নাইকন কুলপিক্স এল৩২০ : কম দামের ক্যামেরায় লেটেস্ট প্রযুক্তি

শাহরিয়ার হৃদয়, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : পেশাদার ফটোগ্রাফারদের পাশাপাশি সাধারণ ফটোগ্রাফারদের ব্যবহারের উপযোগী একটি ডিজিটাল ক্যামেরা নাইকন কুলপিক্স এল৩২০।

উচ্চমানের কমপ্যাক্ট ক্যামেরা হিসেবে এর তারিফ করতেই হয়। কারণ নানা আকর্ষণীয় ফিচার থাকলেও এটি পাওয়া যাচ্ছে বেশ কম দামে। তবে দেখতে-শুনতে এটি পুরোপুরি ডিএসএলআরের মতো।

২২.৫ থেকে ৫৮৫ মিলিমিটার রেঞ্জের এ ক্যামেরা লেন্সের মূল বৈশিষ্ট্য, এটি অনেক দুরের অ্যাকশন শট নিখুঁত ভাবে ক্যাপচার করতে পারে। ২৬এক্স জুম এক্ষেত্রে দারুণ কাজে দেয়।

nikon coolpix l320_techshohor

ক্যামেরাটিতে চারটি ভিন্ন ভিন্ন ফাংশন রয়েছে। কমব্যাট ব্লার, ভাইব্রেশন রিডাকশন, মোশন ডিটেক্টর ও বেস্ট শট সিলেক্টর। বেস্ট শট সিলেক্টর ফাংশনে ১০টি ছবি পর পর যেমন তোলা যায়, তেমনি সেগুলো থেকে ইউজারের পছন্দ মত ছবি সিলেক্ট করা যায়।

এ ছাড়া ১৬ মেগাপিক্সেল মূল সেন্সরে অ্যান্টি ব্লার টেকনোলজি আছে। তাই প্রত্যেক ছবি নিখুঁত ও ঝকঝকেভাবে তুলতে সাহায্য করে।

ক্যামেরাটিতে ৭২০ পিক্সেলের ভিডিও করার জন্য জন্য একটি ডেডিকেটেড মুভি বাটন রয়েছে। তাই তাৎক্ষণিকভাবে ভিডিও করার পর তিন ইঞ্চি এলসিডি ডিসপ্লেতে তা দেখতে পারেন।

মেমরি কার্ড স্লট এসডি, এসডিএইচসি ও এইচডিএক্সসি কার্ড সাপোর্ট করে।

চমৎকার কিছু অভ্যন্তরীণ ফিচার নতুন অপেশাদার ব্যবহারকারীদের প্রচুর সাহায্য করবে। যেমন, এতে ১৮ টি সিন মোড রয়েছে এতে, যা অটো চেঞ্জ করে নিয়ে সঠিক সিন মোড সিলেক্ট করতে পারে।

এতে অন-বোর্ড চিপ হিসেবে এক্সপিড সি২ ইমেজ প্রসেসিং ইউনিট রয়েছে, যা যে কোনো ছবিকে তোলার সাথে সাথে প্রসেসিং করে ফেলে। ছবি তুলে সাথে সাথে শেয়ার করার জন্য ওয়াই-ফাই আছে।

এর পাওয়ার সোর্স হিসেবে লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারির পরিবর্তে চারটি ডাবল এ ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে। তাই কোথাও ঘুরতে যেতে চার্জ নিয়ে বেশি মাথা ঘামাতে হবে না।

যারা বেশি ঘোরাফেরা করেন ও বিভিন্ন জায়গার ছবি তুলতে ভালোবাসেন, তারাও নিশ্চিন্তে কয়েকটি ব্যাকআপ ব্যাটারি নিয়ে বেরিয়ে পড়তে পারেন।

বর্তমানে এর দাম ১৫ হাজার টাকা।

এক নজরে ভালো
– কম দামে অনেক ফিচার
– ওয়াইড অ্যাঙ্গেল লেন্স

এক নজরে খারাপ
– লেন্স পরিবর্তন করা যায় না
– ফাংশন বাটন কম

Related posts

*

*

Top