Maintance

পদত্যাগ করতে রাসেল উত্তম রাশিদুলকে বেসিস নির্বাচন বোর্ডের চিঠি

প্রকাশঃ ১:৫৬ অপরাহ্ন, মে ১৫, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৪:০৭ অপরাহ্ন, মে ২০, ২০১৭

আল-আমীন দেওয়ান, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বেসিসের বর্তমান কার্যনির্বাহী কমিটির সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট রাসেল টি আহমেদ, ভাইস প্রেসিডেন্ট এম রাশিদুল হাসান ও পরিচালক উত্তম কুমার পালকে পদত্যাগ করতে চিঠি দিয়েছে নির্বাচন বোর্ড।

দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের শীর্ষ বাণিজ্য সংগঠনটির ২০১৭-১৮ মেয়াদের তিনটি পদে নির্বাচন অনুষ্ঠান প্রক্রিয়া শুরু করতে নিয়মতান্ত্রিকভাবে এই চিঠি দেয় বোর্ড।

পদত্যাগ নিয়ে কার্যনির্বাহী কমিটির মধ্যে সমঝোতা না হওয়ায় বোর্ড ‘পদে থাকার জ্যেষ্ঠতা’র ভিত্তিতে তাদের পদত্যাগ করতে বলেন।

তবে পদত্যাগ নিয়ে নির্বাচন বোর্ডের সিদ্ধান্তে ‘আপত্তি’ করছেন তিন নেতা। তারা আপিল বোর্ডে বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করতে আবেদন করেছেন।

নির্বাচন তফসিল অনুযায়ী ২৩ মে তারিখে পদত্যাগ করতে হবে। ৮ জুলাই হবে নির্বাচন। নির্বাচন বোর্ড নমিনেশন আহবান করে নোটিশ দেবে ২৫ মে।

বেসিস নির্বাচন বোর্ডের সদস্য রফিকুল ইসলাম রাউলি টেকশহরডটকমকে জানান, গঠনতন্ত্র ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ডিটিও শাখার নির্বাচন সংক্রান্ত নির্দেশনা মেনে নির্বাচন বোর্ড তিনজনকে পদত্যাগের চিঠি দিয়েছে।

আপিল বোর্ডে আবেদনের বিষয়ে বেসিসের সাবেক এই সভাপতি বলেন, এটা একটা প্রক্রিয়া। নির্বাচন সংক্রান্ত কোনো বিষয়ে আপত্তি থাকলে তার জন্য আপিল বোর্ডে আবেদন করার সুযোগ থাকে।

‘এখানে সবাই ইন্ডিপেন্ডেন্ট। এখানে আমরাও চাই না কাউকে কোনো ইনফ্লুয়েন্স করার জন্য। আমরা চাই ইন্ডিপেন্ডেন্টলি কাজ করার জন্য। এটা আপিল বোর্ডের ব্যাপার। আমরা আপিল বোর্ডের রেজাল্টের জন্য অপেক্ষা করবো।’

basis-techshohor-2

পদত্যাগে সমঝোতা না হওয়া এবং লটারি করতে গেলে ‌‌’সমতা’র অধিকার ভঙ্গের বিষয় নিয়ে বেসিস বর্তমান কার্যনির্বাহী কমিটির সভাপতি তথ্যপ্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জব্বার এর কাছে জানতে চাইলে তিনি কিছু জানেন না বলে জানান।

তিনি উল্লেখ করেন, জাতীয় নির্বাচনসহ সব নির্বাচনেরই নির্বাচন কমিশন বা বোর্ডই গণমাধ্যমকে সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো অবহিত করে। কারণ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর হতে এ সংক্রান্ত বিষয়ে কিছু বলার এখতিয়ার শুধু নির্বাচন বোর্ডের। কোনো বিষয় প্রশ্ন থাকলে বোর্ড হতে জানতে পারবেন।

পদত্যাগ করতে বলা তিন নেতাই টানা চারটি সেশনে দীর্ঘ পাঁচ বছর ধরে বেসিসের কার্যনির্বাহী কমিটিতে রয়েছেন।

রাসেল টি আহমেদ ২০১২-১৩ ও ২০১৩-১৪ সেশনে মহাসচিব এবং ২০১৪-১৬’তে সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন। বর্তমান ২০১৬-১৯ সেশনের প্রথম টার্মেও তিনি সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট।

এম রাশিদুল হাসান ২০১২-১৩ ও ২০১৩-১৪ সেশনে যুগ্ম-মহাসচিব এবং ২০১৪-১৬’তে ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন। বর্তমান ২০১৬-১৯ সেশনের প্রথম টার্মেও তিনি ভাইস প্রেসিডেন্ট হয়েছেন।

উত্তম কুমার পাল ২০১২-১৩ সেশনে কোষাধ্যক্ষ, ২০১৩-১৪ সেশনে ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং ২০১৪-১৬’তে মহাসচিব ছিলেন। বর্তমান ২০১৬-১৯ সেশনের প্রথম টার্মেও তিনি ভাইস প্রেসিডেন্ট হয়েছেন।

বর্তমান কমিটির অন্যদের মধ্যে সভাপতি মোস্তাফা জব্বার এর আগে ১৯৯৭-৯৯ সেশনে সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাকালীন ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন তিনি। ২০০২-০৩ সেশনে ছিলেন পরিচালক।

পরিচালক সৈয়দ আলমাস কবির ২০১০-১২ সেশনে ছিলেন পরিচালক, ২০১২-১৩-এ ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং ২০১৩-১৪ ‘তে সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট।

পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল ২০১৪-১৬ সেশনে যুগ্ম মহাসচিব ছিলেন।

ভাইস প্রেসিডেন্ট ফারহানা এ রহমান ২০০৮-০৯ সেশনে ছিলেন কোষাধ্যক্ষ, ২০১০-১২ তে ছিলেন ভাইস প্রেসিডেন্ট।

এছাড়া পরিচালক সোনিয়া বশির কবির এবং রিয়াদ এস এ হোসেইন এবারই প্রথম বেসিসের কার্যনির্বাহী কমিটিতে এসেছেন।

২০১৪ সালের ডিসেম্বরে সংশোধিত গঠনতন্ত্র অনুযায়ী কার্যনির্বাহী কমিটির সেশন ৩ বছর। সে হিসেবে চলতি সেশন ২০১৬-১৯ সাল। তবে এই সেশন সময়ে প্রতি টার্মে কার্যনির্বাহী কমিটি হতে ৩ জন পদত্যাগ করবেন। এক বছর সময়ের ওই টার্মে পদত্যাগ করে শূন্য হওয়া ৩ পদে হবে নির্বাচন।

প্রতিটি টার্মে নতুন নির্বাচিত এবং পুরোনো মিলে ৯ পরিচালক নতুন করে কার্যনির্বাহী কমিটির পদের দায়িত্ব নেওয়ার নির্বাচন করবেন।

আরও পড়ুন: 

*

*