ভিডিও ব্লগিংয়ে ভালো করার ছয় উপায়

তুহিন মাহমুদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : অনলাইনে আয়ের ক্ষেত্রে দিনে দিনে ভিডিও ব্লগিংয়ের জনপ্রিয়তা বাড়ছে। কাজটি কঠিন মনে হলেও আসলে ততোটা কঠিন নয়!

তবে ভিডিও ব্লগিং করতে হলে আপনাকে বেশ কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখতে হবে। অন্যথায় সেটি ভিজিটরদের কাছে অনর্থক মনে হতে পারে।

ভিডিও ব্লগিংয়ের ক্ষেত্রে বিবেচ্য এমন ছয় বিষয় নিয়ে এ প্রতিবেদন।

Video Blogging-2-TechShohor

১. একটি ব্লগিং রুম তৈরি করা
ভিডিও ব্লগিংয়ের ক্ষেত্রে আপনাকে প্রথমেই একটি ভালো রুম তৈরি করতে হবে। এটা আপনার বাড়ির একটি কোনের রুম হতে পারে, যেখানে বাড়ির অন্যান্য কাজগুলো চোখে না পড়ে। আপনার ভিডিও তৈরির সময় যাতে অন্য কেই বিরক্ত না করতে পারে সেটি খেয়াল রাখুন। তবে যদি বাসায় একা থাকেন তাহলে কোনো সমস্যা নয়।

আপনার ব্লগিংয়ের বিষয়ের উপর ভিত্তি করে যদি রুমটাকে গোছানো ও সাজাতে পারেন তাহলে ভালো হয়। ধরুন আপনি কৌতুকের বই নিয়ে ব্লগ করছেন। সেক্ষেত্রে আপনার দেওয়ালে কিছু কৌতুকের বইয়ের পোস্টার টানানো থাকতে পারে। অথবা আপনার টেবিল কিংবা বুকসেলফে এ ধরণের কিছু বই সাজানো থাকতে পারে। যেটি ভিজিটরদের চোখে পড়তে পারে।

২. ভালোমানের সফটওয়্যার ব্যবহার করা
আপনার ব্লগিংয়ের ধরণ অনুযায়ী একটি ভালোমানের ভিডিও রেকডিং ও এডিটিং সফটওয়্যার ব্যবহার করতে পারেন। এক্ষেত্রে উইন্ডোজ মুভি মেকার, ভিমিও, ফ্লিপ মিনো ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে আপনি যদি পরীক্ষামূলকভাবে ভিডিও ব্লগ শুরু করতে চান সেক্ষেত্রে মমভার্সেশন স্টাইলেও করতে পারেন।

৩. অনুশীলন করুন
ভিডিও ব্লগিং কনটেন্টের কোয়ালিটি নিয়ে সিরিয়াস হলে একটি চূড়ান্ত ভিডিও তৈরির আগে কয়েকবার অনুশীলন করে নিন। এগুলো নিজে চালিয়ে দেখুন। বারবার চেষ্টা করলে আরও ভালো করতে পারবেন।

স্ক্রিপ্ট লিখে সেটি দেখে দেখে পড়া মোটেও ভালো নয়। এক্ষেত্রে ভিজিটর আপনার অভিজ্ঞতা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারে। তাই কোনো কিছু করার আগে অবশ্যই অনুশীলন করে নিন।

৪. ভিজিটরদের ফিডব্যাক নিন
আপনার ভিডিও ব্লগে ভিজিটর বাড়ানোর একটি ভালো উপায় হলো পোস্টে নিজের ও ভিজিটরদের উদ্দেশ্যে কিছু বলুন। আপনার কনটেন্ট কেমন হচ্ছে সেটি সম্পর্কে তাদের কাছে জানতে চান।

এ ছাড়া আগামীতে তারা কি ধরণের কনটেন্ট দেখতে চান সেটিও জানানোর জন্য অনুরোধ করতে পারেন।

৫. আপনার কাজকে পুনরায় সম্পাদনা করুন
আপনার কনটেন্টে কোনো ছোট ভুল থাকলেও যেমন কথা পরিস্কারভাবে শোনা না গেলে, কোনো অংশে ছবি দেখা না গেলে এটি পুনরায় সম্পাদন করুন। আপনি সফটওয়্যারের মাধ্যমে কোনো ভিডিওর এসব ছোটখাটো ভুল ঠিক করতে পারবেন।

এক্ষেত্রে আইস্পট, জাম্পকাট, এমনকি ইউটিউব মিক্সার ব্যবহার করতে পারেন। মনে রাখবেন আপনার আংশিক ভুল কনটেন্টের মান পুরোটাই কমিয়ে দিতে পারে।

৬. হতাশ না হয়ে চালিয়ে যান!
অনেকেই কাজ শুরু করেই আশানুরুপ সাড়া না পেলে থমকে যান। এমনটি করা যাবে না। দ্বিগুন উৎসাহে কাজ চালিয়ে যান। সঠিক বিষয় নির্বাচন করে তাতে আপনার ভালোটুকু দেওয়ার চেষ্টা করুন। আপনি যা ভালোভাবে জানেন সেটিই জানান ভিজিটরদের।

আগে থেকেই বিষয়টি সম্পর্কে ভালোভাবে গবেষণা করে নিন। চেষ্টা করে যান, অবশ্যই সফল হবেন।

Related posts

*

*

Top