Maintance

ডিজিটাল বাংলাদেশের লক্ষ্য অর্জনের বাজেট : পলক

প্রকাশঃ ৪:৩৭ অপরাহ্ন, জুন ২, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৯:৪৭ অপরাহ্ন, জুন ৩, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : নতুন অর্থবছরের বাজেটে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের প্রাপ্তি প্রত্যাশা ছাড়ানো। খাতটিতে এই বাজেটে যে বরাদ্দ ও পরিকল্পনা বাস্তবায়নের প্রস্তাব এসেছে তা ডিজিটাল বাংলাদেশ লক্ষ্য অর্জনের অনুঘটক হবে বলে মনে করছে বিভাগটি।

শুক্রবার সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে বাজেট নিয়ে এমন প্রতিক্রিয়া জানায় তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ। রাজধানীর কারওয়ান বাজারে জনতা টাওয়ার সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে আয়োজিত ওই সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

পলক বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়নে গত বাজেটের তুলনায় ২০১৭-১৮ অর্থবছরে দ্বিগুনেরও বেশি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। প্রবৃদ্ধি প্রায় ২১৮.৫ শতাংশ। এর মাধ্যমে প্রতিফলিত হয় ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে সরকার কতটা আন্তরিক।

‘এটি মাইলফলক, গুরুত্ববাহী একটি পদক্ষেপ। এবারের বাজেটে দেশীয় হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার শিল্পের বিকাশে সকল বাধা দূর করা হয়েছে।’

পলক বলেন, হার্ডওয়্যার খাতে দেশি বিনিয়োগকে উৎসাহিত করতে এবং স্থানীয়ভাবে কম্পিউটার, ল্যাপটপ এবং ট্যাব উৎপাদনে এর যন্ত্রাংশ আমদানিতে ব্যাপক শুল্ক ছাড়ের কথা বলা হয়েছে।

সফটওয়্যার বা অ্যাপ্লিকেশন কাস্টমাইজেশন, ওয়েবসাইট ডেভেলমেন্টসহ ৮ খাতে কর-শুল্ক অব্যাহতি, অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট ফান্ডকে কর অব্যাহতি, দেশে মোবাইল ফোন উৎপাদনে এবং মোবাইল যন্ত্রাংশ আমদানিতে ব্যাপক শুল্ক ছাড়ের প্রস্তাবের কথা উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এই পদক্ষেপ দেশকে উৎপাদকের দেশে পরিণত করবে।

২০২১ সালের মধ্যে তথ্যপ্রযুক্তি খাত হতে রপ্তানি আয় ৫ বিলিয়ন ডলার ও ২০ লাখ কর্মসংস্থানের যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারিত রয়েছে তা পূরণে এই বাজেট  কার্যকর ভূমিকা পালন করবে বলে তিনি আশাবাদ জানান।

বেসিস সভাপতি তথ্যপ্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জব্বার বলেন, এবারের বাজেট আমদানীকারক দেশ হতে উৎপাদক দেশে পরিণত হওয়ার বাজেট। আগামী কয়েক বছরের মধ্যে এর ফল দৃশ্যমান হবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী, বিসিএস সভাপতি আলী আশফাক, বাক্য সভাপতি ওয়াহিদ শরীফ, সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ হোসেন, এফবিসিসিআই পরিচালক শমী কায়সার, ভেঞ্চার ক্যাপিটাল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শামীম আহসান, ই-ক্যাব সভাপতি রাজীব আহমেদ, এফবিসিসিআই পরিচালক শমী কায়সারসহ বিভিন্ন তথ্যপ্রযুক্তি সংগঠনের প্রতিনিধিরা।

আল-আমীন দেওয়ান

*

*

Related posts/