Maintance

জাতীয় তথ্যপ্রযুক্তি দিবস ১২ ডিসেম্বর

প্রকাশঃ ১২:৫৭ অপরাহ্ন, নভেম্বর ২৭, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১০:৩৭ অপরাহ্ন, নভেম্বর ২৭, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দেশে প্রতি বছর জাতীয় তথ্যপ্রযুক্তি দিবস পালন করবে সরকার। আর এ দিবসটি হবে ১২ ডিসেম্বর।

সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে জাতীয়ভাবে এ দিবস পালনের প্রস্তাবে অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সভাপতিত্ব করেন।

২০০৮ সালের ১২ ডিসেম্বর রূপকল্প ২০২১ ঘোষণা করা হয়। যার মূল উপজীব্য ছিল ডিজিটাল বাংলাদেশ ভিশন। তাই জাতীয় তথ্যপ্রযুক্তি দিবস নির্ধারণে এ বিষয়টিকেই ভিত্তি ধরা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের জানান, প্রতি বছর ১২ ডিসেম্বর ‘জাতীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি দিবস’ হিসেবে ঘোষণা ও তা উদযাপনের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

‘দেশ এখন তথ্যপ্রযুক্তির ক্ষেত্রে অনেক অগ্রসর। আমাদের মোবাইল ও ইন্টারনেট ডেনসিটি অনেক বেশি। সারা বিশ্বের হিসেবে ব্যবহারকারীর সংখ্যায় হয়ত দেখা যাবে আমরা সাত বা আট নম্বরে থাকব। ডিজিটাল বাংলাদেশের যে কনসেপ্ট তা রাষ্ট্রীয়ভাবে গ্রহণ এবং সে অনুয়ায়ী কাজ করছি। এসব স্মরণীয় করতে এই দিবস ঘোষণা’- বলেন তিনি।

এর আগে দিবসটি ঘোষণা নিয়ে চলতি বছরের ১২ নভেম্বরে আন্ত:মন্ত্রণালয় সভা করে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ। সভায় সিদ্ধান্তের পর ২২ নভেম্বর তা অর্থ বিভাগের অনাপত্তি পায়।

সেখানে দিবসটি পালনের প্রস্তাবে বলা হয়, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির উন্নয়নে বর্তমান সরকারের অবদান প্রচারের পাশাপাশি দেশের সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে এর ব্যবহার সম্প্রসারণ সহজ হবে।

তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ২০০৮ সালের ১২ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপকল্প ঘোষণা করেন। জনগণ সে ঘোষণায় আস্থা রেখে ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগকে নির্বাচিত করার মাধ্যমে জনসেবা করার সুযোগ করে দেয়।

‘সরকার গঠনের পর কার্যক্রমের মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ আজ  দেশে-বিদেশে প্রশংসিত এবং অনুকরণীয়। দেশের মানুষ এই রূপকল্পের সুফল ভোগ করছে। ফলে এই দিবস ঘোষণা ডিজিটাল বাংলাদেশ কার্যক্রমের লক্ষ্য অর্জনে আরেকধাপ অগ্রগতি’-বলেন প্রতিমন্ত্রী।

আল-আমীন দেওয়ান

*

*

Related posts/