এবার মুক্ত মত প্রকাশে গুগলের লড়াই

টেক শহর ডেস্ক : সংবাদ সংস্থা ও মানবাধিকার গ্রুপগুলোকে সাইবার আক্রমণের হাত থেকে রক্ষায় এবার মাঠে নেমেছে টেক জায়ান্ট গুগল। এসব সংগঠনের মুক্ত মত প্রকাশে সহায়তা দিতে প্রজেক্ট শিল্ড নামে একটি সার্ভিস প্যাকেজ চালুর ঘোষণা দিয়েছে তারা। একই সঙ্গে কিছু দেশের নাগরিকদের সরকারি সেন্সরশিপ কিংবা সার্ভিলেন্স সফটওয়্যার এড়িয়ে ওয়েবে ঢুকতে ইউপ্রক্সি নামের নতুন একটি প্রযুক্তিও উন্মোচন করেছে বিশ্বের শীর্ষ সার্চ ইঞ্জিন কর্তৃপক্ষ।

ওয়েবে অবাধ মত প্রকাশের সমর্থনে সহযোগিতার জন্য নতুন এ সেবা প্যাকেজ করা হয়েছে বলে নিউ ইয়র্কে এক অনুষ্ঠানে সোমবার জানান গুগলের কর্মকর্তারা। অনুষ্ঠানে তারা একটি নতুন ম্যাপও উপস্থাপন করেন। এ ম্যাপে বিশ্বে চলমান সাইবার আক্রমণের চুম্বক অংশ উল্লেখ করা থাকবে।

গুগল জানায়, সেন্সরশিপ কিংবা সার্ভিল্যান্স এড়ানোর জন্য তৈরি সফটওয়্যার ইউপ্রক্সি (uProxy) গুগল ক্রম ব্রাউজার এবং ফায়ারফক্সে পাওয়া যাবে। তবে প্রতিদ্বন্দ্বী মাইক্রোসফট কর্পোরেশনের ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারে এখনই মিলবে না। এটি এখনও পরীক্ষামূলক পর্যায়ে রয়েছে। বিভিন্ন দেশে বিশেষ করে চীনের মতো দেশে যেখানে ওয়েব কার্যক্রমে সবচেয়ে বেশি সেন্সর আরোপ করা হয় সেখানে এ সফটওয়্যার ব্যবহার করে সহজেই ইন্টারনেটে ঢোকা যাবে।

Google-free-speech, techshohor

এ সফটওয়্যার তৈরিতে তহবিল জোগান দিয়েছে গুগল। আর এটি তৈরি করেছে ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয় ও অলাভজনক প্রতিষ্ঠান ব্রেভ নিউ সফটওয়্যার। এটি দু’জন ব্যবহারকারীর মধ্যে ‘এনক্রিপটেড কানেকশন’ তৈরি করবে যেটি ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক হিসাবে কাজ করবে। বর্তমানে এমনি এক পদ্ধতি ব্যবহার করে চীনের নেটিজেনরা সরকারি ফায়ারওয়াল এড়িয়ে ইন্টারনেট ব্যবহার করে। দেশটিতে সরকার প্রতিনিয়ত বহু সামাজিক নেটওয়ার্ক সাইট ব্লক করে রাখে।

বিশ্বজুড়ে সেন্সর আরোপকারী কিছু কর্তৃপক্ষের হাত থেকে নিজেদের ওয়েব প্রর্পাটিজ ইউইটিব ও ব্লগারকে রক্ষায় শীর্ষ সার্চ ইঞ্জিন কোম্পানিটি দীর্ঘদিন থেকে সুনামের সঙ্গে কাজ করছে। গুগল এ কার্যক্রমের নাম দিয়েছে ‘ডন্ট বি এভিল’।

এদিকে প্রজেক্ট শিল্ড সার্ভিস প্যাকেজের মাধ্যমে রাজনৈতিকভাবে আক্রমণের শিকার হয়েছে এমন সাইট হোস্ট করার কথা জানিয়েছে গুগল। তারা জানায়, স্বাধীনভাবে হোস্ট করা এসব সাইট সহজেই আক্রমণের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয়। তবে কারিগরি অবকাঠামোর কারণে গুগলে হোস্ট করা হলে তা প্রতিরোধকরা সম্ভব হবে। এ সেবা এখনও পরীক্ষামূলক থাকলেও একটি ফার্সি ভাষার সাইট এ পদ্ধতি ব্যবহার করছে বলে জানায়। অন্যদিকে ফোর্বস জানায়, গুগল কেনিয়ার একটি রাজনৈতিক পর্যবেক্ষণ ওয়েবসাইটকেও সুরক্ষা দিয়েছে।

রয়টার্সের প্রতিবেদন থেকে আমিন রানা

Related posts

*

*

Top