Maintance

ভ্যাট-ট্যাক্স ছাড়া ইন্টারনেট দিন  

প্রকাশঃ ১০:২৪ অপরাহ্ন, এপ্রিল ১৯, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১০:২৬ অপরাহ্ন, এপ্রিল ১৯, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : আসছে বাজেটে ভ্যাট-ট্যাক্স মুক্ত ইন্টারনেট, তথ্যপ্রযুক্তি পণ্য রপ্তানিতে নগদ সহায়তা, কর্পোরেট ট্যাক্স কমানোসহ বিভিন্ন দাবি জানিয়েছে তথ্যপ্রযু্ক্তি খাতের ব্যবসায়ী-উদ্যোক্তাদের সংগঠনগুলো।

বুধবার জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সম্মেলন কক্ষে ২০১৭-১৮ সালের প্রাক-বাজেট আলোচনায় আলাদা আলাদা প্রস্তাবনা জমা দেয় খাতটির সংগঠনগুলো। রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে সভায় সংগঠনগুলোর পক্ষে মূল বক্তব্য রাখেন দেশের সফটওয়্যার খাতের শীর্ষ সংগঠন বেসিসের সভাপতি তথ্যপ্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জব্বার।

সংগঠনগুলোর নেতারা ছাড়াও সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন এনবিআর সদস্য (মূসকনীতি) ব্যারিস্টার জাহাঙ্গীর হোসেন, মো. পারভেজ ইকবাল (করনীতি), মো. লুৎফর রহমান (শুল্কনীতি)।

মোস্তাফা জব্বার বক্তব্যে বলেন, ভ্যাট-ট্যাক্স ছাড়া ইন্টারনেট দিন। ভ্যাটের কাছে মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারে না।

বেসিস প্রণোদনা, কর, মূসক, শুল্ক বিষয়ে আলাদা আলাদা করে ১৫ বিষয়ে প্রস্তাবনা দিয়েছে।

এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল ইন্টারনেট হতে ভ্যাট-ট্যাক্স প্রত্যাহার। এছাড়া রয়েছে ডিজিটাল ডিভাইসের খুচরা বিক্রির ওপর কর ও ভ্যাট তুলে নেয়া। সফটওয়্যার ও হার্ডওয়্যার রপ্তানিতে ৪০ শতাংশ হারে নগদ সহায়তা । তথ্যপ্রযুক্তি সেবার সংজ্ঞার সম্প্রসারণ। কম্পিউটার, ট্যাব ও স্মার্টফোনসহ বিভিন্ন ডিজিটাল ডিভাইসের যন্ত্রাংশের ওপর কর ও ভ্যাট না থাকা।

basis.nbr

বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস) তাদের প্রস্তাবনায় ছয়টি বিষয়ের উল্লেখ করছে।

এতে রয়েছে কম্পিউটার ও কম্পিউটার যন্ত্রাংশ এবং সংশ্লিষ্ট যাবতীয় হার্ডওয়্যার সামগ্রী আমদানি পরবর্তী পর্যায়ে সরবরাহ বা যেকোনোভাবে সরবরাহ অথবা বিক্রির উপর প্রযোজ্য মূসক হতে অব্যহতি প্রদান

কম্পিউটার ও কম্পিউটার যন্ত্রাংশ স্থানীয়ভাবে উৎপাদনকারীদের প্রদত্ত মূসক অব্যাহতি সুবিধা ২০২৪ সাল পর্যন্ত বহাল রাখা। ২৮ ইঞ্চি পর্যন্ত কম্পিউটার মনিটর হতে শুল্ক প্রত্যাহার।

ওয়াই-ফাই,ওয়াইম্যাক্স, রাউটার, ওয়াইম্যাক্স ল্যানকার্ডসহ ইত্যাদি কম্পিউটার পণ্য হিসেবে শুল্কায়ন ।

ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (আইএসপিএবি) এর প্রস্তাবনায় রয়েছে পাঁচটি বিষয়।

আইএসপি সেবা উৎস কর আওতামুক্ত করা। আইটি এনাবেল সার্ভিসের তালিকায় বাদ পড়া বিভিন্ন খাত অন্তর্ভুক্তি।

তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে কর্পোরেট ট্যাক্স কমিটি ১৮ শতাংশ করা। ইন্টারনেট মডেম, ইথারনেট ইন্টারফেস কার্ড, কম্পিউটার নেটওয়ার্ক সুইচ, হাব, রাউটার, সার্ভার ব্যাটারিসহ প্রযুক্তিপণ্যের ভ্যাট ও শুল্ক প্রত্যাহার।

আল-আমীন দেওয়ান

*

*