Maintance

চলনবিল হবে তথ্যপ্রযুক্তি কেন্দ্রীক অর্থনৈতিক অঞ্চল : পলক

প্রকাশঃ ৪:৩২ অপরাহ্ন, জুলাই ২২, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১২:২৬ অপরাহ্ন, জুলাই ২৩, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন একই সঙ্গে নাটোরের চলনবিল কেন্দ্রীক ‘ডিজিটাল ইকোনোমিক্যাল হাব’ হিসেবে গড়ে তোলার কথা বলেছেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

প্রত্যন্ত এই বিলাঞ্চলকে তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল হিসেবে গড়ে তুলতে ইতোমধ্যে বেশকিছু পদক্ষেপ নেওয়ার কথা জানিয়েছেন তিনি।

পলক বলেন, এরই মধ্যে সিংড়ায় ১৫৪ কোটি টাকা ব্যয়ে হাইটেক পার্ক, ৩৭ কোটি টাকা ব্যয়ে ইনকিউবেশন সেন্টার, ৩২ কোটি টাকা ব্যয়ে টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। এই কাজ সম্পন্ন হলে এলাকার অর্থনীতির চেহারা বদলে যাবে।

শনিবার নাটোরের সিংড়ায় সরকারের লিভারেজিং আইসিটি ফর গ্রোথ, এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড গভর্ন্যান্স (এলআইসিটি) আয়োজিত ‘আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্পের’ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের বক্তব্যে এসব কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী।

LICT_PALAK@_TECHSHOHOR

তিনি বলেন, ১১ কোটি তরুণ যদি তথ্য প্রযুক্তিতে এগিয়ে আসে বাংলাদেশ ও এগিয়ে যাবে। ২২৩ কোটি টাকা ব্যয়ে সিংড়া তথা চলনবিল কেন্দ্রীক ডিজিটাল ইকোনমিক্যাল হাব বা আধুনিক অর্থনৈতিক এলাকা গঠিত হলে ২০ হাজার তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থান হবে। এ জন্য প্রযুক্তিতে শিক্ষার্থীদের দক্ষ হতে হবে। তরুণদের শত্রু হচ্ছে মাদক ও জঙ্গিবাদ। এটা থেকে দূরে থাকতে হবে। চলনবিল তথ্য প্রযুক্তির মিনি সিঙ্গাপুর রূপান্তরিত করতে শেখ হাসিনা সরকার কাজ করে যাচ্ছে।

ইতোমধ্যে দেশে পাঁচ হাজার ২২৭ ডিজিটাল সেন্টারের মাধ্যমে লাখ লাখ মানুষকে সেবা দেয়া হচ্ছে। এতে করে মানুষ আর দুর্নীতি, হয়রানী ও অর্থ অপচয়ের শিকার হচ্ছেন না বলে জানান তিনি।

ই-গভর্নেন্স প্রতিষ্ঠার পর মানুষকে আর শহরে যেতে হয় না। আর কাউকে প্রতারণা ও হয়রানীর শিকার হতে হয় না।
লিভারেজিং আইসিটি ফর গ্রোথ গভর্নেন্স ( এলআইসিটি) প্রকল্প আয়োজিত আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্পে ১৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এক হাজার ৮৩০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের (বিসিসি) সাবেক নির্বাহী পরিচালক এস এম আশরাফুল ইসলাম, বাক্য সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ হোসেন, উইমেন ইন ডিজিটালের প্রতিষ্ঠাতা আছিয়া খালেদা নীলা, এলআইসিটি প্রকল্পের কম্পোনেন্ট টিম লিডার সামি আহমেদসহ আরও অনেকেই।

ইমরান হোসেন মিলন

*

*

Related posts/