Maintance

দায়িত্ব নিল বেসিসের নতুন কমিটি

প্রকাশঃ ৩:৪০ পূর্বাহ্ন, জুলাই ২০, ২০১৬ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৩:২৬ অপরাহ্ন, জুলাই ২০, ২০১৬

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) এর নবনির্বাচিত কার্যনির্বাহী পরিষদ (২০১৬-২০১৯) আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছে।

মঙ্গলবার রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরা (আইসিসিবি) এর গুলনকশা মিলনায়নে এক জাঁকজমক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিদায়ী কমিটি নতুন কমিটির কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর করে। বিদায়ী সভাপতি শামীম আহসান নবনির্বাচিত সভাপতি মোস্তাফা জব্বারের হাতে বেসিসের পতাকা ও কার্যক্রমের প্রতিবেদন তুলে দেন। এ সময় নবনির্বাচিত কার্যনির্বাহী পরিষদকে বরণ নেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বিশেষ অতিথি ছিলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এবং তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

BASIS Installation Ceremony-TechShohor

অভিষেক অনুষ্ঠানের শুরুতেই গুলশান ও শোলাকিয়ায় সন্ত্রাসী হামলায় নিহতদের স্মরণে নীরবতা পালন করা হয়। এরপর বেসিসের গত কয়েক বছরের কার্যক্রম নিয়ে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিদায়ী সভাপতি শামীম আহসান।

বিদায়ী কার্যনির্বাহী পরিষদ, বেসিস নির্বাচন বোর্ড ও আপীল বোর্ডকে তাদের অবদানের জন্য শুভেচ্ছা ক্রেস্ট তুলে দেন অতিথিরা। নবনির্বাচিত কার্যনির্বাহী পরিষদকে শপথ পাঠ করান বেসিসের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও নির্বাচন আপীল বোর্ডের চেয়ারম্যান এ তৌহিদ।

অর্থমন্ত্রী বেসিসের নবনির্বাচিত কমিটিকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, ‘উন্নয়নই আমাদের সবচেয়ে বড় লক্ষ্য। আমরা যখন লক্ষ্য নির্ধারণ করি, তখনই বুঝতে পারি এই যে নতুন প্রযুক্তি এটাকে যদি এখনই গ্রহণ না করি তবে উন্নয়নের সুযোগ কমবে। বর্তমানে উন্নয়নে সবচেয়ে বেশি অবদান তথ্যপ্রযুক্তি। এর কোনো বিকল্প নেই। ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে দেশের সফটওয়্যার খাতে উন্নয়নে সব ধরনের সহায়তা অব্যহত রাখবে সরকার।

জুনাইদ আহমেদ পলক ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে সরকারের নানা প্রকল্প ও উদ্যোগের কথা তুলে ধরে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টার নেতৃত্বে দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাত ব্যাপক সফলতা অর্জন করেছে। বাংলাদেশের ডিজিটাল উন্নয়ন এখন বিশ্বের কাছে দৃষ্টান্ত।

শাহরিয়ার আলম বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়ন এখন দৃশ্যমান। মানুষ পরিবর্তন দেখতে পাচ্ছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এই সব সময়ের মতো এই উন্নয়নের অংশিদার থাকবে।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, দেশের সফটওয়্যার উন্নয়নে কাজ করবে বেসিস। নিজের  দেশের সফটওয়্যারের জন্য দেশের বাজার তৈরি করতে হবে। বিদেশি সফটওয়্যার দিয়ে দেশের সফটওয়্যারের বাজার দখল করে রাখার কোনো যুক্তি ও বাস্তবতা নেই। দেশেই এখন আন্তর্জাতিক মানসম্মত সফটওয়্যার তৈরি হচ্ছে। তাই অগ্রাধিকার দিতে হবে দেশীয় সফটওয়্যার শিল্পকে।

অনুষ্ঠানে বেসিসের সকল সাবেক সভাপতিবৃন্দকে বিশেষ সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সেশনটি পরিচালনা করেন বেসিসের সিনিয়র সহ-সভাপতি রাসেল টি আহমেদ।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রকল্প পরিচালক কবির বিন আনোয়ার, বেসিসের সিনিয়র সহ-সভাপতি রাসেল টি আহমেদ।

এছাড়া উপস্থিত ছিলেন বেসিসের বিদায়ী ও নবনির্বাচিত সহ-সভাপতি এম রাশিদুল হাসান, বিদায়ী মহাসচিব ও নবনির্বাচিত পরিচালক উত্তম কুমার পাল, বিদায়ী যুগ্ম মহাসচিব ও নবনির্বাচিত পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল, বিদায়ী কোষাধ্যক্ষ শাহ ইমরাউশ কায়ীশ, বিদায়ী পরিচালক সানি মো. আশরাফ খান, সামিরা জুবেরী হিমিকা, নবনির্বাচিত সহ-সভাপতি ফারহানা এ রহমান, নবনির্বাচিত পরিচালক সৈয়দ আলমাস কবিরসহ বেসিসের সাবেক কার্যনির্বাহী পরিষদ, বেসিস সদস্য কোম্পানি ও সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিবৃন্দ।

আল-আমীন দেওয়ান

*

*

Related posts/