Maintance

আইফোন ১০ এর পাঁচ বিকল্প

প্রকাশঃ ৭:৩৫ অপরাহ্ন, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৭:৫২ অপরাহ্ন, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৭

টেক শহর কন্টেন্ট কাউন্সিলর : সম্প্রতি অ্যাপল তাদের সবচেয়ে ফিচারবহুল ও মূল্যবান আইফোন ১০ এর ঘোষণা দিয়েছে। বাজারে আসার আগেই ফোনটি নিয়ে নানা তুলনা চলছে।

ফোনটির বেজেলবিহীন ডিসপ্লে, ফেইস আইডি ও অগমেন্টেড রিয়েলিটি সমৃদ্ধ ডুয়াল ক্যামেরা সবার মাঝেই আলোড়ন সৃষ্টি করলেও ফিচারগুলো আর কোনো ডিভাইসেই কি নেই? চলুন দেখা যাক।

স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট ৮ অথবা এস ৮/৮+

অ্যাপলের সেরা ফোনের তুলনা একমাত্র অ্যান্ড্রয়েডের সেরার সঙ্গেই হতে পারে। এ বছরের সেরা অ্যান্ড্রয়েডের খেতাব স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৮+ এবং নোট ৮-ই ধরে রেখেছে।

প্রায় বেজেলবিহীন ডিসপ্লে, আইফোন ১০ এর মতো ডুয়াল ক্যামেরা, শুধু ফেইসআইডির স্থলে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর ও আইরিস স্ক্যানার ও উপরি হিসেবে এস-পেন সমৃদ্ধ গ্যালাক্সি নোট ৮ একেবারে একের মধ্যে সব ঘরানার ডিভাইস।

দামের দিক থেকেও ফোনটি আইফোন ১০ এর চেয়ে কিছুটা কম, বিশেষত বিক্রি শুরু হবার পর আইফোন ১০ এর চাইতে বেশ কম মূল্যেই পাওয়া যাবে এটি।

বোনাস হিসেবে রয়েছে সুবিশাল ডিসপ্লে। যার কোথাও কোনো বাদ পড়া অংশ নেই। বরং রয়েছে মাইক্রো এসডি কার্ড ব্যবহারের সুবিধা ও হেডফোন জ্যাক। যারা ডুয়াল ক্যামেরা ও এস-পেন ছাড়া বাকি সকল ফিচারেই সন্তুষ্ট তারা গ্যালাক্সি এস ৮+ কিনে আরও কিছুটা টাকা বাঁচাতে পারেন।

এসেনশিয়াল ফোন

যদিও ফোনটি বাজারে এখনো তেমন প্রচলিত নয়, তবে অসাধারণ ডিজাইনের কল্যাণে প্রায় সকল টপ চার্টেই এসেনশিাল পিএইচ-১ ফোনটি নিজের জায়গা করে নিয়েছে।

সিরামিক বডি, টাইটেনিয়াম ফ্রেম, বেজেলবিহীন ডিসপ্লে ও একদম নিখাদ অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমে চালিত ফোনটির ডিজাইনের সঙ্গে আইফোন ৮ এর বেশ মিল রয়েছে। তবে ক্যামেরার মান নিয়ে বিতর্ক, পানি নিরোধক না হওয়া, হেডফোন জ্যাকের অনুপস্থিতি ও স্যামসাংয়ের মত ফিচারবহুল না হবার ফলে ফোনটি নিয়ে ব্যবহারকারীদের মধ্যে রয়েছে বেশ বিতর্ক।

তবে আইফোনের বদলে এটি কেনার কারণ অবশ্য পুরোটাই ভিন্ন। যারা আইফোন কেনার কথা ভাবছেন তাদের পছন্দ শুরু থেকেই খুব সরল ডিজাইন, ফোনের গড়নে আর সবার থেকে আলাদা ভাব ও ব্যবহারের সময় কম ঝামেলা-সেদিক থেকে এসেনশিাল পিএইচ ওয়ান আইফোনের একেবারে আদর্শ বিকল্প।

নোকিয়া ৮

ক্যামেরামুখী ফোন নোকিয়া ৮ এই লিস্টে থাকার কথা না থাকলেও এটির সাদামাটা ডিজাইন, খুবই ভালো ক্যামেরা, আস্থা রাখার মত পারফরমেন্স ও বেশ কয়টি রঙ ও ফিনিশ ছাড়াও এটির খুবই হালকা সফটওয়্যার ও দ্রুত আপডেটের নিশ্চয়তা আইফোনের যোগ্য প্রতিদ্বন্দ্বী করে তুলেছে।

মূল্যের বিচারেও নোকিয়া ৮ অনেক সাশ্রয়ী। মূলত যারা আইফোন ১০ কেনার কথা ভাবছেন মূলত সেটির অসাধারণ ক্যামেরার কথা চিন্তা করে, তারা কিছু টাকা বাঁচিয়ে তার সমতূল্য ক্যামেরা পেতে পারেন নোকিয়া ৮ ফোনেও।

তবে আইফোন ১০ এর মত অসাধারণ ডিজাইন নোকিয়া ৮ এর নেই। সেদিক থেকে বলা যেতে পারে, নোকিয়া ৮ ঠিক আইফোন ১০ এর প্রতিদ্বন্দ্বী নয় বড় আইফোন ৮+ এর সঙ্গে এর তুলনা করা যেতে পারে। সেদিক থেকে চিন্তা করলেও নোকিয়া ৮ অনেক কম মূল্যে সমমানের ক্যামেরা দিতে পারছে, যা ফেলনা নয়।

নতুন পিক্সেল এক্সএল ২   

গুগল পিক্সেল সিরিজের ফোন ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই সবার কাছে পরিষ্কার হয়ে যায়, আইফোনের সঙ্গে সত্যিকারের প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারে ডিভাইসটি। পিক্সেল এক্সএল শুরু থেকেই বাজারের সেরা ক্যামেরার খেতাবটি ধরে রেখেছে; সঙ্গে রয়েছে সরাসরি গুগলের থেকে আসা সফটওয়্যার ও আপডেট।

অক্টোবরের ৪ তারিখে পিক্সেলের পরবর্তী সংস্করণে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা করা হবে, যদিও তা বেশকিছু দিন পরে। কিন্তু মনে রাখতে হবে আইফোন ১০ বাজারে আসছে নভেম্বরের শেষে অর্থাৎ কেনার সময় দুটি ফোনই বাজারে পাওয়া যাবে।

মূল্যের বিচারে পিক্সেল এগিয়ে থাকবে সন্দেহ নেই; ক্যামেরা ও অন্যান্য ফিচারেও আইফোন ১০কে টেক্কা দিতে পারে ফোনটি। তবে ধরে নেয়া যেতে পারে বেজেলহীন ডিসপ্লে অন্তত পিক্সেলে থাকছে না। অন্যদিক থেকে শুধুমাত্র চেহারার ওপর নির্ভর না করে পিক্সেল অন্যান্য ফ্ল্যাগশিপের মতো আঙুলের ছাপেও আনলক করা যাবে।   

এলজি ভি৩০

লিস্টের এই ফোনটি ঠিক আইফোন ব্যবহারকারীদের জন্য তৈরি নয়, বরং যারা আইফোন ১০ এর ফিচারের অভাবে হতাশ তাদের জন্য তৈরি।

এতে নেই বেজেলহীন ডিসপ্লে, নেই অগমেন্টেড রিয়েলিটি, তবে রয়েছে এ বছরের সেরা ভিডিও ধারণের ক্যামেরা ও সঙ্গীত প্রেমীদের জন্য কোয়াড ড্যাক চালিত হেডফোন জ্যাক।

হাই ডাইনামিক রেঞ্জ ওলেড ডিসপ্লে সমৃদ্ধ এলজি ভি৩০ তৈরি করা হয়েছে সর্বোচ্চ মানের ভিডিও দেখতে, সর্বোচ্চমানের সঙ্গীত শুনতে ও ডিএসএলআর মানের ছবি ও ভিডিও ধারণ করতে। যারা ফোনের স্থলে মাল্টিমিডিয়া পাওয়ার হাউজ কেনার কথা ভাবছেন, এলজি ভি৩০ তাদের জন্য আদর্শ ফোন।

প্রথমবারের মত সকল রিভিউআরদের মন্তব্য এই যে, হাই-ফাই অডিও, আল্ট্রা হাই ডেফিনেশন ভিডিও ও সিনেমা মানের ক্যামেরা সমৃদ্ধ ফোন এটিই প্রথম। তবে এলজির ইন্টারফেস অনেকের পছন্দ নাও হতে পারে, তবে মূল্যে তা পুষিয়ে যাবে। কেননা এটির মূল্য আইফোন ৮ এর চাইতেও কম।

শাওমি এমআই মিক্স ২ ও ওয়ান প্লাস ৫

চীনা নির্মাতাদের ফোন সাধারণত তালিকায় রাখা হয় না। কারণ টার্গেট ক্রেতা ভিন্ন। তবে এ দুটি ফোন তালিকায় এসেছে দুটি ভিন্ন কারণে। প্রথমত, যারা বেজেলহীন ফোন কিনতে চান তাদের জন্য এমআই মিক্স ২ ফোনটি আইফোন ১০ এর চাইতেও দৃষ্টিনন্দন হতে পারে।

কেননা এটির ডিসপ্লের ওপরে নেই কোনো কাটা অংশ। এমআই ইউআই ইন্টারফেসটির সঙ্গেও আইওএস এর বেশ মিল রয়েছে, রয়েছে সিরামিক ও অ্যালুমিনিয়াম বডি যা সবারই দৃষ্টি কাড়বে।

ওয়ানপ্লাস ৫ ফোনটির খুবই হালকা অপারেটিং সিস্টেম আইফোনের ঝুট-ঝামেলাহীন ব্যবহার অভিজ্ঞতা অনেককে কাছে টানবে। যারা বাজেটের কারণে আইফোন ১০ বাদ দিয়ে পুরাতন মডেল কেনার কথা ভাবছেন, তারা অবশ্যই ওয়ানপ্লাস ৫ এর কথা বিবেচনা করবেন।

তবে সব শেষে বলা যেতে পারে, সবদিক থেকে আইফোন ১০কে পুরোপুরি টেক্কা দেয়া ফোন বাজারে এখনও অভাব রয়েছে। কিন্তু বেশিরভাগ ব্যবহারকারীই তাদের প্রিয় ফিচারগুলো সহজেই অন্য ডিভাইসে পেতে পারেন।

এস এম তাহমিদ

*

*

Related posts/