টাচস্ক্রিন ছাড়াই পছন্দসই ল্যাপটপ এসারের ই১-৫৭২-৬৮৭০

শাহরিয়ার হৃদয়, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মাঝারি দামের মধ্যে উইন্ডোজ ৮ চালিত শক্তিশালী ল্যাপটপের মধ্যে চমৎকার একটি অপশন এসার অ্যাসপায়ার ই১-৫৭২-৬৮৭০। ভালো কনফিগারেশনের পাশাপাশি এটি দেখতে যেমন আকর্ষণীয়, ওজনেও তেমনি হালকা। যদিও টাচস্ক্রিন না থাকাটা একটি দুর্বলতা।

দামের চেয়ে উন্নত ডিজাইন

প্লাস্টিকের কালো বডি ও ধাতব ফিনিশিংয়ের ফলে ল্যাপটপটির গড়ন দামের তুলনায় বেশ উন্নত মনে হবে। তবে কিবোর্ড বা লিডে সহজে আঙ্গুলের ছাপ বসে যেতে পারে। এ ছাড়া এর পুরুত্ব মাত্র ০.৮ ইঞ্চি ও ওজনে ১৫.৬ ইঞ্চির বেশিরভাগ ল্যাপটপের চেয়ে হালকা (৪.৬ পাউন্ড)।

Acer aspire_techshohor

ডিসপ্লে ও গড়ন

১৫.৬ ইঞ্চির ডিসপ্লে ১৩৬৬*৭৬৮ পিক্সেল রেজ্যুলুশন সাপোর্ট করে। ছবির কোয়ালিটি মোটামুটি নিখুঁত হলেও কালার এবং ভিউয়িং অ্যাঙ্গেলে কিছুটা সমস্যা আছে। উজ্জ্বল রঙগুলোকে অনেক জায়গায় ম্যাটম্যাটে দেখাবে এবং একটু পাশ থেকে স্ক্রিন স্পষ্ট দেখা যাবে না।

এতে রয়েছে একটি এইচডিএমআই পোর্ট, একটি ইউএসবি ৩.০ পোর্ট, দুটি ইউএসবি ২.০ পোর্ট, একটি হেডফোন জ্যাক, একটি ইথারনেট পোর্ট, একটি ভিজিএ পোর্ট ও একটি এসডি কার্ড রিডার। ০.৯ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা ৭২০ পিক্সেলে ভিডিও রেকর্ড করতে পারে।

কিবোর্ডে ব্যাকলিট সুবিধা না থাকলেও এর গড়ন বেশ উন্নতমানের এবং দ্রুত টাইপ করার সহায়ক। উইন্ডোজ এইটের ইন্টারফেস সাপোর্টেড টাচপ্যাডটি বেশ রেসপন্সিভ ও স্বস্তিদায়ক।

কনফিগারেশন ও পারফরমেন্স

এর ভেতরে আছে চতুর্থ প্রজন্মের ১.৬ গিগাহার্জ ডুয়াল কোরআইফাইভ-৪২০০ইউ প্রসেসর, যা কাছাকাছি দামের ল্যাপটপগুলো থেকে একে ব্যতিক্রম করছে। সঙ্গে আছে ৪ গিগাবাইট ডিডিআরথ্রি র‍্যাম, ৫০০ গিগাবাইট হার্ডডিস্ক (৫৪০০ আরপিএম), ইন্টেল এইচডি গ্রাফিক্স ৪৪০০। সাধারণ ইউজাররা কোনোরকম অসুবিধা ছাড়াই বেশিরভাগ সফটওয়্যার ব্যবহার করতে পারবেন। ব্রাউজিং ও ফাইল কপি স্পিড আশা মতো পাবেন। সাধারণ গেইমগুলো মোটামুটি মসৃণভাবে চললেও হাই গ্রাফিক্সের নতুন গেইমগুলো খেলা যাবে না।

চেসিসের নিচে রয়েছে ডুয়াল স্টেরিও স্পিকার। সাউন্ডের কোয়ালিটি মোটামুটি ভালো হলেও স্পিকারের অবস্থানের কারণে তা চাপা ও কিছুটা বিচ্যুত শোনাতে পারে।

ব্যাটারি

চতুর্থ প্রজন্মের প্রসেসরের ল্যাপটপগুলো তুলনামূলকভাবে অনেক বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী। এদিক দিয়েও এগিয়ে অ্যাসপায়ার ই১-৫৭২ ও। এর চার সেলের ২৫০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ার ব্যাটারি সাধারণভাবে প্রায় পৌনে ৬ ঘণ্টা ব্যাকআপ দেবে। কাছাকাছি পর্যায়ের আসুস এক্স৫৫০সিএ (৪ ঘণ্টা ৫ মিনিট) ও লেনোভো জি৫৮০ (৪ ঘণ্টা ৮ মিনিট) এর চেয়ে এর ব্যাটারি লাইফ প্রায় ২ ঘণ্টা বেশি।

বাংলাদেশের বাজারে এর দাম ৪৭ হাজার ৫০০ টাকা।

– স্টারটেকবিডি, পিসিওয়ার্ল্ড ও ল্যাপটপম্যাগ অবলম্বনে

Related posts

*

*

Top