Maintance

দেশে স্মার্টফোনের বাজারে দ্বিতীয় অবস্থানে হুয়াওয়ে

প্রকাশঃ ৩:০৮ অপরাহ্ন, ফেব্রুয়ারি ৬, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৩:৪৩ অপরাহ্ন, ফেব্রুয়ারি ৬, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : স্মার্টফোনের বাজারে দেশে দ্বিতীয় অবস্থানে উঠে এসেছে চীনা ব্র্যান্ড হুয়াওয়ে। বাংলাদেশে গ্রাহকদের চাহিদা ও সন্তুষ্টিকে মাথায় রেখে ডিভাইসে অভিনব প্রযুক্তির সন্নিবেশ ঘটিয়ে প্রতিষ্ঠানটি আজকের এই অবস্থানে এসেছে বলে জানাচ্ছে বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান জিএফকে গ্লোবাল।

সম্প্রতি প্রকাশিত জিএফকে’র গবেষণা প্রতিবেদনে এমন তথ্য উঠে এসেছে। যেখানে বাংলাদেশের বাজারে এখনো প্রথম অবস্থানে রয়েছে সিম্ফনি। আর দক্ষিণ কোরিয় ব্র্যান্ড স্যামাসংকে তিনে সরিয়ে দিয়েছে হুয়াওয়ে। আর চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে আরেক দেশিয় ব্র্যান্ড হিসেবে পরিচিত ওয়াল্টন মোবাইল।

জিএফকে ওই গবেষণা করেছে ২০১৬ সালে। সে বছর নভেম্বর মাসে আর্থিক মূল্যের বিচারে হুয়াওয়ের দখলে বাজারের যে অংশ ছিল সেটা বেড়ে যায় ডিসেম্বরে।

Huawei-logo

প্রতিবেদনের তথ্য থেকে জানা যায়, বাংলাদেশে বিক্রির সংখ্যা বিচারে হুয়াওয়ে দখল করে আছে ১৫ দশমিক ৫ শতাংশ। ২০১৬ সালের ডিসেম্বরের জিএফকে জরিপের তথ্য অনুযায়ী গত বছরের নভেম্বরে আর্থিক মূল্যের বিচারে হুয়াওয়ের দখলে ছিলো ১৮ দশমিক ৯ শতাংশ যা ডিসেম্বরে বেড়ে হয়েছে ২১ দশমিক ৪ শতাংশ।

চ্যানেল বিস্তৃতি, নতুন ডিভাইস উন্মোচন এবং আকর্ষণীয় অফারের কারণে বাংলাদেশে এ অভাবনীয় সাফল্য আনতে সক্ষম হয়েছে চীনা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে বলে বলছে জিএফকে।

গত বছরের ডিসেম্বরে মধ্যম পর্যায়ের ফ্ল্যাগশিপ মডেল জিআর৫ ২০১৭ উন্মোচন করে প্রতিষ্ঠানটি। উন্মোচনের মাত্র ১০ দিনের মধ্যে ডুয়েল লেন্স ক্যামেরার হ্যান্ডসেটটির জন্য পাঁচ হাজার অগ্রিম বুকিং হয়। হ্যান্ডসেটটির অভাবনীয় সাফল্য হুয়াওয়েকে দেশের বাজারে কয়েক ধাপ সামনের দিকে নিয়ে গেছে বলে গবেষণা তথ্যে বলছে জিএফকে।

তাদের তথ্য অনুযায়ী, মধ্যম পর্যায়ের ডিভাইসগুলো (২০০-৩০০ মার্কিন ডলার) দ্রুতগতিতে বাজার দখলের ক্ষেত্রে হুয়াওয়ের জন্য সবচেয়ে শক্তিশালী মাধ্যম হিসেবে বিবেচিত হয়েছে। এই দামের মধ্যে দেশের বাজারে অন্যান্য প্রতিযোগি প্রতিষ্ঠানগুলোকে পেছনে ফেলে ৪৫ শতাংশ বাজার দখল করেছে হুয়াওয়ে।

হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেডের ডিভাইস বিজনেসের ডিরেক্টর ইংমার ওয়্যাং বলেন, প্রতিষ্ঠানের সাফল্যের পেছনে ক্রেতাদের অবদান সবচেয়ে বেশি থাকে। বাজেটের মধ্যে তারা ক্রেতাদের সেরা পণ্য দেওয়ার ফলেই তাদের এই সফলতা বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের স্মার্টফোনের বাজার আমাদের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ এবং ২০১৭ সালে অভিনব ও উন্নতমানের ডিভাইস বাজারে নিয়ে আসার মাধ্যমে গ্রাহকের চাহিদা মেটানোই আমাদের লক্ষ্য থাকবে।

বর্তমানে বাংলাদেশে দ্রুত বর্ধনশীল ব্র্যান্ড হিসেবে স্থান করে নিয়েছে হুয়াওয়ে। হুয়াওয়ের পর্যালোচনা অনুযায়ী, গত ২০১৫ সাল থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে ২৩২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে প্রতিষ্ঠানটির।

ইমরান হোসেন মিলন

*

*

Related posts/