Maintance

অনুমতি পেপ্যালে, সেবা জুমে

প্রকাশঃ ১২:১৮ পূর্বাহ্ন, মার্চ ২১, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৯:৪৩ পূর্বাহ্ন, মার্চ ২১, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : সরাসরি পেপ্যাল নয়, সোনালী ব্যাংকের সঙ্গে  চালু হচ্ছে জুমের সেবা। কেন্দ্রীয় ব্যাংক পেপ্যালের সেবা চালুর অনুমোদন দিলেও সোনালী ব্যাংকের সঙ্গে সরাসরি সেবা কার্যক্রম হবে জুমের।

জুমের আর্থিক লেনদেন সেবা বাংলাদেশে চালু আছে অনেক দিন হতেই। তবে সোনালী ব্যাংকের সঙ্গে চুক্তিতে জুমের সেবার পরিধি ঠিক কতটুকু আর কীভাবে বাড়বে তা জানা যায়নি।

ফ্রিল্যান্সাররা যেভাবে সরাসরি পেপ্যালকে চেয়ে আসছেন সেভাবে চালুর বিষয়টি এই পেপ্যাল-সোনালী ব্যাংক চুক্তির সঙ্গে আপাতত সম্পর্কিত নয় বলে নিশ্চিত করেছে সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র।

তবে পেপ্যালের সঙ্গে কার্যক্রম শুরুর এই অনুমতি অদূর ভবিষ্যতে সরাসরি পেপ্যাল সুবিধা চালুর জন্য একটি মাইলফলক অগ্রগতি।

ফ্রিল্যান্সারদের দীর্ঘ দিনের আশা, ভারতে পেপ্যাল যেভাবে ফ্রিল্যান্সারদের টাকা দেশীয় ব্যাংক অ্যাকাউন্টে সরাসরি পাঠায় সেভাবে বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সাররাও সরাসরি ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পেপ্যাল লেনদেন করতে পারবেন।

পেপ্যাল সোনালী ব্যাংকের সঙ্গে ২০১৬ সালের মাঝামাঝি সময়ে যে এমওইউ স্বাক্ষর করে তা জুম সেবা চালুর জন্য। ওই এমওইউ অনুয়ায়ী সেখানে শুধু রেমিট্যান্স সংগ্রহের বিষয়টি উল্লেখ ছিল। আর সেটিই নানা পর্যবেক্ষণ শেষে অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

পেপ্যাল তখন ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের সঙ্গেও একই ধরনের এমওইউ স্বাক্ষর করে। তবে ডাচ-বাংলা অনুমোদন পেয়েছে কিনা তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

paypal-techshohor (2)

তথপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বৃহস্পতিবার এক সাক্ষাতকারে টেকশহরডটকমকে জানান, পেপ্যাল নিয়ে চেষ্টা চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে। মার্চের শেষ সপ্তাহে আবারও সিলিকন ভ্যালিতে যাচ্ছি। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই পেপ্যাল নিয়ে সুখবর দেয়ার আশাবাদ জানান তিনি।

এর অাগে এক অনুষ্ঠানে পলক বলেন, পেপ্যাল নিয়ে তিনি আশা ছাড়ছেন না  সরকার পেপ্যাল চালুতে আন্তরিক চেষ্টা করছে। পেপ্যালের সহযোগী জুমের সঙ্গে এমওইউ হয়েছে। দেশের চার-পাঁচটি ব্যাংকে পরীক্ষামূলক লেনদেনের কথাও জানান তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রে পেপ্যালের ভাইস প্রেসিডেন্টের সাথেও বৈঠক করেছেন প্রতিমন্ত্রী। বছর দুই আগে ওই বৈঠকে পেপ্যাল না আনা গেলেও তার বদলে মানি ট্রান্সফার কোম্পানি জুম বাংলাদেশে কার্যক্রম শুরুর কথা জানানো হয়েছিল। পলক ওই বৈঠকে বাংলাদেশে ব্যবসায়িক সুযোগ-সুবিধা ও পলিসি সাপোর্টের বিষয়ে পেপ্যালকে আশ্বস্ত করেন।

পেপ্যালের সঙ্গে চুক্তির বিষয়ে সোনালী ব্যাংকের শীর্ষ পর্যায়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, সব ধরণের পর্যবেক্ষণ শেষে ২০১৬ সালের মাঝামাঝি সময়ে খসড়া চুক্তি প্রস্তুত করে তাতে সই করে পেপ্যালের প্রধান কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছিল। পেপ্যাল কর্তৃপক্ষও সেই খসড়ায় সই করে তা পাঠিয়ে দিয়েছেন। আমরা সেই খসড়া অনুযায়ী চুড়ান্ত চুক্তির জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমতির অপেক্ষা করছিলাম।

জুম পেপ্যালের অধিগ্রহণ করা একটি কোম্পানি। এক সঙ্গে হওয়ার আগে এটি আমেরিকাভিত্তিক অনলাইন রেমিট্যান্স কোম্পানি হিসেবে সুপরিচিত ছিল। যেহেতু জুম এখন পেপ্যালের সেবা তাই সোনালী ব্যাংকের ওই চুক্তিও হচ্ছে পেপ্যালের সঙ্গে। কিন্তু সে চুক্তিতে সরাসরি পেপ্যাল সেবা দেবে তা উল্লেখ নেই।

অনলাইন আর্থিক লেনদেন বিশেষজ্ঞ এক শীর্ষ ব্যাংক কর্মকর্তা জানান , জুমের মাধ্যমে টাকা পাঠাতে প্রথমে জুম ওয়েবসাইটে রেজিস্ট্রেশন প্রয়োজন হয়। রেজিস্ট্রেশনের ইমেইল ও পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে জুমের ওয়েবসাইটে গিয়ে টাকা পাঠাতে হয়। সেখানে টাকা পাঠানোর ‘উৎস’  ব্যাংক অ্যাকাউন্ট, ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ডের নম্বর(যেকোনো ব্যাংক ইস্যু ভিসা বা মাস্টার কার্ড) লাগে। অর্থ পাঠাতে বাংলাদেশের যেকোনো ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করা যায়। জুমে টাকা পাঠানোর উৎস ‘পেপ্যাল অ্যাকাউন্ট’ করা যায় না। আর জুমের কোনো সরাসরি এজেন্টও নেই যে সেখানে ক্যাশ দেয়া যাবে।

এখন পেপ্যাল ও জুমের সিস্টেমের মধ্যে সমন্বয় করে জুমের ওয়েবসাইটে টাকার উৎসে পেপ্যাল অ্যাকাউন্ট না নেয়া হলে তা ফ্রিল্যান্সারদের জন্য বিশেষ কিছু হবে না।

এছাড়া ফ্রিল্যান্সাররা বাংলাদেশে বসে অর্থ আয় করে থাকেন তাই এ টাকা রেমিট্যান্স বলে ধরা হয় না। সেক্ষেত্রে জুম মাধ্যমে পাঠানো ফ্রিল্যান্সারদের ওই পেপ্যাল অ্যাকাউন্টের অর্থ রেমিট্যান্স হিসেবে বিবেচনা না করা হলেও ফ্রিল্যান্সাররা খুব একটা উপকৃত হবেন না।

আল-আমীন দেওয়ান

*

*