Maintance

যৌন হয়রানি : ৬ নারী উদ্যোক্তার বয়ান

প্রকাশঃ ৪:০৯ অপরাহ্ন, জুলাই ১৬, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১২:০৪ অপরাহ্ন, জুলাই ১৭, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : যৌন হয়রানির শিকার হওয়ার পর অবশেষে মুখ খুলেছেন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের ছয় নারী।

নিজেদের উদ্যোগকে প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে ভেঞ্চার ক্যাপিটাল প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের কাছে দ্বারস্থ হয়ে যৌন হেনস্তার শিকার হয়েছেন এসব নারীরা। ওই ছয় নারী প্রযুক্তিগত উদ্যোগের কেউবা প্রধান নির্বাহী আবার কেউ সহ-প্রতিষ্ঠাতা।

২০২১ সালে ডটকম ক্র্যাশ উদ্যোগ নেন সিসিলিয়া প্যাজক্যালিনিওয়ান। সেসময় ২৬ কর্মীকে নিয়ে শুরু করা এমন একটি উদ্যোগকে আরও এগিয়ে নিতে তিনি নিউ ইয়র্কের এক ভেঞ্চার ক্যাপিটালের স্মরণাপন্ন হন।

সিসিলিয়া জানান, সেই ভিসির কর্মকর্তা তাকে একটি খুবই আলিশান হোটেলে ডাকেন। অর্ডার করে পাঁচ হাজার ডলারের ওয়াইন। কিন্তু যখন ওই কর্মকর্তাকে সিসিলিয়া জানান যে তিনি এসব পান করেন না। তখন ওই কর্মকর্তা একা ওয়াইন পান করতে থাকেন। এমনকি তিনি কয় বোতল ওয়াইন পান করেন তারও কোনো হিসাব ছিলো না।

Harrasment-Techshohor

সিসিলিয়া বলেন, আমার আশা ছিল আমি ভিসি থেকে বিনিয়োগ পাবো।

কিন্তু একটা পর্যায়ে ওই কর্মকর্তা নিজের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন এবং জোর করে সিসিলিয়াকে চুমু খেতে থাকেন। একটা পর্যায়ে সিসিলিয়া বমি করতে থাকেন এবং তার বন্ধুকে সেখানে ডেকে হোটেলটি ত্যাগ করেন।

সিসিলিয়ার এই ঘটনা অনেক পুরাতন। এক যুগের বেশি সময় আগের। কিন্তু দিন বদলালেও এমন ঘটনা প্রযুক্তি স্টার্টআপ এবং বড় বড় প্রযুক্তি জায়ান্টে এখনও অহরহ দেখা যাচ্ছে।

এমনই ছয় নারীর যৌন হয়রানির বয়ান তুলে এনেছে সংবাদ মাধ্যম সিএনএন। সিএনএনকে ওই নারীরা তাদের এমন তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা জানিয়েছেন।

সিসিলিয়ার মতোই উদ্যোক্তা বিয়া আর্থুর, সিওয়ার্কস এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা লিসা ওয়াং, ট্রাভেল স্টার্টআপ জার্নির সহ-প্রতিষ্ঠাতা সুসান হো এবং লিটি হুসু, নারীদের গুরুত্ব দিয়ে তৈরি ব্রাভা ইনভেস্টমেন্টের সহ-প্রতিষ্ঠাতা নাথালি মলিনা নিনো তাদের এমন যৌন হয়রানির কথা জানিয়েছেন।

তবে এই ছয় জনের কেউই যাদের দ্বারা এমন হেনস্তার শিকার হয়েছেন তাদের নাম পরিচয় দিতে চাননি। আবার সেসব ‘পুরুষদের’ বিরুদ্ধে এখন এমন কোনো কিছু উপস্থাপন করে সেসব হয়রানির প্রমাণ দেওয়া সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন ওই নারীরা।

সুসান হো এমন হয়রানির শিকার হওয়ার পরে অবশ্য সেটি সামাজিক মাধ্যমে লিখেছিলেন। তবে অল্প সময়ের মধ্যেই তিনি হত্যার হুমকীও পেয়েছেন।

তবে এই হয়রানির শিকার হওয়া নারীরা বলেছেন, এটা এমন একটা অবসব্থায় চলে গেছে মনেই হয় ভিসি পেতে গেলে এমন হয়রানি খুব স্বাভাবিক। এটা প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোতে অহরহ হচ্ছে এবং অনেকেই এ নিয়ে কোনো কথা বলছেন না।

এমন ‘পুরুষরা’ কখনোই ভাবেন না যে, আমরা মানুষ। আমরা তাদের চোখে আঙুল দিয়ে জানতে চাই, আপনার বোন বা স্ত্রী যদি আপনার কাছে এমন বিনিয়োগ চাইতে আসে তখন কী একই কাজ করবেন?

সিএনএনটেক থেকে ইমরান হোসেন মিলন

*

*

Related posts/