তথ্যপ্রযুক্তির প্রশিক্ষণে নারীদের কোটা ৩০% : পলক

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : প্রযুক্তি খাতে নারীদের অংশগ্রহণ ধীরে হলেও বাড়ছে। ব্যবধান কমাতে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের প্রশিক্ষণ কর্মসূচীতে ৩০ শতাংশ কোটা নারীদের জন্য রাখা হয়েছে জানিয়েছেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

বেসিস উইমেন ফোরাম আয়োজিত আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন উপলক্ষে বিশিষ্ট নারীদের সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে এ তথ্য জানান প্রতিমন্ত্রী।

পলক বলেন, এখন বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি), এলআইসিটিসহ অন্যান্য প্রকল্পে যেসব প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে সেগুলোতে এ কোটা সংরক্ষণ করা হয়েছে। ভবিষ্যতের প্রশিক্ষণ প্রকল্পগুলোতেও নারীদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা রাখা হবে।

Basis-WF-TECHSHOHOR

প্রতিমন্ত্রী বলেন, কাজের ক্ষেত্রে নারী পুরুষ এমন কোনো বিতর্কে যেতে চাই না। এ বিতর্ক কখনও কোনো দেশের জন্য শুভ ফল আনে না। আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে নারীদের অবদান কখনোই অস্বীকার করা সম্ভব নয়।

সফটওয়্যার খাতের সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) নারী ফোরাম ও ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি ফাউন্ডেশন যৌথভাবে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন করতে ‘উইমেন অ্যাট ওয়ার্ক’ শীর্ষক এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখায় ২৬ বিশিষ্ট নারীকে সম্মাননা জানানো হয়।

বুধবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এ অনুষ্ঠানে গেস্ট অব অনার ছিলেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত স্টিফেন মার্শা বার্নিকাট।

রাষ্ট্রদূত বলেন, এত আলোকিত নারী দেখে খুব ভালো লাগছে। এ দেশের নারীরা কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে অনেক বেশি এগিয়ে।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আনিসুল হক বলেন, নারীদের জন্য নিরাপদ ঢাকা গড়ার কাজ চলছে। ইতোমধ্যে নগর নামে একটি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন চালু করা হয়েছে। শহরের বেশকিছু স্থানে সিসিটিভি ক্যামেরা লাগানো হয়েছে যাতে নারীরা অবাধে, বিনা বাধায় কর্মক্ষেত্রে যাতায়াত করতে পারেন।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন বেসিস সভাপতি মোস্তাফা জব্বার, দোহাটেক নিউ মিডিয়া’র চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ উইমেন অ্যান্ড টেকনোলজির প্রেসিডেন্ট লুনা সামসুদ্দোহা, বেসিস উইমেন ফোরামের আহবায়ক ও সহ-সভাপতি ফারহানা এ রহমান। আলোচনা অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বেসিসের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি রাসেল টি আহমেদ।

ইমরান হোসেন মিলন

Related posts

*

*

Top