Maintance

১৮ অক্টোবর শুরু আইসিটি এক্সপো

প্রকাশঃ ৪:৪৭ অপরাহ্ন, অক্টোবর ১১, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৪:৪৭ অপরাহ্ন, অক্টোবর ১১, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দেশে তথ্যপ্রযুক্তির অন্যতম বড় প্রদর্শনী ‘বাংলাদেশ আইসিটি এক্সপো ’ শুরু হচ্ছে ১৮ অক্টোবর।

তিন দিনের এই প্রদর্শনী শেষ হবে ২০ অক্টোবর। বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ এবং বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির (বিসিএস) যৌথ উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হচ্ছে তৃতীয়বারের মতো এই আয়োজন।

বুধবার তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের কনফারেন্স রুমে বাংলাদেশ আইসিটি এক্সপো ২০১৭ আয়োজন নিয়ে একটি সংবাদ সম্মেরনে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, আমরা এখন আমদানীকারক দেশ থেকে তথপ্রযুক্তির রপ্তানীকারক দেশ হতে যাচ্ছি। ইতোমধ্যে দেশে টিভি, ফ্রিজ, মোবাইল ফোন কারখানা স্থাপন শুরু হয়েছে। বিভিন্ন দেশি এবং বৈশ্বিক ব্র্যান্ডগুলো কারখানা স্থাপন করতে কাজ শুরু কেরেছে। অনেকেই আগ্রহী হয়েছে।

তিনি বলেন, দেশে , কম্পিউটার, ল্যাপটপ, ট্যাব ইত্যাদি উৎপাদন/সংযোজনে ব্যবহৃত হয় এমন কাঁচামাল/যন্ত্রাংশে বিদ্যমান শুল্ক কমানোর ফলেই এমনটি সম্ভব হয়েছে। আমাদের প্রযুক্তিগত এমন উন্নয়নই তুলে ধরা হবে আইসিটি এক্সপোতে।

প্রতিমন্ত্রী এ সময় আরও বলেন, দেশীয় প্রযুক্তি পণ্যের বিশাল চাহিদা মেটাতে আর আমাদেরকে আমদানি করতে হবে না। আমরা এখন সংযোজন ও উৎপাদন শুরু করেছি। আশা রাখি, বাংলাদেশ আগামী ২/৩ বছরের মধ্যে শুধু উৎপাদনই করবে না, রপ্তানি করতেও সক্ষম হবে।

হার্ডওয়্যার খাতে বাংলাদেশের সাফল্য ও অগ্রগতি দেশে-বিদেশে ছড়িয়ে দিতে টানা তৃতীয় বারের মতো এ প্রদর্শনী আয়োজিত হতে যাচ্ছে। প্রদর্শনীতে লোকাল ম্যানুফ্যাকচারাস, আইওটি ও ক্লাউড, প্রোডাক্ট শোকেস, ইনোভেশন, মিট উইথ ইন্টারন্যাশনাল ম্যানুফ্যাকচারারস, ডিজিটাল লাইফস্টাইল, মেগা সেলস, সেমিনার, বিটুবি ম্যাচমেকিং ও হাই-টেক পার্ক– এ রকম ১০টি জোনে ভাগ করা হয়েছে। ১৩২টি প্যাভিলিয়ন ও স্টলে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রকল্প, কর্মসূচি এবং উদ্যোগগুলো উপস্থাপন করা হবে।

তাইওয়ান, মালয়েশিয়া, রাশিয়া, জাপানসহ দেশীয় ও আন্তর্জাতিক প্রায় অর্ধশত খ্যাতিমান বক্তা ও উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, তথ্যপ্রযুক্তি-ব্যক্তিত্ব এবং উৎপাদক ও উদ্যোক্তাগণও এ প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করবেন।

মেলাকালীন প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সম্পূর্ণ বিনামূল্যে প্রবেশ করা যাবে।

নিরাপত্তা নিশ্চিতে নেয়া হবে ৩ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। দর্শনার্থীদের জন্য ডিজিটাল সেবা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং গেইমিং, সেলফি, কুইজ ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতাও থাকবে।

এবারের প্রদর্শনী আয়োজনের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে পাঁচ কোটি টাকা। প্রদর্শনীর উদ্বোধন করবেন পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। প্রদর্শনী শেষ হবে অ্যাওয়ার্ড নাইটের মধ্য দিয়ে।

অনলাইন ১০ লাখ এবং অফ লাইনে তিন দিনে পাঁচ লাখ মানুষ এক্সপোটিতে যুক্ত হবেন বলে আশা করছেন আয়োজকরা। আয়োজনের বিস্তারিত জানা যাবে এই ঠিকানায়। এছাড়াও ফেইসবুক লাইভে দেখা যাবে পুরো অনুষ্ঠানটি।

বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি), তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তর, কন্ট্রোলার অব সার্টিফায়িং অথরিটিজ (সিসিএ) এ প্রদর্শনীর আয়োজনে সহযোগী রয়েছে।

এছাড়াও বেসিস, বাক্য, সিটিও ফোরাম, ই-ক্যাব, বিআইজেএফ এ প্রদর্শনীর অংশীদার হিসেবে যুক্ত আছেন।

সংবাদ সম্মেলনে আরও বক্তব্য রাখেন তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী, বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসনে আরা বেগম, বিসিএস  সভাপতি আলী আশফাক এবং এক্সপোর আহবায়ক বিসিএস মহাসচিব ইঞ্জি. সুব্রত সরকার।

ইমরান হোসেন মিলন

*

*

Related posts/