Maintance

ইন্টারনেট সেবা দেবে আরও ৫০০ আইএসপি

প্রকাশঃ ২:০৪ অপরাহ্ন, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ২:০৬ পূর্বাহ্ন, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৭

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : অনেক দেন দরবার ও আলোচনা-সমালোচনার পর শেষ পর্যন্ত লাইসেন্স পেতে যাচ্ছে পাঁচশ শতাধিত ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার বা আইএসপি।

টেলিযোগাযোগ বিভাগ দীর্ঘ দিন থেকে আটকে থাকা ৫২৪টি লাইসেন্স আবেদন অবশেষে নিষ্পত্তি করার উদ্যোগ নিয়েছে।

গত দুই বছরেরও অধিক সময় ধরে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রন কমিশনের সুপারিশের পরেও কোনো আবেদন আমলে নিচ্ছিল না টেলিযোগাযোগ বিভাগ।

BTCL_copper-cable-techshohor

এমনকি লাইসেন্সের নবায়নও বন্ধ রাখা হয়েছিল। এ কারণে ইন্টারনেট সেবা খাতে এক ধরনের অরাজক পরিস্থিতির সৃস্টি হয়েছিল বলে উদ্যোক্তাদের অভিযোগ।

সূত্র বলছে, আইএসপির নতুন লাইসেন্স ও নবায়ন ফি বাড়ানোর পরিকল্পনা ছিল সরকারের। এ কারণে নতুন লাইসেন্স প্রদানের অনুমোদন স্থগিত রাখা হয়েছিল।

তবে ফি বাড়ানোর পরিকল্পনা থেকে শেষ পর্যন্ত সরকার সরে আসায় এখন দ্রুততার সঙ্গে আবেদন নিষ্পত্তি করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, টেলিযোগাযোগ বিভাগ সব মিলে ৫২৪ নতুন লাইসেন্সের আবেদনে ইতিবাচক সাড়া দিচ্ছে। এর বাইরে নবায়নের তালিকায় আছে আরও দুইশ’। এর ফলে ইন্টারনেট সেবায় আগের চেয়ে অনেক বেশি গতি আসবে হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

টেলিযোগাযোগ বিভাগ এ দফায় সাতটি ন্যাশনওয়াইড লাইসেন্সের অনুমোদন দিয়েছে। একই সঙ্গে ১৪টি সেন্ট্রাল জোনের লাইসেন্স ছাড়াও আরও ৮১টি জোনাল লাইসেন্সের অনুমোদন দিয়েছে।

এর বাইরে এ ক্যাটাগরির লাইসেন্স ২১৬টি, ২৮টি বি ক্যাটাগরির ও ১৭৬টি সি ক্যাটাগরির লাইসেন্স দেওয়ার জন্য বিটিআরসিকে অনুমোদন দিয়েছে সরকার।

এর পরের ধাপেই আসবে দুইশ’ লাইসেন্সের নবায়ন অনুমোদনের ছাড়পত্র বলে জানিয়েছেন বিটিআরসির সংশ্লিষ্ট বিভাগের এক কর্মকর্তা।

এর আগে আইএসপির লাইসেন্স আবেদন নিষ্পত্তি না করায় বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সমালোচনা করেন।

কমিশনের চেয়ারম্যান এক অনুষ্ঠানে বলেন, বছরের পর বছর এমনভাবে আবেদন জমে থাকায় গোটা ইন্টারনেট খাতের ওপর স্থবিরতা নেমে আসছে।

বিটিআরসি’র তথ্য অনুসারে বর্তমানে, দেশে ৪৯৯টি আইএসপি লাইসেন্স রয়েছে। এর মধ্যে ১১৭টি আইএসপি সারা দেশে ব্যবসা করছে। সেন্ট্রাল জোনের লাইসেন্স আছে ৭৩টি। জোনাল লাইসেন্স আছে ৫৭টি। আর ক্যাটাগরি ‘এ’ ১৭৫টি, ক্যাটাগরি ‘বি’ ২৯টি এবং ক্যাটাগরি ‘সি’ লাইসেন্স আছে আরো ৪৮টি।

এদিকে সময়মতো লাইসেন্স ফি না দেওয়ায় এবং ব্যবসায় না থাকাসহ বিভিন্ন কারণে গত দুই বছরে বিটিআরসি কয়েকশ’ লাইসেন্স বাতিল করেছে।

*

*

Related posts/