Maintance

বিজ্ঞান কংগ্রেসে উদ্ভাবনী ধারণা নিয়ে ক্ষুদে বিজ্ঞানীরা

প্রকাশঃ ৩:৫৩ অপরাহ্ন, ডিসেম্বর ৩০, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৩:৫৩ অপরাহ্ন, ডিসেম্বর ৩০, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দেশে পঞ্চমবারের মতো শুরু হয়েছে ক্ষুদে বিজ্ঞানীদের বিজ্ঞানের বিশাল যজ্ঞ ‘শিশু-কিশোর বিজ্ঞান কংগ্রেস ২০১৭’।

শুক্রবার শুরু হওয়া এই কংগ্রেসে নানা ধরনের উদ্ভাবনী ধারণা উপস্থাপন করছেন ক্ষুদে বিজ্ঞানীরা।

দেশের স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিজ্ঞানচর্চা ও বৈজ্ঞানিক গবেষণাকে জনপ্রিয় করে তোলা, বিজ্ঞানের আনন্দকে উপভোগ করতে শেখানো এবং গুগল সায়েন্স ফেয়ার কিংবা ব্রেকথ্রু জুনিয়র চ্যালেঞ্জের মতো আন্তর্জাতিক বিজ্ঞানভিত্তিক আয়োজনগুলোতে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে ‘শিশু-কিশোর বিজ্ঞান কংগ্রেস ২০১৭’ আয়োজন করা হয়ে থাকে।

রাজধানীর ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে প্রায় ৫০০ শিক্ষার্থী ও দুই হাজারের বেশি শিক্ষক, গবেষক, বিজ্ঞানী ও দর্শনার্থী এবারের কংগ্রেসে অংশ নিচ্ছে।

বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতি (এসপিএসবি) ও বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশন (বিএফএফ) যৌথভাবে এটি আয়োজন করছে।

শুক্রবার দিনব্যাপী সারা দেশ থেকে আসা শিক্ষার্থীরা বৈজ্ঞানিক পেপার, বৈজ্ঞানিক পোস্টার ও বিজ্ঞান প্রজেক্ট প্রদর্শনে অংশ নিয়েছে। শনিবার যৌথ কংগ্রেস, নেটওয়ার্কিং পর্ব ও পুরস্কার বিতরণীর মাধ্যমে এ বছরের কংগ্রেস শেষ হচ্ছে।

সারা দেশ থেকে তিন হাজারের বেশি শিক্ষার্থী এবছরের কংগ্রেসে অংশ নেয়ার উদ্দেশে কনসেপ্ট পেপার বা ধারণাপত্র জমা দিয়েছিল। সেখান থেকে কয়েক ধাপে বাছাইকৃত প্রায় ৪০০ শিক্ষার্থী মূল পর্বে অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়েছে।

দুইদিনব্যাপী এই অনুষ্ঠানের প্রথম দিনে আজ সকাল সাড়ে নয়টায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে কংগ্রেসের কার্যক্রম শুরু হয়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ইউনিভার্সিটি অফ এশিয়া প্যাসিফিকের উপাচার্য ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী, আইইইই-এর ডিস্টিংগুইশ লেকচারার অধ্যাপক ড. রেজওয়ান খান, ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. চৌধুরী মফিজুর রহমান, পদার্থবিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. সিদ্দিক-ই-রব্বানী, অধ্যাপক ড. আরশাদ মোমেন, বিশিষ্ট জীববিজ্ঞানী ড. রেজাউর রহমানসহ অনেকে।

আজ কংগ্রেসের প্রথমদিনে শিক্ষার্থীরা তাদের পোস্টার ও প্রজেক্টের প্রদর্শনী এবং পেপার উপস্থাপনে অংশ নেয়। অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে লালমনিরহাটের হাতিবান্ধা এস এস সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে প্রজেক্ট নিয়ে এসেছিল সায়েদুল মোস্তায়িন তরঙ্গ।

‘তারু—একটি হিউম্যানয়েড রোবট’ নামের এই প্রজেক্ট নিয়ে সে জানায়, প্রজেক্টটির আইডিয়া করেছিলাম গুগল থেকে, বিশেষ করে জাপানের আসিমো আর সিঙ্গাপুরের সোফিয়াকে দেখে।

নবম শ্রেণিতে পড়া তরঙ্গ একটি হিউম্যানয়েড রোবট বানিয়েছে যা মানুষের সঙ্গে সামাজিকভাবে যোগাযোগ করতে পারে। এই কাজটি করার জন্য সে একটি অ্যাপও বানিয়েছে। রোবটের অ্যানালগ কন্ট্রোলিং এর জন্য আরডুইনো উনো মাইক্রোকন্ট্রোলার ব্যবহার করেছে।

খিলগাঁও বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের ফারহানা মজিব ও নুসরাত জাহান ভিন্ন ভিন্ন তাপমাত্রায় মানুষের মুখে মিষ্টির অনুভূতির ভিন্নটা নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়েছিল। সেটা নিয়ে তারা কংগ্রেসে পেপার উপস্থাপন করেছে।

তারা জানায়, তাপমাত্রা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের মুখে মিষ্টতার অনুভূতির পরিবর্তন হয়।

শনিবার সকালে ক্ষুদে বিজ্ঞানী এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-গবেষক-বিজ্ঞানীদের নিয়ে যৌথ কংগ্রেস অনুষ্ঠিত হয়। এতে শিক্ষার্থীরা বিজ্ঞানীদের সঙ্গে দেশের বিজ্ঞান শিক্ষা, গবেষণা এবং এ সংক্রান্ত সমস্যাগুলো নিয়ে মতবিনিময় করেন।

এবারের কংগ্রেসের বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে নির্বাচিতদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হবে ৫ম জগদীশ চন্দ্র বসু ক্যাম্প।

শিশু-কিশোর বিজ্ঞান কংগ্রেস নিয়ে আরো বিস্তারিত জানা যাবে কংগ্রেসের ওয়েবসাইট এবং ফেইসবুক পেইজ থেকে।

ইমরান হোসেন মিলন

*

*

Related posts/