Maintance

সাইবার নিরাপত্তায় প্রয়োজন সচেতনতা-সমন্বয়

প্রকাশঃ ৭:৪০ অপরাহ্ন, মে ২০, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৭:৪০ অপরাহ্ন, মে ২০, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : সচেতনতা এবং সরকারি-বেসরকারি সংস্থাগুলোর কাজের সমন্বয় দেশে সাইবার হামলার ঝুঁকি কমাতে সক্ষম।

শুক্রবার বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি(বিসিএস) ইনোভেশন সেন্টারে ‘সাইবার নিরাপত্তা এবং আমাদের প্রস্তুতি’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে এমন মতামত দেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার।

তিনি বলেন, তবে এই হামলা ঠেকাতে শুধু সরকারকে কাজ করলে হবে না। দেশে ডাক্তার এবং ইঞ্জিনিয়ার পর্যাপ্ত পরিমাণ থাকলেও তথ্যপ্রযুক্তিতে অনেতেই অভিজ্ঞ নয়। সবাই সাইবার নিরাপত্তার কথা বললেও, এই সেক্টরে বিনিয়োগ করতে ব্যক্তিগত বা প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ে তেমন আগ্রহ দেখা যায় না। তবে এক্ষেত্রে সাইবার নিরাপত্তায় বিনিয়োগ বাড়ানোর কথা বলেন তিনি।

BCS-Roundtable-Techshohor

সাইবার নিরাপত্তায় আধুনিক ল্যাব স্থাপন হয়েছে, যা থেকে বিশ্বে ঘটে যাওয়া সাইবার হামলাগুলো পর্যবেক্ষণ করতে পারি। এছাড়াও সাইবার নিরাপত্তা আইন হচ্ছে, তাই আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই বলেও জানান তিনি।

গোলটেবিল বৈঠকে বিশেষ অতিথি তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি ব্যাকগ্রাউন্ডের অভিজ্ঞ লোক আমাদের প্রয়োজন। সাইবার নিরাপত্তার জন্য গবেষণার প্রতি জোরও দিতে হবে। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ কম্পিউটার ইমার্জেন্সি রেসপন্স টিম(বিডিসার্ট) গঠন করা হয়েছে। তাছাড়া সুপ্রিম সাইবার সিকিউরিটি কাউন্সিল এবং সাইবার সিকিউরিটি এজেন্সি প্রতিষ্ঠার কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

গোল টেবিল বৈঠক সঞ্চালন করেন বিসিএস সভাপতি আলী আশফাক। বৈঠকে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাইবার সিকিউরিটি সেন্টারের পরিচালক ড. তৌহিদ ভূঁইয়া।

তিনি দেখান, গত সপ্তাহে ঘটে যাওয়া বিশ্ব্যাপী সাইবার হামলায় মাত্র ০.০০০৭ শতাংশ আক্রান্ত হয়েছে বাংলাদেশ। সাইবার আক্রমণের অনেকগুলো ধরণ রয়েছে। সবগুলো আক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য সরকারের তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের সঙ্গে বেসরকারি সংস্থা এবং তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞদের যৌথভাবে কাজ করতে হবে।

র‌্যানসমওয়্যার ও অন্যান্য ম্যালওয়ার থেকে নিরাপদ থাকতে যুতসই অ্যান্টি-ম্যালওয়্যার টুলস ব্যবহারসহ অন্যান্য করণীয়, প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ তথ্যপ্রযুক্তি জনশক্তি তৈরি, কানেক্ট উইথ কেয়ার, সরকার এবং তথ্যপ্রযুক্তি সংগঠনগুলোর একযোগে কাজ করা, ডাটার নিরাপত্তা প্রদানসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের জেনারেল ম্যানেজারসহ ২১ জন আইটি এবং সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ প্যানেল আলোচক হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ মতামত তুলে ধরেন।

আইসিটি বিজনেস প্রমোশন কাউন্সিল এবং বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি যৌথভাবে গোলটেবিলটি আয়োজন করে।

ইমরান হোসেন মিলন

*

*

Related posts/