ওয়াই-ফাইয়ের চেয়ে দ্রুতগতির লাই-ফাই আসছে

টেক শহর ডেস্ক : ওয়াই-ফাই এর দিন বুঝি এই শেষ হচ্ছে। কেননা এবার আসছে লাই-ফাই। বৈদ্যুতিক বাতির আলোক তরঙ্গ ব্যবহার করে ইন্টারনেট সংযোগ দেওয়ার পদ্ধতি উদ্ভাবন এখন সময়ের ব্যাপার বলে দাবি চীনা বিজ্ঞানীদের।

আরও দ্রুত গতির ইন্টারনেট সংযোগের জন্য এলইডি বাতি ব্যবহার করে তথ্য স্থানান্তরের চেষ্টায় সফল হওয়ার পথে রয়েছেন তারা বলে জানান ওই বিজ্ঞানীরা। যদিও এ পদ্ধতি নিয়ে গত দুই বছর ধরে আলোচনা রয়েছে। গবেষকরা এ প্রযুক্তির নাম দিয়েছেন ‘লাই-ফাই’ (লাইট ফিডেলিটি)।

এ পদ্ধতিতে এলইডি ব্যবহার করে ডিজিটাল তথ্যের সংকেত পাঠানো হয়। একটি লাইট সেন্সর এলইডি থেকে পাঠানো তথ্য শনাক্ত করতে পারে, যা পরে কম্পিউটারে প্রসেসিং করা সম্ভব হয়।

বর্তমানে রেডিও ওয়েভের মাধ্যমে ডেটা স্থানান্তর করা হয়ে থাকে। নতুন এ পদ্ধতিতে রেডিও ওয়েভের বদলে আলোকে মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করে ইন্টারনেট সংযোগ দেওয়া হবে। বিদ্যমান ওয়াই-ফাইয়ের তুলনায় এর গতি ১০ গুণ বেশি হবে বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। রেডিও ওয়েভের মতো আলোও ইলেকট্রোম্যাগনেটিক ওয়েভ, যার কম্পাঙ্ক রেডিও স্পেকট্রামের চেয়ে এক লাখ গুণ বেশি।

lifi, internet, techshohor
রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম সিনহুয়াকে উদ্ধৃত করে বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মাইক্রোচিপযুক্ত একটি লাইট এমিটিং ডায়োড (এলইডি) বাতি প্রতি সেকেন্ডে ১৫০ মেগাবাইট (এমবিপিএস) গতির ডেটা স্থানান্তর করতে পারে। সাংহাইয়ের ফুডান বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্যপ্রযুক্তি অধ্যাপক চিং নান বলেন, তথ্য স্থানান্তরের ক্ষেত্রে তারা এ সুযোগই নেওয়ার চেষ্টা করছেন। এক ওয়াটের একটি বাতি কাজে লাগিয়ে চারটি কম্পিউটারে ইন্টারনেট সংযোগ চালু রাখা সম্ভব। দ্রুত গতির পাশাপাশি এটি ব্রডব্যান্ড কিংবা ওয়াই-ফাই সংযোগের চেয়ে অনেক সস্লা হবে।

তবে বিশেষজ্ঞরা এ উদ্ভাবনের বিষয়ে কিছুটা সংশয় প্রকাশ করে বলেছেন, এর স্বপক্ষে এখন পর্যন্ত কোনো প্রমাণ তারা দেখাতে পারেনি। এ প্রযুক্তি যে কার্যকর তা কোনো ভিডিও কিংবা ছবিতে প্রমাণ করা যায়নি। নভেম্বর মাস নাগাদ চীনের শিল্প মেলায় ‘লাই-ফাই’ প্রযু্ক্তির পরীক্ষামূলক প্রদর্শন করতে পারে চীনা বিজ্ঞানীরা বলে প্রতিবেদনে উলেল্গখ করা হয়েছে।

এর আগে এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হ্যারল্ড হ্যাস, এলইডি ব্যবহার করে কম্পিউটারে ভিডিও পাঠানোর কথা জানিয়েছিলেন। তিনি এ প্রযুক্তির বিকাশে একটি কোম্পানিও প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।

গবেষকেরা জানিয়েছেন, লাই-ফাই ব্যবহার করে হাই-ডেফিনেশন মানের চলচ্চিত্রও এক মিনিটেই ডাউনলোড করা সম্ভব। আর বাড়ির প্রতিটি বৈদ্যুতিক বাতিকে লাই-ফাই প্রযুক্তির রাউটার হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে, যা স্মার্টফোন ও ট্যাবলেটে তারবিহীন প্রযুক্তির ইন্টারনেট হিসেবে কাজ করতে পারে। তবে লাই-ফাই প্রযুক্তির সবচেয়ে বড় সীমাবদ্ধতা হচ্ছে, কম্পিউটার বা মোবাইল ডিভাইসের রিসিভারটি থাকতে হবে ডেট্রা ট্রান্সফার করা এলইডি বাল্ববের আলোর সীমানার মধ্যে।

বিবিসি ও ম্যাশেবল প্রতিবেদন থেকে আমিন রানা

Related posts

*

*

Top