Maintance

কক্ষপথে যাচ্ছে ব্র্যাক অন্বেষা

প্রকাশঃ ৭:২৬ অপরাহ্ন, জুলাই ২, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৩:৫৪ অপরাহ্ন, জুলাই ৩, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মহাকাশে দেশের প্রথম ন্যানো স্যাটেলাইট ‘ব্র্যাক অন্বেষা‘ কক্ষপথে স্থাপন করা হবে শুক্রবার।

মহাকাশের কক্ষপথে ‘ব্র্যাক অন্বেষা’ স্থাপনের পর সেদিন থেকেই গ্রাউন্ড স্টেশনের মাধ্যমে ডেটা সংগ্রহের কাজ শুরু করবে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়।

এজন্য ইতোমধ্যেই গ্রাউন্ড স্টেশনের সব ধরনের প্রস্তুতি ও কাজকর্ম শেষ হয়েছে। এখন কক্ষপথে স্থাপন করার সঙ্গে সঙ্গেই দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা তাদের কাজ শুরু করবেন।

এর আগে ৪ জুন বাংলাদেশ সময় মধ্যরাত সাড়ে তিনটার দিকে মহাকাশযান নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্স আর মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার সিআরএস-১১ অভিযানে স্পেসএক্স-এর ফ্যালকন ৯ রকেটে করে ব্র্যাকের ন্যানো স্যাটেলাইট মহাকাশে পাঠানো হয়।

Brac-Annasha-Techshohor

জাপানের কিউশু ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (কেআইটি) থেকে স্যাটেলাইটটি তৈরি করেন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন শিক্ষার্থী রায়হানা শামস ইসলাম অন্তরা, আবদুল্লা হিল কাফি ও মাইসুন ইবনে মানোয়ার।

আগামী শুক্রবার বিভিন্ন দেশের ন্যানো স্যাটেলাইট প্রকল্প নিয়ে একটি গালা ইভেন্ট আয়োজন হবে কিউশু ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজিতে। সেখানে বিভিন্ন দেশের সরকারের প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন।

একটি ভিডিও বার্তায় ব্র্যাক অন্বেষার তিন নির্মাতা জানান, সবকিছু আমাদের অনুকূলে থাকলে ৭ জুলাই অরবিটে স্থাপন করা হবে স্যাটেলাইটটি।

ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের মহাখালী ক্যাম্পাসের চার নাম্বার ভবনে গ্রাউন্ড স্টেশন স্থাপন করা হয়েছে। সেখান থেকেই অন্বেষার সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করা হবে। গ্রাউন্ড স্টেশনটির নির্মাতা দলের দলনেতা মোহাম্মদ সৌরভও বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, এখন পর্যন্ত সবকিছু সঠিক ভাবে চলছে। এভাবে চললে ৭ জুলাই শুক্রবার কক্ষপথে স্যাটেলাইট স্থাপন করা হবে।

তিনি জানান, কক্ষপথে ব্র্যাক অন্বেষা স্থাপনের একটি অনুষ্ঠান আয়োজন করতে যাচ্ছে। সেদিন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে সরাসরি কিউশুর প্রোগ্রামও দেখানো হবে।

এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও ন্যানো স্যাটেলাইট প্রকল্পের প্রিন্সিপাল ইনভেস্টিগেটর মো. খলিলুর রহমানের তত্ত্বাবধানে স্যাটেলাইট তৈরি করেন ওই তিন শিক্ষার্থী।

ন্যানো স্যাটেলাইট ব্র্যাক অন্বেষা মাত্র ১০ সেন্টিমিটারের। এক কেজি ওজনের এই স্যাটেলাইটটি মহাকাশে পৃথিবী থেকে ৪০০ কিলোমিটার উঁচুতে স্থাপন করা হচ্ছে। এটি ৯০ মিনিটে একবার করে পৃথিবী প্রদক্ষিণ করতে সক্ষম। সেই হিসাবে দিনে চার থেকে ছয়বার বাংলাদেশের উপর দিয়ে যাবে।

ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই অনুষ্ঠানে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান, তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রন কমিশনের চেয়ারম্যান চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ, মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠানের  (স্পারসো) চেয়ারম্যান শাহীন খান, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য  সৈয়দ সাদ আন্দালিব, শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উপস্থিত থাকবেন বলে আশা করছেন আয়োজকরা।

ইমরান হোসেন মিলন

আরও পড়ুন: 

*

*

Related posts/