Maintance

আনিসুল হকের মৃত্যু : ফেইসবুকে মাতম

প্রকাশঃ ১০:৪৯ পূর্বাহ্ন, ডিসেম্বর ১, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ২:৪২ অপরাহ্ন, ডিসেম্বর ১, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ফেইসবুকে এমন মাতম যে আগে চোখে পড়েনি। একজন মানুষ কতটা জনপ্রিয় হলে এমন মাতম হয়?

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যারাতে বিভাজিত ঢাকা মহানগরীর উত্তর ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের প্রথম মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যু সংবাদ দেশে পৌঁছালে মাতম শুরু হয়। ফেইসবুক যেন হয়ে ওঠে শোকগাঁথা লেখার খাতা।

আনিসুল হকের মৃত্যুর পর থেকে ফেইসবুকের টাইমলাইনের রঙ বদলাতে থাকে। শব্দ গুলো ও বদলে যায় । মৃত্যু-শোকের রঙ কালোয় বিলীন হতে থাকে ফেইসবুক আকাশী রঙ।

কে নেই সেই দলে? সাধারণ মানুষ, লেখক, কলামিস্ট, সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী, চলচ্চিত্র পাড়ার লোক সবাই সামিল এক কাতারে। সবাই বলছেন, বড় অসময়ে চলে গেলেন তিনি।

আনিসুল হক ছিলেন বাগ্মী। তার কথা লাখো মানুষ মন্ত্রমুগ্ধের মতো শুনতেন। তরুণ-যুবক সবাই তাকে অনেকেই আদর্শ মনে করতেন।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন লেখেন , সত্যি চলে গেলেন আনিসুল হক।স্বপনদ্রষ্টা আনিসুল হক তার স্বপ্ন অধরা রেখে চলে গেলেন অজানার পথে।সেই যে প্রথম যৌবনে অন্তরালে দেখতে দেখতে আমরা সব বন্ধুরা তার প্রেমে পড়ে গিয়েছিলাম। অনেক বছর পর সরাসরি দেখা, পারিবারিক আড্ডা। দেখেছি তার কর্ম দক্ষতা, কর্ম তৎপরতা। আধুনিক পরিচ্ছন্ন একটি ঢাকা গড়ার স্বপ্ন নিয়ে কাজ করছিলেন।আপনাকে বড় প্রয়োজন ছিল এ নগরীর।”

ইকবাল বাহার নামের একজন লিখেছেন, সুযোগ পেলেই বাবা মায়ের প্রতি তার আস্থা আর ভালোবাসার গল্প বলতেন। তরুণদের অনুপ্রানিত করার জন্য বলতেন তার প্রিয় মায়ের ‘ফুঁ’ ও ৩৩ নম্বর পাওয়ার গল্প। আহা কোথায় পাব তারে…আমার আইডল।

রাজনীতির মাঠে সোচ্চার থাকলেও তিনি একসময় উপস্থাপনায় জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। ৯০ দশকে বাংলাদেশ টেলিভিশনে করতেন অনুষ্ঠান উপস্থাপনা। তখন থেকে তিনি জনপ্রিয় ছিলেন চলচ্চিত্র পাড়াল লোকদের কাছেও।

ঢাকাই চলচ্চিত্রের অভিনেতা ওমর সানি লিখেছেন, জানি না দেশে এমন একজন মানুষ আবার কবে পাওয়া যাবে।দোয়া করছি,  আল্লাহ উনার আত্মার শান্তি দান করুন।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী রাবিউল ইসলাম রাতুল লিখেছেন, ভালো মানুষগুলো বুঝি আমাদের মাঝ থেকে একটু তাড়াতাড়ি-ই হারিয়ে যান! পরিচ্ছন্ন,পরিপাটি আর পরিকল্পিত ঢাকা শহরের স্বপ্নদ্রষ্টা এখন অন্য জগতের বাসিন্দা। এপারে বুক চিতিয়ে আগলে রাখা নগরবাসীর সাথে হৃদয়ের লেনা-দেনাটা বুঝি আর করা হলো না তার।ওপারে ভালো থাকবেন জনতার মেয়র, মি. জেন্টলম্যান…
বাঙালির বুকের গহীনে মেয়র আনিসুল হক, একটি নাম, একটি অধ্যায়, একটি অসমাপ্ত ইতিহাস!

সোলায়মান সুখন লিখেছেন, তিনি একজন ভালো মানুষ। শান্তিতে ঘুমান আমাদের প্রিয় মেয়র।

তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক একটি ভিডিও শেয়ার করে লিখেছেন, প্রিয় নাগরিকদের অনন্ত অপেক্ষায় রাখলেন প্রিয় মেয়র আনিসুল হক।

প্যারিস থেকে একজন লেখেন – এমন জীবন তুমি করিবে গ্রহন, মরনে হাসিবে তুমি কাদিবে ভূবন — কথাটি খুব মনে পড়ছে আনিসুল হকের অন্তিম যাত্রায় মানুষের ভালোবাসার বহি:প্রকাশ দেখে ,ঈশ্বর সত্যিই তাকে তার মুখের ভূবন ভোলানো হাসির মতোই একটি হাস্যোজ্জ্বল বর্নীল জীবন দিয়েছিলেন এবং সেই জীবনে তিনি মানুষ কে ভালোবেসে জড়াতে ও পেরেছিলেন ! বিদায় হে স্বার্থক মানব!

ফেইসবুক ছেয়ে গেছে তাঁর ছবি , ভিডিও আর শোক বার্তায় ।

আনিসুল হক ১৯৫২ সালের ২৭ অক্টোবর নোয়াখালি জেলায় জন্মগ্রহণ করেন।তিনি ২০১৫ সালে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হন।তার আগে তিনি বিজিএমই-এর সভাপতি ছিলেন, পরে এফবিসিসিআইর সভাপতি হন। পরবর্তীতে সার্ক চেম্বারের সভাপতির দায়িত্বেও ছিলেন।

এর আগে অাগস্টে লন্ডনে নিজের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে গেলে অসুস্থ হয়ে পড়েন। ১৩ আগস্ট তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।দীর্ঘদিন থেকেই তিনি হাসপাতালে ছিলেন। অবস্থার উন্নতি হলে তাকে বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়। সর্বশেষ ২৯ নভেম্বর তাকে আবার আইসিইউ-তে নেওয়া হয়।৩০ নভেম্বর বৃহস্পতিবার লন্ডনের একটি হাসপাতালেই মারা যান তিনি।

ইমরান হোসেন মিলন

*

*

Related posts/