Maintance

ইনস্টাগ্রামে ছবি দিয়ে আয়

প্রকাশঃ ৯:০০ অপরাহ্ন, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৪:০০ অপরাহ্ন, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ফটো শেয়ারিং অ্যাপ ইনস্টাগ্রামকেই এখন অনলাইন বিজনেসের প্ল্যাটফর্ম হিসেবে বেছে নিয়েছেন তরুণ উদ্যোক্তারা।  ইনস্টাগ্রাম স্টোরিজ, উন্নত ফটো ফিল্টার ও ২৪ ঘণ্টার মধ্যে শর্ট ভিডিও ডিলিট হওয়ার ফিচারগুলো অ্যাপটিকে ব্যবসার জন্য উপযুক্ত ক্ষেত্র হিসেবে প্রস্তুত করেছে।

২০১২ সালে যখন ফেইসবুকে এক বিলিয়ন ডলার দিয়ে ইনস্টাগ্রামকে কিনেছিলো তখন অনেকেই সংশয় প্রকাশ করে বলেছিলেন, ১৮ মাস বয়সী এই অ্যাপ কিনতে এতো খরচ!

কিন্তু ফেইসবুক যে হিসাব নিকাশ করেই অ্যাপটি কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলো সে বিষয়ে এখন প্রায় সবাই একমত। বিশ্বজুড়ে এখন সেই ইনস্টাগ্রাম ব্যবহারকারীর সংখ্যা এখন ৭০ কোটি।

ছোট ছোট প্রতিষ্ঠানের জন্য এখন ইনস্টাগ্রামে ছবি পোস্ট করাই যে যথেষ্ট তা ফ্যাশন স্টাইলিস্ট ডোনা ম্যাকুলচের কথাতেই প্রমাণিত। তিনি বলেন, এখন আর কেউ বিজনেস কার্ড চায় না। সবাই ইনস্টাগ্রামের আইডি চায়।

ইয়োগা প্রশিক্ষক ক্যাট মিফান বলেছেন, মানুষকে ইয়োগা সম্পর্কে আগ্রহী করে তোলার পাশাপাশি তিনি ইয়োগার সরঞ্জামও বিক্রি করেছেন ইনস্টাগ্রামে। বিশ্বজুড়ে তার ফলোয়ার সংখ্যা ৭৭ হাজার।

তবে তিনি শুধু পণ্যের ছবি পোস্ট করেই কাজ ক্ষান্ত দেন না, ক্যাপশন লেখেন সময় নিয়ে। মাঝেমধ্যে ছবি তোলার চেয়েও বেশি সময় ব্যয় করেন ক্যাপশন লিখতে।

brand-promotion-techshohor

ডোনা ও ক্যাট দুজনের মতেই, ব্যবহারকারীদের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য ইনস্টাগ্রামের হ্যাশট্যাগ খুব শক্তিশালী একটি মাধ্যম।

শুধু বিজনেস নয় ফটোগ্রাফারদের জন্যও ইনস্টাগ্রাম একটি আশীর্বাদ। ফটোগ্রাফার ড্যানি কয়ের রয়েছে ১ লাখ ৭৩ হাজার ফলোয়ার। বর্তমানে তিনি এখন  ইনস্টাগ্রাম কনসালটেন্ট হিসেবেও কাজ করছেন।

গ্রাহক সংখ্যা বাড়াতে অনেক কোম্পানিই ড্যানিকে দিয়ে নিজেদের পণ্যের ছবি তোলায়। ফটো শেয়ারিং এই প্লাটফর্মে নিজেদের ব্র্যান্ডের প্রচারণা বাড়ানোই তাদের মূল উদ্দেশ্য।

ইউরোপ, মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকায় কয়েকটি ফার্ম রয়েছে ব্যবসায়ী জেন রোনানের। তিনি বলেছেন, ব্যবহারকারীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাইলে তার যথাযোগ্য উপস্থাপন খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

ইনস্টাগ্রামে যাদের প্রচুর ফলোয়ার আছে বড় বড় কিছু ব্র্যান্ড তাদেরকে পণ্য বিপণনের দায়িত্ব দিয়ে থাকে।  টাকার বিনিময়ে জনপ্রিয় ইনস্টাগ্রামাররাও ব্র্যান্ডের পোশাক, প্রসাধনী কিংবা প্যাকেটজাত খাবারের ছবি নিজেদের অ্যাকাউন্টে পোস্ট করে থাকেন।

কোনো ব্র্যান্ডকে প্রোমোট করার জন্য কি পরিমাণ অর্থ দেওয়া হবে তা নির্ধারণের কোনো মানদণ্ড নেই।  ফলোয়ারের সংখ্যার ওপর ভিত্তি করেই আলোচনার মাধ্যমে ব্র্যান্ড ও ইনস্টাগ্রামারদের মধ্যে লেনদেনের বিষয়টি নির্ধারিত হয়ে থাকে।

বিবিসি অবলম্বনে আনিকা জীনাত

*

*

Related posts/