Maintance

২০১৮ সালে দেশে নতুন প্রযুক্তি সহজলভ্য হবে : টেলিনর

প্রকাশঃ ৩:৪২ অপরাহ্ন, ডিসেম্বর ২৩, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৯:২৫ অপরাহ্ন, ডিসেম্বর ২৩, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ২০১৮ সালে বেশকিছু উন্নত প্রযুক্তি দেশে সহজলভ্য হবে। এর ফলে প্রযুক্তির যে ট্রেন্ড সেখানে বাংলাদেশ আরও এগিয়ে যাবে।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা এআই, বিগ ডাটা, ক্রিপ্টো কারেন্সি এবং স্বচালিত বাহনের মতো প্রযুক্তিগুলো বিশ্ববাজারে অনেকটাই সহজলভ্য হবে বলে জানিয়েছে  টেলিনর।

প্রতিষ্ঠানটির রিসার্চের বিজ্ঞানী ও প্রযুক্তি বিশ্লেষকরা বলছেন, এসব প্রযুক্তি নিয়ে যেভাবে বিভিন্ন দেশে কাজ শুরু হয়েছে তাতে ২০১৮ সালের দিকে ডিজিটাল বাংলাদেশের ধারাবাহিক যাত্রায় প্রযুক্তিগুলোর দেখা দেশেও মিলতে শুরু করবে।

২০১৮ সালের সম্ভাব্য প্রযুক্তি ও টেক ট্রেন্ড নিয়ে একটি গবেষণাও করেছে প্রতিষ্ঠানটি। সেই গবেষণায় তারা বাংলাদেশেও এমন পরিবর্তনের ইঙ্গিত দিয়েছেন খুব জোরেশোরেই।

হেড অব টেলিনর রিসার্চ বিয়র্ন টালে স্যান্ডবার্গ বলেন, নীতিমালা, গ্রাহকের পছন্দ এবং প্রযুক্তির সর্বব্যাপী বিস্তারের কারণেই সাধারণত বড় ধরনের পরিবর্তন ঘটে। এক্ষেত্রে, মোবাইল টেলিফোনি ও গাড়ি অন্যতম দুটি উদাহরণ। ২০১৮ সালে এ তিন ক্ষেত্রেই গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন আসবে। ভবিষ্যৎ প্রযুক্তির ক্ষেত্রে আমরা এ প্রবণতাগুলোকে বেছে নিয়েছি কারণ আমরা মনে করি প্রযুক্তির এ প্রবণতাগুলোর নতুন বছরে শীর্ষে থাকার উজ্জ্বল সম্ভাবনা ও গুরুত্ব রয়েছে।

Telenor-Techshohor

২০১৮ সালের মধ্যে প্রযুক্তিখাতের সমম্ভাবনাময় সাতটি প্রবণতার কথাই আগে থেকে ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন টেলিনর গ্রুপের গবেষণা প্রতিষ্ঠান টেলিনর রিসার্চ। ভবিষ্যদ্বাণী অনুযায়ী, সোশ্যাল মিডিয়া বিহেভিয়ার (সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আচরণ), কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার বিস্তৃত ব্যবহার, ব্যবসায় ডিপ লার্নিং, এআই ও আইওটি ভিত্তিক আর্থিক সেবা এবং অগমেন্টেড রিয়ালিটিতে অগ্রগতির ক্ষেত্রে পরিবর্তন আসবে।

টেলিনরের গবেষণা অনুযায়ী, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে ব্যবহারকারীদের পোস্ট কমে যাচ্ছে এবং ফেইসবুক নিউজফিডে আসা প্রাসঙ্গিক তথ্যও হ্রাস পাচ্ছে যা বিভিন্ন ধরনের প্রফেশনাল ও পেইড কনটেন্টের সংখ্যা বাড়িয়ে তুলছে। সচেতনতা বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে ব্যবহারকারীরা তাদের নিউজফিডে ‘ফেক নিউজ’র ব্যাপারে অনেক বেশি সচেতন হয়ে গেছেন।

স্যান্ডবার্গ বলেন, বোধহয় প্রাসঙ্গিকতার অভাবেই সংবাদ পেতে, ডিজিটাল উপস্থিতির জন্য এবং বন্ধু-বান্ধব ও আত্মীয়-স্বজনের হালনাগাদ তথ্য পেতে ব্যবহারকারীরা বিকল্প প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করা শুরু করবে।

টেলিনরের গবেষকরা প্রত্যাশা করছেন, এসব ক্ষেত্রে ইতিবাচক প্রভাব বিস্তার করা গেলে ২০১৮ সাল হবে ডিপ লার্নিংনের বছর। আর এ বছরেই ইন্টারনেট জায়ান্টদের থেকে বেরিয়ে এসে নতুন বাজার খুঁজে নেবে ডিপ লার্নিং।

গবেষণা অনুযায়ী, স্বাস্থ্য, জ্বালানি ও শক্তি, যানবাহন এবং টেলিযোগাযোগসহ বিস্তৃতখাতে প্রযুক্তির ব্যাপক ব্যবহার হবে।

ডিপ লার্নিংয়ের ভুল ব্যবহার, অব্যবস্থাপনা, অনভিজ্ঞ তথ্য পরিচালনার ফলে সে সব মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হবেন যারা মনে করেন ডিপ লার্নিং একটি যাদুকরি প্রযুক্তি যা শিখে নিলেই হবে এবং যা নিজ আগ্রহে না জানলেও হবে বলেও সাবধান করেছে টেলিনর।

এছাড়াও ২০১৮ সালে অগমেন্টেড রিয়ালিটির ক্ষেত্রে নতুন সব অগ্রগতি আসতে পারে বলেও জানাচ্ছে গবেষকরা।

টেলিনরের গবেষণা করা এসব প্রযুক্তির ট্রেন্ডের বিস্তারিত দেখা যাবে এই ঠিকানায়

ইমরান হোসেন মিলন

*

*

Related posts/