Maintance

অভিযোগের পাহাড় চড়িয়ে চলছে উবার

প্রকাশঃ ৩:৫১ অপরাহ্ন, মার্চ ২৬, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৪:০০ অপরাহ্ন, মার্চ ২৬, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : অবৈধ সেবা হিসেবেই ঢাকায় উবারের চাকা চার মাসেরও বেশি সময় ধরে ঘুরছে। আর এর মধ্যেই যাত্রীসেবায় অভিযোগের পাহাড় জমেছে উবারের বিরুদ্ধে।

যাত্রী না নেয়া, যাত্রাপথে অপ্রয়োজনীয় পথ ঘোরানো, ড্রাইভারদের অশোভন ব্যবহার এমনকি অতিরিক্ত ভাড়া চাওয়ার অভিযোগও উঠেছে।

উবার বলছে তারা যাত্রীদের অভিযোগ গুরুত্ব সহকারে নিচ্ছেন এবং দ্রুত সমাধান দেয়ার চেষ্টা করছেন।

বাংলাদেশে সম্প্রতি উবারের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এসেছেন। স্থানীয় উবার অফিস পরিচালনা ও নিয়োগ নিয়ে কাজ করছেন তারা। সেখানে এই চার মাসের কার্যক্রম খতিয়ে দেখা হতে পারে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র।

uber-techshohor

অ্যাপ মাধ্যমে ট্যাক্সি সেবাদানকারী কোম্পানিটি ঢাকায় যাত্রা শুরু করে ২০১৬ সালের ২২ নভেম্বর। আর এর দু’দিন পর ২৪ নভেম্বর দেশে এর কার্যক্রমকে অবৈধ ঘোষণা করে নিষেধাজ্ঞা দেয় বিআরটিএ। কিন্তু সে নিষেধাজ্ঞা মাড়িয়ে এখনও কার্যকম চালিয়ে যাচ্ছে কোম্পানিটি।

যদিও ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার পর চলতি বছরের শুরুতেই বাংলাদেশের নিজেদের ব্যবসায়িক পরিকল্পনা ও কার্যক্রমের বিস্তারিত বিআরটিএকে জমা দিয়েছে উবার। তবে কার্যক্রম চালানোর অনুমতি তারা পায়নি এখনও।

এর মধ্যে একবার ভাড়াও বাড়ানো হয়েছে। ২৩ জানুয়ারি হতে বর্ধিত ভাড়া কার্যকর করে উবার। সেবাটি ঢাকায় বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে যার মধ্যে ‍উল্লেখযোগ্য যে চার মাস আগে মাত্র ১৫০ গাড়ি নিয়ে শুরু করে ঢাকায় এখন উবারের গাড়ি সংখ্যা ২০০০ ছাড়িয়েছে।

দেশে উবার ব্যবহারকারীদের সবচেয়ে সক্রিয় ফেইসবুক গ্রুপ উবার ইউজার্স অব বাংলাদেশ (Uber Users of Bangladesh)। গ্রুপটির সদস্য সংখ্য ২০ হাজারেরও বেশি। যেখানে উবার নিয়ে নিজেদের অভিজ্ঞতা-অভিযোগ নানা প্রমাণসহ উপস্থাপন করে আসছেন ব্যবহারকারীরা।

এছাড়া সরাসরি উবার ব্যবহারকারীদের সঙ্গে আলাপে নানা ভোগান্তির বিষয় জানা যায়। কথা বলা হয় উবার চালকদের সঙ্গেও। যাত্রীদের নিয়ে তাদেরও রয়েছে অভিযোগ।

uberbd-techshohor

তাহসিন রব (Tahsin Rob) বলেছেন, আমার মনে হয় উবার আর সিএনজির মধ্যে পার্থক্য নেই। ফোন ধরেই বলে কোথায় যাবেন? ওহ, ওইখানে আমি যাবো না অন্য ড্রাইভার দেখেন।

গ্রুপে ফেইসবুক স্ট্যাটাস দিয়ে তিনি জানান, উবার ব্যবহারের অভিজ্ঞতায় তিনি ৩০ বার এমন পেয়েছেন। অভিযোগ দিয়েও কোনো উপায় বা প্রতিকার পাননি। পরবর্তীতে ভাল সেবা দেয়া হবে মেইল করে এই জানানোর বাইরে কিছুই করেনি তারা। তাহসিন মনে করছেন, বাংলাদেশে ছয় মাসও ঠিকমতো ব্যবস্থাপনা করতে পারেনি উবার।

ফারাহ নাজ মুন (Farah Naz Moon) গ্রুপে অভিযোগ করেছেন, ট্রিপ অন হওয়ার আগে বা কারে উঠার আগে ১৩ মিনিট দূরত্ব থেকে উবার রিকোয়েস্ট করার পর ড্রাইভার ওই ১৩ মিনিটেরও ভাড়া চায়।

তাসকিয়া তন্নী ( Taskia Tonni) নিজের অভিজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, মিরপুর হতে আগারগাঁও যাবেন। ড্রাইভারকে ১২ মিনিট দূরত্বে দেখানোর পরও জানিয়েছে অনেক দূরে। আসতে পারবে না জানিয়ে ট্রিপ ক্যানসেল করতে বলে। কিন্তু ড্রাইভার যেহেতু আসতে পারবে না তাই তাকে ক্যানসেল করতে বলেন তিনি।

ড্রাইভার ট্রিপ ক্যানসেল না  করে অশোভন আচরণ করেছে উল্লেখ করে তিনি জানিয়েছেন, ৩০-৪০ বার উবার ব্যবহার করেছি, এমন বেয়াদপ চালক পাইনি। অভিযোগ করেছি দেখি কী ব্যবস্থা নেয়া হয়।

স্বাধীন খান (Swadhin Khan) জানান, ড্রাইভার ফার্মগেটে আছে কিন্তু বসুন্ধরা সিটি আসবে না। খুব খারাপ ব্যবহার করে বলে ক্যানসেল করে অন্য গাড়ি নেন।

আহাদ ফারহান (Ahad Farhan) মাকে নিয়ে উবারে উঠেছেন। কিন্তু ড্রাইভার আচরণের নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারেনি, অযথাই রাগ প্রকাশ করছিল। উবার ড্রাইভারদের রাগ নিয়ন্ত্রণের ট্রেনিং দেয়ার প্রস্তাব দেন তিনি।

উবার ঠগ ও অপরাধী ড্রাইভার নিচ্ছে অভিযোগ করে এনাম আহমেদ (Enam Ahmed) বলেছেন, উবার বাংলাদেশ ভুয়া ড্রাইভার নিচ্ছে।

তপন পবন (Topon Pobon) নিজের ট্রিপ ম্যাপ শেয়ার করে বলেছেন, ড্রাইভার তাকে অথযাই বেশি দূরত্বের পথ ঘুরিয়েছেন।

মুরাদ হোসেন তালুকদার ( Murad Hossain Talukder) এক ড্রাইভারের পরিচয় তুলে দিয়ে সতর্ক থাকতে বলেছেন। তিনি জানান, ওই ড্রাইভার তাকে না তুলেই নিজে নিজে ঘুরে একটি ট্রিপ সম্পন্ন করে ফেলেছে।

ড্রাইভারদের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত ভাড়া চাওয়ার অভিযোগও করেছেন অনেক উবার ব্যবহারকারী।

uber-bd-2-techshohor

সম্প্রতি বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা হতে পান্থপথ ট্রিপে নাম ও আইডি প্রকাশে অনিচ্ছুক উবার ড্রাইবার জানান, ব্যক্তিগত গাড়ি চালক হিসেবে চাকরি নিয়েছেন তিনি। এখন ট্যাক্সি ক্যাবের চালকদের মত বিরতিহীন পরিশ্রম করতে হচ্ছে অথচ গাড়ি মালিক কোনো বেতন বাড়াননি।

আরেক ড্রাইভার বলছেন, সাপ্তাহিক বোনাস টার্গেট পূরণ করার পর যে ৪ হাজার টাকা উবার হতে ড্রাইভারদের বোনাস হিসেবে দেয়া হয় তা তিনি পাননা। মালিক পুরো টাকা নিয়ে নেন। অবশ্য কোনো কোনো ড্রাইভার অর্ধেক টাকা পান আবার বোনাসের পুরো টাকাও পান এমনটাও জানিয়েছেন।

কয়েকজন ড্রাইভার অভিযোগ করলেন যাত্রীরা উবার কল করেন এমন গলি রাস্তার ভেতর হতে যেখানে যাওয়া খুব মুশকিল অথবা ফিরতি পথে গাড়ি ঘোরানো যায় না। যাত্রীরা সেক্ষেত্রে একটু এগুলেই পারেন কিন্তু তারা এগুতে চান না।

আল-আমীন দেওয়ান

*

*

Related posts/