Maintance

গেইম আফটারপালস, যুদ্ধ জয়েই আনন্দ

প্রকাশঃ ৩:৫৫ অপরাহ্ন, সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ২:২৯ অপরাহ্ন, সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : এখনকার ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন ও ট্যাবলেটের চিপসেট কম্পিউটার বা কনসোলের মতো গ্রাফিক্সের গেইম চালাতে সক্ষম।

তবে বেশীরভাগ নির্মাতারাই মাঝারি মূল্যের ডিভাইসের কথা চিন্তা করে গেইম তৈরি করে।  ফলে সর্বোচ্চ গ্রাফিক্সের গেইম সাধারণত তৈরি করা হয় না।

সেই হিসেব পাল্টে দিতেই নির্মাতা প্রতিষ্ঠান গেইমভিল ‘আফটারপালস’ গেইমটি তৈরি করেছে। থার্ড পারসন শুটার এই গেইমটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ‘নেক্সট জেনারেশন’ মোবাইল গ্রাফিক্স।

গেইমটির সিঙ্গল প্লেয়ার ক্যাম্পেইন একেবারেই নেই। কাহিনী বলতে বলা হয়েছে একটি ‘পালস’ এর পর পৃথিবীর সকল দেশ প্রধানেরা নিজেদের রক্ষার জন্য সেনাবাহিনীর উন্নতির জন্য আরও গবেষণায় জোর দেন। ফলে প্রতিটি বাহিনীই হয়ে ওঠে অপ্রতিরুদ্ধ।

গেইমারকেও এমনই একজন যোদ্ধার ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে হবে। তবে যোদ্ধার প্রতিটি অংশ গেইমার নিজেই নির্বাচন করতে পারবেন।

অর্থাৎ গেইমের মাঝে নিজেকে তৈরির সুযোগ রয়েছে। চরিত্র তৈরির পর নেমে পড়তে হবে মাল্টিপ্লেয়ার ডেথম্যাচের যে কোনো একটি ক্যাম্পে।

ধৈর্য্য, দ্রুততার সঙ্গে শত্রু দমনের স্কিল ও টিমওয়ার্কের মাধ্যমে সবাইকে পরাস্ত করে ম্যাচ জিতে পাওয়া যাবে ক্রেডিট ও এক্সপেরিয়েন্স, যা ব্যাবহার করে নতুন ম্যাপ, বন্দুক ও ইকুইপমেন্ট আনলক করা যাবে।

গেইমপ্লে ও গ্রাফিক্সে এগিয়ে থাকলেও গেইমটির মূল সমস্যা সিঙ্গেল প্লেয়ার একেবারেই না থাকা। ফলে গেইমটি খেলতে সবসময়ই ভালো স্পিডের ইন্টারনেট প্রয়োজন হবে।

তবে গেইমটি পাওয়া যাবে বিনামূল্যে, ভালো স্পেসিফিকেশনের অন্তত ২০১৫ সালের সকল ফোনেই এটি সুন্দরভাবে চলবে।

এস এম তাহমিদ

*

*

Related posts/