Maintance

বাংলাদেশ হতে ৭ হাজার কর্মী নেয়ার ঘোষণা অগমেডিক্সের

প্রকাশঃ ১০:১৬ অপরাহ্ন, মার্চ ১০, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১০:১৬ অপরাহ্ন, মার্চ ১০, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বাংলাদেশ হতে ৭ হাজারেরও বেশি কর্মী নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে চিকিৎসাসেবায় গুগল গ্লাসভিত্তিক বিশ্বের সবচেয়ে বড় স্টার্টআপ অগমেডিক্স।

স্টার্টআপটির আউটসোর্সিং কাজে এসব কর্মীরা মেডিকেল সহকারী হিসেবে কাজ করবে। তারা আমেরিকার ডাক্তারদের রিমোট পার্সোনাল সহকারী হবেন।

শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর পান্থপথে অগমেডিক্স ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে এই কর্মী নেয়ার ঘোষণা দেন অগমেডিক্সের সহ-প্রতিষ্ঠাতা পেলু ট্র্যান ও মেডিকেল খাতে বিনিয়োগকারী অরবিম্যাডের ভেঞ্চার পার্টনার স্টিভেন ইয়েসিয়েছ।

অগমেডিক্স বাংলাদেশের ম্যানেজিং ডিরেক্টর আহমাদুল হকের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

পলক বলেন, বাংলাদেশ এখন ইমার্জিং টেকনোলজির গন্তব্য এবং দেশের মেধাবী যুবকদের কল্যাণে  উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে আমাদের শীর্ষ উদাহরণ হচ্ছে অগমেডিক্স।

তিনি বলেন, অগমেডিক্স বাংলাদেশে ৭ হাজারেরও বেশি তরুণ কর্মী নিয়োগের সিদ্ধান্তটি সত্যিই প্রশংসনীয়। তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ এলআইসিটি প্রোগ্রামের মাধ্যমে অগমেডিক্সের জন্য প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষিত জনবল সরবরাহ করতে কাজ করছে।

দেশে বৈদেশিক বিনিয়োগে আগ্রহী করতে সরকারের উদ্যোগ হিসেবে অগমেডিক্স বাংলাদেশ একটি মডেল উদাহরণ বলে উল্লেখ করেন প্রতিমন্ত্রী।

augmedix.techshohor

পেলু ট্র্যান বলেন, অগমেডিক্সের পরিচালনা কাজে ও আমেরিকার ডাক্তারদের সাথে মেধাবী স্ক্রাইবদের সংযোগ ঘটাতে বাংলাদেশ একটি আদর্শ জায়গা।

তিনি জানান, পুরো বাংলাদেশ জুড়েই ইংরেজি প্রচলিত আছে এবং দেশের ৫০ শতাংশ জনসংখ্যাই ২৫ বছরের নিচে ও খুবই প্রযুক্তি পারদর্শী। মেধা, যুব ও শিক্ষার এই সমন্বয় শক্তিশালী বিজনেস প্রসেস আউটসোর্সিংয়ের জন্য সীমাহীন সম্ভাবনা তৈরি করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, অগমেডিক্স সেবার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ কেবলমাত্র ‘স্ক্রাইব’সরবরাহই করছে না, কোম্পানির মূল অগমেডিক্স সফটওয়্যারের আইডিয়া থেকে শুরু করে ডেভেলপমেন্ট, টেস্টিং ও সাপোর্ট-সবই মেইড ইন বাংলাদেশ । ২০১২ সাল থেকে চালু হওয়া কোম্পানির পান্থপথ কার্যালয়ে বর্তমানে প্রায় ১ ডজন ইঞ্জিনিয়ার ও অন্যান্য সাপোর্ট স্টাফ কাজ করছেন।

সংবাদ সম্মেলেনে স্টিভেন ইয়েসিয়েছ বলেন, আমাদের বাংলাদেশ টিমের মান নিয়ে আমরা খুবই খুশি এবং তারা অগমেডিক্সের উন্নয়নে অনেক অবদার রাখছে।

আহমাদুল হক বলেন, বাংলাদেশ থেকে দেশের গন্ডি পেরিয়ে প্রযুক্তিনির্ভর সেবা দিয়ে ব্যাপক সন্তোষজনক মতামত পাওয়া যাচ্ছে।

২০১৬ সালের ডিসেম্বরে অরবিমেড ২৩ মিলিয়ন ইউএস ডলার বিনিয়োগের মাধ্যমে স্ট্রাটেজিক পার্টনার হিসেবে অগমেডিক্সের সাথে কাজ শুরু করে।

অডমেডিক্স যুক্তরাষ্ট্রের বড় পাঁচটি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে প্রায় ১৭ মিলিয়ন ডলারের বিনিয়োগ পেয়েছে। বর্তমানে অগমেডিক্স যুক্তরাষ্ট্রের ৩০ টিরও বেশি স্টেটে প্রাইমারি কেয়ার ডক্টর, স্পেশালিস্ট ও সার্জনদের সেবা দিয়ে আসছে যারা প্রতিদিন প্রায় ৫ হাজার রোগী দেখেন।

আল-আমীন দেওয়ান

*

*

Related posts/