Maintance

ভারতে কর্মীদের জন্য ডিজিটাল ফুড ভাউচার

প্রকাশঃ ৮:৪৫ পূর্বাহ্ন, এপ্রিল ১৯, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১০:২২ অপরাহ্ন, এপ্রিল ১৮, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ডিজিটাল ইন্ডিয়া বাস্তবায়নে দৈনন্দিন জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে প্রযুক্তিকে কাজে লাগাতে জোর দিচ্ছে ভারত। এরই ধারাবাহিকতায় কপোরেট হাউজগুলোকে তাদের কর্মীদের খাবারের ভাউচার ডিজিটাল করার বাধ্যবাধকতা করেছে দেশটির ফেডারেল ব্যাংক। ২০১৮ সালের মধ্যেই এটি বাস্তবায়ন করতে হবে।

ভারতে ক্যাশলেস সোসাইটি তৈরিতে এখন অনেকটাই এগিয়ে। বিশেষ করে গতবছর নোট ব্যান করার পর দৈনন্দিন জীবনে ক্যাশলেস ট্রানজেকশন বেড়েছে। বাজার করা থেকে শুরু করে ফুয়েল স্টেশন, ইউটিলিটি বিল পরিশোধ সবখানেই ডিজিটাল পেমেন্ট সিস্টেম ব্যবহার করা হচ্ছে। আর এর ফলে গত কয়েক মাসে স্থানীয় মোবাইল ওয়ালেট কোম্পানিগুলোর ব্যবসা তুঙ্গে।

Paytm-TechShohor

আর ডিজিটাল পেমেন্টে এগিয়ে আছে পেটিএম, ২০ কোটি গ্রাহক নিয়ে নিয়ে দেশটির শীর্ষ মোবাইল কোম্পানি হিসেবে কার্যক্রম চালাচ্ছে কোম্পানিটি। সম্প্রতি সেবাটি ফুড ওয়ালেট চালু করেছে, যার মাধ্যমে সোডেক্সো, টিকেট রেস্টুরেন্সের মতো প্রতিষ্ঠানগুলোর মিল ভাউচারের জায়গাটি দখল করবে। এছাড়া এক্সপায়ার ডেট ছাড়াই ফুড কুপন সুবিধা পাওয়া যাবে।

১০ হাজার কর্পোরেট গ্রাহক ও ২ লাখ সাধারণ গ্রাহক নিয়ে দেশের সবচেয়ে বড় অপারেটর সেডেক্সো। নতুন সুবিধায় প্রতি ভারতীয় কর্মী প্রতিমাসে ৫০ রুপি থেকে দুই হাজার ২০০ রুপির খাবার গ্রহণ করতে পারবেন ট্যাক্স ছাড়াই। এতে কাগজের ব্যবহার কমবে ও কোনো এক্সপায়ার ডেট থাকবে না। প্রতিবছর ৬০ লাখ ভারতায় তাদের ফুড ভাউচার জমা দিতে ভোগান্তি পোহান। নতুন এই সুবিধার কারণে সেটি দূর হবে।

পেটিএম অ্যাপের সাথে ইন্টিগ্রেট থাকা এই ফুড ওয়ালেট কর্মীদের হিসাবে কোম্পানি থেকে সহজে ক্রেডিট টপ-আপ করা যাবে। প্রতিদিন, মাসিক, ত্রৈমাসিক কিংবা সুবিধাগুলো এই ক্রেডিট টপ-আপ করা যাবে।

এই ই-ক্যাশ ওয়ালেট অফিসের ক্যাফেটেরিয়া কিংবা পেটিএমের অফলাইন মার্চেন্টদের কাছে ব্যবহার করা যাবে। মার্চেন্টদের মধ্যে বার্গার কিং, কেএফসি, পিৎজা হাট, ক্যাফে কফি ডেসহ ফুড অর্ডারিং সেবাগুলোও রয়েছে।

গ্রাহকরা অ্যাপের পাসবুকের মাধ্যমে তাদের ফুড ওয়ালেট ব্যালান্স দেখতে পারবেন। এছাড়া নেয়ারবাই ফিচারের মাধ্যমে আশেপাশের ফুড আউটলেট খুজে পাওয়া যাবে।

ম্যাশেবল অবলম্বনে রুদ্র মাহমুদ

*

*

Related posts/