Maintance

ই-কমার্সে কর্পোরেট ট্যাক্স বহালে হতাশা, অব্যাহতির দাবি

প্রকাশঃ ৯:৩২ অপরাহ্ন, জুন ২, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ২:৫৬ অপরাহ্ন, জুন ৪, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ই-কমার্স খাতে ৩৫ শতাংশ কর্পোরেট ট্যাক্স বাতিল না হওয়ায় হতাশার কথা জনিয়েছেন ই-কমার্স ব্যবসায়ীরা। খাতটির এগিয়ে যাওয়ার পথে এই ট্যাক্সকে অন্যতম অন্তরায় মনে করছেন দেশীয় উদ্যোক্তারা।

শুক্রবার বাজেট নিয়ে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে দেশের তথ্যপ্রযুক্তি উদ্যোক্তা ও ই-কমার্স ব্যবসায়ী সংগঠন ই-ক্যাব প্রতিনিধিরা খাতটি হতে এই ট্যাক্স অব্যাহতির দাবি জানান। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে প্রস্তাবিত বাজেটে খাতটিতে ৩৫ শতাংশ ট্যাক্স বহাল রাখা হয়েছে।

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে জনতা টাওয়ার সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে আয়োজিত ওই সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

দেশের অন্যতম ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান বাগডুমের প্রতিষ্ঠাতা, এফবিসিসিআই পরিচালক ও ভেঞ্চার ক্যাপিটাল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শামীম আহসান বলেন, ‘এবারের জাতীয় বাজেটে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের জন্য বেশ কিছু সুসংবাদ রয়েছে। যার জন্য প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী, তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা ও প্রতিমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই। কিন্তু তথ্যপ্রযুক্তি খাতে প্রায় সকল সাব-সেক্টরে  ট্যাক্স অব্যাহতি থাকা সত্ত্বেও ই-কমার্স ব্যবসায় ৩৫ শতাংশ কর্পোরেট ট্যাক্স এ বাজেটেও বাতিল না করায় এ খাতটির উন্নতির অন্তরায় হয়ে দাঁড়াবে।’

ই-ক্যাব সভাপতি রাজিব আহমেদ বলেন, গ্রামীণফোন, দারাজসহ বিদেশী বড় বড় কোম্পানিগুলোর জন্য এই ট্যাক্স প্রভাব ফেলে না। কিন্তু দেশীয় ছোট ছোট উদ্যোক্তাদের জন্য এটি অনেক চাপের, কষ্টসাধ্য। এতে দেশীয় কোম্পানিগুলো অসম প্রতিযোগিতায় পড়বে।

ই-কমার্স খাতের জন্য তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের কাছে ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দের দাবি জানিয়ে ই-ক্যাব সভাপতি বলেন, খাতটি রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলমেন্টের জন্যও যেন প্রতি মাসে ১ কোটি টাকা খরচ করা হয়। উদীয়মান খাতটির সঠিক পরিকল্পনা ও লক্ষ্য ঠিক করতে এই গবেষণা জরুরি বলে মনে করেছে সংগঠনটি।

ই-ক্যাব প্রতিনিধিত্বে নির্বাচিত এফবিসিসিআই পরিচালক শমী কায়সারও নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে বিষয়গুলো গুরুত্বের সঙ্গে ভেবে দেখার অনুরোধ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী, বেসিস সভাপতি মোস্তাফা জব্বার, বিসিএস সভাপতি আলী আশফাক, বাক্য সভাপতি ওয়াহিদ শরীফ, সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ হোসেন, এফবিসিসিআই পরিচালক শমী কায়সার, ই-ক্যাব সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াহেদ তমালসহ বিভিন্ন তথ্যপ্রযুক্তি সংগঠনের প্রতিনিধিরা।

আল-অামীন দেওয়ান

*

*

Related posts/