Maintance

আরডুইনো নিয়ে পরিপক্ক হচ্ছে শিক্ষার্থীরা

প্রকাশঃ ৫:২২ অপরাহ্ন, জুন ১৮, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১১:০১ অপরাহ্ন, জুন ১৮, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বিভিন্ন স্কুল-কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে বেসিক আরডুইনো কর্মশালা।

রাজধানীর বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতির রোবটিক্স ক্লাব কার্যক্রমের অংশ হিসেবে এই কর্মশালার আয়োজন করা হয়।

শিক্ষার্থীরা রোবটিক্স গবেষণার পাশাপাশি বিভিন্ন ছোট সমস্যা সমাধানের জন্য ইলেক্ট্রনিক্সের বহুল পরিচিত কিট আরডুইনো ব্যবহার করে থাকে। বর্তমান সময়ে রোবটিক্স কিংবা প্রোগ্রামনির্ভর প্রজেক্ট তৈরির ক্ষেত্রে আরডুইনো ডেভেলপমেন্ট কিটটি ক্রমশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

সারাদেশের ১৭ বিশ্ববিদ্যালয় এবং সাত স্কুল-কলেজের মোট ৩৫ শিক্ষার্থী কর্মশালায় অংশ নেয়। উপস্থিত শিক্ষার্থীদের পাঁচটি গ্রুপে ভাগ করে কর্মশালা করানো হয়েছে।

RDOINO_WORKSHOP_TECHSHOHOR

কর্মশালায় আরডুইনো পিন কনফিগারেশন, মাইক্রোকন্ট্রোলার, লেড জ্বালানো নিয়ন্ত্রণ, ডিজিটাল পিনের ব্যাবহার, এনালগ পিনের ব্যাবহার, পালস উইথ মডুলেশন (পিডাবলুএম), টেম্পারেচার সেন্সর, সোলার সেন্সর, সারভো মোটর এবং সিরিয়াল কমিউনিকেশনের ব্যবহার শেখানো হয়।

প্রতিটি ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের কাছে লজিক এবং কোডগুলিও সঙ্গে সঙ্গে ব্যাখ্যা করা হয়েছে। বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতির একাডেমিক সদস্যরা কর্মশালাটি পরিচালনা করেন।

কর্শালার অভিজ্ঞতা নিয়ে উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী নাফিস ফারহান জানান, আরডুইনো ব্যবহারের সুবিধা হলো, এটি একবার প্রোগ্রাম করে দিলে নির্দিষ্ট কাজ নিজেই করতে পারে। যেখানে কম্পিউটার ব্যবহার করতে গেলে আমাকে আলাদা ড্রাইভার ইন্সটল করার ঝামেলায় যেতে হতো। নিজের হাতে এখানে এটার ব্যবহার শিখতে পাওয়া ছিল এক নতুন অভিজ্ঞতা।

রোবোটিক্সে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা যাতে ভালো করতে পারে সেজন্য এই কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছে বলে জানান বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতির সহকারি অ্যাকাডেমিক কোঅর্ডিনেটর মো. জুনায়িদুল ইসলাম।

তিনি জানান, ভবিষ্যতে বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতি রোবটিক্সের আরও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে এরকম কর্মশালার আয়োজন করবে। বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতির রোবোটিক্স ক্লাব খুব শীঘ্রই নতুন পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ শুরু করবে।

কর্মশালা শেষে সকল শিক্ষার্থীদের সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়।

ইমরান হোসেন মিলন

*

*

Related posts/