটবুকটির ভেতর রয়েছে ইন্টেল কোর আইফাইভ ১.৭০ গিগাহার্জ প্রসেসর, ৪ গিগাবাইট ডিডিআরথ্রি র‍্যাম ও ৫০০ গিগাবাইট হার্ডডিস্ক। গ্রাফিক্স চিপ ইন্টেল এইচডি গ্রাফিক্স ৪০০০। বিল্ট-ইন স্পিকার দিয়ে মাঝারি মানের সাউন্ড পাওয়া যাবে।

কিবোর্ড ও টাচপ্যাড

অ্যালুমিনিয়াম কেসিংয়ের উপর চিকলেট স্টাইলের কিবোর্ড দেখতে যেমন চমৎকার, ব্যবহার করাও স্বাচ্ছন্দ্যকর। প্রতিটি কি আলাদা থাকায় দ্রুত টাইপ করতে সুবিধা হবে। টাচপ্যডের রেসপন্স আশানুরূপ হলেও অবস্থানটি কারও কারও জন্য অসুবিধা হতে পারে, বিশেষ করে যাদের হাত ছোট। উইন্ডোজ এইটের সব মাল্টিটাচ ফিচারই এটি সাপোর্ট করে।

ব্যাটারি

৪৪ ওয়াট-আওয়ারের লিপো ব্যাটারি বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী ও পর্যাপ্ত সময় ব্যাকআপ দেবে। এনার্জি সেভিং মোডে প্রায় ৭ ঘণ্টা ও ফুল লোডে সাড়ে চার ঘণ্টা পর্যন্ত চার্জ থাকবে।

পারফর্ম্যান্স

এসএসডি না থাকা ও তৃতীয় প্রজন্মের প্রসেসর- এই দুই মিলে অনেক ক্ষেত্রেই আলট্রাবুকগুলোর পারফর্ম্যান্সের চেয়ে পিছিয়ে থাকবে এই ভিভোবুক। তবে সাধারণ ব্যবহারকারী কোনো ঝামেলা ছাড়া ব্রাউজিং ও ছোটখাটো এডিটিংয়ের কাজ সারতে পারবেন। বিল্ট-ইন গ্রাফিক্স তেমন শক্তিশালী না হওয়ায় গ্রাফিক্স সম্পর্কিত ভারি কাজ করা যাবে না। একই কারণে গেইমিং পারফর্ম্যান্সও ভালো পাওয়া যাবে না।

দুই বছরের ওয়ারেন্টিসহ ল্যাপটপটি পাওয়া যাচ্ছে ৫৮ হাজার টাকায়।

এক নজরে ভালো

–        উন্নত গড়ন, টাচস্ক্রিন

–        কিবোর্ড সুবিধাজনক

এক নজরে খারাপ

–        এসএসডি  নেই, পুরনো প্রজন্মের প্রসেসর

–        একই দামে আরও বেশি ব্যাটারি লাইফের ল্যাপটপ রয়েছে

Related posts

*

*

Top