Maintance

‘দেশে সাইবার সিকিউরিটির ধারণা পরিস্কার নয়’

প্রকাশঃ ৪:৪৫ অপরাহ্ন, ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৪:৪৫ অপরাহ্ন, ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দেশে সাইবার সিকিউরিটি নিয়ে সচেতনতার বেশ অভাব রয়েছে। সুরক্ষার বিভিন্ন ধাপে ঝুঁকি রয়েছে। ইন্টারনেট দুনিয়ায় নিজেদের সুরক্ষিত রাখতে হলে সচেতনতা বাড়ানোর পাশাপাশি এ বিষয়ে সুর্নিদিষ্ট আইন প্রণয়ন করতে হবে। গঠন করতে হবে সাইবার সিকিউরিটি ফোর্স।

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে চলতে থাকা বেসিস সফটএক্সপোতে দেশের সাইবার সিকিউরিটি নিয়ে ‘অ্যাড্রেসিং সাইবার সিকিউরিটি ফ্রম গ্লোবাল অ্যান্ড লোকাল পারসপেক্টিভ’ শীর্ষক সেমিনারের এমন অভিমত জানান বক্তারা।

বেসিস পরিচালক সৈয়দ আলমাস কবিরের সঞ্চালনায় সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন এসএসএল ওয়ারলেসের সিটিও শাহজাদা রেদওয়ান।

cyber.techshohor

শাহজাদা রেদওয়ান তাঁর প্রবন্ধে বলেন, সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকে বড় ধরণের হ্যাকিংয়ের ঘটনা ঘটেছে। এর মাধ্যমে বোঝা যায় আমরা সাইবার ওয়ার্ল্ডে মোটেও সুরক্ষিত নই। আমাদের সুরক্ষিত থাকতে হলে প্রথমেই সাইবার সিকিউরিটি আইন প্রণয়ন করতে হবে। একই সঙ্গে রিসোর্স ডেভেলপমেন্ট করতে হবে। এজন্য সরকারের সহযোগিতা প্রয়োজন। দেশে ডাটা প্রাইভেসির জন্য কোনো অ্যাক্ট নেই। ন্যাশনাল ডেটার সুরক্ষার জন্য এই অ্যাক্ট জরুরি।

সেমিনারে সিটিও ফোরামের সভাপতি তপন কান্তি সরকার বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক দেশের প্রত্যেকটি ব্যাংককে আইটি পলিসি গঠনের নির্দেশ দিয়েছে। অনেক ব্যাংক মনে করছে নেটওয়ার্ক সিকিউরিটি হলো সাইবার সিকিউরিটি। কিন্তু সাইবার সিকিউরিটি নেটওয়ার্ক সিকিউরিটি থেকে আলাদা। সাইবার সিকিউরিটি নিশ্চিত করতে হলে সচেতনতা বাড়াতে হবে। পাশাপাশি এ নিয়ে আইন প্রণয়ন জরুরি।

বুয়েটের ক¤িপউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মাহফুজুল ইসলাম বলেন, সাইবার সিকিউরিটি নিয়ে আমাদের দেশে এখনও পরিস্কার ধারণা তৈরি হয়নি। আমাদের সিকিউরিটি টুলস এবং সিস্টেম থাকলেও পলিসি বা অ্যাক্ট নেই। সিকিউরিটি পলিসি খুব গুরুত্বপূর্ণ। এই পলিসি বাস্তবায়নও করতে হবে। দেশে ডাটা ম্যানেজমেন্ট এবং ডাটা সিকিউরিটির জন্য কোনো বড় পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। এজন্য ফরেনসিক ল্যাব তৈরি করতে হবে।

সেমিনারে আরও বক্তব্য রাখেন, ইস্টার্ন ব্যাংকের হেড অব আইটি ওমর ফারুক খোন্দকার, তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ ড. এম পান্না।

আল-আমীন দেওয়ান

*

*

Related posts/