ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ তৈরিতে বিসিএসকে কাজে লাগাবেন সঞ্জয়

আল আমীন দেওয়ান : দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সবচেয়ে বড় সংগঠন বিসিএসের ২৯ মার্চের নির্বাচনকে সামনে রেখে টেকশহরডটকমের সিরিজ প্রতিবেদনের সঙ্গে থাকছে বর্তমান ও সাবেক নেতা, প্রার্থী ও ভোটারদের সঙ্গে আলাপচারিতা।

নির্বাচনকে ঘিরে অন্য যে কোনো সময়ের চেয়ে বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির (বিসিএস) সদস্যরা এখন বেশ আলোচনায় আছেন। ভোটের প্রচারণায় ব্যস্ত প্রার্থীরা ভোটার-সদস্যদের সঙ্গে সংগঠনের অতীত, বর্তমান, ভবিষ্যতের বিষয়-আশয় নিয়ে আলাপচারিতায় ব্যস্ত।

নির্বাচনের এ ডামাডোলের মধ্যে টেকশহরডটকমও তথ্যপ্রযুক্তি খাতের বৃহত্তম এ সংগঠনের বর্তমান হালচাল, প্রার্থীদের প্রতিশ্রুতি, ভোটারদের চাওয়া পাওয়ার বিষয়ে জানতে কথা বলেছে অনেকের সঙ্গে। এ প্রতিবেদনে থাকছে বিবিঅ্যান্ডবি প্যানেলের প্রধান সঞ্জয় কুমার সাহার সঙ্গে আলাপচারিতার চুম্বক অংশ।

sanjoy_techshohor

এবারের নির্বাচনে রাজধানীর বাইরের ব্যবসায়ীদের একমাত্র প্রতিনিধি সঞ্জয় কুমার সাহা। যশোরের জেএএএন কম্পিউটার্সের স্বত্ত্বাধিকারী এ সংগঠক পদার্থ বিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর ডিগ্রীধারী এ ব্যবসায়ী বিসিএস নিয়ে তার ভাবনা ও প্রতিশ্রুতির কথা বলেছেন টেকশহরডটকমকে।

সঞ্জয়ের প্রধান নির্বাচনী অঙ্গীকারের মধ্যে রয়েছে ঢাকার বাইরের ব্যবসায়ীরা পাশে বিসিএসকে দাঁড় করানো। যাতে তারা যে কোনো সমস্যায় বিসিএসকে পাশে পান। নির্বাচিত হলে সে পদক্ষেপ নেবেন জানিয়ে তিনি বলেন, আঞ্চলিক কমিটিগুলোর দিকে কেন্দ্রের নজর বাড়ানোর উদ্যোগ নেব। অতীতে শুধু আঞ্চলিক কমিটি করেই বিসিএস দায়িত্ব শেষে করত। আমি এ কমিটিগুলোকে অ্যাকটিভ করার চেষ্টা করব।

ঢাকার বাইরের এ সংগঠক বিভাগীয় শহরগুলোতে ও মফস্বল এলাকায় কিভাবে ভাল ব্যবসার ক্ষেত্র তৈরি করতে নতুন কমিটি যাতে কাজ করে সেজন্য কাজ করার কথা জানান।

যশোরের এ সংগঠক বলেন, “আমি মনে করি ব্যবসায়ীদের উন্নয়নের জন্য বিসিএস। তাই সব পরিস্থিতিতে সাধারণ সদস্যদের পাশে সমিতি থাকবে এটাই সকলের প্রত্যাশা। ব্যবসা না থাকলে সাধারণ সদস্যরা হারিয়ে যাবে। আমার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ হবে ব্যবসার নিরাপদ পরিবেশ তৈরি করা।”

সঞ্জয়ের মতে দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সংগঠনটি বর্তমানে একটি ক্রান্তিলগ্ন পার করছে। এ থেকে উত্তরণ ঘটাতে হবে। তিনি বলেন, “আমি দৃঢ় প্রত্যয়ী মানুষ। নিজেকে বিকিয়ে দেব না। কমিটির কেউ খারাপ কিছু করলে প্রয়োজনে একা প্রতিবাদ করব। সাধারণ সদস্যদের নিয়ে প্রতিবাদ করব। আমাদের প্রাণের সংগঠনকে এভাবে হারিয়ে যেতে দিতে পারিনা। আর এ তাগিদেই নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি আমি।”

ওয়ারেন্টি পলিসি নিয়ে সর্বজন গ্রহণযোগ্য কাজ করার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন জেএএএন কম্পিউটার্সের স্বত্বাধিকারী। এ নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে সমস্যায় আছেন ব্যবসায়ীরা। এখন কেউ ওয়ারেন্টি দিচ্ছেন তিন বছর, আবার কেউ এক বছর। এ নিয়ে হযবরল অবস্থা চলছে। এ অবস্থা থেকে মুক্তির সব উদ্যোগ নেওয়ার কথা জানান তিনি।

BCS Election-TechShohor

এ খাতের সূদূরপ্রসারী উন্নয়নে যুতসই নীতিমালা তৈরি করবেন জানিয়ে সঞ্জয় বলেন, প্রযুক্তিপণ্যের আমদানি ও বিক্রির ক্ষেত্রে ভ্যাট-ট্যাক্সের বিষয়ের অনেক সমস্যার এখনও সমাধান হয়নি। অনেক পণ্য নিয়ে ঝামেলা রয়েছে। এসব মেটানোর উদ্যোগ নিতে কাজ করবেন উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, এ খাতের আমদানিকারক, ডিস্ট্রিবিউটর ও রিসেলারসহ সব শ্রেণী ব্যবসায়ীদের মধ্যে সমন্বয় আনতে হবে। এটা ছাড়া বাজার অস্থিতিশীল থাকবেই।

তরুন এ সংগঠক বলেন, একটা ঐক্যের প্লাটফর্ম গঠন করতে কাজ করতে হবে। সদস্যদের কল্যাণ্যে বিসিএস কিভাবে সরাসরি সক্রিয়ভাবে সম্পৃক্ত হতে পারে সে বিষয়ে কাজ করার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

সঞ্জয় বলেন, সামনের দিনে নেতৃত্বে নতুন, পুরাতন ও অভিজ্ঞ এ তিনের সমন্বয় ছাড়া সংগঠনকে এগিয়ে নেয়া মুশকিল হবে। তাই ভোটারদের তাদের প্রিয় সংগঠনের কথা ভেবে তাদের মূল্যবান ভোট দেয়ার আহবান জানান তিনি।

Related posts

*

*

Top