সনি ব্রাভিয়া এক্সবিআর-৫৫এইচএক্স৯৫০ টিভির ভাল-মন্দ

শাহরিয়ার হৃদয়, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : এলইডি টেলিভিশন কিনতে চাচ্ছেন? বাজেট ভাল হলে আপনার পছন্দ হবে সনির ব্রাভিয়া সিরিজের স্মার্ট টেলিভিশনগুলো। আর এ সিরিজের অন্যতম ‘সনি ব্রাভিয়া এক্সবিআর-৫৫এইচএক্স৯৫০’। বেশিরভাগ আন্তর্জাতিক রিভিউ সাইটের মতে স্ক্রিন সাইজ, ছবির কোয়ালিটি বা ফিচারের দিক থেকে বর্তমানে এটি সেরা এলইডি টিভি। সিনেটসহ বিভিন্ন ওয়েবসাইট অবলম্বনে আগ্রহী ক্রেতাদের জন্য টেলিভিশনটির ভাল-মন্দ ফিচারগুলো তুলে ধরা হলো।

বাহ্যিক দৃষ্টি
টেলিভিশনটির স্ক্রিনের আকার ৫৫ ইঞ্চি, রেজ্যুলেশন ১৯২০*১০৮০ পিক্সেল। ভিউয়িং অ্যাঙ্গেল ১৭৮ ডিগ্রি, অর্থাৎ ঘরের যে কোনো দিক থেকে তাকালেই ঝকঝকে, নিখুঁত ছবি দেখা যাবে। ১.৯ ইঞ্চি পুরুত্বের টেলিভিশনটি স্ট্যান্ডের মধ্যে দাঁড় করিয়ে বা দেয়ালে ঝুলিয়ে রাখা যায়। আকর্ষণীয় ডিজাইনের ফলে এটি মুহূর্তে আপনার ঘরের চেহারা পাল্টে দেবে।

sony bravia xbr-55hx950_ Tech Shohor

ইমেজ কোয়ালিটি
অসাধারণ ইমেজ কোয়ালিটি একে মার্কেটের অন্যান্য টেলিভিশন থেকে আলাদা করেছে। ব্রাভিয়া সিরিজের অন্যান্য টিভির মতো এটিও এলইডি-ব্যাকলিট এলসিডি, অর্থাৎ এলইডি ইঞ্জিন ও এলসি প্যানেলের সহায়তায় প্রতিটি রঙকে আলাদাভাবে ফুটিয়ে তুলতে সক্ষম। তাই কালার ও কনট্রাস্টের দিক থেকে এটি শতভাগ নিখুঁত; ডিপ ব্ল্যাক যেমন গাঢ়, পিওর হোয়াইট তেমনই উজ্জ্বল। এছাড়া বর্তমানের বেশিরভাগ টিভির রিফ্রেশ রেট যেখানে ১২০ হার্জ, সেখানে এই ব্রাভিয়ার রিফ্রেশ রেট ২৪০ হার্জ। একে আরও শক্তিশালী করতে রয়েছে সনির মোশনফ্লো এক্সআর প্রযুক্তি, যা এই রেটকে চারগুণ করে ৯৬০ হার্জের অভিজ্ঞতা দেবে। স্বাভাবিকভাবেই এটি বর্তমানের সেরা আউটপুট অভিজ্ঞতা দেবে। অবশ্য ডিসপ্লের মতো এর বিল্ট-ইন স্পিকারগুলো এত শক্তিশালী নয়। ১০ ওয়াটের দুটি স্পিকার সাধারণ মানের সাউন্ড দেবে।

কানেক্টেভিটি
এখনকার নানারকম ডিভাইসের সঙ্গে যুক্ত করতে যেন অসুবিধা না হয়, সেজন্য এতে রয়েছে বিস্তৃত কানেক্টিভিটি অপশন। চারটি পৃথক এইচডিএমআই ইনপুট, দুটি পিসি ইনপুট, দুটি ইউএসবি পোর্ট, একটি ইথারনেট পোর্ট, দুটি কম্পোজিট ইনপুট ও একটি কম্পোনেন্ট ইনপুট পোর্ট রয়েছে টেলিভিশনটিতে। ফলে যেকোন স্মার্ট ডিভাইস কিংবা কম্পিউটার থেকে সরাসরি মিডিয়া পাঠাতে পারবেন। ইন্টারনেট সুবিধার জন্য বিল্ট-ইন ওয়াইফাইও রয়েছে।

স্মার্ট টেলিভিশন সুবিধা
থ্রিডি কোয়ালিটির দিক দিয়েও এর পারফরম্যান্স চমৎকার। তবে সঙ্গে থ্রিডি চশমা না থাকাটা একটি বড় দুর্বলতা। এ ছাড়া স্মার্ট টিভির সব ফিচারই এতে রয়েছে। ইন্টারনেট ব্যবহারের সময় সনির নিজস্ব এন্টারটেইনমেন্ট নেটওয়ার্কে প্রচুর ভিডিও এবং গান পাওয়া যাবে। তবে মেনু সিস্টেম কিছুটা এলোমেলো থাকায় অনেক অ্যাপ খুঁজে পেতে এবং ব্যবহার করতে প্রথমদিকে অসুবিধা হতে পারে।

পুরনো নকশার রিমোট
টিভিতে সব আধুনিক ফিচার যুক্ত থাকলেও রিমোটটি কিছুটা পুরনো ধাঁচেরই রয়ে গেছে। এর চেয়ে অনেক আকর্ষণীয় ও স্টাইলিশ রিমোট আমরা স্যামসাং বা এলজির স্মার্ট টিভির সঙ্গে দেখেছি। তবে রিমোটটির ইতিবাচক দিক, স্ট্যান্ডবাই মোডে থাকার সময় কোনো বিদ্যুৎ খরচ হবে না।

দাম
এতসব ফিচার থাকার কারণে এর দামও কিছুটা বেশি, ৩ হাজার ১৯৮ ডলার। বাংলাদেশের বাজারে এটি প্রায় আড়াই লাখ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে।

এক নজরে ভালো
– অতুলনীয় ছবির কোয়ালিটি
– দেখতে চমৎকার, কানেক্টিভিটির প্রচুর অপশন

এক নজরে খারাপ
– দাম বেশি, সঙ্গে থ্রিডি গ্লাস নেই
– মেনু সিস্টেম দুর্বল, রিমোট সাধারণ মানের

Related posts

*

*

Top