অনলাইন প্রশিক্ষণে দ্বিমিকের কম্পিউটিং স্কুল চালু

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : কম্পিউটার বিজ্ঞান শিক্ষাকে বাংলাদেশের লাখ লাখ শিক্ষার্থীর হাতের নাগালে পৌঁছে দেওয়ার প্রত্যয়ে যাত্রা শুরু করেছে দ্বিমিক কম্পিউটিং স্কুল। সম্প্রতি ফ্রেপড মিলনায়তনে এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দ্বিমিক কম্পিউটিং স্কুলের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয়।

দ্বিমিক কম্পিউটিং স্কুলের উদ্দেশ্য হচ্ছে একজন দক্ষ সফটওয়্যার ডেভেলপার বা ওয়েব ডেভেলপার হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় বিষয়গুলো শিখতে বিভিন্ন অনলাইন কোর্সের আয়োজন করা। এখানে দেশের শীর্ষ পর্যায়ের সফটওয়্যার প্রকৌশলী ও ওয়েব ডেভেলপারদের সঙ্গে নিয়ে অনলাইন কোর্সগুলো তৈরি করা হবে। আর কোর্সগুলো হবে বাংলায়। শিক্ষাদান কার্যক্রম চলবে অনলাইন কোর্সের মাধ্যমে। কোর্সগুলোতে ভিডিও লেকচারের পাশাপাশি কুইজ, অ্যাসাইনমেন্ট, পরীক্ষা ইত্যাদি থাকবে বলে জানান দ্বিমিক কম্পিউটিং স্কুলের প্রধান নির্বাহী তাহমিদ রাফি।

Drimic computing school-TechShohor

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের স্কুল অব সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং-এর ডিন অধ্যাপক লুৎফুজ্জামান, অন্যরকম গ্রুপের চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান সোহাগ, কোডবক্সারের প্রধান নির্বাহী সবুজ কুন্ডু, মুক্ত সফটওয়্যার লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তামিম শাহ্রিয়ার সুবিন, বাংলাদেশ সফটওয়্যার প্রকৌশলী মীর ওয়াসি আহমেদ, সফটওয়্যার প্রকৌশলী ওয়াসিক মুরসালিন, বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্কের প্রমি নাহিদ প্রমুখ।

তামিম শাহ্রিয়ার সুবিন বলেন, “আমাদের দেশে প্রোগ্রামিং ও সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্টের বিষয়গুলো শেখানোর জন্য ভালো শিক্ষক অপ্রতুল। কিন্তু আমাদের লাখ লাখ শিক্ষার্থী বিষয়গুলো সম্পর্কে জানতে আগ্রহী। স্কুল-কলেজেও এখন আইসিটি বিষয়কে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। তাই এত শিক্ষার্থীর কাছে মানসম্পন্ন শিক্ষা পৌঁছে দেওয়ার জন্য অনলাইন কোর্সের কোনো বিকল্প নেই”।

একজন সফটওয়্যার প্রকৌশলীর জন্য কেবল প্রোগ্রামিং জানলেই চলবে না, কম্পিউটার সায়েন্সের কিছু মৌলিক বিষয় সম্পর্কে তার খুব ভালো ধারণা থাকা চাই। আশাকরি দ্বিমিক কম্পিউটিং স্কুল সেই ধরণের কোর্সগুলো অনলাইনে সবার জন্য নিয়ে আসবে’ – বলেন সবুজ কুন্ডু।

মাহমুদুল হাসান সোহাগ বলেন, “আমাদের দেশে বই কিংবা ডিভিডি কেনার সময় ক্রেতারা বিষয়বস্তু বা মানের ব্যাপারে একেবারেই গুরুত্ব দেয় না। বইয়ের দাম নির্ধারিত হয় কাগজের দাম দিয়ে। এরকম চলতে থাকলে বাংলাদেশে মান সম্মত টেকনিক্যাল বই বের হবার সম্ভাবনা খুব কম, কারণ এধরণের বই লিখতে লেখকের যেই পরিশ্রম করা লাগে, তার যথাযথ মূল্য না পেলে লেখক আর আগ্রহী হবেন না। আমরা অনায়াসে ২০০ টাকা সিএনজি ভাড়া দিয়ে দেই, কিন্তু ৩০০ টাকা দিয়ে একটি ডিভিডি কিংবা বই কিনতে গেলে আমরা পিছিয়ে যাই। জাতিকে সমানে আগাতে হলে এই মানসিকতা পরিহার করতে হবে”।

এ সময় মোড়ক উন্মোচন করা হয় ‘ওয়েব কনসেপ্টস’ ও ‘প্রোগ্রামিংয়ে হাতে খড়ি’ নামের দুটি ডিভিডির। ইতিমধ্যে অনলাইনে দুই হাজার ছাত্রছাত্রী ‘ওয়েব কনসেপ্টস্’ এবং প্রায় আড়াই হাজার শিক্ষার্থী ‘প্রোগ্রামিংয়ে হাতে খড়ি’ কোর্সটিতে নিবন্ধন করেছে। ডিভিডিগুলোর মোড়ক উন্মোচন করেন অধ্যাপক লুৎফুজ্জামান। এরপর সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি বলেন, দ্বিমিকের এই উদ্যোগের কারণে দেশের লাখ লাখ শিক্ষার্থী উপকৃত হবে।

শিগগির দ্বিমিকের পক্ষ থেকে আরও কিছু অনলাইন কোর্স চালু করা হবে। সেগুলোর মধ্যে রয়েছে বিচ্ছিন্ন গণিত (ডিসক্রিট ম্যাথমেটিকস্), ডাটা স্ট্রাকচার, পাইথন, জাভা, এইচটিএমএল-সিএসএস ইত্যাদি। বিস্তারিত দ্বিমিক এর ফেইসবুক ঠিকানা
https://www.facebook.com/DimikComputing থেকে জানা যাবে।

– সংবাদ বিজ্ঞপ্তি অবলম্বনে তুহিন মাহমুদ

Related posts

*

*

Top