Maintance

বছরের সেরা কিছু উদ্ভাবন

প্রকাশঃ ৯:৩০ অপরাহ্ন, ডিসেম্বর ২৭, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১১:৩২ অপরাহ্ন, ডিসেম্বর ২৭, ২০১৭

এস. এম. তাহমিদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : উদ্ভাবন সবসময় নতুন দিনের সূচনা করে। আর বিদায়ী বছরটি বেশকিছু উদ্ভাবন আর সেগুলো মানুষের দোরে পৌঁছানোর বছর।

অন্য বছরগুলোর তুলনায় ২০১৭ সালটিতে উদ্ভাবন বিশেষ করে প্রযুক্তিগত উদ্ভাবন বেড়েছে। আর এমন সব বিষয়ের সুফলভোগী হতে শুরু করেছে মানুষ। বিদায়ী বছরের কিছু উদ্ভাবন ও উদ্ভাবনের সুফল সম্পর্কে জানা যাক।

কৃত্রিম বু্দ্ধিমত্তা (এআই)

AI-Office-techshohor

এআই বছরের অন্যতম আলোচিত শব্দ। এআই-এর উদ্ভাবন ২০১৭ সালে না হলেও এবছরই তা সবার হাতে পৌঁছাতে শুরু করেছে। মোবাইল নির্মাতা অ্যাপল, অপ্পো, গুগল ও হুয়াওয়ে ক্যামেরার ছবি, পার্সোনাল অ্যাসিস্ট্যান্ট ও নিরাপত্তার জন্য এআই ব্যবহারের ওপর জোর বেড়েছে চলতি বছরে।

নতুন বেশকিছু স্মার্টফোন প্রসেসরে যুক্ত করা হয়েছে বিশেষায়িত এআই প্রসেসর। ভুয়া সংবাদ ও আত্মহত্যা ঠেকাতে ফেইসবুক পোস্ট যাচাই-বাছাইয়ের কাজ শুরু হয়েছে চলতি বছর থেকে নিজস্ব এআই। গুগলের বেশ কিছু এআই চলতি বছরে বিভিন্ন খেলায় চ্যাম্পিয়নদের হারিয়ে দিয়েছে। এআই লিখেছে গান ও উপন্যাস। ধীরে ধীরে প্রায় সকল কাজেই মানুষকে সাহায্য করার জন্য এআই প্রস্তুত হচ্ছে। তাই পুরো বছরজুড়েই শব্দটি শোনা গেছে জোরোশোরেই।

অ্যাপল ফেইস আইডি

iphone10-problem-techshohor

সরাসরি ব্যবহারকারীর চেহারা শনাক্ত করে ফোন আনলক ও লেনদেনে পরিচয় যাচাই করার প্রযুক্তি যুক্ত করে অ্যাপল স্মার্টফোন জগতে সাড়া ফেলে দিয়েছে।

শুধুমাত্র ক্যামেরা নয়, বরং ব্যবহারকারীর চেহারা ইনফ্রারেড রশ্মির মাধ্যমে স্ক্যান করে ফেইস আইডি কাজ করবে, ফলে অন্ধকারেও ব্যবহার করা যাবে। এমনকি মুখোশ বা ছবি ব্যবহার করে ফাঁকি দেয়া যাবে না।

তবে ফিংগারপ্রিন্ট সিকিউরিটির বদলে এটির ব্যবহার অনেকেই নিন্দা করেছেন। আগামী বছরের অ্যান্ড্রয়েড ফোনগুলোতেও প্রযুক্তিটি ব্যবহার হবে বলেও জোর শোনা যাচ্ছে।  ভাল অথবা মন্দ যাই হোক না কেন, ফেইস আইডি এবছরের আলোচিত উদ্ভাবনের একটি।

হাই ফাই অডিওর জন্য ব্লুটুথ এল-ড্যাক

তারহীন স্পিকার ও হেডফোনের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পেলেও এমন করে বাজানো অডিওর মান বাড়ানোর দিকে তেমন মনোযোগ একমাত্র সনি ছাড়া আর কেউ দেয়নি। হাই-ফাই মানের সাউন্ড যাতে তারহীনভাবে হেডফোন ও স্পিকারে পৌঁছানো যায় এজন্য ব্লুটুথের জন্য একটি নতুন প্রটোকল তৈরি করেছে সনি। যার নাম এল-ড্যাক।

যে সকল ফোনে ব্লুটুথ ৫ ও অ্যান্ড্রয়েড ওরিও অপারেটিং সিস্টেম রয়েছে সেগুলো এল-ড্যাক সমর্থিত ডিভাইসে হাই-ফাই মানের গান পাঠাতে পারবে। এটি তেমন বড় মনে না হলেও হেডফোন জ্যাক বাদ পড়ায় তারহীন হাই-ফাই সাউন্ডের প্রয়োজনীয়তা আগামী বছর আরও বৃদ্ধি পাবে, এল-ড্যাক তার জন্যই তৈরি।

বস্টন ডাইনামিকস এর রোবট

শুধু কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নয়, রোবটেও অনেক উন্নতি এসেছে এ বছর। বস্টন ডাইনামিকস তাদের চারপেয়ে ও মানবাকৃতির দুটি রোবটের নতুন সংস্করণের একটি ভিডিও আপলোড করেছে। ভিডিওটিতে অত্যন্ত সাবলীলভাবে হাঁটতে সক্ষম চারপেয়ে রোবট স্পট মিনি তার হাঁটার ছন্দ তুলে ধরে।

একই ভিডিওতে মানবাকৃতির রোবট অ্যাটলাস তার ভারসাম্য রাখতে পারার নৈপুণ্য একটি বক্সের ওপর লাফ দিয়ে উঠে ও উল্টো ডিগবাজি দিয়ে নেমে প্রমাণ করেছে। ভিডিওটি আপলোডের সঙ্গে সঙ্গেই প্রযুক্তি দুনিয়ায় সাড়া ফেলে। অচিরেই রোবটের হাতে চাকরি হারানোর ভয় সোশ্যাল মিডিয়াতে ঝড় তুলেন।

নিজ থেকে চলতে সক্ষম ট্রাক

বৈদ্যুতিক গাড়ি নির্মাতা টেসলা এ বছর ট্রাক তৈরির ঘোষণা দিয়েছে। যার মূল আকর্ষণ ড্রাইভারবিহীন চালনক্ষমতা। এর আগে টেসলা মডেল এস ও নিজ থেকে চলতে পারলেও, এমন উদ্ভাবনে ট্রাক ড্রাইভারের প্রয়োজন ফুরিয়ে যাবে বলে আশঙ্কা করছেন অনেকে।

 এজন্য ট্রাকগুলো রাস্তায় চলার অনুমতি পাওয়ার পর অনেকেই এর বিরোধিতা করেছেন। তাই বলে টেসলার ক্রেতা সঙ্কট হয়নি। আগামী বছর থেকেই ট্রাকগুলো রাস্তায় চলতে শুরু করবে। ফলে মালপত্র পৌঁছাতে দেরি কমে গেলেও ট্রাক ড্রাইভাররা কিভাবে জীবনধারণ করবেন তা নিয়ে সংশয় রয়েই যাচ্ছে।

ব্যবহারযোগ্য কোয়ান্টাম কম্পিউটার

ট্রানজিস্টরের বদলে কোয়ান্টাম ইন্টারঅ্যাকশন ব্যবহার করে প্রোগ্রাম চালানোর মত কম্পিউটার নিয়ে কাজ চলছে বহুদিন ধরে, তবে ২০১৭ সালেই তা ব্যবহারযোগ্য হতে শুরু করেছে।

এখনো সাধারণ মানুষের নাগালে না পৌছালেও, পদার্থবিদ্যা, রসায়ণ ও ক্রিপ্টোগ্রাফির জটিল সব সমস্যার সমাধান করার জন্য কোয়ান্টাম কম্পিউটার ব্যবহার শুরু হয়েছে। মাইক্রোসফট কোয়ান্টাম কম্পিউটারের জন্য প্রোগ্রাম তৈরি সহজ করতে বিশেষ ল্যাঙ্গুয়েজ তৈরিতেও হাত দিয়েছে। অচিরেই কোয়ান্টাম কম্পিউটারের কল্যানের প্রভাব সবাই পেতে শুরু করবে। আর এর ঘোষণা এসেছে চলতি বছরে।

নাগালের মধ্যে অগমেন্টেড রিয়েলিটি

সত্যিকার দুনিয়া ও পরাবাস্তবতার মাঝে সংযোগ সৃষ্টির জন্য তৈরি অগমেন্টেড রিয়েলিটি নিয়ে মাইক্রোসফট, অ্যাপল ও গুগলের মতো বড় কোম্পানি বিশেষায়িত সফটওয়্যার ও হার্ডওয়্যার ২০১৭ সালে বাজারে এনেছে।

এর মাঝে গুগল ও অ্যাপল ফোনের দিকেই জোর দিলেও মাইক্রোসফট পিসির সঙ্গে ব্যবহার করা হার্ডওয়্যারের দিকে ঝুঁকেছে। এখনো এ প্রযুক্তি গেইমের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও ভবিষ্যতে প্রশিক্ষণ ও অন্যান্য কাজেও লাগানোর কথা ভাবছে কোম্পানি তিনটি।

*

*

Related posts/